শাহজাদপুর উপজেলা বিএনপি’র সেক্রেটারি হিরুর জামিনে মুক্তি

মো: আল আমিন হোসেন : প্রায় ২ মাস কারাভোগের পর আজ বুধবার শাহজাদপুর উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন হিরু জামিনে মুক্তি লাভ করেছেন। গতকাল মঙ্গলবার সিরাজগঞ্জ জেলা জজ কোর্টে ইকবাল হোসেন হিরুর আইনজীবী জামিনের আবেদন করলে শুনানী শেষে মাননীয় জজকোর্ট তার জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন। জামিনের কাগজপত্র সিরাজগঞ্জ জেলা কারাগারে প্রেরণ করলে কারা কর্তৃপক্ষ সকল প্রক্রিয়া শেষে আজ বুধবার সিরাজগঞ্জ জেলা কারাগার থেকে তাকে মুক্তি দেয়। জানা গেছে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে গত ১১ ডিসেম্বর ৬৭ সিরাজগঞ্জ-৬ শাহজাদপুর আসনের বিএনপি মনোনিত প্রার্থী প্রফেসর ড. এমএ মুহিতের শ্রীফলতলাস্থ বাসভবন থেকে শাহজাদপুর থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শাহজাদপুরবাসীর শাহজাদপুর আসনে নৌকার এই অবিস্মরণীয় ও গৌরবজ্জ্বল বিজয়ের দিকে বিবেচনা করে আরেকটি প্রাণের দাবীর কথা সুবিবেচনা করে আবারও বর্তমান সরকারের মন্ত্রীসভায় শাহজাদপুরের প্রাণপুরুষ হাসিবুর রহমান স্বপনকে স্থান দেবেন বলে শাহজাদপুরবাসীর বিশ্বাস


প্রধানমন্ত্রী সমীপে এমপি স্বপনকে মন্ত্রীত্ব দেবার দাবি শাহজাদপুরবাসীর!

শামছুর রহমান শিশির, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) থেকে : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে বিজয়ের পরে গতকাল শনিবার শাহজাদপুর সরকারি মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ১০ সহ¯্রাধিক জনতার উপস্থিতিতে দেয়া গণসংবর্ধনায় ভালবাসায় সিক্ত হলেন সংবর্ধিত নেতা শাহজাদপুরের মাটি ও গণমানুষের নেতা স্থানীয় এমপি বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন। প্রিয় এ নেতাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানালেন দলীয় নেতাকর্মীসহ শাহজাদপুরের সর্বস্তরের সাধারণ মানুষ ও স্থানীয় সকল পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। ওই গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, সফল রাষ্ট্রনায়ক, দেশরতœ শেখ হাসিনা সমীপে দলীয় নেতাকর্মীসহ শাহজাদপুরের হাজার হাজার আমজনতার মুখে আরেকটি দাবী পূরণের জন্য জোরালো ভাবে তাদের কন্ঠে উত্থাপিত হয়েছে । গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানের সকল বক্তাদের দেয়া বক্তব্যে ও শাহজাদপুরের সর্বস্তরের মানুষের দেয়া ভাষ্যমতে, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা শাহজাদপুরবাসীর দাবীর প্রেক্ষিতে শাহজাদপুরে এসে শাহজাদপুরে আন্তর্জাতিক মানের রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করে শাহজাদপুরবাসীকে দেয়া তাঁর ওয়াদা পূরণ করেছেন। রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে শাহজাদপুরের মাটি ও মানুষের বলিষ্ঠ কন্ঠস্বর, আওয়ামী লীগের সাবেক শিল্প-উপমন্ত্রী, বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন শাহজাদপুরবাসীর পক্ষ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে আশ্বস্ত করে বলেছিলেন, যেহেতু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শাহজাদপুরাসীকে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় দিয়েছেন, সেহেতু; শাহজাদপুরের এ আসনটিও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ভবিষ্যতে সকল নির্বাচনে উপহার দেবে শাহজাদপুরবাসী। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনসহ শাহজাদপুরে অনুষ্ঠিত সকল নির্বাচনে কৃতজ্ঞ শাহজাদপুরবাসী মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে দেয়া ওয়াদা কেবল রক্ষাই করেননি! এবারের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাজশাহী বিভাগের সকল সংসদীয় আসনের মধ্যে সর্বাধিক ভোট দিয়ে অর্থাৎ শাহজাদপুর সংসদীয় আসনের প্রার্থী জননেতা হাসিবুর রহমান স্বপনকে নৌকা প্রতীকে ৩ লাখ ৩৫ হাজার ৬’শ ৯৭ ভোট দিয়ে প্রথম এবং সারা দেশের মধ্যে আওয়ামী লীগের নির্বাচিত ২’শ ৪২ টি সংসদীয় আসনের মধ্যে ৪র্থ স্থান অর্জন করিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে দেয়া ওয়াদার ষোলকলাই পূর্ণ করেছেন। বিগত সময়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা শাহজাদপুরবাসীর প্রিয় নেতা হাসিবুর রহমান স্বপনের যোগ্য নেতৃত্বের কারণে যেমন আওয়ামী লীগ সরকারের শিল্প-উপমন্ত্রী পদে আসীন করেছিলেন, ঠিক তেমনি শাহজাদপুর আসনে নৌকার এই অবিস্মরণীয় ও গৌরবজ্জ্বল বিজয়ের দিকে বিবেচনা করে, শাহজাদপুরের কৃতজ্ঞ ভোটারদের আরেকটি প্রাণের দাবীর কথা সুবিবেচনা করে আবারও বর্তমান সরকারের মন্ত্রীসভায় শাহজাদপুরের প্রাণপুরুষ হাসিবুর রহমান স্বপনকে স্থান দেবেন বলে শাহজাদপুরের সর্বস্তরের আমজনতা মনে প্রাণে বিশ্বাস করে।’ ওই গণসংবর্ধনা শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে জনতার মন মাতিয়ে নাচালেন নগর বাউল জেমস্।
একাদশ সংসদে নির্বাচিত ও তৃতীয় বারের মতো এমপি হিসেবে শপথ নেয়ায় শাহজাদপুরের গণমানুষের নেতা বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপনকে শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে শাহজাদপুরের ঐতিহ্যবাহী সরকারি মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে বিশাল গণসংবর্ধনা প্রদান করা হয়। এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে শাহজাদপুরের সকল প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে ছুটে আসা হাজার হাজার মানুষের ঢল নামে। ফুলেল ভালবাসা প্রদান করে তারা ভালোবাসায় সিক্ত করেন তাদের প্রিয় এই নেতাকে। মাঠ উপচে কানায় কানায় পরিপূর্ণ হলে স্কুলের ছাদে ও গাছের ডালে আসন করে নেয় আগত জনতা। ওই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন স্থানীয় উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শফিকুর রহমান শফি। এতে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা প্রফেসর আজাদ রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও উপজেলা কমিটির আইন বিষয়ক সম্পাদক, মিল্কভিটার ভাইস চেয়ারম্যান জননেতা এ্যাড. শেখ আব্দুল হামিদ লাবলু, পৌরসভার মেয়র (দাঃ প্রাঃ) নাসির উদ্দিন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুস্তাক আহমেদ, আ.লীগ নেতা ও সাবেক পৌর মেয়র নজরুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রফিকুল ইসলাম বাবলা, যুগ্ম- সাধারণ সম্পাদক কৈজুরী ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম, কৃষকলীগ নেতা আব্দুল মান্নান ব্যাপারী, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ফারুক সরকার, আ.লীগ নেতা শামসুল আলম, প্রগতি সংঘের সভাপতি এনামুল হাসান মোজমাল, কেএম নাসির উদ্দিন, হাবিবুল হক সাব্বির, যুবলীগ সেক্রেটারি মামুনার রশিদ লিয়াকত, যুবলীগ নেতা আশিকুল হক দিনার, সাবেক ছাত্রনেতা মাহবুবে ওয়াহিদ শেখ কাজল, ইসলাম শেখ, সবুজ বিপ্লবের উদ্যোক্তা কামরুল হাসান হিরোক, ছাত্রলীগ সভাপতি মারুফ হাসান সুনাম, সেক্রেটারি শেখ মোহাম্মদ রাসেলসহ ১৩ টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানবৃন্দ, বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। গণসংবর্ধনা সভায় এমপি হাসিবুর রহমান স্বপন বলেন, ‘আমার এ বিজয় জননেত্রী শেখ হাসিনা’র বিজয়। রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ঘোষণার সময় জননেত্রীকে শাহজাদপুরবাসী কথা দিয়েছিলেন এ আসন তাকে উপহার দেয়া হবে, কৃতজ্ঞ শাহজাদপুরবাসী তাই করেছেন এবং ভবিষ্যতেও করবেন।’ গণসংবর্ধনা শেষে মনোজ্ঞ এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এতে মন মাতানো সঙ্গীত পরিবেশন করেন বাংলাদেশের খ্যাতনামা ব্যান্ড তারকা নগর বাউল জেমসসহ অন্যান্য শিল্পীবৃন্দ।

