মন্দিরে তরুণীকে ধর্ষণচেষ্টা, পুরোহিত গ্রেফতার

সিলেটের গোলাপগঞ্জের বাঘায় মন্দিরে তরুণীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে এক পুরোহিতকে গ্রেফতার করেছে গোলাপগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ। বুধবার (১৪ এপ্রিল) রাতে উপজেেলার বাঘা কালাকোনা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

বৃহস্পতিবার (১৫এপ্রিল) বিকেলে এতথ্য জানান গোলাপগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)।

অসহায় পরিবারের ওই তরুণী ধর্মীয় শিক্ষা লাভের জন্য পুরোহিতের কাছে গেলে তার ধর্ষণচেষ্টা করা হয় বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গোলাপগঞ্জ উপজেলার বাঘা ইউনিয়নের কালাকোনা গ্রামে শ্রী শ্রী গিরিধারী জিও মন্দিরের পুরোহিত হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন টাঙ্গাইলের দেলদোহার থানার সিলিমপুর গ্রামের কালু চৌহানের ছেলে প্রাণ গবিন্দ দাস বাবাজি ওরফে ফরেস্ট চৌহান (৪৬)। ধর্মীয় শিক্ষা লাভের জন্য ওই পুরোহিতের কাছে প্রায়ই যাওয়া আসা করতেন এলাকার তরুণ-তরুণীসহ বিভিন্ন বয়সী হিন্দু ধর্মের অনুসারীরা। মন্দিরের পার্শ্ববর্তী বাড়ির ওই তরুণী অন্যান্য সময়ের মতো গত ১৩ এপ্রিল সন্ধ্যা ৭টায় ধর্মীয় শিক্ষা লাভের জন্য গেলে মন্দিরের পুরোহিত গবিন্দ দাস তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। পরে তরুণীর চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করেন।

পরে পুরোহিত গবিন্দ দাস বাবাজি ওরফে ফরেস্ট চৌহানকে এলাকাবাসী ধরে গণধোলাই দিলে তরুণীকে ধর্ষণচেষ্টার বিষয়টি তিনি স্বীকার করেন। এসময় পুরোহিতের সহযোগী দিপংকর দেব তপন পালিয়ে যান। বিষয়টি গোলাপগঞ্জ উপজেলার বাঘা ইউনিয়ন তথা বিভিন্ন এলাকায় তোলপাড় হচ্ছে।

এ ঘটনায় গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

গোলাপগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ হারুনূর রশীদ চৌধুরী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গোবিন্দ নামের একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত অপরজনকে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

Source: jagonews24.com

বিজিএমইএর সভাপতি ও সহসভাপতি হচ্ছেন যাঁরা

দীর্ঘ আট বছর পর প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচনে বড় জয় শেষে সম্মিলিত পরিষদের দলনেতা ফারুক হাসান তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর পরবর্তী সভাপতি হচ্ছেন, সেটি মোটামুটি নিশ্চিতই ছিল। শেষ পর্যন্ত তিনিই সভাপতি হচ্ছেন। জায়ান্ট গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফারুক হাসান এর আগে সংগঠনের সহসভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন।

বিজিএমইএতে সাতটি সহসভাপতির পদ রয়েছে। তার মধ্যে প্রথম সহসভাপতি হচ্ছেন চট্টগ্রাম থেকে নির্বাচিত ওয়েল গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ওয়েল ডিজাইনারস লিমিটেডের পরিচালক সৈয়দ নজরুল ইসলাম। এ ছাড়া জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি হতে যাচ্ছেন সিহা ডিজাইনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এস এম মান্নান। তিনি ঢাকা উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে রয়েছেন।

বাকি পাঁচজন সহসভাপতি হচ্ছেন ঢাকা থেকে নির্বাচিত ক্ল্যাসিক ফ্যাশন কনসেপ্টের এমডি শহীদউল্লাহ আজিম, ডিজাইনটেক্স নিটওয়্যারের এমডি খন্দকার রফিকুল ইসলাম, মিসামী গার্মেন্টসের পরিচালক মিরান আলী, সাদমা ফ্যাশনওয়্যারের এমডি মো. নাছির উদ্দিন এবং চট্টগ্রাম থেকে নির্বাচিত এইচকেসি অ্যাপারেল লিমিটেডের এমডি রকিবুল আলম চৌধুরী।

