দুর্নীতির দায়ে চৌহালীর উমারপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অপসারণ

অনিয়ম-দুর্নীতির দায়ে সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার উমারপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ আব্দুল মতিন মণ্ডলকে অপসারণ করা হয়েছে। ছবি : সংগৃহীত

অনিয়ম-দুর্নীতির দায়ে সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার চার নম্বর উমারপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ আব্দুল মতিন মণ্ডলকে অপসারণ করা হয়েছে। তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত।

চৌহালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আফসানা ইয়াসমিন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ইউএনও বলেন, ‘স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব আবু জাফর রিপন স্বাক্ষরিত চিঠিতে ইউপি চেয়ারম্যানের বরখাস্তের আদেশ পেয়েছি। চিঠির নির্দেশনা মোতাবেক চেয়ারম্যান পদ শূন্য ঘোষণা করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে।’

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, সরকারের ভিজিডি কার্ডধারীদের চাল বিতরণে অনিয়ম, ভিজিডি কার্ডধারীদের প্রতি মাসে ২০০ টাকা জমা না দিয়ে উল্টো আরও ৫০ টাকা করে সঞ্চয় আদায়সহ জেলেদের মাঝে ভিজিডি কার্ডের চাল বিতরণে অনিয়ম করেছেন ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন মণ্ডল। ২০১৯-২০ অর্থবছরে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসূচির আওতায় শ্রমিকদের মাথাপিছু এক হাজার টাকা উত্তোলন ছাড়াও চেকে ভুয়া স্বাক্ষর দিয়ে টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেছেন।

এতে আরও বলা হয়, বিধি-বিধান তোয়াক্কা না করে ব্যাংক কর্মকর্তাদের যোগসাজশে নির্ধারিত সময়ের আগেই প্রকল্পের টাকা উত্তোলন করেছে। এসব অভিযোগ প্রাথমিক প্রমাণিত হওয়ায় জেলা প্রশাসকের সুপারিশে আব্দুল মতিন মণ্ডলকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। তাকে কেন চূরান্তভাবে চেয়ারম্যান পদ থেকে অপসারণ করা হবে না এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যানকে পত্রের মাধ্যমে কারণ দর্শনো হয়।

আব্দুল মতিন মণ্ডলের কারণ দর্শানোর জবাব সন্তোষজনক না হওয়ায় জনস্বার্থের পরিপন্থি বিবেচনায় স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন ২০০৯ এর ৩৪ (৪) (খ) ও (ঘ) ধারায় অপরাধ করায় একই আইনের ৩৪ এর (৫) ধারা মোতাবেক আব্দুল মতিন মন্ডলকে ইউপি চেয়ারম্যানের পদ থেকে স্থায়ী ভাবে অপসারণ করা হয়।

চৌহালীতে ৫ মামলার পলাতক আসামি কর্ণেল গ্রেপ্তার

চেক জালিয়াতিসহ ৫টি মামলার পলাতক আসামি অ্যাডভোকেট মো. হুমায়ুন কবির ওরফে কর্ণেলকে কুষ্টিয়া জেলা থেকে গ্রেপ্তার করেছে চৌহালী থানা পুলিশ।

রোববার (৩০ মে) বেলা সাড়ে ১১ টায় এতথ্য নিশ্চিত করেছেন চৌহালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম।

হুমায়ুন কবির ওরফে কর্ণেল চৌহালী উপজেলার মিটয়ানী গ্রামের মৃত আব্দুস ছাত্তারের ছেলে। তিনি বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে চাকরির দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা ও চেক হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এসব মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

চৌহালী থানার ওসি জানান, হুমায়ুন কবির কর্ণেল এর বিরুদ্ধে চেক জালিয়াতি, সাজা ও জিআর মামলা হওয়ায় দীর্ঘদিন ধরে তিনি পলাতক ছিলেন। এসব মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানাও জারি রয়েছে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার (২৯ মে) কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর থানাধীন বড়ুঘান্দিয়া বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। আজ (রোববার) আদালতের মাধ্যমে তাকে জেল হাজতে পাঠানো হবে।

প্রধানমন্ত্রীর শোক প্রকাশ


মন্ডল গ্রুপের চেয়ারম্যান সাবেক এমপি আবদুল মজিদ মন্ডল আর নেই

সিরাজগঞ্জ-৫ (বেলকুচি-চৌহালী) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আবদুল মজিদ মন্ডল (৭২) আর নেই। বৃহস্পতিবার রাত ১১ টার দিকে স্বাসকষ্ট জনিত কারণে ঢাকার উত্তরার বাসা থেকে স্কয়ার হাসপাতালে নেয়ার পথে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তিনি মন্ডল গ্রুপের চেয়ারম্যান ও এনায়েতপুর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন।

