টাঙ্গাইলের ভুঞাপুরে মাদরাসা ছাত্রী ধর্ষণে ৫ হিন্দু যুবকের মৃত্যুদণ্ড

টাঙ্গাইলের ভুঞাপুরে ছাব্বিশা গ্রামে এক মাদরাসাছাত্রীকে অপহরণ করে দলবেঁধে ধর্ষণ মামলায় পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে ট্রাইব্যুনালের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন এই রায় ঘোষণা করেন।

রায় ঘোষণাকালে দুইজন আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। এরা হলেন- মধুপুর উপজেলার চারালজানী গ্রামের বদন চন্দ্র মণি ঋষির ছেলে সঞ্জিত (২৮), একই উপজেলার গোলাবাড়ি গ্রামের শ্রি দিগেন চন্দ্র শীলের ছেলে গোপি চন্দ্র শীল (৩০)।

পলাতক আসামিরা হলেন একই এলাকার সুনীল চন্দ্র শীলের ছেলে সাগর চন্দ্র শীল (৩৩), সুনীল মণি ঋষির ছেলে সুজন মণি ঋষি (২৮) ও মণিন্দ্র চন্দ্রের ছেলে রাজন চন্দ্র (২৬)।

ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড করে অধ্যাদেশ জারির পর এটিই প্রথম ফাঁসির রায়।

রাষ্ট্রপক্ষে এই মামলা পরিচালনা করেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিশেষ পিপি নাছিমুল আকতার। আর মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা টাঙ্গাইল জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আতাউর রহমান আজাদ মামলার শুরু করে শেষ পর্যন্ত ভিকটিমকে আইনি সহায়তা দেন।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিশেষ পিপি নাছিমুল আকতার জানান, ২০১২ সালে দণ্ডিত আসামিদের মধ্যে সাগর চন্দ্র শীলের সঙ্গে মোবাইলে পরিচয় হয় ভূঞাপুর উপজেলার ছাব্বিশা গ্রামের ওই মাদরাসাছাত্রীর। একই বছরের ১৫ জানুয়ারি ওই ছাত্রী সকালে বাড়ি থেকে মাদরাসায় যাওয়ার পথে শালদাইর ব্রিজের কাছে পৌঁছলে সাগর কৌশলে একটি সিএনজিতে তাকে এলেঙ্গা নিয়ে যায়।

সেখান থেকে মধুপুরে চারাল জানী গ্রামে তার বন্ধু রাজনের বাড়িতে উঠে। সেখানে তার চার বন্ধু ছাত্রীকে বিয়ের জন্য চাপ দেয়। সাগর হিন্দু বলে তার প্রস্তাব প্রত্যাখান করে মেয়েটি। এ কারণে ওই রাতে সাগর রাজনের বাড়িতে আটক রেখে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।

পরে ১৭ জানুয়ারি রাতে তাকে বংশাই নদীর তীরে নিয়ে সেখানে তারা পাঁচজনে মিলে পালাক্রমে ধর্ষণ করে ফেলে যায়।

পরদিন ভোরবেলা স্থানীয়দের সহায়তায় মেয়েটিকে স্বজনরা এসে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ওই ছাত্রী বাদী হয়ে ভুঞাপুর থানায় ১৮ জানুয়ারি দণ্ডিতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ সুজন মণি ঋষিকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠায়।

১৯ জানুয়ারি আসামি সুজন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। সুজন তার জবানবন্দিতে সাগর, রাজন, সনজিত ও গবি চন্দ্র জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।

পুলিশ তদন্ত শেষে পাঁচজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে। ২০১৫ সালের ২৯ অক্টোবর আসামীদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠনের মধ্য দিয়ে বিচারিক কার্যক্রম শুরু হয়। আজ এ মামলার রায়ে পাঁচজনের মৃত্যুদণ্ড দিলো আদালত।

সূত্রঃ ঘাটাইল ডটকম

নগরবাড়ী-নটাখোলা ও কাজীরহাট আমদানি-রপ্তানি ঘাট দুটির রাজস্বের টাকা্ উপজেলায় ফেরতের দাবি