জানা যায়, নির্বাচিত ৩৫ পরিচালকের মধ্য থেকে সভাপতি ও সাতজন সহসভাপতি পদে নির্বাচনের জন্য মনোনয়নপত্র জমা দেন। আজ রোববার মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ছিল। শেষ দিনে সভাপতি পদে ফারুক হাসান ও সাত সহসভাপতি পদে সাতজন মনোনয়ন দাখিল করেন। ফলে ১৬ এপ্রিল সভাপতি ও সহসভাপতি পদে আর ভোটের প্রয়োজন হবে না।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ফারুক হাসান প্রথম আলোকে বলেন, কাল সোমবার নির্বাচন বোর্ড আনুষ্ঠানিকভাবে সভাপতি ও সহসভাপতি পদে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করতে পারে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নতুন পর্ষদের কাছে কবে দায়িত্ব হস্তান্তর করবে, সেটি বর্তমান পর্ষদের ওপর নির্ভর করছে। সেটিও কাল চূড়ান্ত হতে পারে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

৪ এপ্রিলের বিজিএমইএর ২০২১-২৩ মেয়াদের পরিচালনা পর্ষদের নির্বাচনে ফারুক হাসানের নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত পরিষদ ঢাকা ও চট্টগ্রামের ৩৫ পরিচালক পদের মধ্যে ২৪টিতে বিজয়ী হয়। আর এ বি এম সামছুদ্দিনের নেতৃত্বাধীন ফোরাম ১১ পরিচালক পদে বিজয়ী হয়েছে।

নির্বাচনে ১ হাজার ২০৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন ফারুক হাসান। তবে ফোরামের দলনেতা এ বি এম সামছুদ্দিন জিততে পারেননি। তিনি ভোট পেয়েছেন ৯০৪টি। আর নয়টি ভোট পেলেই তিনি পরিচালক পদে বিজয়ী হতেন। দলনেতা হারলেও ফোরামের হয়ে নির্বাচন করা বিজিএমইএর বর্তমান সভাপতি রুবানা হক দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১ হাজার ১৫৭ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। তাঁর ছেলে নাভিদুল হক ৯৪৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। এতে করে প্রথমবারের মতো বিজিএমইএর পর্ষদে আসছেন মা-ছেলে।

বিজিএমইএর নির্বাচনে স্বাস্থ্যবিধি মানতে ঢাকার র‌্যাডিসন হোটেল ও চট্টগ্রামে বিজিএমইএর আঞ্চলিক কার্যালয়ে ৮ ঘণ্টার পরিবর্তে ১০ ঘণ্টায় ভোট গ্রহণ হয়। শেষ পর্যন্ত কোনো প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই নির্বাচন সম্পন্ন হয়। এতে সংগঠনটির ঢাকা ও চট্টগ্রামের ৮৬ শতাংশ ভোটার বা ১ হাজার ৯৯৬ জন নিজেদের রায় দিয়েছেন। সেদিনই রাত সাড়ে ১২টার দিকে অনানুষ্ঠানিকভাবে বিজয়ীদের তালিকা প্রকাশ করে বিজিএমইএর নির্বাচন বোর্ড।

বগুড়ার ধুনট মডেল প্রেসক্লাবের সভাপতিকে পিটিয়ে হাত ভেঙ্গে দিলো দূর্বৃত্তরা

বগুড়ার ধুনটে পেশাগত কাজ শেষে মোটরসাইকেলযোগে বাড়ি ফেরার পথে সাংবাদিক ইমরান হোসেন ইমনকে (৩২) পিটিয়ে হাত ভেঙ্গে দিয়েছে দূর্বৃত্তরা। ২৯ শে মার্চ (মঙ্গলবার) রাত্রি ১১ টার দিকে উপজেলার ধুনট-সোনামুখী সড়কের বেলকুচি গ্রামের পাকা রাস্তার উপর এঘটনা ঘটে। আহত ইমরান হোসেন ইমন উপজেলার চৌকিবাড়ী গ্রামের মৃত আমির হোসেন মাষ্টারের ছেলে এবং তিনি যায়যায়দিন পত্রিকার ধুনট প্রতিনিধি ও অনুসন্ধান বার্তা অনলাইন পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক।

