জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার পাচ্ছেন শাহজাদপুরের সন্তান শেরপুরের পিআইও শামসুন্নাহার শিউলি

সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর পেশাগত জ্ঞান ও দক্ষতা, সততার নিদর্শন স্থাপন করা, নির্ভরযোগ্যতা ও কর্তব্যনিষ্ঠা, শৃঙ্খলাবোধ, সহকর্মীদের সঙ্গে আচরণ, সেবাগ্রহীতার সঙ্গে আচরণ, প্রতিষ্ঠানের বিধিবিধানের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকা, সমন্বয় ও নেতৃত্বদানের ক্ষমতা, তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারে পারদর্শিতা, পেশাগত স্বাস্থ্য ও পরিবেশ বিষয়ক নিরাপত্তা সচেতনতা, ছুটি গ্রহণের প্রবণতা, উদ্ভাবনী চর্চার সক্ষমতা, বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি বাস্তবায়নে তৎপরতা, সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার, স্বপ্রণোদিত তথ্য প্রকাশে আগ্রহ, উপস্থাপন দক্ষতা, ই-ফাইল ব্যবহারে আগ্রহ, অভিযোগ প্রতিকারে সহযোগিতা করার গুনাবলীর কারনে জাতীয় পর্যায়ে জাতীয় শুদ্ধাচার পুররস্কার প্রদাননকরা হয়ে থাকে।

জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রদান নীতিমালা-২০১৭ অনুযায়ী দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের ২০২০-m7২০২১ অর্থ বছরের শুদ্ধাচার পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন সিরাজগন্জের শাহজাদপুরের মেয়ে বগুড়ার শেরপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও)মোছাঃ শামছুন্নাহার শিউলী।

১জুন (মঙ্গলবার) দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের উপসচিব ড.মোঃ হাবিব উল্লাহ্ বাহার স্বাক্ষরিত জারি হওয়া এক প্রজ্ঞাপণের মাধ্যমে এ তথ্য প্রকাশিত করেছেন।

আরো জানাগেছে বগুড়ার শেরপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা(পিআইও) মোছাঃসামসুন্নাহার শিউলি ২০১৭ সালে দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের জেলা ত্রান ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাগণের সমন্বয়ে ২ মাস ব্যাপী বুনিয়াদি প্রশিক্ষনে সার্বিক মূল্যায়নে তিনি ৩য় স্থান অধিকার করে থাইল্যান্ড ও ইন্দোনেশিয়ায় প্রশিক্ষনের সুযোগ পেয়েছিলেন।

জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কারের জন্য মনোনীত হওয়ার পর তার অনুভূতি প্রকাশ করে বলেন, বর্তমানে সারাদেশে মোট ৪৯৬ জন প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কর্মরত আছেন তারমধ্যে থেকে এ পুরস্কারের জন্য আমি নির্বাচিত হয়েছি এটা নিশ্চয় অনেক পাওয়া। এজন্য আমি মহান আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করছি।পাশাপাশি বর্তমান কর্মস্থল শেরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ময়নুল ইসলাম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাবরিনা শারমিনসহ উপজেলা প্রশাসনের সর্বস্তরের কর্মকর্তা কর্মচারীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

বিভিন্নসুত্রে জানাগেছে মোছাঃ শামছুন্নাহার শিউলী শেরপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা হিসেবে যোগদানের পর হতে সততা ও কর্তব্যনিষ্ঠার সঙ্গে উপজেলার গ্রামীণ যোগাযোগ ব্যবস্থা ও অবকাঠামো উন্নয়নে নিরালসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি এই উপজেলায় যোগদান করার পর গ্রামীণ সড়ক ও অবকাঠামো নির্মাণকাজের গুণগতমান বৃদ্ধি পায়। গতিশীল হয় উন্নয়ন।

এছাড়া কর্মজীবনের সর্বত্রই অসামান্য অবদান ও সততার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত রেখেছেন তিনি। এর স্বীকৃতি স্বরূপ জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রদান নীতিমালা-২০১৭ অনুযায়ী
তাকে এই পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা হয়। পুরস্কার হিসেবে তিনি পাবেন একটি সনদপত্র, একটি ক্রেস্ট ও এক মাসের মূল বেতনের সমপরিমাণ অর্থ।

