‘মাছির মতো তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে অজিঙ্কা রাহানেকে’

২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারির পর ওয়ানডে ক্রিকেটে ভারতীয় দলের জার্সি গায়ে আর তাকে দেখা যায়নি। দেশের জার্সিতে ওয়ানডে ক্রিকেটে ২৫ ম্যাচে ৮৪৩ রান করেছেন তিনি। গড় ৩৬.৬৫। আহামরি কিছু নয় বলতেই পারেন। তবে তার স্ট্রাইক রেট ৯৪-এর কাছাকাছি। সব থেকে বড় কথা, ভারতীয় দলের ব্যাটিং অর্ডারে চার নম্বর পজিশন-এ তিনি নির্ভরযোগ্য হয়ে উঠছিলেন। তবে তাঁকে ওই পজিশন-এ মানিয়ে নেওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়নি। তার আগে কোনও কারণ ছাড়াই টিম ইন্ডিয়া-র ওয়ানডে দল থেকে ছেঁটে ফেলা হয়েছিল অজিঙ্ক রাহানেকে।

ওয়ানডে ক্রিকেটে ভারতীয় দলের চার নম্বর পজিশনে এখন ভাল খেলছেন শ্রেয়স আইয়ার ও কেএল রাহুল। কিন্তু ওই পজিশন থেকে রাহানেকে বাদ দেওয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছন আকাশ চোপড়া। ভারতীয় দলের প্রাক্তন ওপেনার আকাশ চোপড়া এই নিয়ে ইউ টিউব চ্যানেলে কথা বলেছেন। তিনি মনে করেন ভাল খেলা সত্ত্বেও রাহানেকে অকারণে ছেঁটে ফেলা হয়েছে। আকাশ চোপড়া বলেছেন, “চার নম্বরে নেমে ওর রেকর্ড ভাল। ধারাবাহিক রান করছিল। স্ট্রাইক রেট ছিল ৯৪-এর আশেপাশে। তার পরও ওকে বাদ দেওয়া হল। ঠিক যেমনভাবে দুধে পড়ে থাকা মাছি তাড়ানো হয়। আমার মতে ওর প্রতি সুবিচার করা হয়নি।”

আকাশ চোপড়া আরও বলেন, “ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট যদি ইংল্যান্ডের মতো প্রতি ম্যাচে অন্তত ৩৫০ রানের ইনিংস গড়ার কথা ভাবত তা হলে আলাদা ব্যাপার ছিল। কিন্তু ভারতীয় দল এখনও ইনিংস গড়ে খেলার কথা ভাবে। আর এই স্ট্র্যাটেজিতে খেললে চার নম্বরে রাহানেকে না খেলানোর কোনও কারণ নেই। সব থেকে বড় কথা, যে সময় ও ভাল খেলছিল তখনই ওকে অকারণে বাদ দেওয়া হয়েছিল।”

 

শিরোপা পুনরুদ্ধারের পথে এগিয়ে যেতে মাঠে নামছে রিয়াল

লা লিগায় শিরোপা পুনরুদ্ধারের পথে এগিয়ে যেতে আজ আবারো মাঠে নামছে রিয়াল মাদ্রিদ। যেখানে বাংলাদেশ সময় রাত ২টায় তাদের প্রতিপক্ষ দেপোর্তিভো আলাভেস।এক ম্যাচ হাতে রেখে বার্সেলোনার থেকে ১ পয়েন্ট ব্যবধানে এগিয়ে রিয়াল। তাই আজ জয় পেলে আবারো ৪ পয়েন্ট ব্যবধানে এগিয়ে যাবে লস ব্লাঙ্কোস। লিগের বাকী ৪ ম্যাচ থেকে ৮ পয়েন্ট পেলেই রেকর্ড ৩৪তম লা লিগা শিরোপা ঘরে তুলবে গ্যালাকটিকোরা। ২০১৬-১৭ সালে সবশেষ লা লিগা শিরোপা জিতেছিলো রিয়াল।

তবে আজকের ম্যাচে দলের অন্যতম সদস্য ভিনিসিয়াসকে না পাবার জোড় সম্ভাবনা রয়েছে। সবশেষ করোনা পরীক্ষায় তার ফলাফলে পজেটিভ/নেগেটিভ কোন কিছুই না আসায় দেখা দেয় সমস্যা। এমনকি দলের সাথে অনুশীলনেও রাখা হয়নি তাকে। তবে রিয়াল কোচ জিদান জানান, আজ ম্যাচের আগেই তার ২য় পরীক্ষার ফল আসবে এবং তাকে মাঠে পাবেন তিনি।