জানাগেছে, মঙ্গলবার রাত ১১ টার দিকে ধুনট মডেল প্রেসক্লাবের সভাপতি ইমরান হোসেন ইমন অফিসের কাজ শেষে মোটরসাইকেলযোগে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেন। পথিমধ্যে ধুনট-সোনামুখী সড়কের বেলকুচি গ্রামের পাকা রাস্তার উপর পৌঁছালে সাংবাদিক ইমনকে পিছন থেকে একটি মোটরসাইকেলের উপর কয়েক যুবক তাকে পিটিয়ে রাস্তার উপর ফেলে রেখে যায়। এতে সাংবাদিক ইমনের বাম হাত ভেঙ্গে গুরুতর আহত হন। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

সাংবাদিক ইমরান হোসেন ইমন জানান, অফিসের কাজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে পিছন থেকে চলন্ত মোটরসাইকেলের উপর অতর্কিতভাবে দূর্বৃত্তরা হামলা চালায়। এতে বাম হাতের কবজি ফেটে যায়। এঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্ততি চলছে বলে জানান তিনি।

এদিকে সংবাদ পেয়ে বুধবার সকালে ধুনট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সঞ্জয় কুমার মহন্ত, ধুনট থানার (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা, ধুনট প্রেসক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক রফিকুল আলম,ধুনট মডেল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক এম.এ রাশেদ সহ অন্যান্য সাংবাদিক ও থানা পুলিশ ধুনট হাসপাতালে গিয়ে সাংবাদিক ইমনের চিকিৎসার খোঁজ খবর নেন।

এবিষয় ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা বলেন, সংবাদ পেয়ে রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। এঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার করতে ইতিমধ্যেই পুলিশ মাঠে নেমেছে।

শাহজাদপুরে প্রশাসনের আশ্বাসে উত্তরবঙ্গ ট্যাংকলরি শ্রমিক ইউনিয়নের কর্মবিরতি প্রত্যাহার

অবশেষে প্রশাসনের আশ্বাসে ৪ ঘন্টা কর্মবিরতির পর কর্মসূচি প্রত্যাহার করেছে উত্তরবঙ্গ ট্যাংক লরি শ্রমিক ইউনিয়নের শ্রমিকরা। টানা ৪ ঘন্টা কর্মবিরতির পর দুপুরে পুনরায় ডিপো থেকে তেল উত্তোলন শুরু করে শ্রমিকরা ।

ট্যাংকলরি থেকে চুরি হওয়া তেল উদ্ধারের দাবিতে মঙ্গলবার সকাল থেকে কর্মবিরতি শুরু করে উত্তরবঙ্গ ট্যাংকলরি শ্রমিক ইউনিয়ন। ফলে ডিপো থেকে তেল উত্তোলন বন্ধ হয়ে যায়। ফলে উত্তরবঙ্গের ১৬ জেলার তেল সরবারহ পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়। সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে শ্রমিকদের সাথে আলোচনায় বসেন শাহজাদপুরের উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং থানার অফিসার ইনচার্জ। আলোচনার পর কর্মসূচী প্রত্যাহার করে শ্রমিক ইউনিয়ন। বুবার বগুড়ায় পুলিশ সুপারের সাথে উত্তরবঙ্গের ট্যাংকলরি শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দর সাথে বৈঠক রয়েছে বলে জানান শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ। চুরি হওয়া তেলের মামলাটি বগুড়া গোয়েন্দা পুলিশে স্থানান্তর করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন তারা।

উত্তরবঙ্গ ট্যাংকলরি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. মোজাম্মেল হোসেন বলেন, আগামীকাল আমাদের শ্রমিক নেতাদের একটি দল বগুড়ার পুলিশ সুপার (এসপি) মহোদয়ের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করব। তাই ধর্মঘট স্থগিত করা হয়েছে।

শাহজাদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিদ মাহমুদ খান বলেন, সকাল থেকে শ্রমিকরা ধর্মঘট পালন করছিলেন। খবর পেয়ে আমি ও ইউএনও মহোদয় বাঘাবাড়ী বন্দর এলাকায় গিয়ে শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে কথা বলেছি। শ্রমিক নেতাদের একটি দল আগামীকাল বগুড়ায় পুলিশ সুপার (এসপি) স্যারের সঙ্গে আলোচনা করবেন কীভাবে এটি সমাধান করা যায়। এ কারণে শ্রমিকরা তাদের ধর্মঘট প্রত্যাহার করেছেন।

