দিনের ছবি (৭ মে ২০২০)

২৫ কেজি ওজনের কাতল মাছ। আলোকচিত্রঃ মামুন বিশ্বাস

[et_pb_section admin_label=”section”]
[et_pb_row admin_label=”row”]
[et_pb_column type=”4_4″][et_pb_text admin_label=”Text”]এনায়েতপুর ২৫ কেজি ওজনের কাতল মাছ।
আজ ভোর বেলায় এনায়েতপুর যমুনা নদীতে জেলেদের কাছে ২৫ কেজি ওজনের কাতল মাছ ধরা পড়ে।
আজ সকাল ১১ টায় এনায়েতপুর বিক্রি করতে নিয়ে আসে। দাম যাচ্ছে ৩০ হাজার টাকা।
আলোকচিত্রঃ মামুন বিশ্বাস[/et_pb_text][/et_pb_column]
[/et_pb_row]
[/et_pb_section]

এবার করোনায় আক্রান্ত হলেন রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী

রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মিখাইল মিশুস্তিন

রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মিখাইল মিশুস্তিন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তার আক্রান্ত হওয়ার খবর প্রকাশ করেছে দেশটির জাতীয় টেলিভিশন। প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে ভিডিও লিঙ্কে যোগাযোগের সময় নিজের সংক্রমণের কথা জানান রুশ প্রধানমন্ত্রী। রুশ সংবাদমাধ্যম আরটি জানিয়েছে, মিশুস্তিন চিকিৎসাধীন থাকার মধ্যে অন্তবর্তী সরকার প্রধানের দায়িত্ব পালন করবেন প্রথম উপ প্রধানমন্ত্রী আন্দ্রে বেলুসোভ।

বিশ্ব জুড়ে মহামারির আকার নেওয়া করোনাভাইরাসে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনসহ অনেক বিশ্বনেতাই আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে অনেকে প্রাণও হারিয়েছেন। রাশিয়ায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ইতোমধ্যে এক লাখ ছাড়িয়ে গেছে। এর মধ্যে ১ হাজারেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

গত জানুয়ারিতে দিমিত্রি মেদভেদেভকে সরিয়ে মিখাইল মিশুস্তিনকে প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ দেন প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। কাজ চালিয়ে যাবার মধ্যে বৃহস্পতিবার তিনি নিজের সংক্রমিত হওয়ার কথা নিশ্চিত হন। পরে সন্ধ্যায় ভিডিও লিঙ্তে তিনি প্রেসিডেন্টকে জানান, ‘কিছুক্ষণ আগেই জানা গেছে করোনাভাইরাসের জন্য আমি যে পরীক্ষা করতে দিয়েছিলাম তা পজেটিভ এসেছে।’ জবাবে প্রেসিডেন্ট পুতিন বলেন, ‘আপনার সঙ্গে যা হয়েছে তা যে কারোরই হতে পারে।’ প্রেসিডেন্ট তাকে আশ্বস্ত করেন তাকে না জানিয়ে কোনও বড় সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে না।

এনায়েতপুরে ৪টি ডাহুক পাখি উদ্ধার

এনায়েতপুরে ৪টি ডাহুক পাখি উদ্ধার

রফিক মোল্লা: সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুর থানার আজগরা গ্রামে শিকারির কাজে ব্যবহৃত মুল ডাহুক সহ চারটি ডাহুক পাখি উদ্ধার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে পরিবেশবাদি সংগঠন দি বার্ড সেফটি হাউজের সদস্যরা ডাহুক পাখিগুলো উদ্ধার করে প্রকৃতিতে অবমুক্ত করেছে।

স্থানীয়রা জানায়, দীর্ঘ দিন ধরে ফাঁদ বানিয়ে আজগরা এলাকায় একটি চক্র শিকারি ডাহুক দিয়ে নতুন ডাহুক শিকার করে আসছে। এজন্য ডাহুকের সামনে এক ধরনের শিস বাজানো হয়। শিস শুনে শুনে ডাহুক নিজেই ডাকাডাকি শুরু করে। এসময় অন্য ডাহুক খাঁচায় চলে আসে। পরে বিভিন্ন জায়গায় উচ্চ মুল্যে ডাহুক পাখি বিক্রি করা হয়। খবর পেয়ে এলাকার পরিবেশবাদি সংগঠনের কয়েকজন সদস্য আজগরা গ্রামে এসে চারটি ডাহুক পাখি উদ্ধার করা হয়। এসময় স্থানীয় লোকজনের উপস্থিতিতে পাখি গুলোকে অবমুক্ত করা হয়।