বেড়ার বরখাস্ত মেয়র আব্দুল বাতেন সংবাদ সম্মেলনে ঘটনার ব্যাখ্যা দিলেন

পাবনার বেড়ায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) লাঞ্ছিত করার অভিযোগে বেড়া পৌরসভার মেয়র পদ থেকে বরখাস্ত হওয়া আব্দুল বাতেন সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ঘটনার ব্যাখ্যা দিয়েছেন।  বুধবার (১৪ অক্টোবর) দুপুর ১২টায় বেড়া পৌরসভার মিলনায়তনে তিনি এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন। এ সময় তাঁর সঙ্গে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী ও জনপ্রতিনিধিসহ তাঁর দেড়শতাধিক সমর্থক উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলনে মেয়র (সাময়িক বরখাস্তকৃত) বলেন, বেড়া উপজেলার নগরবাড়ী-নটাখোলা ও কাজীরহাট আমদানি-রপ্তানি ঘাট দুটি বিধি মোতাবেক উপজেলা পরিষদের আওতাভূক্ত। উপজেলা পরিষদেরই ঘাট দুটির রাজস্ব আদায়ের কথা। কিন্তু সম্প্রতি পাবনা জেলা প্রশাসন তা উপেক্ষা করে ঘাট দুটি থেকে রাজস্ব আদায়ের (খাস আদায়) উদ্যোগ নেয়। এ বিষয়টি বেড়াবাসীর স্বার্থসংশ্লিষ্ট উল্লেখ করে তিনি বলেন বিষয়টি ২২ সেপ্টেম্বরের উপজেলা পরিষদের মাসিক সভায় অন্তর্ভূক্ত হয়েছে। পরবর্তী সভায়ও এটি অন্তর্ভূক্ত করার কথা। অথচ ঘটনার দিন অর্থাৎ গত সোমবার (১২ অক্টোবর) উপজেলা পরিষদের মাসিক সভায় এ বিষয়টি আলোচনা থেকে কৌশলে বাদ দেওয়া হয়। এতে তিনি বিষয়টি নিয়ে প্রতিবাদ করেছেন ও আলোচনায় অন্তর্ভূক্ত করার কথা বলেছেন মাত্র। এ ছাড়া সেখানে কোনো ধাক্কাধাক্কি বা ইউএনওকে লাঞ্ছিত করার ঘটনা ঘটেনি। আব্দুল বাতেন দাবি করেন ইউএনওর সঙ্গে তাঁর ভালো সম্পর্ক উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন তাঁর বিরুদ্ধে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ দেওয়া হচ্ছে তা সম্পূর্ণভাবে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। তাঁকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য ষড়যন্ত্র করে ওইদিন ঘটনাটির ভুল ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে আব্দুল বাতেন বলেন, তিনি চান ঘটনাটির সুষ্ঠু তদন্ত হোক। তদন্ত হলেই সঠিক বিষয়টি বের হয়ে আসবে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করার বিষয়টিকে তিনি স্বাগত জানান বলে দাবি করেন। কারণ বরখাস্ত করায় বিষয়টি নিয়ে এখন সঠিক তদন্ত হবে বলে তিনি মনে করেন। উল্লেখ্য, গত সোমবার (১২ অক্টোবর) উপজেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে মাসিক সভাকালে মেয়র আব্দুল বাতেনের বিরুদ্ধে ইউএনও আসিফ আনাম সিদ্দিকীকে লাঞ্ছিত এবং অশ্রাব্য ভাষায় গালাগাল ও ভয়ভীতি দেখানোর অভিযোগ ওঠে। এরই ভিত্তিতে স্থানীয় সরকার বিভাগ মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) তাঁকে মেয়র পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করে।

