কলকাতা দলে করোনাভাইরাসের হানা, আইপিএল ম্যাচ স্থগিত

বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হওয়ার কথা ছিল কলকাতা-বেঙ্গালুরুর

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) কলকাতা নাইট রাইডার্সের দুই ক্রিকেটার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। ফলে কলকাতার বিপক্ষে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর ম্যাচ স্থগিত করা হচ্ছে।

আজ সোমবার (৩ মে) বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হওয়ার কথা ছিল কলকাতা-বেঙ্গালুরুর। ।

ভারতীয় গণমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, দুই ক্রিকেটার বরুণ চক্রবর্তী ও সন্দীপ ওয়ারিয়ার চোটের জন্য হাসপাতালে গিয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর পর পর বাকি সবার কোভিড-১৯ পরীক্ষা করা হয়। তবে অন্যদের ফল নেগেটিভ এসেছে।

তবে এর জের ধরে দলের ভেতরে ছড়িয়ে পড়ে করোনাভাইরাসের ভীতি। এই অবস্থায় ম্যাচ স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড-বিসিসিআই। তারা ম্যাচটির জন্য নতুন সূচি করতে যাচ্ছে।

শেষ দিনের প্রথম সেশন বাংলাদেশের

ছবি: সংগৃহীত

শ্রীলংকার বিপক্ষে দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টে মুখোমুখি বাংলাদেশ। এরই মধ্যে শেষ দিনের লড়াইয়ে মাঠে নেমেছে দুই দল। চতুর্থ দিনে কোনো সাফল্য না পেলেও পঞ্চম দিন সকালের সেশনটা দারুণ কাটিয়েছে টাইগাররা।

লাঞ্চ বিরতি পর্যন্ত শ্রীলংকার সংগ্রহ ৮ উইকেটে ৬৪৯ রান। সুরাঙ্গা লাকমাল ২৩ ও বিশ্ব ফার্নান্দো ০ রানে অপরাজিত আছেন।

তিন উইকেটে ৫১২ রান নিয়ে পঞ্চম দিনের খেলা শুরু করে শ্রীলংকা। স্বাগতিকদের হয়ে ব্যাট করতে নামেন আগের দিনের দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান দিমুথ করুণারত্নে ও ধনঞ্জয় ডি সিলভা।

দিনের পঞ্চম ওভারে প্রথম সাফল্য পান তাসকিন আহমেদ। ধনঞ্জয়কে ইনসাইড এজের মাধ্যমে বোল্ড করেন তিনি। সাজঘরে ফেরার আগে এই অলরাউন্ডার ১৬৬ রান করেন।

নিজের পরের ওভারে বিপদজনক করুনারত্নকে ফেরান তাসকিন। আগের বলটি স্লোয়ার দিলেও পরেরটি একই লাইন ও লেন্থে জোরে করেন তিনি। গতির পার্থক্যে ক্যাচ তুলে দেন লংকান অধিনায়ক। তিনি ফেরেন ২৪৪ রানে।

একটু পরই লিটন দাসের ক্যাচ বানিয়ে পাথুম নিশাংকাকে আউত করেন এবাদত হোসেন। রান আউট হয়ে সাজঘরে ফেরায় নিরোশান ডিকওয়েলা ৩১ রানের বেশি করতে পারেননি।

অনেকটা একাই স্কোর বাড়ানোর চেষ্টা করেছিলেন ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা। তাকে ৪৩ রানে বোল্ড করেন তাইজুল ইসলাম। লাহিরু কুমারা ইনজুরিতে ছিটকে যাওয়ায় আর এক উইকেত পেলেই অল আউট হবে লংকানরা।

ব্যর্থতা ভুলে শ্রীলংকার বিপক্ষে ঘুড়ে দাঁড়াতে চায় বাংলাদেশ

পিছনের সকল ব্যর্থতাকে ভুলে নতুনভাবে শুরুর লক্ষ্য নিয়ে আগামীকাল থেকে শ্রীলংকার বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ শুরু করছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। সিরিজের প্রথম টেস্টটি অনুষ্ঠিত হবে ক্যান্ডির পাল্লেকেলে স্টেডিয়ামে। খেলা শুরু হবে বাংলাদেশ সময় সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে।