যুবসমাজের উন্নত কর্মসংস্থান সৃষ্টির দাবী


নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনকে ড. সাজ্জাদ হায়দারের শুভেচ্ছা

শামছুর রহমান শিশির, শুক্রবার, ১১ জানুয়ারি- ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ : গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের নবনিযুক্ত পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানালেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড কাউন্সিলের প্রধান উপদেষ্টা ও রাশিয়া বাংলাদেশ মৈত্রী সমিতির সেক্রেটারি তরুণ জননেতা ড. সাজ্জাদ হায়দার! গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে পররাষ্ট্র মন্ত্রীর দফতরে গিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনকে শুভেচ্ছা জানান ড. সাজ্জাদ হায়দার । এ সময় সেখানে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহরিয়ার আলম ও পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক উপস্থিত ছিলেন। শুভেচ্ছা বিনিময়কালে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. সাজ্জাদ হায়দার নবাগত পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনকে বলেন, ‘গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনার মতো সুযোগ্য ও অভিজ্ঞ ব্যাক্তিকেই পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব দিয়েছেন। কারণ, আপনি দীর্ঘ সময়ে জাতিসংঘের স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে সফলতার সাথে কাজ করেছেন। আপনার মতো যোগ্য ও অভিজ্ঞ ব্যাক্তিকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে পেয়ে দেশবাসী খুশি । আপনি জানেন যে, এবারের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মোট ১০ কোটি ৪১ লাখ ভোটারের মধ্যে যেহেতু প্রায় ৩ কোটি ভোটার ছিলো যুবসমাজ তাই এবারের আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতিহারেও যুবসমাজের উন্নয়ন ও তাদের উন্নত কর্মসংস্থানের ওপর অধিক গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। দেশের বিশাল এ যুবসমাজকে কাজে লাগানো সম্ভব হলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক ঘোষিত ভিশন-২০২১ ও ভিশন- ২০৪১ বাস্তবায়িত হবে। এজন্য, বহুমূখী প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ও দেশ বিদেশে বিশেষ করে জাপান, কানাডা, আমেরিকাসহ ইউরোপের উন্নত দেশে যুবসমাজের উন্নত কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে আপনার বিশেষ সহযোগীতার প্রয়োজন বলে জানান ড. সাজ্জাদ ।
ফুলেল শুভেচ্ছা দেয়ায় ধন্যবাদ জানিয়ে বাংলাদেশ সরকারের নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের আন্তর্জাতিক সম্পাদক ড. সাজ্জাদ হায়দারকে বলেন, ‘আপনার সুচিন্তিত মতামত পেয়ে খুবই খুশি হয়েছি।’ এ সময় নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন,‘ যুবলীগের আন্তর্জাতিক সম্পাদক হিসেবে আপনি একজন সফল সংগঠক। কারণ, আমার জানামতে বিশ্বব্যাপী ৪০ টিরও বেশী দেশে যুবলীগের কমিটি রয়েছে যারা রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিকভাবে বিদেশ থেকে বাংলাদেশকে সহযোগীতা করছেন এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করছেন। যুবলীগের সেই বিদেশ কমিটির দেখভাল করছেন আপনি। সুতরাং, দেশে বিদেশে যুবসমাজের উন্নয়নের জন্য আমিও আপনার একান্ত সহযোগীতা কামনা করি। আমরা সবাই এক হয়ে কাজ করতে পারলে এবং আপনাদের মতো ডায়ানমিক ইয়ুথ লিডারের সহযোগীতা পেলে আমিও যুবসমাজের উন্নয়নে, সর্বোপরি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র নেতৃত্বে কাজ করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবো ইনশাআল্লাহ!’

শাহজাদপুর পৌর এলাকা ও ১৩ ইউনিয়ের চেয়ারম্যান ও আ.লীগ নেতাদের ধারনা, অনুমান নির্ভর উপরোক্ত সুচিন্তিত মতামতকে শতকরা হারে উপনীত করলে দেখা যায় সিরাজগঞ্জ- ৬ শাহজাদপুর আসনে অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন এমপি নৌকা প্রতীকে কাস্টিং ভোটের শতকরা ৮২.৭৮ ভাগ ভোট নৌকা বিজয়ী হবার সম্ভাবনার সৃষ্টি হয়েছে।