হোল্ডারের ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে দিশেহারা ইংলিশরা

করোনা বিরতির ১১৭ দিন পর ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজের টেস্ট সিরিজ দিয়ে সরব হলো ২২ গজের খেলা। অ্যাগিয়াস বোলে টেস্টের প্রথম দিন বৃষ্টির কারণে মাত্র ১৭.৪ ওভার খেলা হয়।গতকাল শুরুতেই ইংল্যান্ড শিবিরে আঘাত হানেন শেনন গ্যাব্রিয়েল। তার বলে বোল্ড হয়ে শূন্য রানে সাজঘরে ফেরেন ডম সিবলি। ১ উইকেটে ৩৫ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন শুরু করে স্বাগতিকরা। দ্বিতীয় দিনেও যমদূত রূপে আর্বিভূত গ্যাব্রিয়েল। শুরুতেই জো ডেনলিকে বোল্ড করেন গ্যাব্রিয়েল। ১৮ রান করে জো ডেনলি সাজঘরে ফিরলে এক ওভার পরেই তাকে অনুসরণ করেন ররি বার্নস। ৩০ রান যোগ করে গ্যাব্রিয়েলের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন বার্নস।

গ্যাব্রিয়েল তাণ্ডবে রীতিমত যখন ধুঁকছিল ইংলিশ ব্যাটসম্যানরা, তখনই সুপার সাইক্লোন রূপে আবির্ভূত হন ক্যারিবীয় অধিনায়ক জেসন হোল্ডার। প্রমাণ দেন স্টোকস নন, সময়ের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার তিনিই। তার পেস আক্রমণে একে একে ধরাশায়ী জ্যাক ক্রলি আর অলি পোপ।

ক্রলি এলবিডব্লিউ হন ১০ রানে আর উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ১২ রানে সাজঘরে ফেরেন পোপ। ৮৭ রান তুলতেই ইংল্যান্ড ৫ ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে বসে। দলকে খাঁদের কিনার থেকে বাঁচাতে কাঁধে দায়িত্ব নেন ইংলিশ অধিনায়ক বেন স্টোকস। সঙ্গে সহযোদ্ধা জস বাটলার। কিন্তু তিনিও হোল্ডার ঝড়ে বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি।

হোল্ডারের ফুলার ডেলিভারিটা পুশ করতে গিয়ে এজ হয়ে উইকেটরক্ষকের ক্যাচে পরিণত স্টোকস। হাফসেঞ্চুরি থেকে ৭ রান বাকি থাকতে সমাপ্তি ঘটে ইংলিশ অধিনায়কের প্রথম ইনিংসের।

অধিনায়কের উইকেট নিয়েও মন ভরেনি হোল্ডারের। এক ওভার বিরতি দিয়ে এসে স্টোকসের জুটির আরেক সঙ্গী বাটলারকে ফেরান হোল্ডার। বাটলারের সংগ্রহ ৩৫ রান। পরের ওভারেই স্বদেশীয় জোফরা আর্চারকে শূন্য রানে ফেরান হোল্ডার। এতে পাঁচ উইকেটের কোটা পূরণ হয় হোল্ডারের। হোল্ডারের পরের শিকার মার্ক উড। ৫ রানের বেশি করতে পারেননি উড।

উডকে আউট করে ক্যারিয়ার সেরা বোলিং ফিগারে পৌঁছান জেসন হোল্ডার। ৪২ রানে ৬ উইকেট নিলেন তিনি। এর আগে হোল্ডারের ক্যারিয়ার সেরা বোলিং ফিগার ছিল বাংলাদেশের বিপক্ষে। ২০১৮ সালে কিংস্টোনে ৫৯ রানে ৬ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি।

এদিকে দশম উইকেটে কিছুটা প্রতিরোধ গড়ে তুলে ৩০ রানের জুটি গড়েন ডম বেস। তবে ফের গ্যাব্রিয়েলের শিকারে পরিণত হন জেমস অ্যান্ডারসন (১০)। ডম বেস ৩১ রানে অপরাজিত থাকেন । গ্যাব্রিয়েল পেয়েছেন ৬২ রানে ৪ উইকেট।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত গ্যাব্রিয়েল ও হোল্ডারের বিধ্বংসী বোলিংয়ে ২০৪ রানে ইংল্যান্ডের প্রথম ইনিংস গুটিয়ে যায়।

