বেলকুচিতে এমপি মমিন মন্ডলের করোনা মুক্তির জন্য দোয়া

ছবিঃ ফেসবুক থেকে সংগৃহিত

সিরাজগঞ্জ-৫ (বেলকুচি-চৌহালী) আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল মমিন মন্ডলের করোনা মুক্তির জন্য ফাতিহা পাঠ ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৩ জুলাই) বিকেলে বেলকুচি উপজেলার সূর্বণসাড়া জামিয়া সিদ্দিকিয়া কওমিয়া হাফিজিয়া কবরস্থান মাদ্রাসার উদ্যোগে এ বিশেষ দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। অত্র মাদ্রাসায় মোহতামিম মওলানা আব্দুল হাকিম দোয়া পরিচালনা করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন অত্র মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মীর আব্দুস সবুর দিলিপ, মুফতি আব্দুল আলিম, বিশিষ্ঠ্য সমাজসেবক গোলাম আজম মন্ডল, ডাঃ সাইফুল ইসলাম, আবুল কাসেম আকন্দ, বদিউজ্জামান, রহিদুল ইসলাম মন্ডল ও গ্রামের গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ এবং মাদ্রাসার ছাত্রবৃন্দ।

উক্ত দোয়া মাহফিলের সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন উন্নয়ন অনুসন্ধান ফাউন্ডেশনের সমন্বয়কারী আব্দুল হাকিম মন্ডল এবং তিনি নিজ উদ্দ্যোগে উপস্থিত শতাধিক মানুষের মাঝে মাস্ক বিতরণ করেন।এবং ইঞ্জিনিয়ার আমিনুল ইসলাম সরকার সংসদ সদস্য আব্দুল মোমিন মন্ডলের রোগ আরগ্যের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন ।

উল্লেখ্য, এম পি আব্দুল মোমিন মন্ডল গত ২০ শে জুলাই করোনা পজিটিভ হন । তিনি মন্ডল গ্রুপের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক ।বর্তমানে তিনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন ।

যমুনা চরের বাদাম চাষীদের স্বপ্নভঙ্গ

চৌহালীর যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধির কারণে চরাঞ্চলের শত শত বিঘা জমির বাদাম ডুবে গেছে। ফলে এ অঞ্চলের কৃষকরা পাকা, আধা পাকা বাদাম তুলতে বাধ্য হচ্ছেন। এতে বাদাম চাষীদের স্বপ্ন ভঙ্গ হয়ে যায়।

রোববার যমুনার পশ্চিম তীরে এনায়েতপুরে দেখা যায়, পানিতে জমি তলিয়ে যাওয়ায় বাদাম তুলে নৌকায় করে নদীর পাড়ে রাখা হচ্ছে। সেখানে কৃষক পরিবারের নারী, শিশুসহ সব সদস্য মিলে বাদাম ছাড়াচ্ছেন। আবার কোথাও কোথাও তারা জমির পাড়ে শুকনা স্থানে বাদাম রোদে শুকাচ্ছে। এতে বাদাম চাষীদের কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়ে গেছে।

এ ব্যাপারে ঘুশুরিয়ার বাদাম চাষী কামরুল ইসলাম ও বাশি মিয়া জানান, যমুনা চরের বেলে মাটিতে বাদামের চাষ ভালো হওয়ায় এ বছর কৃষকরা বাদাম চাষে ঝুঁকে পড়েছেন। তারা প্রায় ৪২ বিঘা জমিতে বাদামের আবাদ করেছে। ফলনও ভালো হয়েছিল। তবে যমুনায় দফায় দফায় পানি বৃদ্ধির কারণে প্রায় ১৬ বিঘা জমির ৮০ মণ বাদাম নষ্ট হয়েছে। এতে ২ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হবে।

চৌহালী উপজেলা কৃষি অফিস ও বাদাম চাষীরা জানান, চৌহালী যমুনা চরাঞ্চলসহ ৭টি ইউনিয়নে ২ হাজার ৩১৫ হেক্টর জমিতে বাদামের চাষ হয়। এ বছর বাদামের বাম্পার ফলন হয়েছিল। বাজারেও ভালো দাম পাচ্ছেন কৃষক। কিন্তু বাদামের অনেক জমি পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় চাষীরা হতাশ।