শাহজাদপুরে নৌকায় ৮২.৭৮ শতাংশ ভোট এমপি স্বপনের বিজয়ের সম্ভাবনা

শামছুর রহমান শিশির : আজ ৩০ ডিসেম্বর রোববার সিরাজগঞ্জ- ৬ শাহজাদপুর আসনে অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন এমপি কাস্টিং ভোটের শতকরা ৮২.৭৮ ভাগ ভোট নৌকা প্রতীকে পেয়ে বিজয়ী হবার সম্ভাবনার রয়েছে। আজ রোববার বেলা সাড়ে ৩টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত পৌরসভার দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়রসহ ১৩ টি ইউপি পরিষদ চেয়ারম্যান ও দায়িত্বশীল আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দকে স্ব-স্ব এলাকার ভোটকেন্দ্রে কাস্টিং ভোটের মধ্যে নৌকা শতকরা হারে কি পরিমান ভোট পেতে পারে? এ প্রতিবেদকের এমন প্রশ্নে তাদের দেয়া অনুমান নীর্ভর উত্তরের ওপর জরিপ চালিয়ে নৌকা প্রতীকে ৮২.৭৮ শতাংশ ভোট প্রাপ্তির সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। শাহজাদপুর পৌরসভার দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র নাসির উদ্দিন জানান, পৌর এলাকার প্রায় ৫২ হাজার ভোটারের ১৬ টি ভোটকেন্দ্রে ভোট দেয়ার কথা ছিলো। তবে ধারনা করছি পৌর এলাকায় কাস্টিং ভোটের শতকরা ৯০% ভোট নৌকায় পড়েছে। কায়েমপুর ইউপি চেয়ারম্যান হাসেবুল হক হাসান জানান, তার ইউনিয়ের ১১ ভোটকেন্দ্রে ৩৩ হাজার ১৯০ ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা থাকলেও ধারণা করা হচ্ছে কাস্টিং ভোটের শতকরা ৯৫% ভোট নৌকার ব্যালটে ভোটারগণ সিল মেরেছেন। নরিনা ইউপি চেয়ারম্যান ফজলুল হক মুন্ত্রি জানান, তার ইউনিয়ের ৬ টি ভোটকেন্দ্র ৫৮ শতাধিক ভোটাারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা থাকলেও ধারণা করা হচ্ছে কাস্টিং ভোটের শতকরা ৯০ % ভোট নৌকার ব্যালটে ভোটারগণ সিল মেরেছেন। পোরজনা ইউপি জাহিদুল ইসলাম মুকুল জানান, তার ইউনিয়ের ১৩ ভোটকেন্দ্রে ৪৩ হাজার ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা থাকলেও ধারণা করা হচ্ছে কাস্টিং ভোটের শতকরা ৯০ % ভোট নৌকায় পড়েছে। রূপবাটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ মৎস্যজীবী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধক্ষ্য সম্পাদক আবুল সরকার জানান, তার ইউনিয়ের ৮ টি ভোটকেন্দ্রে ২৯ হাজার ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা থাকলেও ধারণা করা হচ্ছে কাস্টিং ভোটের শতকরা ৮২% ভোট নৌকার ব্যালটে ভোটারগণ সিল মেরেছেন। পোতাজিয়ার সন্তান, কেন্দ্রীয় আওয়ামী যুবলীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক জননেতা ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন ও পোতাজিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের যুগ্ম -সাধারণ সম্পাদক। ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম জানান, তাদের পোতাজিয়া ইউনিয়ের ১০ ভোটকেন্দ্রে ৪৩ সহস্রাধিক ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা থাকলেও ধারণা করা হচ্ছে কাস্টিং ভোটের শতকরা ৮২% ভোট নৌকা প্রতীকে ভোটারগণ সিল মেরেছেন। জালালপুর ইউপি চেয়ারম্যান হাজী সুলতান মাহমুদ জানান, তার ইউনিয়ের ১৪ ভোটকেন্দ্রে ১৪ সহস্রাধিক ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা থাকলেও ধারণা করা হচ্ছে কাস্টিং ভোটের শতকরা ৮০% ভোট নৌকার ব্যালটে ভোটারগণ সিল মেরেছেন। গালা ইউপি চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বাতেন জানান, তার ইউনিয়ের ১১ ভোটকেন্দ্রে ৩৪ হাজার ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা থাকলেও ধারণা করা হচ্ছে কাস্টিং ভোটের শতকরা ৮০% ভোট নৌকার ব্যালটে ভোটারগণ সিল মেরেছেন। বেলতৈল ইউনিয়ন আ.লীগের সেক্রেটারি লোটাস ও ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি বিদ্যুত জানান, তাদের ইউনিয়ের ৮ ভোটকেন্দ্রে ৩৫ হাজার ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা থাকলেও ধারণা করা হচ্ছে কাস্টিং ভোটের শতকরা ৭০ % ভোট নৌকায় পড়েছে। কৈজুরী ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম জানান, তার ইউনিয়ের ৮টি ভোটকেন্দ্রে ২৬ হাজার ৮৩০ ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা থাকলেও ধারণা করা হচ্ছে কাস্টিং ভোটের শতকরা ৮০% ভোট নৌকায় পড়েছে। হাবিবুল্লাহনগর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর মজিদ সরকার জানান, তার ইউনিয়ের ৯ভোটকেন্দ্রে ২৬ হাজার ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা থাকলেও ধারণা করা হচ্ছে কাস্টিং ভোটের শতকরা ৭৮% ভোট নৌকায় পড়েছে। গাড়াদহ ইউনিয়ন আ লীগ সভাপতি সেলিম আক্তার বলেন, গাড়াদহ ইউনিয়ের ৭টি ভোটকেন্দ্রে ১৮ হাজার ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা থাকলেও ধারণা করা হচ্ছে কাস্টিং ভোটের শতকরা ৮০ % ভোট নৌকায় পড়েছে। সোনাতুনী ইউপি চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান জানান, তার ইউনিয়ের ৭টি ভোটকেন্দ্রে ১৭ হাজার ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা থাকলেও ধারণা করা হচ্ছে কাস্টিং ভোটের শতকরা ৮২ % ভোট নৌকায় পড়েছে। খুকনী ইউপি চেয়ারম্যান মুল্লুক চাঁদ জানান, তার ইউনিয়ের ১২ ভোটকেন্দ্রে ৩৯ হাজার ৩৬ জন ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা থাকলেও ধারণা করা হচ্ছে কাস্টিং ভোটের শতকরা ৮২.৭৮ % ভোট নৌকায় পড়েছে। শাহজাদপুর পৌর এলাকা ও ১৩ ইউনিয়ের চেয়ারম্যান ও আ.লীগ নেতাদের ধারনা, অনুমান নির্ভর উপরোক্ত সুচিন্তিত মতামতকে শতকরা হারে উপনীত করলে দেখা যায় সিরাজগঞ্জ- ৬ শাহজাদপুর আসনে অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন এমপি নৌকা প্রতীকে কাস্টিং ভোটের শতকরা ৮২.৭৮ ভাগ ভোট নৌকা বিজয়ী হবার সম্ভাবনার সৃষ্টি হয়েছে।

ভেঙ্গে পড়া নেতৃত্ব ও ধানের শীষের নতুন প্রার্থীতায় এক সময়ে বিএনপির দূর্গ হিসেবে পরিচিত শাহজাদপুর বর্তমানে নৌকার ঘাঁটিতে পরিণত হয়েছে- রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতামত


শাহজাদপুরে নৌকার প্রার্থী হাসিবুর রহমান স্বপন এমপি’র পক্ষে গণজোয়ার!

