১২ জুলাই থেকে জাবিতে অনলাইন ক্লাস

আগামী রবিবার (১২ জুলাই) থেকে অনলাইন ক্লাসে যাচ্ছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি)।

মঙ্গলবার (৭ জুলাই) বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের সভাপতি, অনুষদের ডিন এবং ইনস্টিটিউট সমূহের পরিচালকদের সঙ্গে এক ভার্চুয়াল মিটিংয়ে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বিষটি নিশ্চিত করেছেন জাবির উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. আমির হোসেন। তিনি বলেন, আগামী ১২ জুলাই থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে অনলাইনে ক্লাস নেওয়া শুরু করবে জাবি। ইতোমধ্যে গণিত ও পদার্থ বিষয়ক অনুষদের ডিন অধ্যাপক অজিত কুমার মজুমদারকে প্রধান করে একটি টেকনিক্যাল কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী ১০ জুলাইয়ের মধ্যে টেকনিক্যাল কমিটি একটা নির্দেশনা দিবে। সেই নির্দেশনা অনুযায়ী ক্লাস শুরু হবে।

তিনি আরও বলেন, অনলাইনে ক্লাস পরিচালনায় শিক্ষকরা যদি কোনও সমস্যার সম্মুখীন হন তবে তারা এই কমিটিকে অবহিত করবেন। যারা ইন্টারনেটের সমস্যার কারণে অনলাইন ক্লাসে উপস্তিত হতে পারবে না তাদের জন্য অনলাইন ক্লাসের ভিডিওসমূহ ই-মেইল বা অন্য কোন মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের কাছে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হবে। অর্থনৈতিক সমস্যা এবং অন্যান্য সমস্যা সমাধানে আরও দুইটি কমিটি গঠন করা হবে বলেও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, গত ২৫ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের সঙ্গে বৈঠকে অংশ নিয়ে দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন ক্লাস নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। তারই ধারাবাহিকতায় আগামী ১২ জুলাই থেকে অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার সিদ্ধান্ত।

 

পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ভর্তিতে বয়সসীমা থাকছে না: শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, কারিগরি শিক্ষায় ভর্তির হার বৃদ্ধির লক্ষ্যে এবং বিদেশফেরত দক্ষ কর্মীদের প্রাতিষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তির ক্ষেত্রে বয়সের সীমাবদ্ধতা রাখা হবে না। বুধবার (১ জুলাই) কারিগরি শিক্ষার উন্নয়ন সংক্রান্ত এক ভার্চুয়াল মিটিংয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা জানান তিনি।

কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মুনশী শাহাবুদ্দীনের সভাপতিত্বে মিটিংয়ে আরো যুক্ত ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরি, মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সফিউদ্দিন আহমেদ, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. সানোয়ার হোসেন, মাদ্রাসা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ‌্যাপক কায়সার আহমেদ, কারিগরি বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মো. মুরাদ হোসেন মোল্লাসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ।

শিক্ষামন্ত্রী আরো বলেন, অনেক ব্যক্তির হয়তো প্রয়োজনীয় কারিগরি দক্ষতা আছে, কিন্তু তার প্রাতিষ্ঠানিক কোনো সার্টিফিকেট নেই। সার্টিফিকেট না থাকার কারণে ভালো চাকরি পাচ্ছে না অথবা চাকরি পেলেও ভালো বেতন পাচ্ছে না। সেক্ষেত্রে সে ব্যক্তি যদি চায় এবং যদি তার প্রয়োজনীয় একাডেমিক যোগ্যতা থাকে তাহলে সে ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তি হতে পারবে।

একই মিটিংয়ে তিনি ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তির ক্ষেত্রে ছেলেদের ক্ষেত্রে ন্যূনতম যোগ্যতা জিপিএ ৩.৫ থেকে কমিয়ে ২.৫, মেয়েদের ক্ষেত্রে জিপিএ ৩ থেকে কমিয়ে ২.২৫ করার সিদ্ধান্ত দেন। পাশাপাশি ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তি ফি ১ হাজার ৮২৫ টাকা থেকে কমিয়ে ১ হাজার ৯০ টাকা করার সিদ্ধান্ত হয়।