এক দিনের সব নমুনা ‘পজিটিভ’, পরীক্ষা বন্ধ এক সপ্তাহ

ছবি রয়টার্স

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা পরীক্ষায় এক দিনের সব নমুনার প্রতিবেদন ‘পজিটিভ’ এসেছে। এ অবস্থায় সেই ফলাফল আর ঘোষণা করা হয়নি। কর্তৃপক্ষের ধারণা, পিসিআর যন্ত্রের কোথাও কোনো গোলমাল হয়েছে। এটি ঠিক করতে এক সপ্তাহ থেকে পরীক্ষা বন্ধ রাখা হয়েছে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, গত ৩১ জুলাই রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর যন্ত্র দিয়ে ৯৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষার ফলাফলে দেখা যায়, শতভাগ নমুনাই করোনা ‘পজিটিভ’। এমন অস্বাভাবিক ফলাফল দেখে সেদিনের ফলাফল আর ঘোষণা করা হয়নি। টেকনোলজিস্টরা উপলব্ধি করেন, যন্ত্রের কোথাও কোনো গোলমাল হয়েছে। পরে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখা যায়, আসলেই যন্ত্রটিতে ত্রুটি রয়েছে। বিষয়টি ধর পড়ার পর ওই ত্রুটি সারানোর চেষ্টা চলছে। বারবার নমুনা পরীক্ষা করে যাচাই করা হচ্ছে, যন্ত্রটি এখন ঠিকমতো কাজ করছে কি না।

হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জামিলুর রহমান সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন না। হাসপাতালের উপপরিচালক সাইফুল ফেরদৌস বলেন, যন্ত্রে একটু ত্রুটি দেখা দিয়েছিল। সেটি ঠিক হয়ে গেছে। আজ-কালের মধ্যে চালু করা যাবে।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনার নমুনা পরীক্ষা শুরু হয় গত ১৯ মে থেকে। সেখানকার পিসিআর যন্ত্রটির ১৮৮ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষার সক্ষমতা রয়েছে। এই ল্যাবে পরীক্ষা বন্ধ থাকলেও এখন রাজশাহী মেডিকেল কলেজের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের ল্যাবে পরীক্ষা চলছে। সুত্রঃ প্রথম আলো

হাটভর্তি গরু ক্রেতা নেই

রাজশাহীর হাটে গরু ও বিক্রেতা থাকলেও ক্রেতা নেই

উত্তরাঞ্চলের দ্বিতীয় বৃহত্তম পশুহাট সিটি হাট। কোরবানির ঈদের আগে হাটটিতে পা ফেলার জায়গা থাকে না। রবিবার আর বুধবারের সাপ্তাহিক হাট ঈদ মৌসুমে প্রতিদিন বসাতে বাধ্য হন। ঈদকে সামনে রেখে হাটে প্রচুর গরু আসছে। কিন্তু ক্রেতা নেই আগের মতো। ফলে দিন শেষে ক্রেতার অভাবে বিক্রেতারা বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন গরু।

ঈদের দিন সকাল পর্যন্ত বসবে সিটি হাট। কিন্তু ক্রেতা সংকটের কারণে এখনই হতাশায় বিক্রেতারা। গোদাগাড়ী থেকে হাটে গরু নিয়ে আসা রাশিদুল জানান, আগের দুই দিনও হাটে গরু এনেছিলেন। কিন্তু ফিরিয়ে নিয়ে গেছেন। সামান্য কিছু লাভে বিক্রি করে দিতে চান। তারপরেও ক্রেতা পাওয়া যাচ্ছে না।

ইয়াকুব নামের একজন খামারি জানান, আগে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে পাইকাররা আসতেন গরু নিতে। এবার নেই বললেই চলে। স্থানীয় যারা গরু কেনেন, তারা এখনো গরু কেনা শুরু করেননি। এ কারণে হাটে গরু থাকলেও ক্রেতার অভাব। আবার অনেকে আসছেন শুধু দেখেই চলে যাচ্ছেন।

তবে বর্তমান পরিস্থিতির কারণে অনলাইনে গরু কেনাবেচা বেড়েছে। অনলাইন প্লাটফর্ম ব্যবহার করে গরু বেচাকেনা করতে পারলে লোকসানের হাত থেকে রক্ষা পাবে খামার মালিকরা এমনটাই বলছেন প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের কর্মকর্তারা।