উল্লেখ্য, ২৫ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় বাঘাবাড়ি ওয়েল ডিপো থেকে ১৩ হাজার লিটার জ্বালানি তেল নিয়ে লালমনির হাটের উদ্দেশ্যে রওনা দেয় একটি ট্যাংকলরি। পথে বগুড়া জেলার শেরপুরে ট্যাংকলরি থেকে সাড়ে ৪ হাজার লিটার পেট্রোল ও সারে ৪ হাজার লিটার ডিজেল চুরি হয়। এ ঘটনায় ২৭ ফেব্রুয়ারি শেরপুর থানায় তেল ও ট্যাংকলরির মালিক মুন্না ফকির বাদি হয়ে চালক ও হেলপারের বিরুদ্ধে ছিনতাই মামলা করে। শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ জানান, মামলার পরে পুলিশ চুরি হওয়া তেল উদ্ধার করতে পারে নি এমন কি এ ঘটনায় জড়িতদের আটক করতে পারে নি। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে মঙ্গলবার সকালে তারা তেল উদ্ধারের দাবিতে অনির্দিষ্ট কালের কর্মবিরতি শুরু করেন। পরে উপজেলা প্রশাসনের আশ্বাসে দুপুর ১২ টায় কর্মবিরতি প্রত্যাহার করে নেয়।#

দেশে সাত মাসের মধ্যে এক দিনে সর্বোচ্চ ২৮০৯ জন শনাক্ত

ছবিঃ প্রতীকী

দেশে সাত মাসের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় (রোববার সকাল আটটা থেকে সোমবার সকাল আটটা পর্যন্ত) করোনায় সবচেয়ে বেশি মানুষ সংক্রমিত হয়েছে। এ সময় করোনা শনাক্ত হয়েছে ২ হাজার ৮০৯ জনের। আর মৃত্যু হয়েছে ৩০ জনের। আড়াই মাসের মধ্যে এক দিনে এটি সর্বোচ্চ মৃত্যু।

আজ সোমবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়েছে।এর আগে গত বছরের ২০ আগস্ট এক দিনে সর্বোচ্চ ২ হাজার ৮৬৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এরপর আজকেই এক দিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত হলেন। এর আগে এ বছরের ৭ জানুয়ারি করোনায় এক দিনে সর্বোচ্চ ৩১ জনের মৃত্যু হয়।

দেশে করোনাভাইরাসে এ পর্যন্ত আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ লাখ ৭৩ হাজার ৬৮৭ জন। মারা গেছেন ৮ হাজার ৭২০ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ১ হাজার ৭৫৪ জন রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এ নিয়ে সুস্থ রোগীর মোট সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৫ লাখ ২৪ হাজার ১৫৯ জন।

বাংলাদেশে গত বছরের ৮ মার্চ করোনায় আক্রান্ত প্রথম রোগী শনাক্ত হয়। প্রথম শনাক্তের ১০ দিন পর গত বছরের ১৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

পরিচালক কাজী হায়াৎ আইসিইউতে

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস নিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন পরিচালক কাজী হায়াতের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে(আইসিইউ) নেওয়া হয়েছে।

রাজধানীর ধানমণ্ডির পপুলার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে প্রায় এক সপ্তাহ ধরে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন ৭৪ বছর বয়সী এ পরিচালক।

শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে রবিবার রাতে তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়েছে বলে জানান হাসপাতালের দায়িত্বরত কর্মকর্তা জনি।

বাবার অসুস্থতার খবরে যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফিরেছেন কাজী হায়াতের ছেলে চিত্রনায়ক কাজী মারুফ।

মারুফ বলেন, “বাংলাদেশের অনেক মানুষ আপনারা আমার বাবাকে ভালোবাসেন। আমার আব্বার জন্য দোয়া করবেন যেন উনাকে সুস্থ করে বাসায় নিয়ে যেতে পারি।”