এ বিষয়ে পরিবেশবাদি সংগঠন দি বার্ড সেফটি হাউজ চেয়ারম্যান মামুন বিশ্বাস জানান, পাখি শিকারি সেলিম ডাহুক পাখিটাকে ৮ হাজার টাকা দিয়ে অনেক আগে কিনেছেন। খবর পেয়ে ৪টি ডাহুক পাখি উদ্ধার ও অবমুক্ত করা হয়। এছাড়া পাখির খাঁচা ও নেট ধ্বংস করে ফেলা হয়। তবে আর কোন দিন পাখি শিকার করবেন না শর্তে মুচলেকা দিয়ে পাখি শিকারি সেলিম হোসেনকে ছেড়ে দেয় স্থানীরা।

এ ব্যাপারে এনায়েতপুর থানার ওসি মোল্লা মাসুদ পারভেজ জানান, শুনেছি পরিবেশবাদি একটি সংগঠনের উদ্যোগে ৪টি ডাহুক পাখি উদ্ধার করে অবমুক্ত করা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে থানায় কেউ আসেনি।

সিরাজগঞ্জ ও ঢাকায় ত্রাণ সহায়তা দিচ্ছে অভিনেতা জাহিদ হাসান

অনলাইন ডেস্কঃ করোনা দুর্যোগের এ সময়ে সামর্থ্যবান তারকাদের অনেকেই এগিয়ে এসেছেন সহায়তা কার্যক্রমে। প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের অভাবে যারা কষ্টে আছেন এমন সহকর্মীদের প্রতি সহযোগিতার হাত প্রসারিত করেছেন তারা।

এ তালিকায় রয়েছেন জনপ্রিয় অভিনেতা জাহিদ হাসানও। তার অর্থায়নে রাজধানীতে এবং নিজ এলাকা সিরাজগঞ্জে ত্রাণ সহায়তা কার্যক্রম পরিচালনা করছেন তিনি। এ কাজে তাকে সহযোগিতা করছেন কিছু স্বেচ্ছাসেবী মানুষ।

 

তবে তার এ কার্যক্রমটি অনেকটা গোপনেই করা হচ্ছে। যারা সহায়তা পাচ্ছেন তাদের পরিচয় যেমন গোপন রাখছেন পাশাপাশি তিনি যে ত্রাণ দিচ্ছেন এটিও কাউকে জানাচ্ছেন না।

 

এ প্রসঙ্গে জাহিদ হাসান বলেন, ‘অসহায় মানুষদের সহায়তা দিয়ে যাচ্ছি অনেক আগে থেকেই। কিন্তু এটি সবাইকে জানানোর বিষয়ে আমি অনাগ্রহী। কারণ এতে করে যারা সাহায্য নেন তাদের এক ধরনের অবজ্ঞা করা হয় বলে মনে করি। তাই বিষয়টি অন্তরালে থাকাই ভালো। আমার ব্যক্তিগত এ কার্যক্রম চলমান থাকবে।

এছাড়া অভিনয়শিল্পী সংঘ ও ডিরেক্টরস গিল্ডের সহায়তা তহবিলেও অর্থ সহায়তা করেছি। মহান আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করছি, এ দুর্যোগ থেকে যেন তিনি আমাদের রক্ষা করেন।’ অন্যদিকে করোনাসৃষ্ট লকডাউনের আগেই ঈদের ৫টি নাটকে অভিনয় করেছিলেন।

তবে ঈদের আগ পর্যন্ত আরও কিছু নাটকের শুটিং করার কথা ছিল তার। করোনা ঝড়ে সব ওলট-পালট হয়ে গেছে এখন। বর্তমান অবসরে পরিবারের সান্নিধ্যে থেকে ঘরে অবস্থান করছেন এ অভিনেতা।

সূত্রঃ যুগান্তর


আরো খরব

সিরাজগঞ্জে ত্রাণ আত্মসাতের দায়ে তিন ইউপি সদস্য বরখাস্ত

সিরাজগঞ্জে ধান কাটতে আসতে শ্রমিকদের বাধা নেই

সিরাজগঞ্জে ধান কাটতে আসতে শ্রমিকদের বাধা নেই

নিজস্ব সংবাদদাতাঃ করোনা প্রভাবে থমকে আছে সিরাজগঞ্জের ধান কাটা। মাঠে ফসল ভালো হলেও কৃষি শ্রমিক সংকটের কারণে দিশেহারা কৃষক। আসচে আন তারা অনেকটাই দিশেহারা। যদিও প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে কোন প্রকার বাধা নেই। তারপরও সংশয় কাটছেনা কৃষকের।

