দুর্নীতির দায়ে চৌহালীর উমারপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অপসারণ

অনিয়ম-দুর্নীতির দায়ে সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার উমারপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ আব্দুল মতিন মণ্ডলকে অপসারণ করা হয়েছে। ছবি : সংগৃহীত

অনিয়ম-দুর্নীতির দায়ে সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার চার নম্বর উমারপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ আব্দুল মতিন মণ্ডলকে অপসারণ করা হয়েছে। তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত।

চৌহালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আফসানা ইয়াসমিন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ইউএনও বলেন, ‘স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব আবু জাফর রিপন স্বাক্ষরিত চিঠিতে ইউপি চেয়ারম্যানের বরখাস্তের আদেশ পেয়েছি। চিঠির নির্দেশনা মোতাবেক চেয়ারম্যান পদ শূন্য ঘোষণা করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে।’

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, সরকারের ভিজিডি কার্ডধারীদের চাল বিতরণে অনিয়ম, ভিজিডি কার্ডধারীদের প্রতি মাসে ২০০ টাকা জমা না দিয়ে উল্টো আরও ৫০ টাকা করে সঞ্চয় আদায়সহ জেলেদের মাঝে ভিজিডি কার্ডের চাল বিতরণে অনিয়ম করেছেন ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন মণ্ডল। ২০১৯-২০ অর্থবছরে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসূচির আওতায় শ্রমিকদের মাথাপিছু এক হাজার টাকা উত্তোলন ছাড়াও চেকে ভুয়া স্বাক্ষর দিয়ে টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেছেন।

এতে আরও বলা হয়, বিধি-বিধান তোয়াক্কা না করে ব্যাংক কর্মকর্তাদের যোগসাজশে নির্ধারিত সময়ের আগেই প্রকল্পের টাকা উত্তোলন করেছে। এসব অভিযোগ প্রাথমিক প্রমাণিত হওয়ায় জেলা প্রশাসকের সুপারিশে আব্দুল মতিন মণ্ডলকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। তাকে কেন চূরান্তভাবে চেয়ারম্যান পদ থেকে অপসারণ করা হবে না এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যানকে পত্রের মাধ্যমে কারণ দর্শনো হয়।

আব্দুল মতিন মণ্ডলের কারণ দর্শানোর জবাব সন্তোষজনক না হওয়ায় জনস্বার্থের পরিপন্থি বিবেচনায় স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন ২০০৯ এর ৩৪ (৪) (খ) ও (ঘ) ধারায় অপরাধ করায় একই আইনের ৩৪ এর (৫) ধারা মোতাবেক আব্দুল মতিন মন্ডলকে ইউপি চেয়ারম্যানের পদ থেকে স্থায়ী ভাবে অপসারণ করা হয়।

উল্লাপাড়ায় বিদ্যুৎ স্পর্শে গৃহবধুর মৃত্যু

বুধবার দুপুরে উল্লাপাড়া উপজেলার এলংজানি গ্রামের মাঠে বিদ্যুৎ স্পর্শে জাহানারা বেগম (৪৫) নামের এক গৃহবধু মারা গেছেন।

তিনি এই গ্রামের শহীদুল প্রামানিকের স্ত্রী। তিনি মাঠে ঘাস কাটতে গিয়ে এই দুর্ঘটনার শিকার হন।

উল্লাপাড়া মডেল থানার উপ পরিদর্শক আলাল হোসেন জানান, উক্ত গ্রামের কৃষক শহীদ সরকার তার মাঠে ধান মাড়াইয়ের স্থান তৈরি করে সেখানে মেশিনে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়। সংযোগের তারটি তার বাড়ি থেকে মাটির উপর দিয়ে নিয়ে এসে মাড়াই মেশিনে যুক্ত করে। ওই তারে ছিদ্র ছিল।

জাহানারা মাঠে ঘাষ কাটার সময় অসাবধানতা বশতঃ তারের সেই স্থানে বিদ্যুৎ স্পর্শে ঘটনাস্থলেই মারা যান। পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছে।