তাছাড়া মন্ত্রী এ মাসের মধ্যে কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের শিক্ষকদের এমপিওর অর্থ ছাড় করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন।

বৈঠকে পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপনের নীতিমালা, মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর আইন ২০২০ ও এর নিয়োগবিধি প্রণয়নসহ কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।

শতবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

সব নৈতিক আন্দোলন-সংগ্রামে নেতৃত্ব দেয়া জাতির আলোকবর্তিকা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ৯৯ বছর পেরিয়ে শত বছরে পদার্পণ করেছে। করোনাভাইরাস মহামারির কারণে স্বল্প পরিসরে ৯৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।এদিকে, দেশের সব সংকট মুহূর্তে মুক্তির পথ দেখানো বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীরা ভালো নেই। নিজেদের মেধার পরিচয় দিয়ে এ বিদ্যাপীঠে ভর্তি হয়েও তারা আবাসন সংকট, যানবাহন সংকট, ক্লাসরুম সংকটসহ নানা সংকট থেকে রেহাই পাচ্ছে না।

ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসনকালে স্বাধীন জাতিসত্তার বিকাশের লক্ষ্যে বিশ শতকের দ্বিতীয় দশকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার প্রক্রিয়া শুরু হয়। ১৯২১ সালের ১ জুলাই শিক্ষার্থীদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়টির দ্বার উন্মুক্ত হয়। সে সময়কার ঢাকার সবচেয়ে অভিজাত ও সৌন্দর্যমণ্ডিত রমনা এলাকায় প্রায় ৬০০ একর জমির ওপর গড়ে ওঠে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। প্রতিষ্ঠাকালে তিনটি অনুষদ ও ১২টি বিভাগ নিয়ে একটি আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে এর যাত্রা শুরু হয়। প্রথম শিক্ষাবর্ষে বিভিন্ন বিভাগে ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা ছিল ৮৭৭ জন এবং শিক্ষক সংখ্যা ছিল মাত্র ৬০ জন।

বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৩টি অনুষদ, ১৩টি ইনস্টিটিউট, ৮৪টি বিভাগ, ৬০টি ব্যুরো ও গবেষণা কেন্দ্র এবং ছাত্র-ছাত্রীদের ১৯টি আবাসিক হল, ৪টি হোস্টেল ও ১৩৮টি উপাদানকল্প কলেজ ও ইনস্টিটিউট রয়েছে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা প্রায় ৪৬ হাজার ১৫০ জন। পাঠদান ও গবেষণায় নিয়োজিত রয়েছেন প্রায় ২ হাজার ৮ জন শিক্ষক।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সকাল সাড়ে ১০টায় নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবন প্রাঙ্গণে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মাধ্যমে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও বেলুন উড়ানোর মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হবে। বেলা ১১টায় অধ্যাপক আবদুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে ভিসি অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনলাইন সভা অনুষ্ঠিত হবে।

এতে মূল বক্তা হিসেবে জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম ‘শতবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, প্রসঙ্গ : আন্দোলন ও সংগ্রাম’ শীর্ষক বক্তব্য দেবেন। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রোভিসি (প্রশাসন), প্রোভিসি (শিক্ষা), কোষাধ্যক্ষ, সাবেক দুই ভিসি, দুই ডিন, একজন প্রভোস্ট, একজন রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট, ঢাবি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এবং ঢাবি শিক্ষক সমিতিসহ অন্যসব সমিতির পক্ষ থেকে নেতারা এ অনলাইন অনুষ্ঠানে সংযুক্ত হবেন।

অধ্যাপক গোলাম রহমানের পুরো পরিবার করোনা আক্রান্ত

সাবেক প্রধান তথ্য কমিশনার এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের প্রাক্তন অধ্যাপক গোলাম রহমানের পুরো পরিবার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। তিনি, তার স্ত্রী, ছেলে, পুত্রবধূ ও গৃহকর্মী মিলে পাঁচজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন অধ্যাপক গোলাম রহমান।

গোলাম রহমান জানান, গত ২৯ মে প্রথমে তার স্ত্রী নাইম আরা হোসাইনের করোনা ধরা পড়ে। পরে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের পরীক্ষা করালে অধ্যাপক গোলাম রহমানসহ পরিবারের আরও চারজনের করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে।