তার বড় ছেলে বর্তমান সংসদ সদস্য আবদুল মমিন মন্ডলের এপিএস তাজ উদ্দিন এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, আবদুল মজিদ মন্ডল মৃত্যুকালে স্ত্রী, ২ ছেলে ও ২ মেয়ে সহ আত্মীয়-স্বজন, রাজনৈতিক সহকর্মী ও গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।

তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আ’লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা ও সাধারন সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, জেলা-থানা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ, শাহজাদপুরের এমপি আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন, এনায়েতপুর প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন মহল।

পারিবার ও রাজনৈতিক সুত্রে জানা যায়, সিরাজগঞ্জ জেলার এনায়েতপুর থানাধীন রুপনাই গ্রামের মৃত হাজী জহুরুল ইসলামের বড় ছেলে শিল্পোদ্যক্তা আলহাজ্ব আবদুল মজিদ মন্ডল ব্যবসায়ী জগতে এক উজ্জল নক্ষত্র হয়ে দেশের বিখ্যাত গার্মেন্ট শিল্প প্রতিষ্ঠান মন্ডল গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠার পর থেকে তিনি চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। এছাড়া বেশ কয়েকটি শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠা এবং সমাজ হিতৈশী ব্যক্তিত্ব হিসেবে এলাকায় যথেষ্ট সুনাম রয়েছে।

এছাড়া রাজনৈতিক নেতা হিসেবে আবদুল মজিদ মন্ডল তার নির্বাচনী এলাকায় একজন মানবিক সংসদ সদস্য হিসেবে নেতাকর্মীদের অন্তরে জায়গা করে নিয়েছিলেন। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে নৌকা প্রতীকে বিজয়ী হন। এর আগে তিনি সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। মজিদ মন্ডল সরকারী সহায়তার পাশাপাশি হাজী আবদুল মজিদ মন্ডল ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে শীতের সময় কম্বল, বন্যা ও নানা দুর্যোগে আর্থিক, ইফতার ও খাদ্য সামগ্রীসহায়তা করেছেন। নির্লোভ এই শিল্পপতি ও সাবেক সাংসদ এলাকার উন্নয়নে রেখেছেন স্বরণীয় ভুমিকা।

এদিকে আবদুল মজিদ মন্ডলের ইন্তেকালের খবরে তার নির্বাচনী এলাকার সকল রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ সহ সর্বস্তরের জনসাধারনে মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। শুক্রবার বাদ জুমা রুপনাই ঈদগাহ ময়দানে নামাজে জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তার মরদেহ দাফন সম্পন্ন হবে।

তার বিদেহী আত্মার রুহের মাগফিরাত কামনার পরিবারের পক্ষ থেকে সকলের নিকট দোয়া চেয়েছেন বড় ছেলে বর্তমান সংসদ সদস্য ও মন্ডল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল মমিন মন্ডল।

বেলকুচিতে এমপি মমিন মন্ডলের করোনা মুক্তির জন্য দোয়া

ছবিঃ ফেসবুক থেকে সংগৃহিত

সিরাজগঞ্জ-৫ (বেলকুচি-চৌহালী) আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল মমিন মন্ডলের করোনা মুক্তির জন্য ফাতিহা পাঠ ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৩ জুলাই) বিকেলে বেলকুচি উপজেলার সূর্বণসাড়া জামিয়া সিদ্দিকিয়া কওমিয়া হাফিজিয়া কবরস্থান মাদ্রাসার উদ্যোগে এ বিশেষ দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। অত্র মাদ্রাসায় মোহতামিম মওলানা আব্দুল হাকিম দোয়া পরিচালনা করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন অত্র মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মীর আব্দুস সবুর দিলিপ, মুফতি আব্দুল আলিম, বিশিষ্ঠ্য সমাজসেবক গোলাম আজম মন্ডল, ডাঃ সাইফুল ইসলাম, আবুল কাসেম আকন্দ, বদিউজ্জামান, রহিদুল ইসলাম মন্ডল ও গ্রামের গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ এবং মাদ্রাসার ছাত্রবৃন্দ।