ভারতে আইপিএলের সম্ভাবনা দেখছেন না সৌরভ

সময়ের সঙ্গে মহামারিতে রূপ নেওয়া প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতির মাঝে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পিছিয়ে যাওয়াটা এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। সব ঠিক থাকলে শুক্রবারই (১০ জুলাই) বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা আইসিসি দিতে পারে এই দুঃসংবাদ। এই মরণ ভাইরাসের সঙ্গে পেরে উঠছে না আয়োজকরা। তবে এই সুযোগে অক্টোবর-নভেম্বরে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) মাঠে গড়ানোর কথা রয়েছে। কিন্তু এবার সেই সম্ভাবনাতেও জল ঢেলে দিলেন খোদ সৌরভ গাঙ্গুলি।

ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের (বিসিসিআই) প্রেসিডেন্ট সৌরভ গাঙ্গুলি এ বছর ভারতে আইপিএলের সম্ভাবনা দেখছেন না। তিনি বলেন, ‘‌করোনা মহামারি এখনই ভারত থেকে বিদায় নেবে না। এ বছর তো থাকবেই, আগামী বছরের শুরুর দিকেও এর দাপট বজায় থাকতে পারে। আমাদের ততদিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। কারণ কেউই অসুস্থ হতে চায় না।’‌

সৌরভ মনে করছেন সামনে আরও দুর্দিন আসছে। তিনি ভারতীয় টেস্ট দলের ওপেনার মায়াঙ্ক আগারওয়ালকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘‌আগামী দুই থেকে চার মাস আরও কঠিন পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে হবে আমাদের। এ বছরের শেষের দিকে বা আগামী বছরের শুরুর দিকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারব আমরা। আমাদের ধৈর্য ধরতেই হবে। আমাদের প্রতিষেধকের জন্য অপেক্ষা করতে হবে।’

একই সঙ্গে তিনি করোনার সংক্রমণের এই সময়ে বলে লালা ব্যবহারের ভয়াবহতা নিয়েও আলোচনা করেন।

তবে এটাও ঠিক বিসিসিআই যে কোনো মূল্যে আইপিএল আয়োজন করতে চায়। কারণ তাদের বড় আয়ের উৎস এই টুর্নামেন্ট। ভারতে না হলে বিদেশের মাটিতে হতে পারে আইপিএল। এরই মধ্যে শ্রীলঙ্কা ও সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রস্তাব দিয়েছে। একই সঙ্গে নিউজিল্যান্ডও এই ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টের স্বাগতিক হতে চাইছে।

 

৮ জুলাই মাঠে গড়াচ্ছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের ভয়াবহ তাণ্ডবের মাঝে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে প্রায় চার মাস পুরোপুরি বন্ধ থাকার পর অবশেষে মাঠে গড়াচ্ছে বাইশ গজের লড়াই। বুধবার (৮ জুলাই) সাউদাম্পটনে বাংলাদেশ সময় বিকাল চারটায় টস করতে নামবেন ইংল্যান্ডের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক বেন স্টোকস এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের অধিনায়ক জেসন হোল্ডার।এর মধ্য দিয়ে করোনা ভাইরাস পরবর্তী সময়ে আনুষ্ঠানিকভাবে মাঠে ফিরতে চলেছে ক্রিকেট। সম্পূর্ণ দর্শকহীন গ্যালারিতে, বায়ো-সিকিউর পরিবেশে মাঠে গড়াবে ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচ।

করোনা ভাইরাসের কারণে বন্ধ হয়ে যাওয়া ক্রীড়াঙ্গনের মধ্যে সবার আগে মাঠে ফিরেছিল ইউরোপের ফুটবল। জার্মান বুন্দেশলিগার পর স্প্যানিশ লা লিগা, ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ এবং ইতালিয়ান সিরি-আ, সবই ফিরেছে মাঠে।