তাড়াশ উপজেলার তালম গ্রামে কৃষক আলহাজ্ব আসাদুজ্জামান বলেন, আমি এ বছর ৪০ বিঘা জমিতে বোরো ধানের চাষ করেছি। এরমধ্যে রয়েছে ব্রি-৩৬, মিনিকেট ও কাটারিভোগ ধান। সব ধানই প্রায় একসঙ্গে পেকে যাবে। প্রতি বছর এসময় দেশের দক্ষিণ অঞ্চল হতে শত শত কৃষি শ্রমিক আসতো ধান কাটার জন্য। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে কৃষি শ্রমিক পাওয়া নিয়ে সংশয়ের মধ্যে রয়েছি।

সিরাজগঞ্জ জেলা কৃষি অফিসার মো হাবিবুল হক জানান, এ বছরে সিরাজগঞ্জ জেলায় বোরো ধানের চাষ হয়েছে এক লাখ ৪১ হাজার ৮০হেক্টর। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে আট লাখ ৮০ মেট্রিক টন। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় ফলনও হয়েছে বাম্পার। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ফসল ঘরে তুলতে না পারলে বিরাট লোকসানের মুখে পড়বে এ অঞ্চলের কৃষক। একদিকে যেমন ঝড় শিলাবৃষ্টির মতো প্রাকৃতিক দূর্যোগের আশঙ্কা রয়েছে,পাশাপাশি শ্রমিক সংকটও তাদেরকে বারবার ভাবিয়ে তুলছে।

সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ইতোমধ্যে নয়টি উপজেলায় ধান কাটা মৌসুমে শ্রমিকদের মনিটরিংয়ের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের চিঠি দেওয়া হয়েছে। চিঠির আলোকে উপজেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটি সভা করে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, আসন্ন ধানকাটা মৌসুমে যে সকল শ্রমিক ধান কাটার জন্য আসবে তারা সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কাজ করবে। এবং জমির মালিক শ্রমিকদেও মাস্ক ও হ্যান্ড গ্লোবস সরবরাহের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এ ছাড়া সকল শ্রমিকের স্বাস্থ্য সনদ (প্রাথমিক জ্বও,সর্দি,কাশি নেই মর্মে হাসপাতাল বা ডাক্তারের প্রত্যয়ণ) সংশ্লিস্ট উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা গণ যাচাই করবে এবং সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক দায়িত্ব পালন করবে।

কিন্তু এ ধরণের নির্দেশনায় ভোগান্তি বাড়বে বলে মনে করছেন সংশিষ্ট কৃষকেরা। উল্লাপাড়া উপজেলার তেলিপাড়া গ্রামের কৃষক আব্দুল খালেক বলেন, এমনিতেই কৃষি কর্মকর্তাদের পরামর্শের জন্যই পাওয়া যায় না। তার উপর যখন গণহারে ধানকাটা শুরু হবে তখন এ নির্দেশনা মানা অনেকটাই কঠিন হয়ে যাবে।

স্থানীয় কৃষকেরা মনে করছেন, সেক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট এলাকায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং সহ প্রচারণা চালাতে হবে, গৃহস্থ্যরা যেন নিজ নিজ শ্রমিকদের ক্ষেত্রে সচেতনার বিষয়টি এড়িয়ে না গিয়ে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সহ তাদেরকে বাড়ির বাইরে আলাদাভাবে থাকার ব্যবস্থা করে দেয়। কেননা করোনা ভাইরাসের সংক্রমন ঝুঁকি এড়াতে তাদেরকেই প্রথম সতর্ক থাকতে হবে।

করোনা ভাইরাসের ক্রান্তিকালে শিল্পপতি জনাব আরিফের এ উদ্যোগ এলাকায় ব্যপক প্রসংশিত হয়েছে