এ বিষয়ে বাঘুটিয়া ইউনিয়নের যমুনা চরের কৃষক শামছুল মোল্লা, ইকবাল হোসেন ও ইমরান হোসেন জানান, যমুনা চরের দক্ষিণাঞ্চলে বাদামের বাম্পার ফলন হলেও অসময়ে পানি বৃদ্ধির ফলে চরের প্রায় ৩৮ জন কৃষকের বাদাম ক্ষেত তলিয়ে যায়।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল কাহহার সিদ্দিকী জানান, যমুনা চরের নিচু এলাকা পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় অর্ধশতাধিক বিঘার জমির বাদাম নষ্ট হয়ে গেছে। এতে কয়েক লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। তবে অন্য ইউনিয়ন থেকে বাঘুটিয়াতে বাদামের ফলন অনেক ভালো হয়েছিল বলেও জানান তিনি।

চৌহালী উপজেলা কৃষি অফিসের উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা ইকবাল হোসেন জানান, যমুনা চরাঞ্চলে এ বছর বাদামের বাম্পার ফলন হয়েছে। যমুনা নদীতে পানি বাড়ায় চরাঞ্চলের নদী তীরবর্তী নিচু এলাকার কিছু বাদামের জমি তলিয়ে গেছে। এতে কৃষক কিছুটা ক্ষতির মুখে পড়েছেন বলে জানান তিনি।

২ চিকিৎসকসহ ৮জন করোনা আক্রান্ত, চৌহালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স লকডাউন

চৌহালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

দুই জন চিকিৎসকসহ আট জন কর্মকর্তা-কর্মচারী করোনা আক্রান্ত হওয়ায় সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স লকডাউন করা হয়েছে। জেলা সিভিল সার্জনের নির্দেশে বুধবার (১০ জুন) বিকাল থেকে ৭২ ঘণ্টা প্রতিষ্ঠানটি লকডাউনের আওতায় থাকবে। চৌহালী স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবদুল কাদের বৃহস্পতিবার (১১ জুন) সকালে এ তথ্য জানান।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) দেওয়ান মওদুদ আহমেদ জানান, করোনা পজিটিভ আসা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বাসা লকাডাউন করে সবাইকে নিজ নিজ ব্যবস্থাপনায় হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হয়েছে।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের পরিসংখ্যানবিদ হুমায়ুন কবীর জানান, এনায়েতপুর খাজা ইউনুস আলী (রা.) মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী, শিক্ষক, ব্যাংকারসহ চৌহালীর ১৯ জন নিয়ে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত জেলায় ১৬২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

পুলিশের ধাওয়ায় যমুনায় ডুবে জুয়াড়ির মৃত্যু

সিরাজগঞ্জে পুলিশের ধাওয়ায় জুয়াড়ির মৃত্যু

সিরাজগঞ্জের চৌহালীতে পুলিশের ধাওয়ায় যমুনা নদীতে ডুবে এক জুয়াড়ির মৃত্যু হয়েছে। নিহত এন্তাজ আলী (৪২) পাশ্ববর্তী শাহজাদপুর উপজেলার ভারদিঘুলিয়া গ্রামের দুগন মিয়ার ছেলে। তার লাশ যমুনার হাটঘোরজান এলাকা থেকে স্থানীয়রা উদ্ধার করেছে।

এদিকে অভিযান চলাকালে পুলিশের হাতে আটক জুয়াড়ি ইউপি সদস্য রাব্বি মিয়াসহ ৩ জনকে অর্থের বিনিময়ে ঘটনাস্থল থেকে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় এলাকাজুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানান, চৌহালী উপজেলার হাট ঘোরজান সোলার পাওয়ার প্যানেলের পাশের একটি ভিটায় আব্দুস সালাম ব্যাপারী দীর্ঘ প্রায় ৭ বছর ধরে পুলিশকে ম্যানেজ করে লাখ-লাখ টাকার জুয়াড় আসর চালিয়ে আসছিল। হঠাৎ থানার সাথে দেন দরবারে জটিলটা দেখা দেওয়ায় গত মঙ্গলবার বিকেলে এসআই মাসুদের নেতৃত্বে একদল পুলিশ সেখানে অভিযান চালায়।