অনলাইনের মাধ্যমে কোরবানির পশু বেচাকেনা হলে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে যেমন রক্ষা পাওয়া যাবে, তেমনি খামার মালিকরা ন্যায্যমূল্য পাবে- এমনটাই বলছেন রাজশাহী বিভাগীয় প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের সহকারী পরিচালক রুহুল আমিন আল ফারুক।

তিনি জানান, খামারিরা অনেকেই ইতিমধ্যে অনলাইনের মাধ্যমে কোরবানির পশু বিক্রি করতে শুরু করেছেন। তবে এর বাইরে যারা হাটে গরু তুলবেন তাদেরকে অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি মেনে হাটে গরু তুলতে হবে।

সিংড়ায় দীর্ঘ ১ বছর পর নতুন এসিল্যান্ডের যোগদান

নাটোরের সিংড়া উপজেলা ভুমি অফিসে দীর্ঘ ১ বছর ২ মাস পর নতুন সহকারী কমিশনার (ভুমি) কর্মকর্তা হিসাবে যোগদান করলেন মোঃ রকিবুল হাসান।
১৪ জুলাই মঙ্গলবার তিনি যোগদান করেন এবং ১৫ জুলাই বুধবার সকালে দায়িত্ব বুঝে নিয়ে প্রথম অফিসের কার্যক্রম শুরু করেন। অফিস সুত্রে জানা যায়, ২০১৯ সালের ২১ এপ্রিল তৎকালীন দয়িত্ব প্রাপ্ত এসিল্যান্ড বিপুল কুমারের বদলী পর থেকে এখানে আর কোন এসিল্যান্ডের পোষ্টিং ছিলনা। ফলে

দীর্ঘ দিনের প্রতিক্ষার অবসন হলো। নবাগত এই ভুমি কর্মকর্তা এর আগে জয়পুর হাট সদরে কর্মরত ছিলেন। তিনি ৩৫তম বিসিএস ক্যাডারে উত্তির্ণ হয়ে ২০১৭ সালের ২ মে মেহেরপুর জেলা ম্যাজিষ্ট্যাট হিসাবে যোগদান করেন।
এর পর এসিল্যান্ড হিসাবে জয়পুর হাট সদর উপজেলায় যোগদান করেন। ভুমি
কর্মকর্তা মোঃ রকিবুল হাসানের দেশের বাড়ি সিরাজগঞ্জ জেলার কামারখন্দ উপজেলার কোনাবাড়ি গ্রামে।
নবাগত এসিল্যান্ড মোঃ রকিবুল হাসান বলেন, এসিল্যান্ড অফিসে মানুষ আসে জমি ই-নামজারী,মিসকেস সহ অন্যান্য সেবা নিতে। আমি এই সিংড়ার সাধারণ মানুষকে আইনের মধ্য থেকে ভুমি সেবায় সর্বাতœক সহযোগিতা করার চেষ্টা করবো। তিনি প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের সহযোগিতা কামনা করেন।

ধামইরহাটে স্বাস্থ্যকর্মীসহ নতুন ১২ জন করোনায় আক্রান্ত

নওগাঁর ধামইরহাটে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দুই স্বাস্থ্যকর্মীসহ নতুন ১২ জনের দেহে কোভিড-১৯ পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে।এনিয়ে ধামইরহাট উপজেলায় করোনা রোগী সংখ্যা দাড়ালো ২২  জনে। ইতিপূর্বে স্বাস্থ্য বিভাগের তদারকিতে সুস্থ্য হয়েছেন ০৮ জন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আবু ইসা মো. আরাফাত ইমাম বলেন, নতুন ভাবে ধামইরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একজন নার্স (মিডওয়াইফ) ও মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট এম.টি (ল্যাব) সহ ১২ জনের করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৮ জন পুরুষ ও ৪ জন মহিলা।