গেজেটে আরো বলা হয়, শুদ্ধাচার পুরস্কার পাওয়ার ক্ষেত্রে সরকারি কর্মচারীকে উল্লিখিত সূচকের ১০০ নম্বরের মধ্যে অবশ্যই ৮০ নম্বর পেতে হবে। এটি না পেলে ওই কর্মচারী এ পুরস্কার পাওয়ার জন্য প্রাথমিকভাবে বিবেচিত হবেন না। আর বিবেচিত কর্মচারীদের মধ্যে সর্বোচ্চ নম্বর পাওয়া কর্মচারী শুদ্ধাচার পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত হবেন।

মোছাঃ শামছুন্নাহার শিউলী সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুর উপজেলার হাবিবুল্লাহ নগড় ইউনিয়নের রতনকান্দি গ্রামের মো: শাহজাহান সরকার ও মিসেস মঞ্জুয়ারা ইয়াসমিন দম্পতির সন্তান।রতনকান্দি গ্রামে জন্ম এবং বেড়ে ওঠেন তিনি। বাবা মায়ের বড় সন্তান তিনি।

উল্লেখ্য, বগুড়ার শেরপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোছাঃ শামছুন্নাহার শিউলী ২০০৪ সালে পাবনার ফরিদপুরে কর্ম জীবন শুরু করেন। ব্যাক্তিগত জীবনে বিবাহিত তিনি এক ছেলে,এক মেয়ের জননী।

প্রতারক সিন্ডিকেটের মুল হোতা রহিম সিকদারকে গ্রেফতার কর’ল বগুড়া সিআইডি

সেনাবাহিনীর সৈনিক পদে চাকুরী দেওয়ার কথা বলে বগুড়া গাবতলী থানা এলাকার বাহাদুরপুর গ্রামের সোলায়মান আকন্দের ছেলে মো: রাসেল মিয়া’র কাছ থেকে ২০১৯ সালের অক্টোবর মাসের বিভিন্ন সময় পর্যায়ক্রমে নগদ এবং বিকাশের মাধ্যমে মোট ৭লক্ষ ৩০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে একটি পেশাদার প্রতারক সিন্ডিকেট ভূয়া নিয়োগপত্র প্রদান করে।

নিয়োগপত্র পেয়ে রাসেল মিয়া বুকভরা আশা নিয়ে ঢাকা সেনানিবাসে যোগদান করতে গিয়ে জানতে পারে তার নিয়োগপত্র সঠিক না। ইতিমধ্যে প্রতারক সিন্ডিকেটের প্রধান রহিম সিকদারসহ অন্যান্য সদস্যরা সকল যোগাযোগ মাধ্যম বিচ্ছিন্ন করে গা ঢাকা দেয়।কোন উপায়ান্তর না পেয়ে ভুক্তভুগি রাসেল মিয়া’র বড় ভাই মো: আমিরুল ইসলাম বাদী হয়ে বগুড়া সদর থানার মামলা নম্বর ১৭ তারিখ: ৪/১১/২০১৯ খ্রি: ধারা: ৩৪/৩৮৬/৪০৬/৪২০/৪৬৭/৪৬৮/৪৭১ পেনাল কোড দায়ের করে। মামলার গুরুত্ব বিবেচনায় মামলাটির তদন্তভার বগুড়া জেলা গোয়েন্দা শাখার উপর অর্পিত হয়।