উক্ত দোয়া মাহফিলের সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন উন্নয়ন অনুসন্ধান ফাউন্ডেশনের সমন্বয়কারী আব্দুল হাকিম মন্ডল এবং তিনি নিজ উদ্দ্যোগে উপস্থিত শতাধিক মানুষের মাঝে মাস্ক বিতরণ করেন।এবং ইঞ্জিনিয়ার আমিনুল ইসলাম সরকার সংসদ সদস্য আব্দুল মোমিন মন্ডলের রোগ আরগ্যের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন ।

উল্লেখ্য, এম পি আব্দুল মোমিন মন্ডল গত ২০ শে জুলাই করোনা পজিটিভ হন । তিনি মন্ডল গ্রুপের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক ।বর্তমানে তিনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন ।

যমুনা চরের বাদাম চাষীদের স্বপ্নভঙ্গ

চৌহালীর যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধির কারণে চরাঞ্চলের শত শত বিঘা জমির বাদাম ডুবে গেছে। ফলে এ অঞ্চলের কৃষকরা পাকা, আধা পাকা বাদাম তুলতে বাধ্য হচ্ছেন। এতে বাদাম চাষীদের স্বপ্ন ভঙ্গ হয়ে যায়।

রোববার যমুনার পশ্চিম তীরে এনায়েতপুরে দেখা যায়, পানিতে জমি তলিয়ে যাওয়ায় বাদাম তুলে নৌকায় করে নদীর পাড়ে রাখা হচ্ছে। সেখানে কৃষক পরিবারের নারী, শিশুসহ সব সদস্য মিলে বাদাম ছাড়াচ্ছেন। আবার কোথাও কোথাও তারা জমির পাড়ে শুকনা স্থানে বাদাম রোদে শুকাচ্ছে। এতে বাদাম চাষীদের কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়ে গেছে।

এ ব্যাপারে ঘুশুরিয়ার বাদাম চাষী কামরুল ইসলাম ও বাশি মিয়া জানান, যমুনা চরের বেলে মাটিতে বাদামের চাষ ভালো হওয়ায় এ বছর কৃষকরা বাদাম চাষে ঝুঁকে পড়েছেন। তারা প্রায় ৪২ বিঘা জমিতে বাদামের আবাদ করেছে। ফলনও ভালো হয়েছিল। তবে যমুনায় দফায় দফায় পানি বৃদ্ধির কারণে প্রায় ১৬ বিঘা জমির ৮০ মণ বাদাম নষ্ট হয়েছে। এতে ২ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হবে।

চৌহালী উপজেলা কৃষি অফিস ও বাদাম চাষীরা জানান, চৌহালী যমুনা চরাঞ্চলসহ ৭টি ইউনিয়নে ২ হাজার ৩১৫ হেক্টর জমিতে বাদামের চাষ হয়। এ বছর বাদামের বাম্পার ফলন হয়েছিল। বাজারেও ভালো দাম পাচ্ছেন কৃষক। কিন্তু বাদামের অনেক জমি পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় চাষীরা হতাশ।

এ বিষয়ে বাঘুটিয়া ইউনিয়নের যমুনা চরের কৃষক শামছুল মোল্লা, ইকবাল হোসেন ও ইমরান হোসেন জানান, যমুনা চরের দক্ষিণাঞ্চলে বাদামের বাম্পার ফলন হলেও অসময়ে পানি বৃদ্ধির ফলে চরের প্রায় ৩৮ জন কৃষকের বাদাম ক্ষেত তলিয়ে যায়।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল কাহহার সিদ্দিকী জানান, যমুনা চরের নিচু এলাকা পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় অর্ধশতাধিক বিঘার জমির বাদাম নষ্ট হয়ে গেছে। এতে কয়েক লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। তবে অন্য ইউনিয়ন থেকে বাঘুটিয়াতে বাদামের ফলন অনেক ভালো হয়েছিল বলেও জানান তিনি।

চৌহালী উপজেলা কৃষি অফিসের উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা ইকবাল হোসেন জানান, যমুনা চরাঞ্চলে এ বছর বাদামের বাম্পার ফলন হয়েছে। যমুনা নদীতে পানি বাড়ায় চরাঞ্চলের নদী তীরবর্তী নিচু এলাকার কিছু বাদামের জমি তলিয়ে গেছে। এতে কৃষক কিছুটা ক্ষতির মুখে পড়েছেন বলে জানান তিনি।

২ চিকিৎসকসহ ৮জন করোনা আক্রান্ত, চৌহালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স লকডাউন

চৌহালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

দুই জন চিকিৎসকসহ আট জন কর্মকর্তা-কর্মচারী করোনা আক্রান্ত হওয়ায় সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স লকডাউন করা হয়েছে। জেলা সিভিল সার্জনের নির্দেশে বুধবার (১০ জুন) বিকাল থেকে ৭২ ঘণ্টা প্রতিষ্ঠানটি লকডাউনের আওতায় থাকবে। চৌহালী স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবদুল কাদের বৃহস্পতিবার (১১ জুন) সকালে এ তথ্য জানান।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) দেওয়ান মওদুদ আহমেদ জানান, করোনা পজিটিভ আসা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বাসা লকাডাউন করে সবাইকে নিজ নিজ ব্যবস্থাপনায় হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হয়েছে।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের পরিসংখ্যানবিদ হুমায়ুন কবীর জানান, এনায়েতপুর খাজা ইউনুস আলী (রা.) মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী, শিক্ষক, ব্যাংকারসহ চৌহালীর ১৯ জন নিয়ে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত জেলায় ১৬২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

পুলিশের ধাওয়ায় যমুনায় ডুবে জুয়াড়ির মৃত্যু

সিরাজগঞ্জে পুলিশের ধাওয়ায় জুয়াড়ির মৃত্যু

সিরাজগঞ্জের চৌহালীতে পুলিশের ধাওয়ায় যমুনা নদীতে ডুবে এক জুয়াড়ির মৃত্যু হয়েছে। নিহত এন্তাজ আলী (৪২) পাশ্ববর্তী শাহজাদপুর উপজেলার ভারদিঘুলিয়া গ্রামের দুগন মিয়ার ছেলে। তার লাশ যমুনার হাটঘোরজান এলাকা থেকে স্থানীয়রা উদ্ধার করেছে।

এদিকে অভিযান চলাকালে পুলিশের হাতে আটক জুয়াড়ি ইউপি সদস্য রাব্বি মিয়াসহ ৩ জনকে অর্থের বিনিময়ে ঘটনাস্থল থেকে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় এলাকাজুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানান, চৌহালী উপজেলার হাট ঘোরজান সোলার পাওয়ার প্যানেলের পাশের একটি ভিটায় আব্দুস সালাম ব্যাপারী দীর্ঘ প্রায় ৭ বছর ধরে পুলিশকে ম্যানেজ করে লাখ-লাখ টাকার জুয়াড় আসর চালিয়ে আসছিল। হঠাৎ থানার সাথে দেন দরবারে জটিলটা দেখা দেওয়ায় গত মঙ্গলবার বিকেলে এসআই মাসুদের নেতৃত্বে একদল পুলিশ সেখানে অভিযান চালায়।

এক পর্যায়ে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে জুয়াড়ি এন্তাজ আলীসহ সবাই দৌঁড়ে পালানোর চেষ্টা করলে স্থানীয় ইউপি সদস্য রাব্বি মিয়া, জুয়ারী আবু সিদ্দিক ও আমির হোসেনকে আটক করা হয়। এসময় বাকিদের পুলিশ ধাওয়া করলে এন্তাজ যমুনা নদীতে ঝাঁপ দিয়ে সাঁতরিয়ে মাঝ চরে উঠার চেষ্টা করেন। পুলিশও নৌকা নিয়ে ধাওয়া করলে ভয়ে তলিয়ে যায় এন্তাজ।

এ সময় অবস্থা বেগতিক দেখে পুলিশ টাকার বিনিময়ে আটক ইউপি সদস্যসহ ৩ জুয়াড়িকে ছেড়ে দিয়ে দ্রুত নৌকা নিয়ে চলে যায়।

পরে রাতে হাট ঘোরজান এলাকায় যমুনা নদীতে এন্তাজ আলীর লাশ ভেসে উঠলে স্থানীয়রা উদ্ধার করে। এরপর নিজ স্বজনেরা নিজ বাড়িতে নিয়ে যায়। এদিকে এই ঘটনা পুরো চৌহালী তথা যমুনার চরাঞ্চলজুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।

এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী অভিযোগ করে জানান, ‘পুলিশের অদক্ষতার কারণে এই প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। গত ৪ বছর আগেও এই জুয়া খেলা নিয়ে সংঘর্ষে জুয়া চালানোর মূলহোতা সালাম ব্যাপারীর ছোট ভাই আলো ব্যাপারী মারা যান। এরপরও এই জুয়া কেন বন্ধ হচ্ছে না। আমরা তদন্ত পূর্বক দায়ী সবার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা চাই।’