পরিসংখ্যানে আগ্রাদ্বিগুন ইউনিয়নে ২ জন, আলমপুরে ২ জন, উমার ইউনিয়নে ৩ জন, পৌরসভায় ১ জন,  ইসবপুর ১ ও জাহানপুর ইউনিয়নে ১ জন আক্রান্ত হয়েছে।

স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, আক্রান্ত ১২ জনের মধ্যে ১ জন বগুড়ায়, ১ জন ঢাকায় আছেন এবং ১ জন রাজশাহী মিশন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন, সবাই মোটামুটি সুস্থ্যই রয়েছেন বলে আর.এমও ডা. আবু ইসা মো. আরাফাত ইমাম বৃহস্পতিবার দুপুরে এসব তথ্য জানান। সারা দেশে কমিউনিটি ট্রান্সমিশনের মাধ্যমে করোনার শনাক্তের পরিমান অসম্ভব রকম পরিমানে বাড়লেও ধামইরহাট উপজেলায় অনেকেই স্বাস্থ্য বিধি মানছেন না।

এই অবস্থায় দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে উল্লেখ করে ধামইরহাট থানার ওসি আবদুল মমিন বলেন, ধামইরহাট থানা পুলিশ সার্বক্ষণিক জনসাধারণকে সচেতন করতে প্রচারাভিযান চালাচ্ছে, গতকাল (বৃহস্পতিবার) বিকেলে উপজেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের সাথে আলোচনা করে দ্রুত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

ছাত্রীকে ধর্ষণ ও অশ্লীল ছবি ধারণের অভিযোগে শিক্ষক আটক

নাটোরের বড়াইগ্রামে শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগে জুলফিকার সরকার (৫৫) নামের এক প্রাইভেট শিক্ষককে আটক করেছে পুলিশ। শনিবার সন্ধ্যায় উপজেলার বড়াইগ্রাম ইউনিয়নের খাকসা গ্রামে নিজ বাড়ি থেকে তাকে আটক করা হয়। আটক শিক্ষক খাকসা গ্রামের মৃত মোজাহার সরকারের ছেলে।

বড়াইগ্রাম থানা সূত্রে জানা যায়, তিন বছর ধরে প্রাইভেট পড়ানোর কৌশলে মেয়েটির সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। এরপর ওই ছাত্রীকে একাধিক বার ধর্ষণ করে এবং মোবাইল ফোনে অশ্লীল ছবি ধারণ করে প্রাইভেট শিক্ষক জুলফিকার। সম্প্রতি অশ্লীল ছবিগুলো শিক্ষকের মোবাইলফোন থেকে সামাজিক যোগাযোক মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। পরে ছাত্রীর বাবা থানায় অভিযোগ করলে অভিযুক্তকে আটক করে।

নির্যাতিতা ছাত্রী বলে, আমাকে কৌশলে ফাঁদে ফেলে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করে এবং অশ্লীল ছবি মোবাইল ফোনে ধারন করে। পরে ওই ছবির ভয় দেখিয়ে একাধিক সময় আমার সাথে যৌন সম্পর্ক করে।

অভিযুক্ত শিক্ষক জুলফিকার বলেন, প্রায় দুই বছর যাবত সম্পর্ক গড়ে উঠে। উভয়ের ইচ্ছাতেই শারীরিক সম্পর্ক হয়। তবে তাকে বাধ্য করার বিষয়টি সঠিক নয়।

বড়াইগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দিলিপ কুমার দাস ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, অভিযুক্ত শিক্ষকে আটক করা হয়েছে। এ বিষয়ে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

সূত্রঃ বিডি প্রতিদিন

সাংসদ ফেরদৌসি ইসলাম জেসি করোনায় আক্রান্ত

চাঁপাইনবাবগঞ্জের সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য ফেরদৌসি ইসলাম জেসি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।
শুক্রবার বিকালে তিনি নিজেই বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