শাহজাদপুরে শিল্পপতি আরিফের পক্ষ থেকে বিপুল পরিমাণ পিপিই ও মাস্ক বিতরণ

শামছুর রহমান শিশির : করোনা ভাইরাসের ক্রান্তিকালে শাহজাদপুরে মানুষের চিকিৎসাসেবা অব্যাহত রাখার জন্য শাহজাদপুরের বিশিষ্ট শিল্পপতি ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রনেতা কেএম তারিকুল ইসলাম আরিফের পক্ষ থেকে প্রায় ৮’শতাধিক পিপিই এবং ৩’ হাজার মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে।
শিল্পপতি আরিফ কর্তৃক প্রেরিত এসব স্বাস্থ্য উপকরণ গত ৩ দিন ধরে স্থানীয় চিকিৎসক, জনপ্রতিনিধি, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী, পরিচ্ছন্নকর্মী, প্রশাসনিক কর্মকর্তা, পুলিশ, সাংবাদিক ও ফার্সাসিস্টদের মাঝে বিরতণ করা হয়। জনাব আরিফের পক্ষ থেকে শাহজাদপুর প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শফিকুজ্জামান শফি ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ লিয়াকত আলীর নেতৃত্বে শাহজাদপুর প্রেস ক্লাবের সাংবাদিকবৃন্দ এসব স্বাস্থ্য উপকরণ বিতরণ করেন।
শাহজাদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আমিনুল ইসলাম খান, শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মোঃ শামসুজ্জোহা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (শাহজাদপুর সার্কেল) ফাহমিদা হক শেলী, সহকারী কমিশনার (ভ‚মি) মাসুদ হোসেন, থানার অফিসার ইনচার্জ আতাউর রহমান, বিভিন্ন ক্লিনিকে কর্মরত চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী, শতাধিক পল্লী চিকিৎসক, বিভিন্ন ওষুধের দোকানদার, পৌর কর্র্তৃপক্ষ, ১৩ টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, সচিব বরাবর এসব সামগ্রী হস্তান্তর করা হয়।
করোনা ভাইরাসের ক্রান্তিকালে চিকিৎসাসেবা অব্যাহত রাখতে বিশিষ্ট শিল্পপতি আরিফের এই মহতী উদ্যোগের ফলে চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী, পরিচ্ছন্নকর্মী, মাঠে কর্মরত প্রশাসনিক কর্মকর্তা-কর্মচারী, পুলিশ সদস্য ও গণমাধ্যমকর্মীদের মনোবল বৃদ্ধি পাবে বলে সুধীমহল অভিমত ব্যক্ত করেছেন। সেইসাথে এ উদ্যোগ শাহজাদপুরবাসীর কাছে ব্যপক প্রসংশিত হয়েছে।