ক্রিকেট ফেরানোর জন্য বেশ আগে থেকেই প্রস্তুতি শুরু করেছে ইংল্যান্ড। এ জন্য অন্তত ৫ সপ্তাহ আগে ইংল্যান্ড এসে পৌঁছে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দল। এসেই তারা ছিল ১৪ দিনের আইসোলেশনে। এরপর তিন সপ্তাহ সময় পেয়েছে প্রস্তুতির জন্য। এরই মাঝে ইংল্যান্ড বাটলার একাদশ বনাম স্টোকস একাদশের মধ্যে একটি তিনদিনের প্রস্তুতি ম্যাচের আয়োজন করে। ক্রিকেট ওই ম্যাচ দিয়ে মাঠে ফিরলেও, আনুষ্ঠানিকভাবে মাঠে ফিরবে বুধবার বিকেল ৪টায় ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্টের মধ্য দিয়ে।

মার্চে শেষবার ক্রিকেটের বাইশ গজে বল গড়িয়েছিল। এরপর থেকে করোনার দাপটে বদলে যায় ছবিটা। লকডাউন থেকে ধীরে ধীরে আনলক হচ্ছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ। সুতরাং, ক্রীড়াঙ্গনেও সেই আনলক হওয়ার সুর। ক্রিকেটে সুরটা ছড়িযে দিচ্ছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং ইংল্যান্ড।

করোনার জেরে দীর্ঘ বিরতির পর মাঠে নামার আগে ফিটনেসই সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ দুই দলের ক্রিকেটারদের সামনে। তবে ব্যাট-প্যাড নিয়ে ক্রিকেটাররা মাঠে নেমে পড়লেও বিশ্ব থেকে এখনও বিদায় নেয়নি মরণব্যাধি করোনা ভাইরাস। তাই দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামেই ম্যাচের আয়োজন হচ্ছে। তবে এই ‘ঐতিহাসিক’ ম্যাচে সাউদাম্পটনের স্টেডিয়ামের দর্শকাসন যাতে একেবারে ম্যাড়ম্যাড়ে না দেখায়, সে জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করেছে ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড।

সেটা কীভাবে? ব্যাটসম্যান চার কিংবা ছক্কা হাঁকালে অথবা বোলার উইকেট তুলে নিতে পারলে গ্যালারি থেকে ভেসে আসবে উল্লাসের শব্দ। বেজে উঠবে মিউজিক। মাঠের পরিবেশ যাতে আগেই মতোই স্বাভাবিক মনে হয়, সে জন্যই কৃত্রিমভাবে এই উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। আয়োজকদের এমন প্রস্তাবে আপত্তিও জানাননি ক্রিকেটাররা। তবে শুধু মাঠেই নয়, কৃত্রিমভাবে তৈরি দর্শকদের এই উচ্ছ্বাসের আওয়াজ টিভিতে চোখ রেখেও শুনতে পাবেন ক্রিকেটপ্রেমীরা।

উল্লেখ্য, প্রযুক্তির ব্যবহার করে গ্যালারিতে এভাবেই কৃত্রিম উল্লাসের আওয়াজ ব্যবহার করা হচ্ছে ফুটবল মাঠেও। লা লিগা এবং ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচ ছোটপর্দায় দেখলেও কানে আসছে সেই শব্দ। এবার ক্রিকেটেও কৃত্রিমভাবে পূরণ করা হবে দর্শকদের অভাব। ফাঁকা গ্যালারি, থুতু ছাড়া বোলিং, কোভিড পরিবর্তন- ইত্যাদি একাধিক নতুন নিয়ম নিয়ে করোনা পরবর্তী যুগে ক্রিকেটের চেহারাটা দেখতে মরিয়া ক্রিকেট বিশ্ব।

করোনার ছোবলমুক্ত হলেন আরও ৩ পাকিস্তানি ক্রিকেটার

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের বিষাক্ত ছোবলে জর্জরিত পাকিস্তানের ঘোষিত দলের আরও ৩ ক্রিকেটার এই মরণব্যাধির সংক্রমণমুক্ত হয়েছেন। তৃতীয় দফায় এবার কোভিড-১৯ নেগেটিভ এসেছেন কাশিফ ভাট্টি, হায়দার আলী ও ইমরান খান। তারা দুই দফা পরীক্ষা করে ছাড়পত্র পান।এই তিনজন ৮ জুলাই ইংল্যান্ডের ওরচেস্টারে পাকিস্তান মূল দলের সঙ্গে যোগ দেবেন। এছাড়া তাদের সঙ্গে যুক্তরাজ্য সফরে থাকবে দুই স্টাফ মালাং আলী ও মোহাম্মদ ইমরান।