১০ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী বাসায় থেকে তিনি চিকিৎসা নিচ্ছিলেন কাজী হায়াৎ; পরে শ্বাসকষ্ট বাড়তে থাকায় রোববার তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এর আগে ২ মার্চ করোনাভাইরাসের টিকা নিয়েছিলেন কাজী হায়াৎ; টিকা নেওয়ার সপ্তাহখানেকের মাথায় সস্ত্রীক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন তিনি।

করোনাভাইরাসের পাশাপাশি কয়েক বছর ধরে ডায়াবেটিস ও হৃদযন্ত্রের জটিলতায় ভুগছেন কাজী হায়াৎ; তার হার্টে রিং পরানো হয়েছে।

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত এ পরিচালক তার দীর্ঘ ক্যারিয়ারে দাঙ্গা, ত্রাস, চাঁদাবাজ, আম্মাজান, ইতিহাস, কাবুলিওয়ালাসহ বেশ কয়েকটি দর্শকপ্রিয় চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন।

চলতি বছরের এপ্রিলে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির দ্বিবার্ষিক নির্বাচনে একটি প্যানেল থেকে সভাপতির পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন কাজী হায়াৎ, তার প্যানেলে মহাসচিব হিসেবে নির্বাচন করবেন এস এ হক অলিক।

দৈনিক জনকন্ঠ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আতিকউল্লাহ খান মাসুদ আর নেই

দৈনিক জনকণ্ঠের সম্পাদক, মুদ্রাকর ও প্রকাশক এবং গ্লোব জনকণ্ঠ শিল্প পরিবারের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আতিকউল্লাহ খান মাসুদ আর নেই (ইন্নালিল্লাহি ওয়া লিল্লাহি রাজিউন)।

আজ সোমবার ভোর সাড়ে পাচঁটার দিকে রাজধানীর ক্যান্টনম্যান্টের নিজ বাসায় অসুস্থতা বোধ করলে এভারকেয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। চিকিৎসকরা জানান, হাসপাতালে পৌঁছানোর আগেই মৃত্যু হয়েছে তাঁর।

তাঁর বয়স হয়েছিল ৭১ বছর। তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে, পুত্রবধু, ১ নাতি ও ১ নাতনিসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।

আতিকউল্লাহ খান মাসুদ গ্লোব জনকণ্ঠ শিল্প পরিবারের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান। তার সম্পাদনায় ১৯৯৩ সালে দৈনিক জনকণ্ঠ প্রকাশিত হয়।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আতিকউল্লাহ খান মাসুদ ১৯৫১ সালের ২৯শে আগস্ট মুন্সীগঞ্জ জেলার মেদিনী মন্ডল গ্রামের সম্ভ্রান্ত খান পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধে তরুণ আতিকউল্লাহ খান মাসুদ ২ নম্বর সেক্টরে যুদ্ধ করেছেন।

তাঁর মৃত্যুতে বিভিন্ন মহল শোক প্রকাশ করেছেন।

আজ সোমবার বাদ যোহর ক্যান্টনম্যান্টের ২ নাম্বার সেক্টরের আল্লাহু্ মসজিদে মরহুমের ১ম জানাযা অনুষ্ঠিত হবে।

বাঙালির বঙ্গবন্ধু ছিলেন রাশিয়ারও প্রকৃত বন্ধু:রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বাঙালি ও বাংলাদেশের জন্য জীবন উৎসর্গ করা জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ বলেছেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন অনন্য সাধারণ এক রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব।

এক ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, “অসাধারণ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণ করছে রাশিয়া, যিনি একজন লড়াকু নেতা হিসেবে জনগণের স্বাধীনতা ও সুখের জন্য নিজেকে উৎসর্গ করেছিলেন এবং রাশিয়ার সত্যিকারের বন্ধু ছিলেন।”

১৯৭২ সালের মার্চে বঙ্গবন্ধুর রাশিয়া সফরের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন বাংলাদেশকে কূটনৈতিক স্বীকৃতি দেওয়ার দুই মাসেরও কম সময়ের মধ্যে সেই সফরে যান বাংলাদেশের তখনকার সরকারপ্রধান শেখ মুজিব।

”সেই সময়ই সমতা, পারস্পরিক সম্মান ও স্বার্থ বিবেচনার নীতির উপর আমাদের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের ভিত্তি নির্মাণ হয়েছিল।”