আতংকিত না হয়ে সচেতন হতে হোন- ইউএনও


শাহজাদপুরে করোনা প্রতিরোধে উপজেলা প্রশাসনের লিফলেট বিলি

আবুল কাশেম/ শামছুর রহমান শিশির/ সাগর বসাক : শাহজাদপুর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয় সংক্রান্ত সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করেছেন শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মোঃ শামসুজ্জোহা। আজ বৃহস্পতিহবার বিকেলে শাহজাদপুর পৌর এলাকার দ্বারিয়াপুর বাজার, মণিরামপুর বাজার, বিসিক বাসস্ট্যান্ড, দিলরুবা বাসস্ট্যান্ড ও থানারঘাট মোড় সংলগ্ন এলাকায় জনগণের ইউএনও শাহ মোঃ শামসুজ্জোহা লিফলেট বিলি করেন। বিলিকরা লিফলেটে করোনা ভাইরাস কিভাবে ছড়ায় তা উল্লেখ করা হয়েছে। যেমন- মূলত বাতাসের এয়ার ড্রপলেট এর মাধ্যমে, হাঁচি ও কাশির ফলে, আক্রান্ত ব্যক্তিকে স্পর্শ করলে, ভাইরাস আছে এমন কোন কিছু স্পর্শ করে হাত না ধুয়ে মুখে, নাকে ও চোখে লাগালে, পয়োঃনিষ্কাশন (পায়খানা) ব্যবহারের মাধ্যমেও করোনা ভাইরাস ছড়াতে পারে। লিফলেটে করোনা ভাইরাসের লক্ষণ হিসেবে সর্দি, কাশি, জ্বর, মাথাব্যথা, গলাব্যথা, মারাত্মক পর্যায়ে অজ্ঞান হয়ে যাওয়া, শিশু, বৃদ্ধ ও কম রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাসম্পন্ন ব্যক্তিদের নিউমোনিয়া ও ব্রঙ্কাইটিসের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। লিফলেটে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে অথবা সংক্রমন থেকে রক্ষা পেতে কি কি করণীয় তা উল্লেখ করা হয়েছে। যেমন- এখনো এই ভাইরাসের ভ্যাকসিন আবিস্কার না হওয়ায় বিস্তার রোধে প্রতিরোধের উপায় হিসেবে মাঝে মাঝে সাবান পানি বা স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধোয়া, হাত না ধুয়ে মুখ, চোখ ও নাক স্পর্শ না করা, হাঁচি কাশি দেওয়ার সময় মুখ ঢেকে রাখা, ঠান্ডা বা ফ্লু আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে না মেশা, বন্য জন্তু কিম্বা গৃহপালিত পশুকে খালি হাতে স্পর্শ না করা, মাংস ডিম খুব ভালোভাবে রান্না করা, মুখে মাস্ক ব্যবহার করা যেতে পারে, প্রচুর ফলের রস ও ১৫ মিনিট পরপর পানি পান করা, হাঁচি কাশি দেওয়ার পর, রোগীকে সেবা দেয়ার পর, টয়লেট করার পর, পশুপাখি কিংবা পশুপাখির মল স্পর্শ করার পর এবং খাবার ও খাবার প্রস্তুত করার আগে ও পরে পরিস্কার করে হাত ধুতে হবে।
লিফলেটে করোনা ভাইরাস ঘরে বসে পরীক্ষা করার উপায় হিসেবে ‘ পরিচ্ছন্ন পরিবেশে লম্বা একটা শ্বাস নিয়ে সেটিকে ১০ সেকেন্ডের কিছুটা বেশী সময় আটকে রাখুন। যদি এই দম ধরে রাখার সময়ে আপনার কোন কাশি না আসে, বুকে ব্যথা বা চাপ অনুভব না হয়, মানে কোন প্রকার অসস্তি না লাগে তার মানে আপনার ফুসফুসে কোন ফাইব্রোসিস ( করোনা ভাইরাস) তৈরি হয়নি অর্থাৎ কোন ইনফেকশন হয়নি, আপনি সম্পূর্ণ ঝুঁকিমুক্ত আছেন’ উল্লেখ করা হয়েছে।
লিফলেটে আবু দাউদ ২/৯৩, তিরমিযী ৩/১৮৪ শরীফে উল্লেখিত সকল প্রকার রোগমুক্তির দোয়াটি ‘আল্লাহুম্মা ইন্নি-আউযুবিকা মিনাল বারছি ওয়ান জুনু-নি ওয়াল জুযা-মি আমিন সায়্যি ইল আসক্ব-ম’ উল্লেখ করা হয়েছে। যার অর্থ ‘হে আল্লাহ ! অবশ্যই আমি তোমার নিকট ধবল, উন্মাদ, কুষ্ঠরোগ ও সকল প্রকার কঠিন ব্যাধি থেকে আশ্রয় প্রার্থনা করছি।’
এ বিষয়ে ইউএনও শাহ মোঃ শামসুজ্জোহা বলেন, ‘করোনা ভাইরাস অন্যান্য ফ্লুবাহিত রোগের মতোই। অযথা আতংকিত না হয়ে একটু সতর্কতা অবলম্বন করলেই করোনা ভাইরাস তেমন কোন ক্ষতি করতে পারবে না। বিদেশ থেকে কেউ দেশে ফিরে এলেই এবং কেউ এ রোগে আক্রান্ত হলেই বিষয়টি উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং শাহজাদপুর থানা পুলিশকে সঙ্গে সঙ্গে অবগত করার জন্য উদাত্ত আহব্বান জানাচ্ছি।’

বঙ্গবন্ধুর শতজন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষ্যে মহতী ব্যক্তি উদ্যোগ