এ বিষয়ে চৌহালী থানার ওসি রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস জানান, ‘বিষয়টি জানার পর ঘটনাস্থলে যাচ্ছি। কেউ দায়ী হলে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

তথ্যসূত্রঃ একুশে টিভি

সিরাজগঞ্জের চৌহালিতেও করোনা রোগী শনাক্ত

ছবিঃ প্রতীকী

সিরাজগঞ্জে বেড়ে চলেছে কোভিড–১৯–এ আক্রান্ত রোগী। গতকাল বুধবার বিকেলে আরও ১৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় করোনা সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ৭২।

গতকাল দুপুরে সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, সিরাজগঞ্জের শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাব থেকে ৯৪ জনের নমুনা পরীক্ষার ফলাফল পাওয়া গেছে। তাঁদের মধ্যে ১৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ১০ জনই তাঁতসমৃদ্ধ বেলকুচি উপজেলার বাসিন্দা। অন্য চারজনের মধ্যে চৌহালি উপজেলার দুজন, সদরের একজন ও কামারখন্দ উপজেলার একজন।

সিরাজগঞ্জে নৌকাডুবি : আরো তিনজনের লাশ উদ্ধার

সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলায় যমুনা নদীতে নৌকাডুবির ঘটনায় আরো তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার মিটুআনি ও আজিম উদ্দিন ঘাট এলাকায় তিনজনের লাশ ভেসে উঠলে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে। এ নিয়ে দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা দাঁড়াল আটজনে।

নিহত ব্যক্তিদের পরিচয় পাওয়া যায়নি। নৌকাডুবির ঘটনায় নিখোঁজ রয়েছে আরো নয়জন যাত্রী। তাদের উদ্ধারে কাজ করছেন পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা।

চৌহালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস জানান, গত মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এনায়েতপুর থেকে ৭৩ জন যাত্রী নিয়ে একটি নৌকা চৌহালীর দিকে যাওয়ার পথে স্থলচর এলাকায় তীব্র বাতাসে ডুবে যায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে এ ঘটনায় তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। গতকাল বুধবার দুজন ও আজ বৃহস্পতিবার আরো তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। মোট আটজনের লাশ ও ৫৮ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। এখনো নিখোঁজ রয়েছে নয়জন। ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ নিখোঁজ যাত্রীদের উদ্ধারে কাজ করছে।

সিরাজগঞ্জে যমুনায় নৌকাডুবির ঘটনায় আরও দুইটি মরদেহ উদ্ধার

সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার যমুনা নদীতে নৌকাডুবির ঘটনায় আরও দুই জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে মোট পাঁচ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

বুধবার (২৭ মে) চৌহালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাশেদুল ইসলাম জানান, সকালে জোতপাড়া এলাকায় যমুনা নদী থেকে ভাসমান অবস্থায় অজ্ঞাতপরিচয় এক যুবকের (৩০) মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দলের সদস্যরা শাহজাদপুর উপজেলার কৈজুরি এলাকার আব্দুর রশিদের ছেলে আফজাল নামে আরও এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেন। এ নিয়ে মোট পাঁচ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। নৌকাডুবির ঘটনায় এখনও নিখোঁজ রয়েছেন ১৪ জন।

মঙ্গলবার (২৬) দুপুরে এনায়েতপুর থেকে ৭৩ জন যাত্রী নিয়ে একটি ইঞ্জিনচালিত নৌকা চৌহালী যাওয়ার পথে স্থলচর এলাকায় পৌঁছলে ঝড়ো বাতাসের কবলে পড়ে ডুবে যায়। পরে পুলিশ ও স্থানীয়রা ৫৪ জন যাত্রীকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে বেলকুচি উপজেলার গয়নাকান্দি গ্রামের মৃত জহির ফকিরের ছেলে পাশান ফকির (৬৫), কলাগাছি গ্রামের শামীম হোসেনের ছেলে নাইমুল ইসলাম (৪), টাঙ্গাইল জেলার নাগরপুর উপজেলার সুবর্ণতলী গ্রামের ব্যবসায়ী মৃত মজিদ মোল্লার শেখ কামাল মোল্লার (৪৫) মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

সিরাজগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক মনজিল হক জানান, ঢাকা থেকে ডুবুরি দল রাতেই এসে পৌঁছেছে। আমরা ডুবুরি নিয়ে ঘটনাস্থলের দিকে রওয়ানা দিয়েছি। কিছুক্ষণের মধ্যে আবারও উদ্ধার অভিযান শুরু হবে।