সিরিজটি আইসিসি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের অর্ন্তুভুক্ত। করোনার কারনে গেল বছর দু’বার সিরিজটি স্থগিত হয়েছিলো।

করোনা বিরতির পর প্রথম মাঠে ফিরেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ ৩-০ ব্যবধানে জিতে বাংলাদেশ। তবে ক্যারিবীয়দের কাছে দুই ম্যাচের সিরিজ ২-০ ব্যবধানে হারে টাইগাররা। সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কয়েকজন শীর্ষ খেলোয়াড় অংশ নেয়নি। তারপরও টেস্ট সিরিজে বিধ্বস্ত হয় বাংলাদেশ।

এরপর নিউজিল্যান্ড সফরে গিয়ে তিন ম্যাচের ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টি সিরিজে হেয়াইটওয়াশ হয় বাংলাদেশ। বাংলাদেশের এমন পারফরমেন্সে প্রশ্ন উঠে বড় দলের বিপক্ষে লড়াই করার সামর্থ্য আছে কি-না টাইগারদের।

নিউজিল্যান্ডে টাইগার দলের পরাজয়ের ধরন দেখে স্বাভাভাবিকভাবেই প্রশ্ন জাগে। তবে শ্রীলংকার বিপক্ষে ভালো করার ব্যাপারে আশাবাদি বাংলাদেশ। কারন লংকানদের মাটিতে অতীত পারফরমেন্স সাহস দিচ্ছে টাইগারদের।

বড় ফরম্যাটে গর্ব করার মত কিছুই নেই বাংলাদেশের। কারন এই ফরম্যাটে নিজেদের সবসময় দুর্বল প্রমান করছে তারা। এই ফরম্যাটে পথচলা শুরুর পর ১২১ টেস্ট খেলেছে বাংলাদেশ। জিতেছে মাত্র ১৪টিতে। হেরেছে ৯১টি। এরমধ্যে ৪৩টি ম্যাচে ইনিংস ব্যবধানে হার টাইগারদের। বাকী ১৬টি ড্র হয়।

পরিসংখ্যানে প্রশ্ন জাগে, ক্রিকেটের অভিজাত এই ফরম্যাটে খেলার মত সামর্থ্য রাখে কি-না বাংলাদেশ। তারপরও শেষ দু’বারের সফর থেকে আশাবাদী বাংলাদেশ। কারন খালি হাতে শ্রীলংকা ছাড়েনি তারা।

এখন পর্যন্ত শ্রীলংকার বিপক্ষে ২০টি টেস্ট খেলেছে বাংলাদেশ। জিতেছে মাত্র ১টিতে। হেরেছে ১৬টিতে। তবে শেষ পাঁচ লড়াইয়ে ১টি জয়ের সাথে দু’টি ড্রও ছিলো টাইগারদের। শ্রীলংকার মাটিকে টাইগারদের জয়টি এসেছিলো ২০১৭ সালে। যা ছিলো বাংলাদেশের শততম টেস্ট।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও জিম্বাবুয়ের পর প্রতিপক্ষের মাটিতে একমাত্র শ্রীলংকার বিপক্ষেই জিতেছে বাংলাদেশ। ওয়েস্ট ইন্ডিজ-জিম্বাবুয়ে খর্বশক্তির দল হলেও, পূর্ন শক্তির শ্রীলংকাকে হারিয়েছিলো টাইগাররা। তাই লংকানদের বিপক্ষে সেই জয়টি অবিস্মরনীয়।

৪ উইকেটে শ্রীলংকার বিপক্ষে জয় পাওয়া সেই ম্যাচে খেলা বেশিরভাগ খেলোয়াড়ই বর্তমান দলে আছেন।