বিশেষ প্রতিবেদক : পরশু দিন রোববার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে সিরাজগঞ্জ -৬ শাহজাদপুর সংসদীয় আসনে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্পন্ন করতে সকল প্রস্তুতি ইতিমধ্যেই সম্পন্ন করা হয়েছে। শান্তিপূর্ণভাবে ও উৎসবমূখর পরিবেশের মধ্যে রোববার শাহজাদপুরের সকল ভোটকেন্দ্রে ভোটারগণ যেনো নির্বিঘেœ ভোট দিতে পারেন সেজন্য আইন শৃংখ্যলা বাহিনীর সদস্যরা সার্বিক নিরাপত্বা ব্যবস্থা জোরদার ও পুরো নির্বাচনী এলাকা সার্বক্ষণিক মনিটরিং করছেন বলে শাহজাদপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ খাজা গোলাম কিবরিয়া জানিয়েছেন। আজ শুক্রবার সকাল ৮ টা থেকে সকল রাজনৈতিক দলের প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রচার প্রচারণা বন্ধ ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। এবারের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য, আ’লীগের সাবেক শিল্প-উপমন্ত্রী, উপজেলা আ.লীগের সভাপতি, শাহজাদপুরের মাটি ও মানুষের প্রিয় নেতা, জননেতা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন । অন্যদিকে, নৌকা প্রতীকের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী হলেন সাবেক উপ-প্রধানমন্ত্রী প্রয়াড ড. এমএ মতিনের ছেলে প্রফেসর ড. এমএ মুহিত। ভোট গ্রহণের সময় যতই ঘনিয়ে আসছে, শাহজাদপুর নির্বাচনী এলাকার ভোটারদের মধ্যে ততই উৎসাহ উদ্দীপনা ও হিসাব নিকাশ জোরালো হচ্ছে।
‘আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন এমপি, বাঙালি সাংস্কৃতিক জোট ও স্বাধীনতা সাংস্কৃতিক পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি, সাবেক এমপি জননেতা চয়ন ইসলাম, মিল্কভিটার ভাইস চেয়ারম্যান, স্পেশাল পিপি (নারী ও শিশু), জেলা ও উপজেলা আ.লীগ নেতা জননেতা এ্যাড. শেখ মোঃ আব্দুল হামিদ লাবলু ও বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক, বাংলাদেশ ডেইরি কাউন্সিলের মেম্বর, বাংলাদেশ শান্তি পরিষদের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড কাউন্সিলের প্রধান উপদেষ্টা , রাশিয়া-বাংলাদেশ মৈত্রী সমিতির সেক্রেটারি তরুণ জননেতা ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন এ ৪ হেভিওয়েট নেতা নৌকা প্রতীকের বিজয়ের প্রশ্নে মুক্তিযুদ্ধে পক্ষের শক্তিসহ দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকদের নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচনী মাঠে ঝাঁপিয়ে পড়ায় এবং শাহজাদপুর নির্বাচনী এলাকার সর্বস্তরের জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, পৌরসভার মেয়র, ১৩ টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ দলীয় হওয়ায় এবং বিশেষত শাহজাদপুর উপজেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি, সাবেক পৌরমেয়র নজরুল ইসলাম, পৌর বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক কেএম হাবিবুল হক সাব্বিরসহ শত শত হাজার হাজার বিএনপি’র সর্বস্তরের নেতাকর্মী ও সমর্থকেরা আওয়ামী লীগে যোগদান করায় শাহজাদপুরে নৌকার পালে জোরালো হাওয়া লেগেছে। অপরদিকে, উপজেলা বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের বেশ কয়েকজন নেতা আওয়ামী লীগে যোগদান করায় ও উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন হিরু, সহ-সভাপতি আরিফুজ্জামান আরিফ কারাবন্দী থাকায় ও শাহজাদপুরে বিএনপির সাবেক এমপি কামরুদ্দিন এহিয়া খান মজলিস সারোয়ার ও শাহজাদপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি হুসেইন শহীদ মাহমুদ গ্যাদনের কর্মী সমর্থকদের নির্বাচনী এলাকা শাহজাদপুরে নির্বাচনকালীন সময়ে উল্লেখযোগ্য উপস্থিতির অভাবে এবারের নির্বাচনে চরম বেকায়দায় পড়েছেন ধানের শীষের প্রার্থীসহ স্থানীয় বিএনপির নেতাকর্মী ও সমর্থকেরা। এছাড়া, ধানের শীষ প্রতীকের নতুন প্রার্থী প্রফেসর ড. এমএ মুহিতের এলাকায় গণসম্পৃক্ততা একেবারেই কম থাকায় নির্বাচনে ধানের শীষ একেবাইে সুবিধা নাও পেতে পারেন । ফলে সবদিক বিবেচনায় শাহজাদপুরে নৌকার পালে জোরেশোরে হাওয়া লেগেছে ও নৌকার প্রার্থী আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন এমপির পক্ষে গণজোয়ারের সৃষ্টি হয়েছে বলে বিজ্ঞ রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা অভিমত ব্যাক্ত করেছেন।’
তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, গত কয়েক বছর ধরে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে শাহজাদপুরের ঘরে ঘরে দূর্ভেদ্য মুজিবীয় প্রাচীর তৈরি করেছেন ও নৌকার ভোট ব্যাংক বৃদ্ধি করেছেন, নৌকার প্রার্থী জননেতা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন এমপি, সাবেক এমপি জননেতা চয়ন ইসলাম, মিল্কভিটার ভাইস চেয়ারম্যান, জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা, বিশেষ পিপি (নারী ও শিশু) জননেতা এ্যাড. শেখ মোঃ আব্দুল হামিদ লাবলু ও বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক জননেতা ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন। তারা বিভিন্ন সময়ে প্রান্তিক পর্যায়ের জনগণের দ্বোর গোড়ায় গিয়ে প্রধানমন্ত্রী, জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের আমলে সারাদেশসহ শাহজাদপুরে পদ্মা সেতু নির্মাণ, বঙ্গবন্ধু -১ স্যাটেলাইট স্থাপন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যার বিচার, যুদ্ধাপরাধী ও রাজাকারদের বিচারকার্য সম্পন্ন, বিশ্বে পোশাক রফতানীতে ২য় স্থান অর্জন, বছরের প্রথম দিনে বিনামূল্যে ১ কোটি শিক্ষার্থীর হাতে বই বিতরণ, কমিউনিটি ক্লিনিক চালু করে গ্রামীণ পর্যায়ে স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতকরণ, জঙ্গি দমন, বয়ষ্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতাসহ বহু ধরণের ভাতা চালু, রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দান ও পূর্ণবাসন, শাহজাদপুরে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়,বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা, ৩টি কোর্ট চালু, অনার্স কোর্স চালু, জেলার একমাত্র টেকনিক্যাল কলেজ প্রতিষ্ঠা, যমুনা নদী ভাঙ্গণ স্থায়ীভাবে রোধে ১ হাজার কোটি টাকা ব্যায়ে চলমান বাঁধ, সড়ক, স্লুইচগেট নির্মাণ কাজ, নির্বাচনী এলাকায় ঘরে ঘরে বিদ্যুত পৌঁছানো, বাঘাবাড়ী নৌ-বন্দরকে ২য় শ্রেণি থেকে ১ম শ্রেণিতে উন্নীতকরণ, ৪ নং নৌ-বন্দর ফায়ার স্টেশান স্থাপন, কৃষি, শাহজাদপুর- এনায়েতপুর, শাহজাদপুর- কৈজুরী, শাহজাদপুর- জামিরতা, শাহজাদপুর- রূপবাটি – করশালিকা পর্যন্ত গ্রামীণ সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা আধুনিকায়ন, স্কুল কলেজ ও মাদরাসার ভৌত ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন, যোগাযোগসহ বিভিন্ন খাতের বহুমূখী উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরতে সক্ষম হওয়ায় এক সময়ের বিএনপির ঘাাঁটি হিসেবে পরিচিত শাহজাদপুর আসন নৌকার ঘাঁটিতে পরিণত হয়েছে।
এসব বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন এমপি বলেন, ‘স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ের চাইতেও গত ১০ বছরে জননেত্রী শেখ হাসিনার শাষণামলে শাহজাদপুরে বড় ধরনের উন্নয়নমূলক কাজ হয়েছে ও চলমান রয়েছে। আমরা শাহজাদপুরের সকল পর্যায়ের জনপ্রতিনিধি, সরকার ও প্রশাসনকে সাথে নিয়ে আওয়ামী লীগ দলীয় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান, পৌরমেয়র, ১৩ ইউনিয়নের চেয়ারম্যানসহ দলীয় নেতাকর্মীদের ইস্পাত দৃঢ় ঐক্যবদ্ধতায় সম্মিলিতভাবে আগামীতেও নৌকার বিজয় নিশ্চিত করে সোনার শাহজাদপুর গড়তে বদ্ধপরিকর। সারাদেশ তথা শাহজাদপুরে সরকার কর্তৃক গৃহিত বিভিন্ন মেগা প্রকল্প কাজ চলমান রাখতে ও শাহজাদপুরকে সোনার শাহজাদপুর হিসেবে গড়তে তুলতে শাহজাদপুরের আপামর জনগণ ৩০ তারিখের নির্বাচনে সারাদিন আবারও নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে নৌকার অভূতপূর্ব বিজয় আনবেন বলে আমি আশাবাদী।’