বগুড়া জেলা গোয়েন্দা শাখার এসআই মো: ফজলে এলাহী এবং এসআই সাধক চন্দ্র রায় ২ জন আসামীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হলেও প্রতারক চক্রের সিন্ডিকেট প্রধানকে গ্রেফতার বা সুস্পস্ঠ তথ্যাদি উদঘাটন করতে পারে না। এমতাবস্থায় গত ২২ নভেম্বর ২০১৯ খ্রি: বাংলাদেশ পুলিশ সিআইডি মামলাটির তদন্তভার গ্রহন করে তদন্তকারী অফিসার হিসাবে সিআইডি বগুড়া জেলার পুলিশ পরিদর্শক এটিএম শিফাতুল মাজদারকে তদন্তকারী অফিসার হিসাবে নিয়োগ করে। সিআইডি বগুড়া জেলার বিশেষ পুলিশ সুপার জনাব মোহাম্মদ কাউছার সিকদার এর প্রত্যক্ষ দিক নির্দেশনায় তথ্য প্রযুক্তি ব্যাবহারসহ বিজ্ঞান ভিত্তিক তদন্ত করে গত ২৭ ডিসেম্বর ভোররাত্রে মামলার প্রধান আসামী সিন্ডিকেট প্রধান গোপালগঞ্জ জেলার কাশিয়ানী থানা এলাকার সিতারামপুর গ্রামের মৃত মন্টু সিকদারের ছেলে নাদিম ওরফে রহিম সিকদার (৩৭)-কে ডিএমপি’র হাজারীবাগ থানা এলাকা থেকে মামলার তদন্তকারী অফিসার সিআইডি বগুড়া জেলার পুলিশ পরিদর্শক এটিএম শিফাতুল মাজদার গ্রেফতার করে।

গতকাল ২৮ ডিসেম্বর বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্টেট আদালতে গ্রেফতারকৃত নাদিম ওরফে রহিম সিকদার ফৌজদারী কার্যবিধি আইনের ১৬৪ ধারা মোতাবেক মামলার সকল তথ্য প্রকাশ করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে। গ্রেফতারকৃত আসামীর হেফাজত থেকে নগদ ১০ হাজার টাকা, দৈনিক অন্য দিগন্ত পত্রিকার নিজের পরিচয়পত্র, সিআইডি লেখাযুক্ত কালো মানিব্যাগসহ মাহফুজ নামের একজনের পাসপোর্টের ফটোকপি আলামত হিসাবে জব্দ করেছে তদন্তকারী অফিসার। মামলার তদন্তকারী অফিসার জানান প্রতারকচক্রের অন্যান্য সদস্য অচিরেই গ্রেফতার হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।

বিজয় দিবসে শহীদদের প্রতি বগুড়ায় সিআইডির শ্রদ্ধা নিবেদন

আজ ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস। বাঙালি জাতির হাজার বছরের শৌর্যবীর্য এবং বীরত্বের এক অবিস্মরণীয় দিন। বীরের জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করার দিন। পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ নামে একটি স্বাধীন ভূখণ্ডের নাম জানান দেওয়ার দিন। জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে নয় মাস সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের পর ১৯৭১ সালের এই দিনে বিকেলে রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে) হানাদার পাকিস্তানি বাহিনী যৌথ বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। বিশ্বের মানচিত্রে অভ্যুদয় ঘটে নতুন রাষ্ট্র বাংলাদেশের। তবে এক দিনেই আমরা বিজয় অর্জন করিনি। এর পেছনে রয়েছে দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী লড়াই। যে লড়াইয়ে লাখো প্রাণের বিনিময়ে ১৯৭১ সালের আজকের দিনে অর্জিত হয় আমাদের স্বাধীনতা।

আজ ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস। নানা কর্মসূচির মাধ্যমে বাংলাদেশ ও সারাবিশ্বরে বাঙালীরা শ্রদ্ধাভরে স্বরন করছে জাতির সুর্য সন্তানদের।সারাদেশের ন্যায় বিজয় দিবস ২০২০ উপলক্ষে আজ সকালে নানা কর্মসুচী পালন করছে সিআইডি বগুড়া।সূর্য্য উদয়ের পর পুলিশ সুপার বগুড়া কার্যালয় প্রাঙ্গনে নির্মিত স্মৃতিমঞ্চে পুস্পস্তবক অর্পন করা হয়।

সিআইডি বগুড়া জেলার বিশেষ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ কাউছার সিকদার এবং সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ হাসান শামীম ইকবালের নেতৃত্বে সিআইডি’র সকল অফিসার ও ফোর্সবৃন্দ শহীদদের প্রতি যথাযথ শ্রদ্ধা নিবেদন করে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন।