সেই ম্যাচের কথা স্মরণ করে দলের অলরাউন্ডার মেহেদি হাসান মিরাজ জানান, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে হারের বৃত্ত থেকে বের হতে অবিস্মরনীয় জয় পাওয়া ম্যাচ থেকে অনুপ্রাণিত হতে পারে দল।

তিনি বলেন, ‘সেটি ছিল আমাদের জন্য একটি স্মরণীয় ঘটনা। ম্যাচের আগে আমরা আত্মবিশ্বাসী ছিলাম আমরা আরও ভাল কিছু করতে সক্ষম।’

তিনি আরও জানান, শ্রীলংকার মাটিতে বাংলাদেশ সফল সফরকারী দল। তাই লংকান সফর অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করে টাইগারদের।

তিনি বলেন, ‘অতীতে শ্রীলংকা সফরে আমরা ভালো ক্রিকেট খেলেছি। নিদাহাস ট্রফিতে আমরা ফাইনাল খেলেছি। ফাইনাল জয়ের খুব কাছে গিয়ে আমরা ট্রফি জিততে পারিনি। শ্রীলংকার সাথে দুই ম্যাচের টেস্ট ১-১এ ড্র করেছি। গত তিন-চার বছরের পারফরমেন্স বিবেচনা করলে, আমরা বলতে পারি এখানে আমাদের ভালো সুযোগ রয়েছে। অতীতের মত লড়াই করার মানসিকতা দেখাতে পারলে, আমি মনে করি ভালো ফল নিয়ে শ্রীলংকা ছাড়তে পারবো আমরা।’

অন্য দিকে শ্রীলংকা দলের সাম্প্রতিক পারফরমেন্সও খুব ভালো নয়। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে কোন জয় পায়নি তারা। দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ ০-০তে ড্র করলেও, ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টি সিরিজ হারে লংকানরা।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের আগে দেশের মাটিতে ইংল্যান্ডের কাছে দুই ম্যাচে টেস্ট সিরিজ হারে শ্রীলংকা। তাই সাম্প্রতিক পারফরমেন্স বিবেচনায় শ্রীলংকার বিপক্ষে ভালো সুযোগ দেখছে বাংলাদেশ। কিন্তু মেহেদি হাসান মনে করেন, সাফল্য পেতে হলে লংকানদের বিপক্ষে লড়াই করতে হবে দলকে।

তিনি আরও বলেন, ‘গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো, আমাদের লড়াই করার মানসিকতা দেখাতে হবে। আমি বিশ্বাস করি, টেস্ট সিরিজে আমরা তা দেখাতে সক্ষম হবো।’ সূত্র: বাসস

বাসায় ফিরেছেন করোনামুক্ত আকরাম খান

ফাইল ছবি: আকরাম খান।

অবশেষে সুখবরই দিয়েছেন আকরাম খান। রবিবার করোনা নেগেটিভ হওয়ার পর বাসায় ফিরে গেছেন সাবেক অধিনায়ক ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) পরিচালক।

আকরাম খান জানিয়েছেন, ‘সব রিপোর্ট ভালো আছে। গতকাল করোনা নেগেটিভ হয়েছি। সবাই দোয়া করবেন।’

এপ্রিলের শুরুর দিকে ঠান্ডাজনিত সমস্যা দেখা দেয় আকরাম খানের। পরে করোনার উপসর্গ দেখা দিলে গত ৯ এপ্রিল নমুনা দেন। এরপর ১০ এপ্রিল পজিটিভ হন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক। এরপর থেকে বাসাতেই চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। হঠাৎ শারীরিক অবস্থা খারাপ হয়ে যাওয়ায় বৃহস্পতিবার বিকালে ভর্তি হন রাজধানীর স্পেশালাইজড একটি হাসপাতালে। তিন দিন হাসপাতালে থাকার পরই বাসায় ফিরেছেন।

‘ব্যাটসম্যান’ নয়, এখন থেকে বলা হবে ‘ব্যাটার’