‘শাহজাদপুরে উন্নয়ণের ছোঁয়া ধরে রাখতে স্বপন ভাইকে নৌকায় ভোট দিন’- এসএ হামিদ লাবলু


‘ক্ষেত পরিচর্যা করেছি, আগাছা তুলে ফসল বুঁনেছি; ৩০ তারিখে ঘরে তুলবো’- জননেতা এসএ হামিদ লাবলু

শামছুর রহমান শিশির, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, শুক্রবার, ২৮ ডিসেম্বর -২০১৮ খ্রিষ্টাব্দ : নির্বাচনী প্রচারণার সময়সীমা আজ শুক্রবার সকালে অতিক্রান্ত হয়েছে। সিরাজগঞ্জ-৬ শাহজাদপুর আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী, সাবেক শিল্প-উপমন্ত্রী, বীরমুক্তিযোদ্ধা, জননেতা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন এমপিকে ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে বিপুল ভোটে বিজয়ী করতে, জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে, শাহজাদপুরে চলমান অভূতপূর্ব উন্নয়নের ছোঁয়া ধরে রাখতে গত কয়েক দিন ধরে দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকদের সাথে নিয়ে দিন-রাত শাহজাদপুর পৌর এলাকাসহ ১৩ টি ইউনিয়ন ও প্রায় ৩ শতাধিক গ্রামে, ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে, অলিতে গলিতে, শাহজাদপুরের এ প্রান্ত থেকে ওই প্রান্তে, তৃণমূলের ঘরে ঘরে ছুঁটে নৌকার ভোট চেয়েছেন শাহজাদপুরের তৈজদীপ্ত জননন্দিত, ত্যাগী রাজনীতিবিদ, বরেণ্য আইনজীবী, জাতীয়ভাবে পুরষ্কারপ্রাপ্ত দেশ সেরা সমবায়ী, সফল সংগঠক, বাংলাদেশ মিল্কভিটার ভাইস চেয়ারম্যান, সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম সদস্য ও শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক, স্পেশাল পিপি (নারী ও শিশু), আওয়ামী লীগের চরম দুর্দিনের কান্ডারি, শাহজাদপুরের গণমানুষের নেতা এ্যাড. শেখ মোঃ আব্দুল হামিদ লাবলু। কুয়াশাচ্ছন্ন ভোর বেলা থেকে গভীর রাত অবধি উপজেলার বিভিন্ন স্থানে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করতে অনুষ্ঠিত নির্বাচনী জনসভা, পথসভা, হাটে বাজারে ছুঁটে চলে, ডোর- টু- ডোর নীতিতে তৃণমূলের ভোটারদের কাছে গিয়ে নৌকার ভোট চেয়েছেন তিনি। নৌকায় কেনো ভোট দিতে হবে ?- এ প্রশ্নের উত্তরে জননেতা এ্যাড. শেখ আব্দুল হামিদ লাবলু ভোটারদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করার লক্ষ্যে, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ‘সোনার বাংলা’ গড়তে, দেশ ও বাঙালি জাতিকে বিশ্ব দরবারে মাথা উচু করে দাঁড় করাতে, প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকার বহুমূখী মেগা প্রকল্প ধাপে ধাপে বাস্তবায়ন করছে। নৌকায় ভোট দিলে দেশের উন্নয়ন হয়, মানুষের কল্যাণ হয়, শাহজাদপুরের উন্নয়ন হয়। জননেত্রী শেখ হাসিনা’র সুনজরে শাহজাদপুরে বিশ্বমানের ‘রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়,বাংলাদেশ’ চালু, টেকনিক্যাল কলেজ স্থাপন, উপজেলা পর্যায়ে যুগ্ম- জেলা দায়রা জজ আদালতসহ ৩ টি কোর্ট চালু, ৩টি হাসপাতাল, ১০ বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু, পাইলট হাইস্কুল সরকারি, স্কুল, কলেজ, মাদরাসার ভৌত ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন, শাহজাদপুর পৌর এলাকার সাথে ১৩টি ইউনিয়নের গ্রামীণ সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে সাব-মার্সিবল ও পাকা সড়ক নির্মাণ, বিনে পয়সায় শত শত যুবকের কর্মসংস্থান, যমুনা নদী তীর সংরক্ষণ প্রকল্প বাস্তবায়ন, যমুনার ভাঙ্গণ স্থায়ী রোধে ১ হাজার কোটি টাকা ব্যায়ে চলমান বাঁধ, সড়ক, স্লুইচগেট নির্মাণ, ৪র্থ নদীবন্দর ফায়ার স্টেশান চালুসহ মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ, অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের বাড়ি নির্মাণ, ৩ টি ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবণ নির্মাণ, শতাধিক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণ, সেতু নির্মাণ, প্রায় অর্ধশত নতুন সড়ক নির্মাণ, বিদ্যুৎ খাতে আবাসিক-অনাবাসিক, বাণিজ্যিক, সেঁচ, ক্ষুদ্র শিল্প, বৃহৎ শিল্পসহ বিভিন্ন খাতে হাজার হাজার বৈদ্যুতিক নতুন সংযোগ প্রদান করে শাহজাদপুরে শতভাগ বিদ্যুতায়নের আওয়াভূক্তকরণ, শত শত কিলোমিটার নতুন লাইন নির্মাণ, ৩৩/১১ কেভি ১০ এমভিএ নতুন বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র স্থাপনসহ কৃষি, বস্ত্র, আবাসন, শিক্ষা, চিকিৎসা, যোগাযোগ, বিদ্যুৎ খাতে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে। জননেত্রী ১০ বছরে শাহজাদপুরের মানুষকে যা দিয়েছেন, স্বাধীনতার দীর্ঘ সময়েও আমরা তা পাইনি। এ জন্য আমরা শাহজাদপুরবাসী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে ঋণী ও চিরকৃতজ্ঞ। এ ঋণের দায়বদ্ধতায় ও সারাদেশসহ শাহজাদপুরের অভূতপূর্ব উন্নয়নের ছোঁয়া ধরে রাখতে ৩০ ডিসেম্বর স্থানীয় এমপি, বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন ভাইকে বিজয়ী করতে আমরা নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন প্রত্যাশী সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে, সম্মিলিতভাবে নৌকার বিজয় নিশ্চিতে দিনরাত অবিরাম কাছ করেছি। নৌকার ভোট ব্যাংক বৃদ্ধিতে বছরের পর বছর শাহজাদপুর যুবলীগের বলিষ্ঠ কন্ঠস্বর, সৎ আদর্শ চরিত্রের অধিকারী রাজীব শেখসহ এলাকার এক ঝাঁক তরুণ যুবসমাজকে সাথে নিয়ে শাহজাদপুরের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে ছুঁটে বেড়িয়েছি, ক্ষেতের পরিচর্যা করেছি, আগাছা তুলেছি, ফসল বুঁনেছিঁ, সার দিয়েছি। বাকি ছিলো শুধু নিড়ানি দেয়া, সেটাও দিলাম। ৩০ তারিখে ক্ষেতের ফসল কেটে ঘরে তুলবো ইনশাল্লাহ।’