শাহজাদপুরে দুইজনের মৃত্যু


সিরাজগঞ্জ জেলায় পৃথক বজ্রপাতে ৫জন নিহত

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর,উল্লাপাড়া ও বেলকুচি উপজেলায় রবিবার বিকেল পৌনে ৫টার দিকে পৃথক বজ্রপাতে ৫ জন নিহত হয়েছে। নিহতরা হলেন,শাহজাদপুর উপজেলার কায়েমপুর ইউনিয়নের চর আঙ্গারু গ্রামের আমানত মোল্লার ছেলে মো: আব্দুল্লাহ ওরফে জুয়েল রানা (২৬), নরিনা ইউনিয়নের বাতিয়া গ্রামের মৃত জালাল উদ্দিন ভোলার ছেলে আলহাজ আলী বাবুর্চি (৬০), উল্লাপাড়া উপজেলার উধুনিয়া ইউনিয়নের আগদিঘল গ্রামের শাহেদ আলীর ছেলে ফরিদুল ইসলাম (১৬), সলঙ্গা ইউনিয়নের আঙ্গারু গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে রফিকুল ইসলাম (৪৫) ও বেলকুচি উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের চর সমেষপুর গ্রামের লাইলি বেগম(৪৫)।

এ বিষয়ে শাহজাদপুর উপজেলার কায়েমপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড সদস্য আবুল কালাম জানান, এ দিন বিকেলে বাড়ির পাশের জমিতে ধান কাটার সময় জুয়েল রানা বজ্রপাতে নিহত হয়।

এ বিষয়ে নরিনা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফজলুল হক ও এলাকাবাসি আলতাফ হোসেন জানান, আলহাজ তার স্ত্রীকে সাথে নিয়ে বাড়ির পাশের মাঠে ধান শুকানোর কাজ করছিলেন। এ সময় ঝড়-বৃষ্টি শুরু হলে তারা দৌড়ে বাড়ির কাছে আসলে হঠাৎ বজ্রপাতে আলহাজ বাবুর্চি ঘটনাস্থলেই নিহত হয়।

এ বিষয়ে উল্লাপাড়া উপজেলার উধুনিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল প্রামানিক জানান, আগদিঘল গ্রামের মাঠে ধান কাটার সময় নবম শ্রেণির ছাত্র ফরিদুল ইসলাম বজ্রপাতে নিহত হয়।

এ বিষয়ে সলঙ্গা থানার ওসি আব্দুল কাদের জিলানী বলেন,উল্লাপাড়া উপজেলার বাঙ্গালা ইউনিয়নের ধরইল বিলে হাঁস পালনের সময় রফিকুল ইসলাম (৪৫) নামের এক রাখাল বজ্রপাতে নিহত হয়। তিনি উল্লাপাড়া উপজেলার সলঙ্গা ইউনিয়নের আঙ্গারু গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে।

এ বিষয়ে বেলকুচি থানার ওসি গোলাম মোস্তফা জানান, বেলকুচি উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের চর সমেষপুর গ্রামের লাইলি বেগম মাঠে কাজ করার সময় বজ্রপাতে নিহত হন। এ সব ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

কাজিপুরে মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা ও দোয়া

সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে মোহাম্মদ নাসিমের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (১ জুন) বেলা বারোটায় উপজেলা পরিষদ হল রুমে এই অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন কাজিপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হাসান সিদ্দিকী।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন-সাবেক স্বাস্থ্য মন্ত্রী মরহুম মোহাম্মদ নাসিম পুত্র ও সিরাজগঞ্জ -১ আসনের সংসদ সদস্য প্রকৌশলী তানভীর শাকিল জয়।

এসময় তিনি বলেন, “কাজিপুরের প্রিয় মানুষ ছিলেন মোহাম্মদ নাসিম। তিনি চলে যাওয়াতে এই জায়গাটা আর কোন দিন পূর্ণ হবে না। কাজিপুরের সৌভাগ্য যে মনসুর আলী ও মোহাম্মদ নাসিমের মত নেতা পেয়েছিল। উন্নয়ন হবে সবই হবে কিন্তু মোহাম্মদ নাসিমকে পাবো না।”

তিনি আরো বলেন, আমি যখনই কাজিপুরে আসি তখনই কোন না কোন মুরুব্বীর সাথে দেখা হলে আমার বাবার কথা বলে তারা অঝরে চোখের জল ফেলেন।

আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন-কাজিপুর উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হাসান সিদ্দিকী, সহকারি কমিশনার (ভূমি) এবিএম আরিফুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান দ্বীন মোহাম্মদ বাবলু, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাপলা খাতুন, উপজেলা আ.লীগের সভাপতি আলহাজ্ব শওকত হোসেন, পৌর মেয়র আব্দুল হান্নান তালুকদার, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা.মোমেনা পারভীন পারুল, চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান নান্নু, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সালাম প্রমূখ।