ভাষা একটি প্রবহমান ধারা। ভাষা পরিবর্তনশীল। যেকোন ভাষার প্রচলিত অনেক শব্দও পরিবর্তন হয়। শুরুতে কাগজে-কলমে, এরপর মানুষের মুখে মুখে। ক্রিকেটের অনেক শব্দের সঙ্গে পরিচিত গোটা দুনিয়া।

‘ব্যাটসম্যান’ তার মধ্যে অন্যতম একটি। বোলার-ব্যাটসম্যান, ফিল্ডার, উইকেটরক্ষক এসব নিয়েই মাঠের ক্রিকেট। তবে এবার ‘ব্যাটসম্যান’ শব্দটি নিয়ে নড়েচড়ে বসেছে ক্রিকেট বিশ্লেষক, বিশেষজ্ঞরা। আপত্তি উঠেছে ক্রিকেটে ‘ব্যাটসম্যান’ শব্দটি নিয়ে।

বলা হচ্ছে এটি লিঙ্গবৈষম্যমূলক একটি শব্দ। যদিও ক্রিকেটে লিঙ্গবৈষম্যমুলক শব্দ খুবই কম। বোলার, উইকেটকিপার, ফিল্ডার, আম্পায়ার, ম্যাচ রেফারি, ক্যাপ্টেন, ভাইস ক্যাপ্টেন সবগুলোই লিঙ্গ নিরপক্ষ শব্দ। তবে ‘ব্যাটসম্যান’ নিয়ে আপত্তি থাকায় এবার নতুন এক পদক্ষেপ নিলো জনপ্রিয় ক্রিকেটবিষয়ক ওয়েবসাইট ‘ক্রিকইনফো’।

শুধু  ‘ব্যাটসম্যান’ শব্দটিতেই  ‘ম্যান ’ যুক্ত ছিল। তাই নতুন শব্দ হিসেবে ক্রিকইনফো এখন থেকে ‘ব্যাটসম্যান’ শব্দটির পরিবর্তে ‘ব্যাটার’ (batter) শব্দটি ব্যবহার করবে।

শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) নিজেদের ওয়েবসাইট এবং সোশ্যাল অ্যাকাউন্টে এই ঘোষণা দিয়েছে ক্রিকইনফো। ‘ব্যাটসম্যান’ এর  ‘ম্যান’ শব্দটি পুরুষবাচক হওয়ায় ক্রিকইনফোর এই সিদ্ধান্ত নেয়।

এছাড়া ‘চায়নাম্যান বোলার’ শব্দটিকেও ব্যবহার করা বাদ দিচ্ছে ক্রিকইনফো।

সাবেক অধিনায়ক আকরাম খান হাসপাতালে

ফাইল ছবি: আকরাম খান।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক আকরাম খানকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সংবাদমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আকরাম খানের স্ত্রী সাবিনা আকরাম।

এ ছাড়াও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরীও বিসিবির অন্যতম পরিচালক আকরাম খানকে হাসপাতালে ভর্তি করার কথা জানান।

১০ এপ্রিল করোনা পজিটিভ হন আকরাম খান। এরপর বাসাতেই চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। খুব বেশি জটিলতা না থাকলেও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবেই তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সাবিনা আকরাম বলেন, ‘বাসায় ভালোই চিকিৎসা চলছিল। তবে দুদিন ধরে কাশি একটু বেশি হচ্ছিল। সে জন্য চিকিৎসকের পরামর্শে আকরামকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।’

এদিকে নিজাম উদ্দিন জানিয়েছেন, ‘সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে দুপুরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী তিনি ভালো আছেন।’

এদিকে আকরাম খানের বাসার অন্যদের কোভিড পরীক্ষা করা হলেও তাদের সবার ফল নেগেটিভ এসেছে বলে জানিয়েছেন আকরামের স্ত্রী সাবিনা আকরাম।