এর আগে ইংল্যান্ড সফরের জন্য পাকিস্তানের ঘোষিত ২৯ সদস্যের দলের ১০ জন করোনা পজিটিভ হন। এদের মধ্যে মোহাম্মদ হাফিজ, ওহাব রিয়াজ ও শাদাব খানসহ ৬ জন করোনামুক্ত হয়ে দ্বিতীয় ধাপে মূল দলের সঙ্গে যোগ দেন। আর একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে হারিস রউফ এখনও ছাড়পত্র পাননি।

ওরচেস্টারের নিউ রোড ব্ল্যাকফিঞ্চে পাকিস্তান দল ইতোমধ্যে ১৪ দিনের আইসোলেশন শুরু করেছে। আর প্রথম টেস্টের আগে প্রস্তুতির জন্য আগামী ১৩ জুলাই তাদের ডার্বিশায়ারের দ্য ইনকোরা কাউন্টি গ্রাউন্ডে নেওয়া হবে। সেখানে নিজেদের মধ্যে দলটি দুটি প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ খেলবে।

চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে তিন ম্যাচে টেস্ট ও তিনটি টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলা শুরু করবে ইংল্যান্ড ও পাকিস্তান।

বাতিল হচ্ছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ!

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের বিষাক্ত ছোবলে একে একে বাতিল হচ্ছে ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট। এরই ধারাবাহিকতায় আইসিসি গত মাসেই জানিয়েছিল জুলাইয়ে তারা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আয়োজনের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাবে।জুলাইয়ের ৬ তারিখেও সেই সিদ্ধান্ত জানাতে পারেনি আইসিসি। তবে আয়োজক দেশ অস্ট্রেলিয়ার পত্রিকা দি ডেইলি টেলিগ্রাফ জানিয়েছে-‘ক্রিকেটের উন্মুক্ত রহস্যটা নিশ্চিত হবে এই সপ্তাহে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বাতিল হচ্ছে। খুব সম্ভবত এটি সামনের কয়েক বছরের মধ্যে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে আয়োজনের সম্ভাবনা নেই। তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার শুরুটা হলে দেশের বাইরে ওয়ানডে সিরিজ খেলতে যাবে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল।’

সেপ্টেম্বরে অস্ট্রেলিয়া ওয়ানডে সিরিজ খেলতে ইংল্যান্ডে যেতে পারে। করোনা মহামারির এই সময়টায় ইংল্যান্ডেই এখন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচের আসর বসছে।

১৮ অক্টোবর থেকে ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ যে অস্ট্রেলিয়াই হচ্ছে না- সাম্প্রতিক বাস্তবতা সেই তথ্যই নিশ্চিত করছে। খোদ অস্ট্রেলিয়াই এই বিশ্বকাপের আয়োজন নিয়ে সন্দিহান। তবে যেহেতু টুর্নামেন্টটি আইসিসির। তাই চূড়ান্ত ঘোষণাটা তাদের কাছ থেকেই আসবে। এখন শুধু সেই আনুষ্ঠানিক ঘোষণার অপেক্ষা!

তবে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) এই সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আর বসে নেই। অনেকদিন আগে থেকেই বিসিসিআই এই ব্যাপারে দ্রুততর সময়ের মধ্যে সিদ্ধান্ত জানানোর জন্য আইসিসির ওপর চাপ দিয়ে আসছে। দ্রুত সিদ্ধান্ত না আসায় তারা আইসিসির ওপর ক্ষুব্ধও। কারণ আর কিছু নয়। বিশ্বকাপ না হলে ক্রিকেটের সেই সময়টা আইপিএল দিয়ে ভরতে চায় ভারত। আর নিজেদের এই ইচ্ছের কথাটা ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড এক অর্থে জানিয়েও দিয়েছে।

তাই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বাতিলের আনুষ্ঠানিক ঘোষণার জন্য আর অপেক্ষায় থাকতে রাজি নয় ভারত। তারা আইপিএলের প্রাক-প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে। আট দলের আইপিএলে এবার ম্যাচ সংখ্যা কমিয়ে আনা হতে পারে। ভেন্যুও কমতে পারে। বিকল্প ভেন্যু হিসেবে শ্রীলঙ্কা ও আরব আমিরাতের নামও আলোচনায় রয়েছে।