এসময় উপজেলা আ.লীগ ও তার বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

বৃষ্টির পানিতে বিদ্যুতের তার, উত্তরায় প্রাণ গেল সিরাজগঞ্জের জিয়ার

রাজধানীর উত্তরায় বৃষ্টির পানি থেকে রিকশা সরাতে গিয়ে নিচে থাকা বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে দুই রিকশাচালকের মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে উত্তরা ১০ নম্বর সেক্টরের ২১ নম্বর রোডে এই ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- সিরাজগঞ্জের ডেউপাড়া গ্রামের মতিয়ার রহমানের ছেলে জিয়া (৪৫)  অন্যজন মো. আব্দুর রাজ্জাক (৫০) কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলোর বারঘরিয়া গ্রামের ওহাব মিয়ার ছেলে।

উত্তরা পশ্চিম থানার ওসি শাহ মো. আক্তারুজ্জামান ইলিয়াস জানান, বৃষ্টির পানির নিচে বিদ্যুতের তার পড়ে ছিল। পানি থেকে রিকশা সরাতে গিয়ে তারের সঙ্গে পেঁচিয়ে তারা দুজন একসাথেই বিদ্যুতায়িত হন। তাদের উদ্ধার করে মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।

অবস্থার অবনতি হলে সেখান থেকে তাদের উত্তরা আধুনিক মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

বেলকুচিতে অনলাইনে খাবার বিক্রি, চয়নের মাসে আয় ৪০ হাজার টাকা

ভেজালের ছড়াছড়ি যখন চারদিক, তখন স্বাস্থ্যকর খাবার কে না চায়! এ কারণে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলার তামাই গ্রামের (টিএফসি) একটি অনলাইন খাবারের দোকান। নিজের তৈরি খাবার নিয়ে পরিচয় তৈরি করার চেষ্টা করছেন তরুণ ব্যবসায়ী জাকিয়া আফরোজ চয়ন।

বাড়িতে খাবার তৈরি করে গ্রামের মেঠো পথে বাবা-মেয়ে ছুটছেন গ্রাহকের বাসায়। অর্ডার করলেই বাড়িতে পৌঁছে দিচ্ছেন বিরিয়ানি, রাইসবোল, পাস্তা, পিৎজা, বার্গার, কাচ্চি, তেহারি, চিকেন ফ্রাই, শর্মা, চাইনিজসহ হরেক রকমের খাবার।

জাকিয়া আফরোজ চয়ন ঢাকার একটি বেসরকারি কলেজ থেকে স্নাতক (সম্মান) শেষ করে স্নাতকোত্তরে ভর্তি হয়েছেন। সেই সময়ই দেশে হানা দেয় করোনা। দীর্ঘ ছুটিতে আটকে যান তিনি। বাবার ওয়ার্কশপ ও বাড়িতে থাকা তাঁতের ব্যবসাটাও করোনার থাবায় বন্ধ হয়ে যায়।

তখন ছুটি নিয়ে বাড়িতে এসে শুরু করেন অনলাইনে খাবারের ব্যবসা। মাত্র আড়াই হাজার টাকা নিয়ে গত ডিসেম্বরে শুরু করেন গ্রাম ভিত্তিক বাহারি খাবারের অনলাইন দোকান। এই উদ্যোগেই আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি চয়নকে। ছোট দুই বোনের সহযোগিতায় স্বপ্ন দেখছেন সফল একজন নারী হওয়ার। বাবা নাসিমুল গণি জুয়েল নিজেই খাবার সরবরাহ করে মেয়েকে উৎসাহ দিচ্ছেন। মাও সহযোগিতা করেন রান্না ও প্যাকেটিংয়ের কাজে।

জেলার বেলকুচি উপজেলার তামাই গ্রামের নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান জাকিয়া আফরোজ চয়ন, জুলিয়া আফরোজ নয়ন ও নুসরাত জেরিন অয়ন। চয়নের উদ্যোগে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন ধরনের খাবার এখন অনলাইনে মিলছে উপজেলার তামাই গ্রামে। শহরের নামিদামি সব খাবার খুব স্বল্প দামে গ্রামের মানুষের দোরগোড়ায় নিয়ে গেছেন তিন বোন। মাত্র কয়েক মাস ধরে চলছে তাদের অনলাইন রেস্তোরাঁ। আর এতেই বিক্রি হচ্ছে দিনে ৩ থেকে ৫ হাজার টাকা। যার থেকে আয় থাকছে প্রায় অর্ধাংশ। শুধু তাই নয় এখানে পাওয়া যায় চাহিদা মতো সব খাবার। তবে দুই ঘণ্টা আগে অর্ডার দিলেই বাড়িতে পৌঁছে যাচ্ছে খাবার। খাবারের মান নিয়েও প্রশংসায় ভাসছেন তারা।