জেসি জানান, গত ২২ জুন সংসদ ভবন ক্লাবের মেডিকেল সেন্টারে তিনিসহ অন্য সংসদ সদস্যদের নমুনা সংগ্রহ করে ল্যাবে পাঠানো হয়। ২৩ তারিখ সকালে তার করোনা পজেটিভ রিপোর্ট আসে।

তিনি বর্তমানে রাজধানী ঢাকায় ন্যাম ভবনের বাসায় থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। বৃহস্পতিবার তার পরিবারের অন্য সদস্যদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে জানিয়ে তিনি সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন।

নওগাঁর আত্রাইয়ে বিদুৎপৃষ্টে নিহত-১

নওগাঁর আত্রাইয়ে বিদুৎপৃষ্টে শাহিন খন্দকার (৪২) নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। নিহত শাহিন খন্দকার উপজেলার শাহাগোলা ইউনিয়নের ফুলবাড়ি গ্রামের মৃত মোস্তাফিজুর রহমানের ছেলে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শাহিন খন্দকার শুক্রবার সকালে তার বাড়ির পাশে খর (পোয়ালের) পালার কাজ করছিলো। কাজের এক পর্যায়ে ৩৩ ভোল্টের আত্রাই-নওগাঁ মেইন লাইনের তারের সংস্পর্শে বিদুৎপৃষ্ট হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পরে। সাথে সাথে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে আত্রাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।
এ ব্যাপারে আত্রাই থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোসলেম উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, নিহত শাহিন খন্দকার তার নিজ বাড়িতে খর (গয়ালের) কাজ করার সময় বিদুৎপৃষ্টে মৃত্যু বরণ করেন এবং ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

আত্রাই নদীর পানির স্রোতে ভেসে যাওয়া শিশু ২৪ ঘন্টা পর উদ্ধার

নওগাঁর আত্রাইয়ে নদীর স্রোতে ভেসে যাওয়ার ২৪ ঘন্টা পর চতুর্থ শ্রেণীতে পড়–য়া শিশু কন্যা নিতি আক্তার (১০) এর লাশ উদ্ধার করেছে স্থানীয় লোকজন।
মঙ্গলবার বেলা ১২টার দিকে উপজেলার মিরাপুর ইট ভাটা সংলগ্ন নদীর তীর থেকে ভাসমান অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করে স্থানীয়রা।
নিহত নিতি আক্তার উপজেলার আটগ্রাম গ্রামের প্রবাসী ফজলুর রহমানের মেয়ে।
এ ব্যাপারে আত্রাই থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোসলেম উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সোমবার বেলা সাড়ে ১০টার দিকে ৯৯৯ থেকে থানায় কল আসে উপজেলার আটগ্রাম এলাকায় পানির স্রত চতুর্থ শ্রেণীর শিশু কন্যা নিতি আক্তারের ভেসে যাওয়া খবর। সাথে সাথে এসআই রুবেল আলমকে সঙ্গীয় ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়। তিনি আরো বলেন, নিতি আক্তার উপজেলার কলকাকলি কিন্ডার গার্টেন স্কুলে চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী। সোমবার বেলা সাড়ে ১০টার দিকে নিতি আক্তার ও তার ফুপাতো বোন জুতি আক্তার বাড়ির পাশে আত্রাই নদীতে গোসল করতে যান। গোসলের এক পর্যায়ে নিতি আক্তার সাাঁতার কেটে নদীর মাঝে প্রান্তে পৌঁচ্ছালে পানির স্্েরাতে ভেসে যায়।
পরে রাজশাহী ডুবুরি দলকে খবর পৌচ্ছালে তারা এসে নদীতে নিখোঁজ শিশু কন্যার সন্ধানে রাত্রি পর্যন্ত অভিযান অব্যাহত রেখে তার কোন সন্ধান পায়না । মঙ্গলবার সকালে উপজেলার মিরাপুর ইট ভাটা সংলগ্ন নদীর তীরে তার লাশ দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে। #
সংবাদটি ভালো লাগলে অথবা গুরুত্ত্বপূর্ণ মনে হলে লাইক দিন।