এক পর্যায়ে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে জুয়াড়ি এন্তাজ আলীসহ সবাই দৌঁড়ে পালানোর চেষ্টা করলে স্থানীয় ইউপি সদস্য রাব্বি মিয়া, জুয়ারী আবু সিদ্দিক ও আমির হোসেনকে আটক করা হয়। এসময় বাকিদের পুলিশ ধাওয়া করলে এন্তাজ যমুনা নদীতে ঝাঁপ দিয়ে সাঁতরিয়ে মাঝ চরে উঠার চেষ্টা করেন। পুলিশও নৌকা নিয়ে ধাওয়া করলে ভয়ে তলিয়ে যায় এন্তাজ।

এ সময় অবস্থা বেগতিক দেখে পুলিশ টাকার বিনিময়ে আটক ইউপি সদস্যসহ ৩ জুয়াড়িকে ছেড়ে দিয়ে দ্রুত নৌকা নিয়ে চলে যায়।

পরে রাতে হাট ঘোরজান এলাকায় যমুনা নদীতে এন্তাজ আলীর লাশ ভেসে উঠলে স্থানীয়রা উদ্ধার করে। এরপর নিজ স্বজনেরা নিজ বাড়িতে নিয়ে যায়। এদিকে এই ঘটনা পুরো চৌহালী তথা যমুনার চরাঞ্চলজুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।

এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী অভিযোগ করে জানান, ‘পুলিশের অদক্ষতার কারণে এই প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। গত ৪ বছর আগেও এই জুয়া খেলা নিয়ে সংঘর্ষে জুয়া চালানোর মূলহোতা সালাম ব্যাপারীর ছোট ভাই আলো ব্যাপারী মারা যান। এরপরও এই জুয়া কেন বন্ধ হচ্ছে না। আমরা তদন্ত পূর্বক দায়ী সবার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা চাই।’

এ বিষয়ে চৌহালী থানার ওসি রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস জানান, ‘বিষয়টি জানার পর ঘটনাস্থলে যাচ্ছি। কেউ দায়ী হলে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

তথ্যসূত্রঃ একুশে টিভি

সিরাজগঞ্জের চৌহালিতেও করোনা রোগী শনাক্ত

ছবিঃ প্রতীকী

সিরাজগঞ্জে বেড়ে চলেছে কোভিড–১৯–এ আক্রান্ত রোগী। গতকাল বুধবার বিকেলে আরও ১৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় করোনা সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ৭২।

গতকাল দুপুরে সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, সিরাজগঞ্জের শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাব থেকে ৯৪ জনের নমুনা পরীক্ষার ফলাফল পাওয়া গেছে। তাঁদের মধ্যে ১৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ১০ জনই তাঁতসমৃদ্ধ বেলকুচি উপজেলার বাসিন্দা। অন্য চারজনের মধ্যে চৌহালি উপজেলার দুজন, সদরের একজন ও কামারখন্দ উপজেলার একজন।

সিরাজগঞ্জে নৌকাডুবি : আরো তিনজনের লাশ উদ্ধার

সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলায় যমুনা নদীতে নৌকাডুবির ঘটনায় আরো তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার মিটুআনি ও আজিম উদ্দিন ঘাট এলাকায় তিনজনের লাশ ভেসে উঠলে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে। এ নিয়ে দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা দাঁড়াল আটজনে।

নিহত ব্যক্তিদের পরিচয় পাওয়া যায়নি। নৌকাডুবির ঘটনায় নিখোঁজ রয়েছে আরো নয়জন যাত্রী। তাদের উদ্ধারে কাজ করছেন পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা।

চৌহালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস জানান, গত মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এনায়েতপুর থেকে ৭৩ জন যাত্রী নিয়ে একটি নৌকা চৌহালীর দিকে যাওয়ার পথে স্থলচর এলাকায় তীব্র বাতাসে ডুবে যায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে এ ঘটনায় তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। গতকাল বুধবার দুজন ও আজ বৃহস্পতিবার আরো তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। মোট আটজনের লাশ ও ৫৮ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। এখনো নিখোঁজ রয়েছে নয়জন। ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ নিখোঁজ যাত্রীদের উদ্ধারে কাজ করছে।