এছারা সকালে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয় সারাদিনব্যাপী নানা কর্মসূচি পালন করা হবে।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ হাসান শামীম ইকবাল জানান মহান বিজয় দিবস আমাদের অহংকার গৌরভময় দিন।দিনটি কখনো ভুলবার নয়।সকল মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদের ত্যাগের কথা শ্রদ্ধাভরে স্বরন করেন তিনি।

বগুড়ায় সিআইডির হাতে দুলালী হত্যা মামলার পলাতক আসামী গ্রেফতার

সিআইডি বগুড়া জেলার বিশেষ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ কাউছার সিকদারের দিক নির্দেশনায় সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ হাসান শামীম ইকবালের তত্বাবধানে সিআইডি’র একটি বিশেষ টিম দির্ঘদিন পলাতক থাকা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের এজাহারনামীয় আসামীকে বৃহস্পতিবার ভোররাতে শিবগঞ্জ থানা এলাকার তার নিজ বসত বাড়ী থেকে গ্রেফতার করেছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডি’র পুলিশ পরিদর্শক মোঃ সাইদুল আলম সিআডি’র একটি বিশেষ টিম অভিযান চালিয়ে শিবগঞ্জ থানার মামলা নং ৫২ তারিখ ২৪/১০/২০১৯ খ্রিঃ ধারা ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ১১ক/৩০ এর প্রধান আসামী মোঃ আইয়ুব আলী ফকির (৩৪) পিতা মৃত জোব্বার ফকির গ্রাম রায়নগর থানা শিবগঞ্জ জেলা বগুড়া-কে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত আসামী তার স্ত্রী দুলালী বেগম (২৪)-কে কৌশলে হত্যা করে দির্ঘদিন পলাতক ছিল।
এদিকে, দীর্ঘদিন পরে হলেও দুলালী হ্ত্যা মামলার প্রধান আসামী সিআইডির হাতে ধরা পড়ায় বাদীপক্ষ ও এলাকাবাসী সন্তোষ প্রকাশ করেছে।

বঙ্গবন্ধুর শাহদত বার্ষিকীতে বগুড়া জেলা সিআইডির বিনম্র শ্রদ্ধা

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদত বার্ষিকী এবং জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বগুড়া সাতমাথায় তাঁর স্মৃতিস্তম্ভে তাঁর পরিবারসহ সকল শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন সিআইডি বগুড়া জেলার বিশেষ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ কাউছার সিকদার.সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ হাসান শামীম ইকবাল এবং সহকর্মীবৃন্দ।