তিনি জানান, তার স্ত্রীকে রাজধানীর বাংলাদেশ স্পেশালাইজ্ড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাকে প্লাজমা থেরাপি দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। তার শারীরিক অবস্থা ভালো নয়। গোলাম রহমানসহ পরিবারের অন্য চারজন গুলশানের নিকেতনের বাসায় আইসোলেশনে আছেন। তাদের শারীরিক অবস্থা মোটামুটি ভালো।

মাধ্যমিকে পাশের হারে এবারও এগিয়ে মেয়েরা

টানা পঞ্চমবারের মতো এবার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় পাসের দিক থেকে এগিয়ে রয়েছে মেয়েরা। পাসের হার ও সংখ্যা দুদিক থেকেই মেয়েরা এগিয়ে রয়েছে।

আজ রবিবার (৩১ মে) ঘোষিত ফল থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

সকাল সাড়ে ১০টায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে এবারের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা ফলের অনুলিপি তুলে দেওয়া হয়। এর পর সেখানে ফলের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

ঘোষিত ফল অনুযায়ী, এবারের পরীক্ষায় গড় পাসের হার দাঁড়িয়েছে ৮২ দশমিক ৮৭ শতাংশ। তবে মেয়েদের পাসের হার ৮৪ দশমিক ১০ শতাংশ। আর ছেলেদের পাসের হার ৮১ দশমিক ৬৩ শতাংশ।

শিক্ষামন্ত্রী জানান, এবার ৯টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ড, মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড এবং কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে গড়ে ৮২ দশমিক ৮৭ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছে। সব বোর্ডে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন মোট ২০ লাখ ৪০ হাজার ২৮ জন শিক্ষার্থী। যার মধ্যে ১৬ লাখ ৯০ হাজার ৫২৩ জন শিক্ষার্থী পাস করেছে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এসএসসির সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের মধ্যে ঢাকা বোর্ডে পাসের হার ৮২.৩৪ শতাংশ, রাজশাহী বোর্ডে ৯০.৩৭ শতাংশ, কুমিল্লা বোর্ডে ৮৫.২২ শতাংশ, যশোর বোর্ডে ৮৭.৩১ শতাংশ, চট্টগ্রাম বোর্ডে ৮৪.৭৫ শতাংশ, বরিশাল বোর্ডে ৭৯.৭০ শতাংশ, সিলেট বোর্ডে ৭৮.৭৯ শতাংশ, দিনাজপুর বোর্ডে ৮২.৭৩ শতাংশ, ময়মনসিংহ বোর্ডে ৮০.১৩ শতাংশ।

এছাড়া মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডে পাস করেছে ৮২.৫১ শতাংশ এবং কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে পাস করেছে ৭২.৭০ শতাংশ শিক্ষার্থী।

দীপু মনি জানান, এ বছর শূন্য শতাংশ পাস করা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ১০৪টি, গত বছর যা ছিল ১০৭টি। কমেছে তিনটি। এটি  ভালো খবর। শূন্য শতাংশ পাস প্রতিষ্ঠানগুলোর বিষয়ে তিনি  বলেন, ওইসব প্রতিষ্ঠান কেন ফল খারাপ করল সেসব বিষয় খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ঢাবি অধ্যাপক করোনায় আক্রান্ত, ফুলার রোড লকডাউন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) একজন শিক্ষক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের উত্তর ফুলার রোডের শিক্ষক কোয়ার্টারে থাকেন। তার করোনা শনাক্ত হওয়ার পর ওই এলাকা লকডাউন করে দেওয়া হয়েছে।

করোনায় আক্রান্ত ওই শিক্ষক স্বাস্থ্য অর্থনীতি বিভাগের বলে জানা গেছে। তিনি কোয়ার্টারে নিজের ফ্ল্যাটেই আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. গোলাম রব্বানী বলেন, ‘আমাদের এক শিক্ষক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি বাসায় থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান বলেন, ‘আমাদের একজন শিক্ষক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানতে পেরেছি। তিনি স্বাস্থ্য অথর্নীতি বিভাগের অধ্যাপক।’