এসপিএল’ টি টোয়েন্টির সেরা খেলোয়াড় অলরাউন্ডার অর্নব।

শাহজাদপুর ক্রিকেটার্স এসোসিয়েশন কর্তৃক আয়োজিত ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক ক্রিকেট টুর্নামেন্ট শাহজাদপুর প্রিমিয়ার লীগ টি টোয়েন্টি ২০২১(এসপিএল) এর ফাইনাল মঙ্গলবার (৯মার্চ) ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে।চ্যাম্পিয়ন হয়েছে শাহজাদপুর ঈগল।টুর্নামেন্টে মোট ৮ দল অংশগ্রহণ করেন।প্রত্যেক দলের আলাদা আলাদা ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক মালিকানা ছিলো।খেলোয়াড় নিলামের মাধ্যমে ৮টি দল গঠিত হয়।১৭ বছর বয়সী ডানহাতি ব্যাটিং অলরাউন্ডার মাহমুদুল হাসান অর্নবকে নিলামের মাধ্যমে দলে টানেন শাহজাদপুর টাইগার্স। অলরাউন্ডার মাহমুদুল হাসান অর্নব মুলত ৪ নম্বর পজিশনে ব্যাট করেন ও দলের উদ্বোধনী ফাস্ট মিডিয়াম বোলার ।

পুরো টুর্নামেন্টে তিনি অলরাউন্ডার পারফর্মেন্সের মাধ্যমে দলের জয়ে বড় ভুমিকা রাখেন।এ যেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের জয়ে সাকিব আল হাসানের অবদানের কার্বন কপি। দলের প্রয়োজনে ব্যাট হাতে যেমন রান করেছেন তেমনি বল হাতে দলের প্রয়োজনীয় মুহুর্তে ব্রেকথ্রু এনে দিয়েছেন।পুরো টুর্নামেন্ট শাহজাদপুর টাইগার্সের হয়ে ৭ মাচে মাঠে নামেন অর্নব। ব্যাট হাতে তিনটি অর্ধশতকসহ তার সংগ্রহ ২৮৩ রান,বল হাতে ১১ ইউকেট শিকার করেন।বিশেষ উল্লেখযোগ্য ছিলো শাহজাদপুর ওয়ারিয়ার্সের বিপক্ষে ১৪ বলে ৫৯ রানের ইনিংস।যার মধ্যে ছিলো ৯টি বিশাল ছক্কা ও এক বাউন্ডারি বাকী ১ রান আসে সিঙ্গেল থেকে।
ফাইনাল ম্যাচ শেষে সেরা খেলোয়াড়ের নাম কমেন্ট্রি বক্স থেকে অর্নবের নাম আনুষ্ঠানিক ঘোষনা করা হয়।

অনুভুতি প্রকাশ করে অর্নব জানান এসপিএলের সেরা খেলোয়াড় হওয়া অনেক আনন্দের। ধন্যবাদ জানাই টিমমেটদের, বিশেষ ধন্যবাদ জানান তার দলের অধিনায়ক মারুফ হোসেন সুনামকে। অধিনায়ক যখন যেভাবে ম্যাচে তাকে ব্যবহার করেছেন তাতেই সফল হয়েছেন।
তিনি আরো জানান, ছোটবেলা থেকেই স্বপ্ন একদিন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সদস্য হওয়া।স্বপ্ন পুরনের জন্য সকলের দোয়া চেয়েছেন এই অলরাউন্ডার।

এসপিএল’ টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট চ্যাম্পিয়ন শাহজাদপুর ঈগল

এম এ হান্নান শেখঃশাহজাদপুর প্রিমিয়ার লীগ টি টোয়েন্টি (এসপিএল) এর ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার বিকেলে শাহজাদপুর হাইস্কুল মাঠে জাঁকজমক পূর্ণভাবে এ খেলা অনুষ্ঠিত হয়। ফাইনালে শাহজাদপুর কিংসের মুখোমুখি হয় শাহজাপুর ঈগল। শাহজাদপুর কিংসকে শাহজাদপুর ঈগল ১০ উইকেটে পরাজিত করে জয়লাভ অর্জন করে।