জাকিয়া আফরোজ চয়ন বলেন, তিন বোন আর মা-বাবাকে নিয়ে আমাদের সংসার। বোনদের মধ্যে আমি সবার বড়। ঢাকার একটি বেসরকারি কলেজ থেকে স্নাতক (সম্মান) শেষ করে স্নাতকোত্তর শ্রেণিতে ভর্তি হওয়ার কথা। করোনার কারণে তা হয়ে ওঠেনি। মেজো বোন নয়ন স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষে আর ছোট বোন অয়ন ১০ম শ্রেণিতে পড়ে। গত বছর মার্চে লকডাউনের সময় ঢাকা থেকে গ্রামে এসে দীর্ঘ ছুটিতে আটকে যাই।

তিনি আরও বলেন, বাবার ওয়ার্কশপ ও বাড়িতে থাকা তাঁতের ব্যবসাটাও করোনার থাবায় বন্ধ হয়ে যায়। তাই বাবাকে কীভাবে সহযোগিতা করা যায়, সেই চিন্তায় পড়েন তিন বোন। বড় কোনো পুঁজিও হাতে নেই। করোনার এই সময়ে গ্রামে বসে অলস সময় কাটানো মোটেই ভালো লাগছিল না তাদের। তাই চয়ন প্রথমে অনলাইনে একটি ফেসবুক পেজ খুলে সিরাজগঞ্জের তাঁতকুঞ্জে উৎপাদিত শাড়ি, লুঙ্গি, থ্রি পিস বাজারজাত করতে শুরু করেন। কিন্তু এই ব্যবসায় পুঁজির অভাবে খুব একটা আলোর মুখ দেখছিল না। তখন হঠাৎ চয়নের মাথায় আসে কীভাবে শহরের মতো গ্রামেও একটি অনলাইন রেস্তোরাঁ চালু করা যায়।

গ্রামে খাবারের তেমন ভালো রেস্তোরাঁ নেই, তাই বর্তমান প্রেক্ষাপটে এখানেই একটি অনলাইন রেস্তোরাঁ চালু করলে সাড়া মেলার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে বাইরে দোকান দিতে তো অনেক অর্থের প্রয়োজন, যা তাদের নেই। তাই ফেসবুক ব্যবহার করে হোম ডেলিভারির চিন্তা করেন। সেই চিন্তা-ভাবনা নিয়ে ২০২০ সালের ৮ ডিসেম্বর শুরু করেন অনলাইনে পোশাক ব্যবসার পাশাপাশি খাবারের ব্যবসা। তামাই ফুড কার্ট-টিএফসি নামে অনলাইন রেস্তোরাঁ। সে থেকে এখন পর্যন্ত আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাদের।

তিনি আরও বলেন, মাত্র আড়াই হাজার টাকা দিয়ে শুরু করেছিলাম। এখন অনেক ভালো অবস্থা। শুধু আমার গ্রাম নয়, দূর-দূরান্ত থেকে অর্ডার আসে। মাত্র পাঁচ মাসে টিএফসি এখন নিজ গ্রামসহ আশপাশের এলাকার সব মানুষের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। কিন্তু ডেলিভারির ব্যবস্থা না থাকার কারণে দূরের অর্ডারগুলো সরবরাহ করতে পারি না।

বাহারি খাবার রান্নার ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার কখনো প্রফেশনালি রান্না শেখা হয়নি। ছোটবেলা থেকে মায়ের রান্না দেখতাম। রান্নার প্রতি ঝোঁক থেকেই রান্না পছন্দ করি৷ সেই রান্না দিয়েই আজ স্বাবলম্বী হওয়ার পাশাপাশি করোনার সময়ে পুরো পরিবারকেও সহযোগিতা করতে পারছি। ভবিষ্যতে আরও বড় পরিসরে কিছু করার স্বপ্নও লালন করছি।