যেভাবে ঘরে বসেই পাওয়া যাবে এসএসসির ফলাফল

করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই আগামী রবিবার এসএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশ হচ্ছে। ফেইসবুক লাইভের মাধ্যমে ফলাফল প্রকাশ করবেন শিক্ষামন্ত্রী।

রবিবার প্রকাশিত হবে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফল। এবারও ফলাফল দেয়া হবে ডিজিটাল মাধ্যমে। রবিবার (৩১ মে) সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ফল প্রকাশ করবেন। এরপর, বেলা ১২টায় শিক্ষামন্ত্রী ফেইসবুক লাইভে ফলাফলের বিস্তারিত তুলে ধরবেন। শুক্রবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

দু’টি উপায়ে ঘরে বসেই এসএসসির ফলাফল পাওয়া যাবে। বোর্ডের ওয়েবসাইটে গেলে শিক্ষার্থীরা ফলাফল দেখতে পারবে। এছাড়া মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমেও পাওয়া যাবে রেজাল্ট। সেক্ষেত্রে যেকোনো মোবাইল অপারেটরে মেসেজ অপশনে গিয়ে ইংরেজিতে টাইপ করতে হবে এসএসসি (ঝঝঈ) এরপর স্পেস দিয়ে বোর্ডের প্রথম তিনটি অক্ষর ইংরেজি ক্যাপিটাল লেটারে টাইপ করতে হবে। এরপর স্পেস দিয়ে লিখতে হবে রোল নম্বর। আরেকটি স্পেস দিয়ে লিখতে হবে ২০২০ (২০২০)।  এরপর ম্যাসেজটি পাঠাতে হবে ১৬২২২ (১৬২২২) নম্বরে। ফিরতি এসএমএসেই পাওয়া যাবে ফলাফল।

এদিকে, করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই এসএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশ হওয়ায় রবিবার কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই জমায়েত না হওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এমনকি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অফিসগুলো বন্ধ রাখার নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।

গেল ৩ থেকে ২৭ ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত হয় এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। এবারের পরীক্ষায় ২০ লাখ ৪৭ হাজার ৭৭৯ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি ফের বাড়ছে

সরকারি সাধারণ ছুটি বাড়ানো না হলেও শিক্ষার্থীদের সুরক্ষা ও নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি আরও বাড়ানো হবে। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হবে। এ বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতোপূর্বে সেপ্টেম্বরের আগে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে না দেয়ার ব্যাপারে ইঙ্গিত দিয়েছেন। সেটাকেই তারা যথাযথ দিকনির্দেশনা বলে মনে করছেন। তাই প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রম বিদ্যমান অবস্থায় রাখা এবং ছাত্রছাত্রীদের বাসায় রেখে লেখাপড়ার ব্যবস্থা বা বিকল্প পাঠদানের চিন্তাভাবনা চলছে বলে তারা জানিয়েছেন।

তারা আরও জানান, নতুন করে সরকারি সাধারণ ছুটি বাড়ানো না হলেও শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে সকল স্কুল-কলেজ, কারিগরি-মাদরাসা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছুটি বাড়ানোর নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীদের ঝুঁকির মধ্যে না ফেলতে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এমন পরিস্থিতিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হলেও অভিভাবকরা তাদের সন্তানকে পাঠাবেন না। তাই সব কিছু চিন্তা-ভাবনা করে ঈদের ছুটি শেষ হওয়ার আগেই ছুটি বাড়ানোর ঘোষণা দেয়া হবে।

২৮ মে’র (বৃহস্পতিবার) মধ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং ৪ জুনের আগে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় পরবর্তী পরিকল্পনা জানানো হতে পারে বলে জানা গেছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মাহবুব হোসেন আজ বুধবার (২৭ মে) গণমাধ্যমকে বলেন, ছুটি বাড়ানোর বিষয়ে আমাদের এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। ছাত্র-ছাত্রীদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে তাদের ভালোর জন্য পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। পরিস্থিতি পর্যালোচনা চলছে। এ সপ্তাহের মধ্যে পরবর্তী ঘোষণা আসবে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব আকরাম-আল-হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার মতো এখনো পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়নি। আরও কত দিন ছুটি বাড়ানো হবে সেটি নিয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