ব্যাটিং করতে শাহজাদপুর ঈগল নির্ধারিতন২০ ওভার ব্যাট করে সব কয়টি উইকেট হারিয়ে ৭৬ রান সংগ্রহ করে।জবাবে শাহজাদপুর ঈগল ১২ ওভারে কোন উইকেট না হারিয়ে জয় লাভ করে।
ফাইনাল ম্যাচে ৪ ওভারে ২০ রান খরচ করে ৪ উইকেটে লাভ করে ম্যান অব দ্যা ম্যাচ নির্বাচিত হন শাহজাদপুর ঈগলের পেসার তোফায়েল।
অপরদিকে টুর্নামেন্ট ৭ ম্যাচে ২৮৩ রান সংগ্রহ ও ১১ উইকেট শিকার করে টুর্নামেন্ট সেরা খেলোয়ার নির্বাচিত হয়েছে শাহজাদপুর টাইগার্সের অলরাউন্ডার অর্নব।

খেলা শেষ বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিরতণ করেন, শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ্ মোঃ শামসুজ্জোহা। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সহকারি অফিসার (ভুমি) মাসুদ হোসেন, বিশিষ্ট ক্রীড়াবিদ ও শিল্পপতি কেএম আতিকুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শামছুল আলম, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম শাহু, শেখ কাজল, উপজেলা ক্রিকেটার্স এ্যাসেসিয়েশনের সভাপতি মারুফ হোসেন সুনাম, সাধারণ সম্পাদক মামুন অর রশিদ, কাউন্সিলর জহরলাল হোসেন, ছাত্রলীগ নেতা রানা শেখ, ক্রীড়াবিদ সংগ্রাম প্রমুখ।

এসপিএল-২০২১


শাহজাদপুর প্রিমিয়ার লীগের খেলোয়ার নিলাম অনুষ্ঠিত

শাহজাদপুর প্রিমিয়ার লীগ (এসপিএল) ২০২১ সালের ক্রিকেট আসরের খেলোয়ারদের নিলাম অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার বিকেলে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলা পরিষদ শহিদ স্মৃতি সম্মেলন কক্ষে এ নিলামের আয়োজন করা হয়।

উপজেলা ক্রিকেটার্স এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মারুফ হোসেন সুনামের সভাপতিত্বে
শাহজাদপুর প্রিমিয়ার লীগ (এসপিএল) এর ক্রিকেট খেলোয়ার নিলাম অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শাহজাদপুর পৌরসভার নবনির্বাচিত মেয়র মনির আক্তার খান তরু লোদী।

বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী, আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শামসুল আলম প্রমুখ।

শাহজাদপুরে গুধিবাড়ী প্রিমিয়ার লীগ টি-২০ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল অনুষ্ঠিত

শাহজাদপুরের কৈজুরী ইউনিয়নে গুধিবাড়ী প্রিমিয়ার লীগ টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অননুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার(৫ ফেব্রুয়ারী) বিকেলে গুধিবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে এক জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে সুপার লায়ন কিং ক্লাব বনাম বন্ধু ক্লাব ফাইনাল খেলায় অংশগ্রহণ করে।

৮১ রানের টার্গেট নিয়ে বন্ধু ক্লাবের বিপক্ষে খেলে সুপার লায়ন কিং ক্লাব বিজয়ী হয়। পরে আয়োজন কমিটির সভাপতি ইউনুস আলীর পরিচালনায় বিজয়ী ও রানার্সআপ এ দুই দলের অধিনায়কদের হাতে পুরুস্কার তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য লায়ন মোঃ নুর হোসেন সৈকত।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন, প্রেসক্লাব শাহজাদপুরের সাধারণ সম্পাদক ও এশিয়ান টিভির প্রতিনিধি মোঃ ওমর ফারুক, আওয়ামীলীগ নেতা নুর ইসলাম, জুবায়ের হোসেন সহ অন্যান্যরা।