সিরাজগঞ্জে যমুনায় নৌকাডুবির ঘটনায় আরও দুইটি মরদেহ উদ্ধার

সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার যমুনা নদীতে নৌকাডুবির ঘটনায় আরও দুই জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে মোট পাঁচ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

বুধবার (২৭ মে) চৌহালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাশেদুল ইসলাম জানান, সকালে জোতপাড়া এলাকায় যমুনা নদী থেকে ভাসমান অবস্থায় অজ্ঞাতপরিচয় এক যুবকের (৩০) মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দলের সদস্যরা শাহজাদপুর উপজেলার কৈজুরি এলাকার আব্দুর রশিদের ছেলে আফজাল নামে আরও এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেন। এ নিয়ে মোট পাঁচ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। নৌকাডুবির ঘটনায় এখনও নিখোঁজ রয়েছেন ১৪ জন।

মঙ্গলবার (২৬) দুপুরে এনায়েতপুর থেকে ৭৩ জন যাত্রী নিয়ে একটি ইঞ্জিনচালিত নৌকা চৌহালী যাওয়ার পথে স্থলচর এলাকায় পৌঁছলে ঝড়ো বাতাসের কবলে পড়ে ডুবে যায়। পরে পুলিশ ও স্থানীয়রা ৫৪ জন যাত্রীকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে বেলকুচি উপজেলার গয়নাকান্দি গ্রামের মৃত জহির ফকিরের ছেলে পাশান ফকির (৬৫), কলাগাছি গ্রামের শামীম হোসেনের ছেলে নাইমুল ইসলাম (৪), টাঙ্গাইল জেলার নাগরপুর উপজেলার সুবর্ণতলী গ্রামের ব্যবসায়ী মৃত মজিদ মোল্লার শেখ কামাল মোল্লার (৪৫) মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

সিরাজগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক মনজিল হক জানান, ঢাকা থেকে ডুবুরি দল রাতেই এসে পৌঁছেছে। আমরা ডুবুরি নিয়ে ঘটনাস্থলের দিকে রওয়ানা দিয়েছি। কিছুক্ষণের মধ্যে আবারও উদ্ধার অভিযান শুরু হবে।

সিরাজগঞ্জে পৃথক ঘটনায় এক দিনে ৬ জনের মৃত্যু

পবিত্র ঈদুল ফিতরের দ্বিতীয় দিনে সিরাজগঞ্জে নৌকাডুবিসহ তিনটি পৃথক ঘটনায় ৬ জনের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় আহত ও নিখোঁজ হয়েছেন অন্তত ১৬ জন।

আজ মঙ্গলবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার সলঙ্গায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে, চৌহালীতে যমুনায় নৌকাডুবি ও শাহজাদপুর দু’পক্ষের সংঘর্ষে এসব হতাহতের ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন— শাহজাদপুর উপজেলার গুটিবাড়ী গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে রিপন (২৮) ও আনছার মোল্লার ছেলে আশরাফুল (১৬), উল্লাপাড়া উপজেলার সলঙ্গা থানাধীন ওলিদহ গ্রামের আলতাফ হোসেন নূরীর স্ত্রী সেলিনা বেগম (৫৫), বেলকুচি উপজেলার গয়নাকান্দি গ্রামের মৃত জহির ফকিরের ছেলে পাষান ফকির (৬৫), কলাগাছি গ্রামের শামীম হোসেনের ছেলে নাইমুল ইসলাম (৪), টাঙ্গাইল জেলার নাগরপুর উপজেলার সুবর্ণতলী গ্রামের ব্যবসায়ী মৃত মজিদ মোল্লার শেখ কামাল মোল্লা (৪৫)।

শাহজাদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্ত (ওসি) মো. আতাউর রহমান জানান, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে আজ সন্ধ্যার আগে উপজেলার গুটিবাড়ী গ্রামে বাহারাম গ্রুপ ও নাজির গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে উভয়পক্ষের অন্তত ১২ জন আহত হন। আহতদের মধ্যে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে নেয়ার পথে রিপন ও আশরাফুলের মৃত্যু হয়। নিহতরা দুজনেই বাহারাম গ্রুপের সমর্থক। আহতের মধ্যে আবু সামা, আকতার হোসেন, বাহারাম আলী, গাজী, সাহেব আলী ও রাজুকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