শাহজাদপুরে নৌকার প্রার্থীকে জয়ী করতে ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটনের অবিরাম ছুঁটেচলা

শামছুর রহমান শিশির, শুক্রবার, ২৮ ডিসেম্বর -২০১৮ খ্রিষ্টাব্দ : আজ শুক্রবার সকাল ৮ টায় সকল রাজনৈতিক দলের প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রচার প্রচারণার সময়সীমা শেষ হয়েছে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন প্রদানের পর থেকে গত ২২ দিনে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে সিরাজগঞ্জ-৬ শাহজাদপুর আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সাবেক শিল্প-উপমন্ত্রী জননেতা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপনকে বিজয়ী করতে অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক, বাংলাদেশ ডেইরি কাউন্সিলের মেম্বর, বাংলাদেশ শান্তি পরিষদের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড কাউন্সিলের প্রধান উপদেষ্টা , রাশিয়া-বাংলাদেশ মৈত্রী সমিতির সেক্রেটারি, বাংলাদেশ- ভারত মৈত্রী সমিতির নির্বাহী সদস্য, বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির ভাইস চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ ডেইরি কাউন্সিলের মেম্বার ও মিল্কভিটা’র সাবেক পরিচালক, শাহজাদপুরের গর্বিত সন্তান, তরুণ জননেতা ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন। ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন এ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে নৌকা প্রতীকে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ৪ জন নেতার মধ্যে একজন। গত ২২ দিনে ড. লিটন নেতাকর্মী ও সমর্থকদের সাথে নিয়ে দিনে রাতে সমান তালে শাহজাদপুর পৌর এলাকাসহ উপজেলার কায়েমপুর ইউনিয়ন, খুকনী ইউনিয়ন, গালা ইউনিয়ন, রূপবাটি ইউনিয়ন, হাবিবুল্লাহনগর ইউনিয়ন, গাড়াদহ ইউনিয়ন, নরিনা ইউনিয়ন ও জন্মভূমি পোতাজিয়া ইউনিয়নে অনুষ্ঠিত নির্বাচনী জনসভা, পথসভাসহ নির্বাচনী প্রচার প্রচারণায় নিজেকে সম্পৃক্ত রেখে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে তৃণমূল ভোটারদের কাছে নৌকা প্রতীকে ভোট চেয়েছেন। ভোটারদের নিকট ভূয়সী প্রসংশীত হয়েছেন। এ আসনের আওয়ামী লীগের সমর্থকসহ নির্দলীয় বেশ কয়েকজন ভোটারদের সাথে নির্বাচনী প্রচার প্রচারণায় স্থানীয় নেতৃবৃন্দের ভূমিকা নিয়ে আলাপকালে তারা এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, ‘ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন নিজেও এবারের নির্বাচনে এ আসনে নৌকা প্রতীকে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশা করেছিলেন। তিনি সাম্ভাব্য নৌকার প্রার্থী হিসেবে শাহজাদপুরের বিভিন্ন স্থানে ইতিপূর্বেও সভা সমাবেশ করেছেন, সরকারের উন্নয়নের প্রচারপত্র বিলি করেছেন, নেতৃবৃন্দ ও এলাকাবাসীর সাথে মতবিনিময় করেছেন এবং নৌকার সাম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে নৌকা প্রতীকে ভোট চেয়েছেন। নিজে একজন সাম্ভাব্য এমপি ক্যানডিডেট হওয়া সত্বেও এবং দলীয় মনোনয়ন না পেয়েও সুশিক্ষিত ও ক্লীন ইমেজের অধিকারী এই নেতা শাহজাদপুর আসনে নৌকা প্রতীকে মনোনীত প্রার্থী বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন এমপির পক্ষে স্বতস্ফূর্তভাবে নৌকায় ভোট চেয়েছেন ও সরকারের উন্নয়নের ব্যাপক প্রচারণা চালিয়েছেন। সব প্রার্থীই তো আর নৌকা প্রতীকে মনোনায়ন পান না, পান একজন প্রার্থী। কিন্তু তার পরেও নৌকার বিজয়ের প্রশ্নে, শাহজাদপুরের উন্নয়নের প্রশ্নে, দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষার প্রশ্নে, জননেত্রী শেখ হাসিনাকে আবারও রাষ্ট্রক্ষমতায় বসানোর প্রশ্নে ব্যক্তিস্বার্থ ভূলে নৌকার প্রার্থী জননেতা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন এমপি, সাবেক এমপি জননেতা চয়ন ইসলাম ও মিল্কভিটার ভাই চেয়রম্যান, স্পেশাল পিপি (নারী ও শিশু) জেলা ও উপজেলা আ.লীগ নেতা জননেতা এ্যাড. শেখ মোঃ আব্দুল হামিদ লাবলুর সাথে একত্রে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে নৌকায় ভোট চাওয়ার নির্বাচনী কর্মকান্ডে অক্লান্ত যে পরিশ্রম করেছেন- তা সত্যই প্রশংসনীয়।’

‘ভোট প্রার্থনা নয়; ভোট আওয়ামী লীগের অধিকার’ -ভাইস চেয়ারম্যান মুস্তাক

শামছুর রহমান শিশির : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সিরাজগঞ্জ-০৬ (শাহজাদপুর) সংসদীয় এলাকার বিভিন্ন নির্বাচনী মাঠে গত ১৮ দিনে নৌকা প্রতীকের পক্ষে নির্বাচনী প্রচার প্রচারণা, পথসভা, সেমিনার ও জনসভায় অতিথির বক্তব্য প্রদানকালে শাহজাদপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান, শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, মানবাধিকার কর্মী ও শাহজাদপুর থেকে প্রকাশিত ‘সাপ্তাহিক প্রান্তিক সংবাদ’ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক মুস্তাক আহমেদ শাহজাদপুরের সাধারণ ভোটারদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, ‘ভোট প্রার্থনা নয়, নৌকা প্রতীকের ভোট আমাদের, আওয়ামী লীগের আধিকার। কেনো আপনারা নৌকা প্রতীকে ভোট দেবেন না? নৌকা প্রতীকের ভোট আমাদের হক। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কণ্যা, প্রধানমন্ত্রী, জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের শাষণামলে শাহজাদপুরের উন্নয়নের মাত্রা কেমন, তা আপনারা অবগত। জননেত্রী শেখ হাসিনা শাহজাদপুরের মতো একটা উপজেলায় রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ নামের আন্তর্জাতিকমানের একটি বিশ্ববিদ্যালয় দিয়েছেন। বাঘাবাড়ী নৌ-বন্দরকে ২য় শ্রেণি থেকে ১ম শ্রেণিতে উন্নীত, বাঘাবাড়ীতে দেশের ৪র্থ নদী বন্দর ফায়ার স্টেশান স্থাপন, পোতাজিয়ার ৩০ বেডের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ বেডে উন্নীত, ১০ সয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশু হাসপাতাল স্থাপন, ২০ সয্যাবিশিষ্ট আরও একটি আধুনিক মানের হাসপাতালের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন, গালায় আরও একটি হাসপাতাল স্থাপন, ১৭ কোটি টাকা ব্যায়ে পাড়কোলায় জেলার একমাত্র টেকনিক্যাল কলেজ প্রতিষ্ঠা, শাহজাদপুরকে শতভাগ বিদ্যুতায়নের অন্তর্ভূক্তি, শাহজাদপুর- এনায়েতপুর, শাহজাদপুর- কৈজুরী, শাহজাদপুর- নরিনা, শাহজাদপুর- কায়েমপুর, শাহজাদপুর-পোতাজিয়া, শাহজাদপুর- জামিরতা, শাহজাদপুর- রূপবাটি -করশালিকাসহ পৌর এলাকার সাথে ১৩ টি ইউনিয়নের সরাসরি সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা স্থাপন ও আধুনিকায়ন, ১ হাজার কোটি টাকা ব্যায়ে হাটপ্রাচীল থেকে বাঘাবাড়ী হয়ে নগরডালা করতোয়া সেতু পর্যন্ত বাধ, স্লুইচ গেট ও সড়ক নির্মাণের ব্যবস্থাগ্রহণ, উপজেলা পর্যায়ে ৩ টি আদালত চালু, অনার্স কোর্স চালুসহ বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, মাদরাসার ভৌত ও অবকাঠামোগত উন্নয়নসহ শাহজাদপুরের সকল খাতেই দেশরত্ন শেখ হাসিনার সরকারের শাষণামলে অর্থাৎ গত ১০ বছরে যে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে, সেই উন্নয়নের কারণেই আপনাদের মতো শাহজাদপুরের সকল ভোটারদের ওপর নৌকা প্রতীকে ভোট পাওয়ার অধিকার আমাদের, আওয়ামী লীগের জন্মেছে। তাই সেই অধিকারেই আপনাদের নিকট শাহজাদপুর আসনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী জননেতা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন এমপিকে ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে গণহারে নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে বিপুল ভোটের বিজয়ী করে আমাদের, আওয়ামী লীগের অধিকার বাস্তবায়ন ও সাফল্যমন্ডিত আপনারা করবেন বলে আমরা বিশ্বাস করি।