টিএফসিতে বিরিয়ানি, রাইসবোল, পাস্তা, পিৎজা, বার্গার, কাচ্চি, তেহারি, চিকেন ফ্রাই, শর্মা, চাইনিজ খাবারসহ নানা ধরনের প্রায় ২০টি আইটেমের খাবার অর্ডার অনুযায়ী তৈরি হয়ে থাকে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয় পিৎজা, বার্গার, রাইসবোল। পিৎজা বিক্রি হয় ২৫০ থেকে ২৭৫ টাকায়, রাইসবোল ৯৯ টাকায়, বার্গার ৯৯ থেকে ১৫০ টাকায়। এছাড়াও সাধ্যের মধ্যে বিভিন্ন খাবার চাহিদা অনুযায়ী বিক্রি হয়ে থাকে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত প্রায় ১২টা পর্যন্ত খাবারের অর্ডার আসতে থাকে। তবে তুলনামূলক বিকেলে ও প্রতি শুক্রবারে অর্ডার বেশি হয়ে থাকে। জেলার বেশ কিছু গ্রাম ও শহর থেকে খাবারের চাহিদা আসছে। তবে জনবল ও পুঁজি কম হওয়ায় সরবরাহ করা সম্ভব হয় না।

চয়ন বলেন, গ্রামে বসে শুধু একটি ফেসবুক পেজের মাধ্যমে অনলাইন রেস্তোরাঁ চালিয়ে যে সফল হওয়া যায়, তা আসলে ভাবতেই অবাক লাগে। উদ্যোক্তা হওয়ার পর নিজেকে স্বাধীন মনে হয়। আগের জীবনটা ছিল ধরাবাঁধা নিয়মের মধ্যে। ভেবে ভালো লাগে, আমাদের কারণে আরও কিছু মানুষ নিজের পায়ে দাঁড়ানোর স্বপ্ন দেখছে। বাবা অর্ডার অনুযায়ী মোটরসাইকেলে যথা সময়ে খাবার সরবরাহ করে থাকেন। দুই বোন ও মা খাবার প্রস্তুত করতে সহায়তা করেন। পাশাপাশি অর্ডার বেশি থাকলে আরও তিন নারী আমার সহায়ক হিসেবে কাজ করেন।

স্থানীয় কয়েকজন প্রতিবেশি বলেন, প্রায় পাঁচ মাস আগে অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের খাবার বিক্রি শুরু করেছেন চয়ন। অনেকেই ভেবেছিল এটা তেমন কিছু হবে না, কিন্তু এখন তারাই তার প্রশংসা করছেন। তবে গ্রামে বসে এতটা অল্প দামে শহরের সব খাবার পেয়ে গ্রামবাসী আনন্দিত।

মেয়ের সাফল্যের বিষয়ে বাবা নাসিমুল গণি বলেন, গ্রাম পর্যায়ে এমন একটি ডিজিটাল উদ্যোগ সফল হতে পারে, প্রথমে আমরা বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। এখন দেখছি, অনলাইনে বিশাল একটি বাজার আছে। যেখানে দেশের অনেক তরুণ উদ্যোক্তা অংশ নিতে পারেন।

তিনি আরও বলেন, ছোট মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে মোটরসাইকেলে গিয়ে খাবার যথাসময়ে পৌঁছে দেই। খাবার খেয়ে সবাই প্রশংসা করেন। মেয়ের এমন উদ্যোগে সত্যিই শুরুতে অবাক হয়েছিলাম। এখন এই উদ্যোগেই সংসারে সচ্ছলতা আসছে। স্বপ্ন আছে ভালোমানের একটা রেস্তোরাঁ দেবো।

সূত্রঃ রাইজিংবিডি.কম

চৌহালীতে ৫ মামলার পলাতক আসামি কর্ণেল গ্রেপ্তার

চেক জালিয়াতিসহ ৫টি মামলার পলাতক আসামি অ্যাডভোকেট মো. হুমায়ুন কবির ওরফে কর্ণেলকে কুষ্টিয়া জেলা থেকে গ্রেপ্তার করেছে চৌহালী থানা পুলিশ।

রোববার (৩০ মে) বেলা সাড়ে ১১ টায় এতথ্য নিশ্চিত করেছেন চৌহালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম।

হুমায়ুন কবির ওরফে কর্ণেল চৌহালী উপজেলার মিটয়ানী গ্রামের মৃত আব্দুস ছাত্তারের ছেলে। তিনি বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে চাকরির দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা ও চেক হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এসব মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

চৌহালী থানার ওসি জানান, হুমায়ুন কবির কর্ণেল এর বিরুদ্ধে চেক জালিয়াতি, সাজা ও জিআর মামলা হওয়ায় দীর্ঘদিন ধরে তিনি পলাতক ছিলেন। এসব মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানাও জারি রয়েছে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার (২৯ মে) কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর থানাধীন বড়ুঘান্দিয়া বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। আজ (রোববার) আদালতের মাধ্যমে তাকে জেল হাজতে পাঠানো হবে।