শাহজাদপুরে যুবলীগ নেতা হিরোকের উদ্যোগে বিনামুল্যে ধর্মগ্রন্থ বিতরণ

শামছুর রহমান শিশির : বাংলাদেশের স্বাধীনতার রূপকার হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষ্যে গতকাল মঙ্গলবার দিনব্যাপী বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ শাহজাদপুর উপজেলা শাখার সংগ্রামী যুগ্ম-আহবায়ক, সাবেক সফল ছাত্রনেতা, জাতীয় রেসকোর্স ময়দান সংরক্ষণ মঞ্চের মুখপাত্র, সবুজ বিপ্লবের উদ্যোক্তা যুবলীগ নেতা কামরুল হাসান হিরোকের ব্যক্তিগত উদ্যোগে শাহজাদপুর পৌর এলাকার বাড়ি বাড়ি থেকে পুরনো ছেঁড়াফাঁটা পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরআন শরীফ ও গীতা বই সংগ্রহ করে নতুন কোরআন শরীফ ও নতুন গীতা বিতরণ কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়েছে। পবিত্র ধর্মগ্রন্থ’ বিতরণ কর্মসূচীর উদ্যোক্তা কামরুল হাসান হিরোকের সঞ্চালনায় এদিন সকালে শাহজাদপুর পৌর একালাকার বিসিক বাসষ্ট্যান্ড সংলগ্ন ওয়ারেছিয়া কবরস্থান ও ঈদগাহ মাঠ এবং জেলা পরিষদ মার্কেটে অনুষ্ঠিত কর্মসূচীতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিনামূল্যে পবিত্র ধর্মগ্রন্থ বিতরণের ওই মহতী কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন জাতীয় সংসদ সদস্য সিরাজগঞ্জ-০৬ (শাহজাদপুর), সাবেক শিল্প-উপমন্ত্রী, শাহজাদপুরের গণমানুষের নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সিরাজগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (শাহজাদপুর সার্কেল) ফাহমিদা হক শেলী, শাহজাদপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আতাউর রহমান, শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মুস্তাক আহমেদ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হাজী সিরাজুল ইসলাম, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ শাহজাদপুর শাখার সংগ্রামী আহবায়ক আশিকুল হক দিনার, সিরাজগঞ্জ জেলা ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি হাজী মামুন প্রমূখ। অনুষ্ঠানের অতিথিবৃন্দ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষ্যে ব্যাতিক্রমী এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে ও বঙ্গবন্ধুর সফল কর্মময় জীবনের ওপর আলোকপাত করে বক্তব্য রাখেন।
মহতী ওই কর্মসূচীর আয়োজক কামরুল হাসান হিরোক বলেন, ‘প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই ছেঁড়া ফাঁটা পবিত্র ধর্মগ্রন্থ রয়েছে। এ কর্মসূচীর মাধ্যমে সেগুলো পরিবর্তন করে দেয়ায় এলাকাবাসী মন থেকে দেয়া দোয়া ভালোবাসা পেয়ে খুব ভালো লাগছে। সেইসাথে ছেঁড়াফাঁটা ধর্মগ্রন্থগুলোও সংরক্ষণ করা হয়েছে। এ কর্মসূচী সফলভাবে সম্পন্ন হওয়ায় মহান সৃষ্টিকর্তার প্রতি শুকরিয়া জানিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ শাহজাদপুর উপজেলা শাখার নেতৃবৃন্দসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। সেইসাথে করোনা ভাইরাসে আতংকিত না হয়ে করোনা প্রতিরোধে শাহজাদপুরের সবাইকে সচেতন থাকতে এবং করোনা ভাইরাসকে পুঁজি করে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধি ও মজুদ যেনো কেউ গড়তে না পারে, সেজন্য সকলকে সদাসর্বদা সজাগ থাকতে বিশেষভাবে অনুরোধ জানাচ্ছি।’ দিনব্যাপী পবিত্র ধর্মগ্রন্থ বিনামূল্যে বিতরণকাজে স্থানীয় যুবলীগ নেতৃবৃন্দ, দলীয় নেতৃবৃন্দ ছাড়াও এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ অংশ নেন।
উল্লেখ্য, অনুষ্ঠানের আয়োজক যুবলীগ নেতা কামরুল হাসান হিরোক রাজনীতি করার পাশাপাশি গত কয়েক বছর ধরে শাহজাদপুরের গ্রাম থেকে গ্রামান্তরে, পথে প্রান্তরে ব্যক্তিগত উদ্যোগে প্রায় ২০ হাজার বৃক্ষ রোপন করে সকলের নিকট ‘সবুজ বিপ্লবের উদ্যোক্তা’ হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন ও পুরস্কৃত হয়েছেন। সেইসাথে শাহজাদপুরে ব্যাক্তি উদ্যোগে প্রথম পাখির বাসা সংরক্ষণ, বিনামূল্যে রক্তদান কর্মসূচি, ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দানের ঐতিহ্য রক্ষায় গত কয়েক বছর ধরে জাতীয় ভাবে আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে যাওয়াসহ বিভিন্ন সমাজসেবামূলক কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ায় এলাকায় বেশ সুনাম অর্জনে সক্ষম হয়েছেন এবং প্রসংশিত হয়েছেন।