সবকিছু পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া যাবে চলতি সপ্তাহের মধ্যেই।

এক মাসে ৪ কেজি ওজন কমিয়েছেন সাইফউদ্দিন

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের কারণে গত মার্চ থেকেই স্থগিত হয়ে আছে ক্রিকেট। একই কারণে বন্ধ রয়েছে অনুশীলনও। এরই মধ্যে সীমিত আকারে লকডাউন তুলে দেওয়া শুরু হলেও ক্রিকেট মাঠে গড়াতে আরও দেরি আছে। তবে এই অবসরে শুয়ে বসে না থেকে ক্রিকেটাররা নিজেদের ফিটনেস নিয়ে ঠিকই কাজ করে যাচ্ছেন। যেমন তরুণ পেস বোলিং অল-রাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন।নিজেকে ফিট রাখতে সাইফ নিয়মিত জিমনেশিয়ামে ঘাম ঝরাচ্ছেন। বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কঠোর অনুশীলনের এক ভিডিও পোস্ট করেছেন সাইফউদ্দিন। নিজের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে পোস্ট করা সেই ভিডিওর ক্যাপশনে লেখা, ‘আলহামদুলিল্লাহ প্রায় এক মাসের চেষ্টায় ৪ কেজি ওজন কমিয়ে আনলাম।’

কয়েকদিন আগে জ্বর-সর্দি থেকে সুস্থ হয়ে ওঠেছেন সাইফউদ্দিন। ১০ থেকে ১২ দিন ধরে জ্বর-সর্দিতে ভুগলেও করোনা পরীক্ষা করেননি  তিনি। এরই মধ্যে গত মঙ্গলবার (৩০ জুন) বিসিবির প্রধান চিকিৎসক গণমাধ্যমে সাইফের সুস্থ হয়ে ওঠার খবর জানান। সাইফ শুধু এখন সুস্থই নন, রীতিমতো ঘাম ঝরাচ্ছেন নিয়মিত।

আইপিএল থেকে পর্যায়ক্রমে চীনা স্পন্সর সরানোর দাবি

পর্যায়ক্রমে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) থেকে চীনের স্পন্সর সরানোর দাবি জানিয়েছেন কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের অন্যতম ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিক নেস ওয়াদিয়া।গত কয়েক মাস ধরে চীনের সঙ্গে যুদ্ধ পরিস্থিতি বিরাজ করছে ভারতের। ৬ জুন উভয়পক্ষের প্রথম দফা বৈঠকে কোনো ফল আসেনি। ১৬ জুন চীন ও ভারতের সেনা সদস্যদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়। সেই সংঘর্ষে ভারতীয় ২০ জওয়ান নিহত হন। চীনেরও কয়েকজন সেনাও নিহত হন।

তারপর থেকেই উভয় দেশের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি হতে থাকে। ১৬ জুনের সেই সংঘর্ষকে কেন্দ্র করেই চীনের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার জন্য জোর দাবি উঠেছে ভারতে।

এ দিকে, আইপিএল থেকে পর্যায়ক্রমে চীনের স্পন্সর বাতিলের দাবি জানিয়ে নেস ওয়াদিয়া বলেছেন, দেশের স্বার্থে চীনের প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক ছিন্ন করা উচিত। সবার আগে দেশ। টাকা এখানে গৌন। আর এটা তো ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ, চাইনিজ প্রিমিয়ার লিগ তো নয়। উদাহরণ স্থাপন করা উচিত আমাদের। রাস্তা দেখানো উচিত।

গালওয়ান উপত্যকায় সংঘর্ষকে কেন্দ্র করে ইতোমধ্যেই চীনের ৫৯টি অ্যাপ নিষিদ্ধ করেছে ভারত সরকার। নরেন্দ্র মোদি সরকারের এমন সিদ্ধান্তের পর আইপিএল থেকে চীনের স্পন্সর সরানোর দাবি জানিয়েছেন কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের অন্যতম মালিক।

নেস ওয়াদিয়া বলেন, শুরুতে স্পন্সর খুঁজে পাওয়া মুশকিল। তবে আমি নিশ্চিত যে ওদের বিকল্প হয়ে ওঠার মতো প্রচুর ভারতীয় কোম্পানি রয়েছে। সরকারের প্রতি দেশের মানুষের শ্রদ্ধা থাকা উচিত। এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, সেনাদের প্রতি শ্রদ্ধা থাকা উচিত।