কামারখন্দে বজ্রপাতে প্রাণ গেল ব্যবসায়ীর

সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে বজ্রপাতে ইসলাম মন্ডল (৩০) নামে এক ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার (১ জুন) সকালে উপজেলার বড়ধুল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

ইসলাম মন্ডল উপজেলার ঝাঐল ইউনিয়নের বড়ধুল গ্রামের ইয়াহিয়া মন্ডলের ছেলে।

নিহতের বড় ভাই ৩ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য একরামুল হাসান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, সকালে গোয়াল ঘর থেকে গরু বের করার সময় ব্রজপাতে ইসলাম মন্ডল আহত হয়। পরে পরিবারের লোকজন তাকে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিল্লাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিল্লাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. শামীমুল ইসলাম জানান, হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়। পরে পরিবারের লোকজন মরদেহটি নিয়ে যায়।

সিরাজগঞ্জে মৃত স্ত্রীকে হাসপাতালে রেখেই পালালো স্বামী, পরে আটক

বিষপানে নিহত স্ত্রীর মরদেহ হাসপাতালে রেখেই পালিয়ে গেলেন স্বামী। এর কয়েক ঘণ্টা পর অভিযান চালিয়ে অন্য একটি বাড়ি থেকে স্বামী ফারুক হোসেনকে (৪০) আটক করেছে পুলিশ।

সোমবার (২৪) সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে কাজলী বেগম (৩৫) নামে এক গৃহবধূর মরদেহ রেখে পালিয়ে যান তার স্বামী ফারুক হোসেন।

কামারখন্দ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাকিবুল হুদা জানান, ফারুক হোসেন তার মৃত স্ত্রীকে হাসপাতালে রেখে পালিয়ে যায়।

খবর পেয়ে তার বাড়িতে পুলিশ পাঠানো হয়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে সেখান থেকেও পালিয়েছিলেন তিনি।

পরে পাশের একটি বাড়ি থেকে তাকে আটক করা হয়েছে। স্ত্রীর মরদেহ রেখে কেন হাসপাতাল থেকে পালিয়েছিলেন ফারুক সে বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

এর আগে সোমবার সকালে অজ্ঞান অবস্থায় কাজলী বেগমকে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসেন ফারুক হোসেন। দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করার পরই মরদেহ রেখে পালিয়ে যান ফারুক।

সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. শামিমুর রহমান জানান, ভর্তির সময়ে ওই নারী বিষপান করেছেন উল্লেখ করা হয়েছে। তবে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানতে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ফরমালিনমুক্ত সবজি মিলবে সিরাজগঞ্জ পৌর বাজারে

নানা রকমের সবজি বেচাকেনায় জমজমাট সিরাজগঞ্জের সবচে বড় পৌর পাইকারি সবজির আড়ত। টাটকা সবজি কিনতে দূরদূরান্ত থেকে ক্রেতারা ভিড় করেন এখানে। আর সরবরাহ ভালো থাকায় সবজির দামও ক্রেতাদের ক্রয় ক্ষমতার নাগালে রয়েছে।

ভোর হতে না হতেই ক্রেতা বিক্রেতার ভিড়ে সরগরম সিরাজগঞ্জের সবচে বড় পৌর পাইকারি সবজির আড়ত। জেলার বিভিন্ন উপজেলায় উৎপাদিত টাটকা সবজি আড়তে নিয়ে আসেন চাষিরা। পাওয়া যাচ্ছে আলু, বেগুন, পটল, শশাসহ হরেক রকমের সবজি।

চলতি সপ্তাহে আড়তে সবজির সরবরাহ ভালো। তাই প্রকারভেদে সবজির দামও রয়েছে ক্রয় ক্ষমতার নাগালে।

পাইকার ব্যবসায়ীরা জানান, এখান থেকে ব্যবসায়ীরা সবজি কিনে বিভিন্ন জায়গায় নিয়ে যায়। এ সবজিগুলো টাটকা, কোনো ধরনের ফরমালিন দেওয়া হয় না।

পৌর পাইকারি সবজির এই আড়তে প্রায় ১০০টি দোকান রয়েছে। প্রতিদিন ২০ থেকে ২৫ লাখ টাকার সবজি কেনা বেচা হয়।