নিজ দেশের ঐতিহাসিক সেই ভূমিকার কথা স্মরণ করে লাভরভ বলেন, “নিজের ভাগ্য নিয়ন্ত্রণের অধিকার আদায় করতে গিয়ে কঠিন মূল্য দিয়েছিল পূর্ববাংলার মানুষ। সে সময় আমাদের দেশ বাংলাদেশকে উল্লেখযোগ্য রাজনৈতিক সমর্থন দেয় এবং যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে ভূমিকা রাখে।”

১৯৭২ সালের এপ্রিলে বাংলাদেশ সরকারের অনুরোধে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে মাইন ও বিধ্বস্ত জাহাজ সরাতে রুশ নৌবাহিনীর কার্যক্রমের কথাও স্মরণ করেন তিনি।

স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জন করেছে মন্তব্য করে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “আপনাদের দেশ অগ্রগতি ও ক্রমাগত উন্নয়নের দিকে স্থিরভাবে এগিয়ে যাচ্ছে এবং আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে মর্যাদা অর্জন করেছে।

এর ফলেই দারিদ্র্য ও জলবায়ু পরিবর্তনের মত বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সক্রিয়ভাবে অংশ নিচ্ছে বাংলাদেশ।”

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী মিশনে বাংলাদেশের অবদানের কথা উল্লেখ করে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এর মাধ্যমে বৈশ্বিক সংঘাত মোকাবেলায় বাংলাদেশ ভূমিকা রাখছে।

লাভরভ বলেন, “দক্ষিণ এশিয়ায় রাশিয়ার গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক অংশীদার বাংলাদেশ। করোনাভাইরাস মহামারীর পরও গতবছর আমাদের লেনদেন ১৫ শতাংশ বেড়ে রেকর্ড ২ দশমিক ৪ বিলিয়ন ছাড়িয়ে গিয়েছিল।”

রূপপুরে বাংলাদেশের প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে রাশিয়ার অংশগ্রহণের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, এটা দুই দেশের সবচেয়ে বড় যৌথ প্রকল্প, যা ২০২৩-২৪ সালের দিকে বিদ্যুৎ খাতে সর্বশেষ প্রযুক্তি নিয়ে পূর্ণ উৎপাদনে যাবে।

এ সম্পর্ক আরও এগিয়ে নেওয়ার প্রত্যয় জানিয়ে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “দ্বিপক্ষীয় রাজনৈতিক সংলাপ ও পরস্পরের জন্য লাভজনক সহযোগিতা চালিয়ে নিতে রাশিয়া প্রস্তুত। আমরা আত্মবিশ্বাসী, আমাদের নাগরিকদের কল্যাণে দুই দেশের সম্পর্ক আরও শক্তিশালী হবে।”

শাহজাদপুরের মানুষ আজীবন শ্রদ্ধাচিত্তে তাঁকে স্মরণ করবে


শাহজাদপুরে বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন মোহন স্মরণে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত

‘শাহজাদপুরের পোতাজিয়া ইউনিয়ন পরিষদের টানা ৫ বার নির্বাচিত সাবেক চেয়ারম্যান, শাহজাদপুর বণিক সমিতির সাবেক সভাপতি, শাহজাদপুর থানা উন্নয়ন কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা পরিষদের ২ বারের সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান এবং থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি বিশিষ্ট বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সমাজ সেবক আব্দুল মতিন মোহন দেশ ও দশের কল্যাণে ছিলেন আত্মনিবেদিত মহৎ প্রাণ। তিনি আ.লীগের দূর্দিনে যোগ্য নেতৃত্বের মাধ্যমে থানা আ.লীগ ও পোতাজিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত করে গেছেন। তাঁকে বহুবার রাজনৈতিকভাবে পথভ্রষ্ট করার অপচেষ্টা করা হলেও মুজিবীয় আদর্শের মূর্ত প্রতীক প্রয়াত আব্দুল মতিন মোহন জীবদ্দশায় আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করার পথ থেকে বিন্দুমাত্রও বিচ্যুতি হননি। তাঁর অবদান কখনও ভোলার নয়! শাহজাদপুরের মানুষ তাঁকে শ্রদ্ধা চিত্তে আজীবন স্মরণ করবে।’

বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) বিকেলে শাহজাদপুরের পোতাজিয়া দ্বি-পার্শ্বিক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বিশিষ্ট বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন মোহনের ১৬ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে অনুষ্ঠিত স্মরণসভার অতিথি ও বক্তারা উপরোক্ত কথাগুলো বলেছেন। শাহজাদপুর উপজেলার পোতাজিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও পোতাজিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী ব্যাপারীর সভাপতিত্বে এবং পোতাজিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মোঃ আনছার আলীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত এ স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এ্যাড. কেএম হোসেন আলী হাসান। প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক মোঃ আব্দুস সামাদ তালুকদার। স্মরণ সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন, প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন মোহনের বড় ছেলে কেন্দ্রীয় যুবলীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রফেসর আজাদ রহমান, মিল্কভিটা’র ভাইস চেয়ারম্যান শেখ মোঃ আব্দুল হামিদ লাবলু, জেলা যুবলীগ সভাপতি রাশেদ ইউসুফ জুয়েল, আব্দুল মতিন মোহন স্মৃতি পরিষদের সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ মোজাম্মেল হক, সেক্রেটারি ডাঃ মিজানূর রহমান প্রমূখ।

উক্ত স্মরণ সভায় প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন মোহনের স্মৃতিচারণ করে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মুস্তাক আহমেদ, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মির্জা আলী আশরাফ বাচ্চু, মিল্কভিটার পরিচালক আব্দুস সামাদ ফকির, আলমগীর জাহান বাচ্চু, প্রধান শিক্ষক শামীম হোসেন, উপজেলা যুবলীগ আহবায়ক আশিকুল হক দিনার, যুগ্ম-আহবায়ক কামরুল হাসান হিরোক, যুগ্ম- আহবায়ক রাশেদুল হায়দার রাশেদ, কায়েমপুর ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা মো: রাশেদুল হাসান রুবেল, পোতাজিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি দীনু প্রমুখ। বক্তারা মরহুমের সফল কর্মময় জীবনের ওপর আলোকপাত করে বক্তব্য রাখেন।

পরে, বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন মোহনের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া পরিচালনা করেন মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস।উক্ত স্মরণ সভায় সিরাজগঞ্জ জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ কয়েক হাজার জনগণ উপস্থিত ছিলেন।

পয়োবর্জ্য ব্যবস্থাপনায় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে নীলফামারীর সৈয়দপুর; পয়োবর্জ্য থেকে উৎপাদিত হচ্ছে সার

জনসংখ্যা তো বাড়ছেই, বাড়ছে পয়োবর্জ্যও। এর ব্যবস্থাপনায় এখনই নজর না দিলে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বে নাগরিক স্বাস্থ্য। প্রয়োজন আধুনিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনার। এতে পরিবেশের তো একটা সুরাহা হবেই, উল্টো এই বর্জ্যই সম্ভাবনা দেখাবে কর্মসংস্থান ও আয়ের। উদাহরণ দেখতে যেতে হবে নীলফামারীর সৈয়দপুরে।

পয়োবর্জ্য ব্যবস্থাপনায় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভা। সেখানে মানুষের বর্জ্য থেকে সরাসরি তৈরি হচ্ছে সয়েল কন্ডিশনার ওরফে উন্নতমানের জৈব সারযুক্ত মাটি। এ কাজে স্থাপন করা হয়েছে কো-কম্পোস্ট প্লান্ট। প্রকল্প বাস্তবায়নে কাজ করছে ওয়াটার এইড বাংলাদেশ ও সমাজ কল্যাণ সংস্থা (এসকেএস) ফাউন্ডেশন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, মোট তিনটি ট্যাংক পরিবহনে (ভেকুট্যাক) প্রায় ২৮ হাজার বাড়ির পয়োবর্জ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। এরপর সেগুলো চলে যাচ্ছে স্থানীয় কো-কম্পোস্ট প্লান্টে। সেখানে আছে ডায়িং বেড। বেডে রয়েছে হরেক রকম পাথর। পয়োবর্জ্যের ছাঁকনি হিসেবে কাজ করে ওগুলো। এতে আটকে যায় অজৈব বর্জ্য।