এর আগে দুপুরে চৌহালী উপজেলার স্থলচর এলাকায় যাত্রীবোঝাই নৌকাডুবিতে এক শিশুসহ তিনজনের মৃত্যু ঘটেছে। এ ঘটনায় নিখোঁজ রয়েছেন ১৪ জন নৌযাত্রী।

এনায়েতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা মাসুদ পারভেজ জানান, আজ দুপুরে এনায়েতপুর খেয়াঘাট থেকে ৭০ জন যাত্রী নিয়ে একটি ইঞ্জিন চালিত নৌকা চৌহালী যাচ্ছিল। নৌকাটি স্থলচর নামক এলাকায় পৌঁছলে প্রচণ্ড ঝড়ো বাতাসের কবলে পড়ে ডুবে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ও স্থানীয়রা অভিযান চালিয়ে ৫৪ জনকে জীবিত অবস্থায় এবং শিশু নাইমুল ও বৃদ্ধ পাষান আলীর মরদেহ উদ্ধার করে।

ওসি আরও জানান, এ ছাড়াও যমুনা নদীর ভাটিতে কুকুরিয়া এলাকা থেকে শেখ কামাল মোল্লা নামে আরও এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করে স্থানীয়রা। এ নৌকাডুবির ঘটনায় ১৪ জন নিখোঁজ রয়েছে। সন্ধ্যা পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে নিখোঁজ ব্যক্তিদের মরদেহ উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

চৌহালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দেওয়ান মওদুদ আহম্মেদ বলেন, ‘নিখোঁজ যাত্রীদের উদ্ধারে সকালে ঢাকা থেকে নৌ ডুবুরি দল আমাদের সাথে যুক্ত হবে। এ ঘটনায় হতাহতদের মানবিক সহায়তা প্রদান করা হবে।’

এদিকে সকালে সলঙ্গা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হুমায়ুন কবির জানান, ওলিদহ গ্রামে আগুনে পুড়ে মারা গেছে উল্লেখ করে সেলিনা বেগম নামে নারীকে দাফন করা হয়। পরিবারের দাবি, বাড়িতে আত্মীয়-স্বজনদের জন্য গতকাল সোমবার গভীর রাত পর্যন্ত রান্না করেন সেলিনা। রান্না শেষের দিকে গ্যাসের চুলো থেকে তার পরনের কাপড়ে আগুন ধরে। তিনি সেটা টের না পেয়ে বিছানায় ঘুমোতে যান। ভোররাতে ওই আগুনে পুড়ে মারা যান সেলিনা। তবে এ মৃত্যুর বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে। তদন্তে কোনো তথ্য পাওয়া গেলে পরিবারের অভিযোগ না থাকলেও পুলিশ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করবে।

যমুনায় নৌকাডুবি, ৩ জনের লাশ উদ্ধার, নিখোঁজ ৩০

ছবিঃ প্রতীকী

সিরাজগঞ্জের যমুনা নদীতে নৌকাডুবির ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত তিন জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। নিখোঁজ হয়েছেন ইঞ্জিনচালিত নৌকাটির অন্তত ৩০ যাত্রী।

মঙ্গলবার (২৬ মে) দুপুরে ১টার দিকে জেলার এনোয়েতপুরের স্থল ইউনিয়নের যমুনা নদীতে ঘটনাটি ঘটে। নৌকাটির বেশিরভাগ যাত্রীই ধানকাটা শ্রমিক ছিলেন। তারা টাঙ্গাইলের করোটিয়ায় যাচ্ছিলেন বলে জানা গেছে।

উদ্ধারকৃত লাশের মধ্যে বেলকুচি উপজেলার গয়নাকান্দি গ্রামের অধিবাসী ধানকাটার শ্রমিক পাষান আলী (৬৫) ও টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার সূবর্ণতলী গ্রামের আবদুল মজিদের ছেলে ওয়েল্ডিং মিস্ত্রি শেখ কামালের (৪০) নাম জানা গেছে। শিশুটি অজ্ঞাত পরিচয়ের। তার মা-বাবাও নৌকা ডুবিতে নিখোঁজ রয়েছেন বলে জানা গেছে।

