ম্যানইউর দুর্দান্ত জয়

ম্যাচের অধিকাংশ সময় বল দখলে রাখার পাশাপাশি আক্রমণে আধিপত্য দেখাল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। দারুণ এক হ্যাটট্রিক করলেন অ্যান্থনি মার্সিয়াল। শেফিল্ড ইউনাইটেডকে উড়িয়ে দিয়ে নতুন শুরুর পর প্রিমিয়ার লিগে প্রথম জয় পেল উলে গুনার সুলশারের দল। নিজেদের মাঠ ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে বুধবার ৩-০ গোলে জিতেছে ইউনাইটেড।ম্যাচের সপ্তম মিনিটে প্রথম ভালো সুযোগেই ইউনাইটেডকে এগিয়ে নেন মার্সিয়াল। ডি বক্সের ভেতর ডান দিক থেকে মার্কাস র‌্যাশফোর্ডের বাড়ানো বল খুব কাছ থেকে জালে পাঠান এই ফরাসি ফরোয়ার্ড। ১৮ মিনিটে ব্রুনো ফের্নান্দেসের ফ্রি-কিক পাঞ্চ করে ফেরান শেফিল্ড গোলরক্ষক।

তিন মিনিট পর ফের্নান্দেসের কর্নার থেকে হ্যারি ম্যাগুইয়ার হেডে বল জালে পাঠালেও গোল বাতিল করেন রেফারি। হেড করার সময় শেফিল্ডের এক খেলোয়াড়কে ম্যাগুইয়ার ধাক্কা মারায় ফাউলের বাঁশি বাজান তিনি।

৪৪তম মিনিটে নিজের দ্বিতীয় গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন মার্সিয়াল। ডান দিক থেকে অ্যারন ওয়ান-বিসাকার নিচু ক্রসে ডান পায়ের শটে গোলরক্ষককে ফাঁকি দেন তিনি।

দ্বিতীয়ার্ধে ৫৫তম মিনিটে ব্যবধান আরও বাড়তে পারত ইউনাইটেডের। ডি বক্সের ভেতর থেকে ইংলিশ ফরোয়ার্ড ম্যাসন গ্রিনউডের জোরালো শট প্রতিপক্ষের এক খেলোয়াড়ের পায়ে লেগে পোস্টের সামান্য বাইরে দিয়ে যায়।

৭৪তম মিনিটে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন মার্সিয়াল। র‌্যাশফোর্ডের সঙ্গে বল দেওয়া-নেওয়া করে বক্সের ভেতরে ঢুকে আগুয়ান গোলরক্ষকের মাথার ওপর দিয়ে জালে পাঠান তিনি।

শেষ পর্যন্ত তিন গোলের ব্যবধান ধরে রেখেই মাঠ ছাড়ে স্বাগতিকরা। পুরো ম্যাচে সেভাবে কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারেনি সফরকারীরা। লক্ষ্যে শট নিতে পারে কেবল একটি। ইউনাইটেড গোলরক্ষক দাভিদ দে হেয়াকেও তাই তেমন কোনো পরীক্ষা দিতে হয়নি।

৩১ ম্যাচে ১৩ জয় ও ১০ ড্রয়ে ৪৯ পয়েন্ট নিয়ে আগের মতো পঞ্চম স্থানেই আছে ইউনাইটেড। সমান ম্যাচে ৪৪ পয়েন্ট নিয়ে অষ্টম স্থানে শেফিল্ড।

এখানে মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.