নেস ওয়াদিয়া আরও বলেছেন, আমি যদি ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের (বিসিসিআই) সভাপতি হতাম, তবে আসন্ন মৌসুমে ভারতীয় স্পন্সর খোঁজা শুরু করতাম। ভারতীয় কোম্পানিদের এবার এগিয়ে আসতে হবে। আইপিএল বিশ্বের সেরা টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট, চীনের কোম্পানিগুলো আইপিএল থেকে সুবিধা নেয়ার জন্য যেভাবে তাকায়, ভারতীয় কোম্পানি মালিকদেরও সেভাবে দেখতে হবে। চীনের স্পন্সর সরিয়ে দেওয়ার জন্য সময়ের প্রয়োজন।

প্রসঙ্গত, ভারতের জনপ্রিয় ক্রিকেট টুর্নামেন্ট আইপিএলে ২০২২ সাল পর্যন্ত টাইটেল স্পন্সর হয়েছে চীনের মোবাইল ফোন কোম্পানি ভিভো। প্রতি বছর ভিভো থেকে ৪৪০ কোটি টাকা করে পায় বিসিসিআই।

হরভজনের অভিযোগ


নতুন মহামারি ছড়ানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে চীন

সময়ের সঙ্গে মহামারিতে রূপ নেওয়া প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের ধাক্কা সামলাতেই রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছে পুরো বিশ্ব। এই মরণব্যাধির তাণ্ডবে আধুনিক বিশ্বের বড় বড় দেশের চিকিৎসাব্যবস্থাও ভেঙে পড়েছে। কিছুতেই সামাল দেওয়া যাচ্ছে না প্রাণঘাতী এই ভাইরাসটি। এর মধ্যে আরেকটি মহামারি ভাইরাস ছাড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে চীন- এমন অভিযোগ তুলেছেন ভারতের সাবেক স্পিনার হরভজন সিং।

লাদাখ নিয়ে ভারত-চীনের মধ্যে এখন যুদ্ধ যুদ্ধ ভাব বিরাজ করছে। চীনা পণ্য বয়কটসহ নানামুখী প্রতিবাদে ভারত ইতিমধ্যে বাণিজ্য যুদ্ধ শুরু করে দিয়েছে। ভারতীয় জনগণের মধ্যে এখন চীন-বিদ্বেষ মাত্রা ছাড়িয়েছে।

চীনের উহান শহর থেকেই উৎপত্তি হয় প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের। এতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে চীনের প্রতিদ্বন্দ্বী যুক্তরাষ্ট্র। এখন পর্যন্ত সেদেশে ১ লাখ ২৮ হাজারের মতো মানুষ মারা গেছে।

ভারতের অবস্থাও ভালো নয়। বিশ্বের চতুর্থ করোনা আক্রান্ত দেশ এখন ভারত। ১৭ হাজারের বেশি মানুষ মারা গেছেন, আক্রান্ত সাড়ে পাঁচ লাখের মতো। এর মধ্যে সীমান্তে ভারতকে চেপে ধরেছে চীন।

এই চীনেই আরেকটি ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। শুকর থেকে যেটি মানুষের শরীরে আসতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিজ্ঞানীরা। ‘সোয়াইন ফ্লু’র মতো সংক্রামক ভাইরাসটি মহামারি আকার ধারণ করতে পারে, সতর্ক করেছেন তারা।

ভাইরাসটির নাম ‘জি৪ ইএ এইচ১এন১’। ২০০৯ সালে ছড়িয়ে পড়া সোয়াইন ফ্লুর মতো বৈশিষ্ট্যের এই ভাইরাস। বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, এটি মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়লে সাধারণ ভ্যাকসিনে কাজ হবে না।

এমন খবর শোনার পর চীনের ‍ওপর ক্ষোভ উগড়ে দিলেন হরভজন সিং। ভারতের সাবেক এই অফস্পিনার সন্দেহ প্রকাশ না করে সরাসরিই দুষলেন প্রতিদ্বন্দ্বী দেশটিকে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে তিনি লিখেছেন, ‘যখন পুরো বিশ্ব কোভিড ১৯ সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে। তারা (চীন) আমাদের জন্য আরেকটি ভাইরাস প্রস্তুত করে ফেলেছে।’