তিনি বলেন, আগে জীবন, এরপর লেখাপড়া। ছুটি বাড়ানোর বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী ইঙ্গিত দিয়েছেন। সেটাই বাস্তবসম্মত দিকনির্দেশনা বলে আমরা মনে করছি। আগামী ৫ জুন পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি আছে। এর আগেই আমরা এ নিয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানাব।

তথ্যসূত্রঃ এবিএন

বনানী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত শিক্ষাবিদ নিলুফার মঞ্জুর

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া শিক্ষাবিদ নিলুফার মঞ্জুরকে ঢাকার বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে তাকে দাফন করা হয়।এ সময় পরিবারের পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন তার ছেলে সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর। বেসরকারি সংস্থা আল-মারকাজুল ইসলামী জানাজা ও দাফন কাজে সহায়তা করে। অ্যাপক্সে ট্যানারির নির্বাহী পরিচালক এম এ মাজেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিলুফার মঞ্জুর রাজধানীর সানবিমস স্কুলের অধ্যক্ষ ছিলেন। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে তিনি মঙ্গলবার ভোরের দিকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) মারা যান। তার বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর।

সংশ্লিষ্টরা জানান, সরকারি নিয়ম মেনে বনানী কবরস্থানে জানাজা শেষে নিলুফার মঞ্জুরের মরদেহ দাফন করা হয়। বেলা সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর ১২টার মধ্যে নিলুফার মঞ্জুরের দাফন কাজ শেষ হয়।

নিলুফার মঞ্জুর দেশের অন্যতম বৃহৎ শিল্প প্রতিষ্ঠান এপেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা সৈয়দ মঞ্জুর এলাহীর স্ত্রী। তিনিও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বাসায় চিকিৎসাধীন।

১৯৭৪ সালের ১৫ জানুয়ারি সানবিমস স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন নিলুফার মঞ্জুর। তার বাবা ডা. মফিজ আলী চৌধুরী ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১৯৭২ সালের মন্ত্রিসভার সদস্য। তার স্বামী সৈয়দ মঞ্জুর এলাহী ১৯৯৬ ও ২০০১ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

তথ্যসূত্রঃ এবিএন

ঈদের পর এসএসসির ফল:  শিক্ষা মন্ত্রণালয়

করোনাভাইরাসের কারণে পিছিয়ে যাওয়া এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ হবে ঈদুল ফিতরের পরে। আজ মঙ্গলবার গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মাহবুব হোসেন।

খুদে বার্তার মাধ্যমে ফল জানার ব্যবস্থা করা হয়েছে জানিয়ে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের জ্যেষ্ঠ সিস্টেম অ্যানালিস্ট মঞ্জুরুল কবীর বলেন, এ জন্য গতকাল সোমবার থেকে প্রাক নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হয়েছে। যারা এই প্রাক নিবন্ধন করবে, তারা প্রথম দিকে ফল পাবে। তবে আগের মতো নির্ধারিত পদ্ধতিতেও খুদে বার্তায় ফল জানা যাবে। নতুন ব্যবস্থায় প্রাক নিবন্ধন করা থাকলে সংশ্লিষ্ট পরীক্ষার্থীর মোবাইলে ফল জানিয়ে দেওয়া হবে।

মঞ্জুরুল কবীর আরও জানান, প্রাক নিবন্ধনের জন্য যেকোনো মোবাইল অপারেটরের নম্বর থেকে SSC Board Name (প্রথম তিন অক্ষর) Roll Year লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে। প্রতি এসএমএসের জন্য দুই টাকা চার্জ নেওয়া হবে।

গত ফেব্রুয়ারিতে এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। তাতে মোট পরীক্ষার্থী ছিল প্রায় সাড়ে ২০ লাখ।

প্রসঙ্গত, পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকলে এ মাসের প্রথম সপ্তাহের দিকে এসএসসির ফল প্রকাশের কথা ছিল। কিন্তু করোনার কারণে তা অশ্চিয়তার মুখে পড়ে। এ অবস্থায় কিছুদিন আগে শিক্ষা বোর্ডগুলোর পক্ষ থেকে বলা হয়, চলতি মাসের মধ্যেই ফল প্রকাশ করা হবে। সেই লক্ষ্যেই প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

তথ্যসূত্রঃ এবিএনর