নির্বাচনী প্রচারণা শেষ


নানা হিসাব নিকাশ কষতে ব্যতিব্যাস্ত শাহজাদপুরের ভোটারগণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, শুক্রবার, ২৮ ডিসেম্বর -২০১৮ খ্রিষ্টাব্দ : সিরাজগঞ্জ -০৬ (শাহজাদপুর) সংসদীয় আসনের নির্বাচনী এলাকায় আজ শুক্রবার সকাল ৮ টায় বন্ধ হয়ে গেছে রাজনৈতিক দল ও প্রার্থীদের সব ধরনের নির্বাচনী প্রচার প্রচারণার কাজ। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে টানা ১৮ দিনের প্রচারণা শেষে নানা হিসাব নিকাশ কষতে শুরু করেছেন শাহজাদপুরের ভোটারগণ। গত কয়েক দিনে শাহজাদপুর পৌর এলাকাসহ ১৩টি ইউনিয়নের বিভিন্ন হাটবাজার, পাড়া, মহল্লায় অনুষ্ঠিত নির্বাচনী প্রচারণায় প্রার্থীরা সাধারণ ভোটারদের স্ব-স্ব দলীয় প্রার্থীর পক্ষে ভোট দিতে কতটুকু মন জয় করতে পেরেছেন, ভোটারদের নানা দাবী পূরণে কতটা যৌক্তিক প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তারও নানা হিসাব-নিকাশ চলতে থাকবে আগামীকাল শনিবার গভীর রাত পর্যন্ত। কারণ রোববার সকাল ৮ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত টানা ভোটগ্রহণ চলবে। এদিন সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। ব্যাংকও বন্ধ রাখা হয়েছে ২৮ থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। ইতিমধ্যেই নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে কমিশনের অনুমোদিত পরিচয়পত্রধারীর বাইরে যানবাহন চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শাহজাদপুর আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী, সাবেক শিল্প-উপমন্ত্রী, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি , শাহজাদপুরের মাটি ও মানুষের নেতা, জননেতা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন এমপি ও তার পক্ষের দলীয় নেতা কর্মী সমর্থকেরা বেশ ফুরফুরে মেজাজে উপজেলার সর্বত্র নির্বাচনী প্রচারণার কাজে গত ১৮ দিন নির্বাচনী মাঠে দাঁপিয়ে বেড়িয়েছেন। সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে ভোট চাওয়া, পোস্টার ঝুলানো, মিছিল, মিটিং, পথসভা এসব কর্মকান্ডের মধ্যে দিয়ে আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন এমপির পক্ষে দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকদের ব্যতিব্যাস্ত সময় কেটেছে। অপরদিকে, নির্বাচনী প্রচার প্রচারণা শেষ হলেও এ আসনে গত ১৮ দিনে ধানের শীষের প্রার্থী প্রফেসর ড. এমএ মুহিত ও তার সমর্থকদের উল্লেখযোগ্য নির্বাচনী প্রচারণায় দেখা যায়নি। তার পরেও নৌকা, ধানের শীষ বা অন্যান্য প্রতীকের প্রার্থীগণের কর্মী সমর্থকেরা আশায় বুক বেধে বর্তমানে স্ব-স্ব প্রার্থীর পক্ষে নানা হিসাব নিকাশ কষতে শুরু করেছেন। ভোটারদের দৃষ্টি রয়েছে ৩০ তারিখে অনুষ্ঠিতব্য একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিকে।

বছরের পর বছর বাইরে থেকে নির্বাচনী সময়ে শাহজাদপুরে এসে ড. মুহিত ধানের শীষে ভোট চাইলেও সচেতন জনগণ দেবে না- এ্যাড. এসএ হামিদ লাবলু