পুলিশকে সাধুবাদ এলাকাবাসীর: গ্রেফতার ২


শাহজাদপুরে আটকের ২৪ ঘন্টার মধ্যে ভিকটিম উদ্ধার

প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ আদায়ের উদ্দেশ্যে যুবককে আটকে রেখে অর্থ দাবীর ২৪ ঘন্টার মধ্যে প্রতারক চক্রের হাত থেকে ভিকটিমকে উদ্ধার করে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিয়েছে শাহজাদপুর থানা পুলিশ। সেইসাথে প্রতারক চক্রের ২ সদস্যকেও গ্রেফতারে সক্ষম হয়েছে পুলিশ। আজ বুধবার এ ঘটনায় শাহজাদপুর থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে ও ধৃত ২ প্রতারককে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
পুলিশ জানায়, গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে একদল সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্র নানা প্রলোভনে বগুড়া জেলার শাজাহানপুর থানার নগর আমরুল মহল্লার মৃত মজিবর রহমানের ছেলে ভিকটিম শাহিন (৩৫) কে শাহজাদপুর উপজেলার কায়েমপুর ইউনিয়নের সড়াতৈল হাজীপুর বিলের বটতলায় ডেকে এনে আটকে রেখে মৃত্যুর ভয় দেখিয়ে মোটা টাকা মুক্তিপণ দাবী করে। দাবীকৃত অর্থ দিতে না পারায় ভিকটিম শাহিনের ওপর অমানবিক নির্যাতন চালানো হয়। ভিকটিমের পরিবারের পক্ষ থেকে বিষয়টি শাহজাদপুর থানা পুলিশকে জানানো হলে শাহজাদপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আতাউর রহমানের নির্দেশনায় এসআই আসাদুলের নেতৃত্বে থানা পুলিশের একটি দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গতকাল মঙ্গলবার গভীর রাতে উপজেলার তালগাছী বাসস্ট্যান্ডের পশ্চিমে ফাঁকা যায়গা থেকে ভিকটিম শাহীনকে উদ্ধারে সক্ষম হয়। সেইসাথে, এ সময় পুলিশ প্রতারক চক্রের ২ সদস্য উপজেলার কায়েমপুর ইউনিয়নের ব্রজবালা নিধুরপাড়া মহল্লার আলম প্রামাণিকের ছেলে জাহাঙ্গীর (২২) ও একই মহল্লার জহর প্রামাণিকের ছেলে ফারুক (১৯) কে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে। এ ঘটনায় ভিকটিমের চাচা আজিজার রহমান বাদী হয়ে নামীয় ৮ জনসহ অজ্ঞাতনামা ২/৩ জনের বিরুদ্ধে শাহজাদপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।
এদিকে, মুক্তিপণের দাবীতে আটকে রাখার মাত্র ২৪ ঘন্টার মধ্যে ভিকটিম শাহীনকে উদ্ধারে সক্ষম হওয়ায় শাহজাদপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আতাউর রহমান, এসআই আসাদুলসহ থানা পুলিশকে সাধুবাদ জানিয়েছে এলাকাবাসী।

বগুড়া জেলা সিআইডি'র কর্মকর্তাদের অভিনন্দন


বগুড়ায় সিআইডি’র হাতে আপেল হত্যা মামলার প্রধান আসামী রাব্বিসহ গ্রেফতার ২

সোমবার ভোররাতে সিআইডি বগুড়া জেলার এসআই কেএম মাসুদ রানা’র নেতৃত্বে পরিচালিত সিআইডির একটি বিশেষ দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বগুড়া জেলার মোকামতলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে বগুড়া সদর থানার চাঞ্চল্যকর আপেল হত্যা মামলার এজাহার নামীয় প্রধান আসামী মোঃ রাব্বি (২৮) ও একই মামলার অপর আসামী মোঃ রবিন মিয়াকে গ্রেফতার করেছে।

গ্রেফতারকৃত রাব্বি বগুড়া জেলার শিবগঞ্জের মহাস্থান মধ্যপাড়া মহল্লার মোঃ আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে ও রবিন একই মহল্লার মোঃ মজনু মিয়ার ছেলে বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, গত ২০ ফেব্রুয়ারি অত্র এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুইপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে আপেল নিহত হয়। এই ঘটনায় নিহত আপেলের ভাতিজা মোঃ আফিজুল ইসলাম বাদী হয়ে পরদিন বগুড়া থানায় ধারা ১৪৩/ ৩২৩/ ৩২৬/ ৩০৭/ ৩০২/ ৩৪ পেনাল কোডে হত্যা মামলা দায়ের করে (মামলা নং-৭৫, তারিখ ২১/২/২০ ইং) ।

মামলাটি সিআইডি স্ব উদ্যোগে অধিগ্রহণ করে মামলার তদন্ত কাজ শুরু করেন এবং মামলার প্রধান আসামীসহ ২ জনকে গ্রেফতার করেন।

গ্রেফতারকৃত আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাদের বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

এদিকে, চাঞ্চল্যকর আপেল হত্যা মামলার প্রধান আসামী রাব্বিসহ ২ আসামীকে গ্রেফতার করায় বগুড়া জেলা সিআইডি’র কর্মকর্তাদের অভিনন্দন জানিয়েছে বগুড়াবাসী।

করোনা জয়ী বগুড়া সিআইডি’র ৩ পরিদর্শকের কর্মস্থলে যোগদান

দীর্ঘ ৩৫ দিন করোনা ভাইরাসের সাথে যুদ্ধ করে সিআইডি বগুড়া জেলার তিন পুলিশ পরিদর্শক সুস্থ হয়ে আজ (সোমবার) সকালে নিজ নিজ কর্মস্থলে যোগদান করেছেন।