পাথরের তিন স্তর পার হয়ে তরল অংশ নিচে নেমে যায়। তারপর সেটা যায় অন্য আরেক বেডে। তিনদিন পর কালো রঙের তরল বিভিন্ন বেড ঘুরে মোটামুটি স্বচ্ছ ও দুর্গন্ধমুক্ত হয়। ওই তরলেই মিশে আছে গাছের জন্য দরকারি পুষ্টি উপাদান। সেটাকেই কী করে সুচারুভাবে সার হিসেবে কাজে লাগানো যায় তা নিয়ে চলছে গবেষণা।

আরও দেখা গেছে, পয়োবর্জ্য থেকে পানি বের হয়ে যাওয়ার পর পচনশীল উপাদানগুলোর সঙ্গে আনুপাতিক হারে মিশিয়ে নেওয়া হয় কাঁঠের গুড়ি। ওটা থেকে তৈরি হয় সয়েল কন্ডিশনার, তথা উর্বর মাটি।
গবেষকরা বলছেন, আদিকাল থেকেই পয়োবর্জ্য নাইটসয়েল (পয়োবর্জ্য মিশ্রিত মাটি) হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে। সেক্ষেত্রে পয়োবর্জ্যের মাধ্যমে বর্তমানে যে সয়েল কন্ডিশনার তৈরি হচ্ছে তা মূলত ওই নাইটসয়েলেরই আধুনিক সংস্করণ। এই মাটিতে কোনও জীবাণু বা দুর্গন্ধ থাকে না। কিন্তু সার হিসেবে বাকিদের চেয়ে কোনও অংশে কম নয়।

পয়োবর্জ্য থেকে উৎপাদিত সার ব্যবহার নিয়ে কৃষকদের মাঝে যাতে কোনও দ্বিধা কাজ না করে সেজন্য সচেতনতামূলক কার্যক্রমও হাতে নিয়েছে সংস্থা দুটো।

ওয়াটার এইড বাংলাদেশের প্রকল্প কর্মকর্তা সুমন কুমার সাহা বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে আমাদের একটি প্লান্ট থেকে বছরে ১০০ মেট্রিক টনের বেশি সার উৎপাদিত হবে। এই সার ব্যবহারে জমিতে পানি, রাসায়নিক সার ও কীটনাশক খরচ কমে আসে। সাধারণ সারের তুলনায় দ্বিগুণ উৎপাদন পাওয়া সম্ভব এতে।’

এদিকে পয়োবর্জ্যকে সম্পদে পরিণত করার কথা ভাবছে সরকারও। এ বিষয়ে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেন, পয়োবর্জ্য ব্যবস্থাপনায় উন্নত বিশ্বের মতো আমাদের দেশেও অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন এবং পরিচ্ছন্ন দেশ গড়তে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি আনা হবে। পয়োবর্জ্যের পাশাপাশি কঠিন বর্জ্যসহ অন্য সব বর্জ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে প্রক্রিয়াজাত করা হবে।

প্রাথমিকভাবে সিটি করপোরেশন এবং পৌরসভাগুলোতে পয়োবর্জ্য প্রক্রিয়াকরণ এবং পরবর্তীতে এই সুবিধা গ্রাম পর্যায়েও পৌঁছে দেওয়া হবে জানিয়ে মন্ত্রী আরও বলেন, দেশকে সমৃদ্ধ করতে শুধু অর্থনৈতিক সূচক পূরণ করলেই হবে না, স্বাস্থ্য, পরিবেশসহ অন্য যত প্যারামিটার আছে সেগুলোতেও গুরুত্ব দিতে হবে।

সৈয়দপুর পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র মো. জিয়াউল হক বলেন, ‘২০১৬ সাল থেকে এখানে এই প্রকল্প শুরু। মানববর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য এসকেএস ফাউন্ডেশন আমাদের এখানে কাজ করতে আসে। এরপর তারা ওয়াটার এইড বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্ত হয়ে প্লান্ট বানায়। সেটা দিয়ে আমাদের পৌরসভায় সার উৎপাদন হয়। ঢাকার মানুষ টয়লেট ফ্লাশ করার পর হয়তো জানে না যে তাদের পয়োবর্জ্য কোথায় যাচ্ছে। কিন্তু সৈয়দপুরের মানুষ জানে তাদের পয়োবর্জ্য ট্যাংক থেকে প্লান্টে গিয়ে সার হয়ে যাচ্ছে।’