সম্মিলিতভাবে সোনার শাহজাদপুর গড়তে চাই- এমপি স্বপন

শামছুর রহমান শিশির, বৃহস্পতিবার, ২৭ ডিসেম্বর- ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দ : সিরাজগঞ্জ-৬ (শাহজাদপুর) আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী, সাবেক শিল্প- উপমন্ত্রী, বীরমুক্তিযোদ্ধা জননেতা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন বলেছেন,‘ প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা শাহজাদপুরে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ নামের আন্তর্জাতিক মানের বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করে শাহজাদপুরবাসীর চাওয়া পাওয়া পূরণ করেছেন । বাঘাবাড়ী নৌ-বন্দরকে ২য় শ্রেণি থেকে ১ম শ্রেণিতে উন্নীত করেছেন, দেশের ৪র্থ নদী বন্দর ফায়ার স্টেশান চালু করেছেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের মাধ্যমে পোতাজিয়ার ৩০ বেডের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ বেডে উন্নীত করেছেন, ১০ সয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশু হাসপাতাল চালু, ২০ সয্যাবিশিষ্ট আরও একটি আধুনিক মানের হাসপাতালের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন, গালায় আরও একটি হাসপাতাল স্থাপন, ১৭ কোটি টাকা ব্যায়ে পাড়কোলায় জেলার একমাত্র টেকনিক্যাল কলেজ প্রতিষ্ঠা, যার অর্থেক কাজ প্রায় শেষ হয়েছে, ১১৭ টি উপজেলার মধ্যে শাহজাদপুরকে শতভাগ বিদ্যুতায়ন করেছেন যার ৮৫ ভাগ শেষ হয়েছে, অবশিষ্ট ১৫ ভাগও আগামী কয়েক দিনের মধ্যে শেষ হবে। শাহজাদপুর- এনায়েতপুর, শাহজাদপুর- কৈজুরী, শাহজাদপুর- জামিরতা, শাহজাদপুর- রূপবাটি – করশালিকা পর্যন্ত গ্রামীণ সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা আধুনিকায়ন করেছেন। ১ হাজার কোটি টাকা ব্যায়ে হাটপ্রাচীল থেকে বাঘাবাড়ী হয়ে নগরডালা করতোয়া সেতু পর্যন্ত বাধ, স্লুইচ গেট ও সড়ক নির্মাণের বন্দোবস্ত করেছেন যার কাজ দ্রুততার সাথে এগিয়ে চলছে। বেড়া- সাঁথিয়ার কৃষকেরা বেড়া পাম্প হাউজের মাধ্যমে নদী শাষণ করে ইঁছামতী নদীকে সেঁচ খাল হিসেবে ব্যবহার করে বছরে এক ফসলের পরিবর্তে ৩ ফসল আবাদ করে কৃষি ক্ষেত্রে যেমন বিপ্লব ঘটিয়েছেন; ঠিক তেমনি হাটপ্রাচীল- বাঘাবাড়ী- থানারঘাট পর্যন্ত নদী শাষণের কাজ শেষ হলে শাহজাদপুরের কৃষকেরাও সারা বছর ৩ ফসল উৎপাদন করে নিজেদের ভাগ্য বদলাতে পারবে। নদী শাষণের প্রকল্প কাজটি শেষ হলে শাহজাদপুর পর্যটন শহরে পরিণত হবে। আপনাদের এলাকার মরহুম ফজলুল হক এসপি সাহেবের সুযোগ্য সন্তান বাংলাদেশ আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব আবু সালেহ শেখ মোঃ জহিরুল হক দুলাল ভাই ও আরেক ছেলে মিল্কভিটার ভাইস চেয়ারম্যান, স্পেশাল পিপি (নারী ও শিশু), জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম সদস্য ও শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড. শেখ মোঃ আব্দুল হামিদ লাবলু ভাই এলাকার উন্নয়নে অনেক কাজ করেছেন। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার শাষণামলে শাহজাদপুরে বড় ধরনের উন্নয়নমূলক কাজ হচ্ছে। আমরা জনপ্রতিনিধি, সরকার ও প্রশাসনকে সাথে নিয়ে আওয়ামী লীগ দলীয় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান, পৌরমেয়র, ১৩ ইউনিয়নের চেয়ারম্যানসহ দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে সম্মিলিতভাবে সোনার শাহজাদপুর গড়তে চাই। ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন সরকার পরিবর্তনের নির্বাচন। সরকারের চলমান বিভিন্ন মেগা প্রকল্প কাজ চলমান রাখতে হলে, শাহজাদপুরকে সোনার শাহজাদপুর হিসেবে গড়তে হলে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারকে আবারও ক্ষমতায় আনতে হবে।’
গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিরাজগঞ্জ-৬ (শাহজাদপুর) সংসদীয় আসনে নৌকার প্রার্থী আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপনকে বিজয়ী করতে উপজেলার ৪নং রূপবাটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ আয়োজিত করশালিখায় অনুষ্ঠিত বিশাল নির্বাচনী জনসভার প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেছেন শাহজাদপুরের মাটি ও মানুষের নেতা, বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন এমপি। রূপবাটি ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল মতিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিশাল ওই নির্বাচনী জনসভায় প্রধান বক্তার বক্তব্যে মিল্কভিটার ভাইস চেয়ারম্যান, স্পেশাল পিপি (নারী ও শিশু), জেলা আ.লীগের অন্যতম সদস্য ও উপজেলা আ.লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক জননেতা এ্যাড. শেখ আব্দুল হামিদ লাবলু বলেন, ‘আওয়ামী লীগকে ভোট দিলে দেশের ও এলাকার উন্নয়ন হয়। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে শাহজাদপুৃরে আন্তর্জাতিক মানের রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, বাংাদেশ চালু হয়েছে , যুগ্ম- জেলা ও দায়রা জজ আদালতসহ ৩টি আদালত স্থাপিত হয়েছে, ১০ টি বিষয়ে অনার্স চালু হয়েছে, শাহজাদপুর হাইস্কুলকে সরকারি করণ করা হয়েছে।’ প্রধান বক্তা এ্যাড. এসএ হামিদ লাবলু শাহজাদপুর আসনে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী ড. এমএ মুহিতের কড়া সমালোচনা করে আরও বলেন, ‘ড. এমএ মুহিতের বাবা প্রয়াত ড. এমএ মতিনের সংসদ সদস্য থাকাকালীন সময়ে শাহজাদপুরে দৃশ্যমান কোন উন্নয়ন হয়নি। ড. মুহিত ডাক্তার হলেও আপনাদের এলাকায় আজ পর্যন্ত কোন মেডিক্যেল ক্যাম্প করে দুস্থদের স্বাস্থ্যসেবা দেননি। এলাকাবাসী তাকে চেনেন না। শাহজাদপুরবাসী এখন অনেক সচেতন। বছরের পর বছর বাইরে থেকে নির্বাচনী সময়ে শাহজাদপুরে এসে ভোট চাইলেই জনগণ তাকে ভোট দেবে না। আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে শাহজাদপুরে শিক্ষা, যোগাযোগ, স্বাস্থ্য, কৃষিসহ সকল খাতে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে ও চলমান রয়েছে। এ জন্য নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করতে হবে।’
উক্ত বিশাল জনসভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক, বাংলাদেশ ডেইরি কাউন্সিলের মেম্বর, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের প্রধান উপদেষ্টা জননেতা ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন। উক্ত জনসভায় শাহজাদপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান প্রফেসর আজাদ রহমান, পৌরসভার দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র নাসির উদ্দিন, ভাইস চেয়ারম্যান মুস্তাক আহমেদ, মিল্কভিটার পরিচালক ও শ্রেষ্ঠ সমবায়ী আব্দুস সামাদ ফকির, শাহজাদপুর উপজেলা যুবলীগের প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক রাজীব শেখ, যুবলীগ নেতা আশিকুল হক দিনার, রূপবাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম শিকদার, রূপবাটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আলহাজ্ব সোবহান দেওয়ান, সাধারণ সম্পাদক আবুল সরকার, আব্দুল্লাহ আল কাফী হিরা প্রমূখ। এ সময় অতিথিবৃন্দসহ অন্যান্যের মধ্যে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আজিজুল হক শিমুল, যুবলীগের মামুনার রশীদ মামুন, বাবু, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি মারুফ হাসান সুনাম, সাধারণ সম্পাদক শেখ মোঃ রাসেল, ছাত্রনেতা সুজন পারভেজ সরকার, রূপবাটি ইউনিয়ন যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সজীব আহমেদ, ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি মোঃ আলমগীর হোসেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে বিপুল ভোটে জয়যুক্ত করার কথা বলেন। ওই বিশাল নির্বাচনী জনসভায় বিপুল সংখ্যক দলীয় নেতাকর্মী ও হাজার হাজার আমজনতা উপস্থিত ছিলেন। এর আগে এদিন সকাল থেকে নৌকার প্রার্থী আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন এমপি হাবিবুল্লাহনগর ইউনিয়ন, নুকালী, সাতবাড়িয়া, খোকশাবাড়ি, জালালপুরসহ বেশ কয়েকটি স্থানে বিশাল নির্বাচনী জনসভা ও পথসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সম্মিলিতভাবে সোনার শাহজাদপুর গড়াতে নৌকায় ভোট দেয়ার আহবান জানান।