বগুড়া জেলা সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার কাউছার সিকদার তাদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে বরণ করেন।

এই সময় উপস্থিত ছিলেন সহকারী পুলিশ সুপার সিআইডি বগুড়া জেলা মোঃ হাসান শামীম ইকবালসহ অন্যান্য অফিসার ও ফোর্সবৃন্দ।

পুলিশ পরিদর্শক মোঃ খায়রুল বাশার (১), পুলিশ পরিদর্শক মোঃ খায়রুল বাশার (২), এবং পুলিশ পরিদর্শক এটিএম শিফাতুল মাজদার তাদের পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে গত ১৪ জুন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হন। নিজ নিজ বাসায় অবস্থান করে নিয়মিত চিকিৎসকের পরামর্শে চিকিৎসাসেবা গ্রহণ করে সুস্থ্য হন।

বগুড়ায় জিরা ব্যবসায়ীকে জরিমানা

বগুড়ায় কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে জিরা গুদামজাত করে রাখা ও মিথ্যা তথ্য দিয়ে হিন্দিভাষায় লেখা তাজমোহল গোল্ড নামে প্যাকেট করে বিক্রি করার অপরাধে মসলা ব্যবসায়ীকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার বেলা ১২টায় বগুড়া শহরের কলোনী চকফিরদ এলাকায় আব্দুল হামিদ খাঁনের গড়া হামিদ এন্ড সন্স নামের প্রতিষ্ঠানের গুদামঘরে বিপুল পরিমানে জিরা গুদামজাত করে রাখে।

বগুড়া পৌরসভার স্বাস্থ্য পরিদর্শক শাহ আলী জানান, হামিদ এন্ড সন্স নামের প্রতিষ্ঠানের গুদামে শ্রমিক খাটিয়ে হিন্দি ভাষায় লেখা তাজমোহল গোল্ড জিরা প্যাকেট করে বিক্রি করতো। দেশেই প্যাকেট করা হচ্ছে হিন্দি লেখা প্যাকেটে। সেখানে বিভিন্ন তথ্য মিথ্যা প্রদান করা ছিল। নোংরা পরিবেশ, উৎপাদন তারিখ ছিলনা, ওজন ছিল না।

এসবসহ বেশ কয়েকটি অপরাধে ভ্রাম্যমাণ আদালত এই প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করেন। তিনি জানান, ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন বগুড়া জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এটিএম কামরুল ইসলাম ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জিএম রাশেদুল ইসলাম। এ সময় পৌরসভার কর্মকর্তা, বগুড়া সদর থানা পুলিশ কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

সূত্রঃ বিডি প্রতিদিন

স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা

বগুড়ার শাজাহানপুরে আবু হানিফ প্রামাণিক মিস্টার (৩৬) নামে এক স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।আজ শুক্রবার (৫ জুন) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার শাকপাল স্ট্যান্ডে স্থানীয় জামে মসজিদে জুমার নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আবু হানিফ প্রামাণিক মিস্টার বগুড়া জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং শাজাহানপুর উপজেলার শাকপালা গ্রামের আরমান প্রামাণিকের ছেলে।

শাজাহানপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিম উদ্দীন জানান, হত্যার কারণ এখনও জানা যায়নি। হত্যায় জড়িতদের চিহ্নিত করে আটকের চেষ্টা চলছে।

জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সাজেদুর রহমান শাহীন জানান, হত্যার কারণ জানতে পারলে পরবর্তীতে প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে জানানো হবে।

সরেজমিনে গিয়ে এ বিষয়ে স্থানীয়দের কাছে জানতে চাইলে ভয়ে তারা কেউ কথা বলেননি। তবে দলীয় কোন্দল ও প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে অনেকে ধারণা করছেন। আবু হানিফ প্রামাণিক মিস্টারের বিরুদ্ধে হত্যাসহ একাধিক মামলা রয়েছে বলেও জানা গেছে।