স্থানীয়রা জানান, প্রবল বাতাস ও বড় ঢেউয়ের ধাক্কায় যাত্রীবাহি নৌকাটি হঠাৎ ডুবে যায়। এতে ঘটনাস্থলে তিন বছরের বয়সী এক শিশুসহ কমপক্ষে ২ জন মারা যান। নিখোঁজ হন আরো ৩০ জন যাত্রী।

বিষয়টি নিশ্চিত করে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য আব্দুন নূর স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, দুপুর একটার দিকে এনায়েতপুর থানার নিকটবর্তী ঘাট থেকে যাত্রীবাহী শ্যালো ইঞ্জিন চালিত নৌকাটি ছেড়ে যায়। নৌকাটির বেশিরভাগ যাত্রীই ধান কাটা শ্রমিক ছিলেন। তাদের টাঙ্গাইলের করোটিয়ায় যাওয়ার কথা। দুপুর পৌনে ২টার দিকে নৌকাটি দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছলে প্রবল বাতাস ও ঢেউয়ের কবলে পড়ে।

তিনি আরও জানান, নৌকার মাঝি ইব্রাহীম হোসেন সাঁতরে উঠতে সক্ষম হলেও নারী ও পুরুষসহ কমপক্ষে ৩০ যাত্রী নিখোঁজ রয়েছেন।

এই দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলের উদ্দেশ্যে রওনা করেছেন বলে জানান এনায়েতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা মাসুদ।

চৌহালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) দেওয়ান মওদুত আহম্মেদ জানান, নৌকাডুবির ঘটনায় দু’জন নিহত এবং বেশ কজন নিখোঁজ হয়েছেন বলে জানা গেছে।

চৌহালী থানার ওসি রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস জানান, নৌকার ৩৫-৪০ জন যাত্রীকে উদ্ধার করে স্থলচর বাজারে রাখা হয়েছে। ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ নিখোঁজ যাত্রীদের উদ্ধারে কাজ কাজ করছে।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাস মহামারিতে প্রশাসন আরোপিত লকডাউন উপেক্ষা করে চৌহালীর বেশ কিছু এলাকা থেকে অবৈধ ইঞ্জিনচালিত নৌকায় ঝুঁকি নিয়ে যাত্রী পারাপার করে আসেছে একটি চক্র। পুলিশের চোখ এসব নৌকায় করে প্রতিদিনই শত শত মানুষ ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জে যাচ্ছে।

চৌহালীতে মমিন মন্ডল এমপির খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

মমিন-মন্ডল-এমপি

রফিক মোল্লা: সিরাজগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য আবদুল মমিন মন্ডলের নিজস্ব তহবিল থেকে করোনা ভাইরাসে কর্মহীন দুস্থ প্রায় ২০ হাজার পরিবারের মধ্যে খাদ্য সহায়তা বিতরণ করা হয়েছে। প্রায় ১ মাস ধরে নির্বাচনী এলাকা বেলকুচি-চৌহালী, এনায়েতপুরের বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে তিনি নিজ হাতে অভাবী পরিবারের মাঝে খাবার তুলে দিচ্ছেন।

সোমবার দিনব্যাপী যমুনা চরাঞ্চল অধ্যুষিত চৌহালী উপজেলার বাঘুটিয়া, খাষপুখুরিয়া ও খাষকাউলিয়া ইউনিয়নে ২১শ দুস্থ পরিবারের মধ্যে তিনি চাল, ডাল, তেল ও লবন বিতরণ করেছেন।

এসময় চৌহালীর ইউএনও দেওয়ান মওদুদ আহমেদ, উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আবু নজির মিয়া, সহ সভাপতি আবদুর রশিদ বাবুল, যুগ্মসম্পাদক তাজ উদ্দিন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান বাবুল মোল্লা ও ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল কাহার সিদ্দিকী ও যুবলীগ নেতা আবু সাঈদ বিদ্যুৎ সহ দলীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।