শাহজাদপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে


শফিকুজ্জামানের ব্যাপক গণসংযোগ!

নিজস্ব প্রতিবেদক : আসন্ন ৫ম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে শাহজাদপুরে চেয়ারম্যান প্রার্থী জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ শাহজাদপুর উপজেলা শাখার সভাপতি ও শাহজাদপুর প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শফিকুজ্জামান শফি ( মশাল) ব্যাপক নির্বাচনী গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। গত ২১ ফেব্রুয়ারি প্রতীক বরাদ্দের পর দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকদের সাথে নিয়ে শাহজাদপুর পৌর এলাকার দরগাহপাড়াস্থ জগৎ বরেণ্য অলী হযরত মখদুম শাহদৌলা শহিদ ইয়ামেনি (রহঃ) এর মাজার জিয়ারতের মধ্য দিয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী শফিকুজ্জামান শফি (মশাল) আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনী প্রচার প্রচারণা শুরু করেন। এরপর থেকে তিনি প্রতিদিনই নির্বাচনী এলাকা শাহজাদপুর পৌর এলাকাসহ উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে মশাল প্রতীকে ভোট চেয়ে নির্বাচনী গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যেই তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে উপজেলার পোরজনা, জামিরতা, কৈজুরী, খুকনী, জালালপুর, নগরডালা, কায়েমপুর, কাশিনাথপুর, তালগাছী, বাড়াবিল, পাড়কোলা, জিগারবাড়িয়া, চরনরিনা, বাঘাবাড়ী, পোতাজিয়া, বাড়াবিল, পাড়কোলা, জিগারবাড়িয়া, পুরানটেপরিসহ বিভিন্ন এলাকায় মশাল প্রতীকে ভোট চেয়ে নির্বাচনী গণসংযোগ সম্পন্ন করেছেন। প্রতিদিনই চেয়ারম্যান প্রার্থী শফিকুজ্জামান (মশাল) দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে বিভিন্ন পাড়া, মহল্লায় ছুঁটে চলেছেন, ভোটারদের সাথে কুশল বিনিময় করছেন ও মশাল প্রতীকে ভোট চাচ্ছেন। এ গণসংযোগকালে তার সাথে জেলা জাসদের সাংগঠনিক সম্পাদক হাসানুজ্জামান তুহিন, উপজেলা জাসদের সাংগঠনিক সম্পাদক মোজাম্মেল হক, উপজেলা যুবজোট সভাপতি সায়েমুল ইসলাম শোভন, সেক্রেটারি, মেহেদী হাসান লিটন, পৌর যুবজোট সভাপতি আবু তালেব, সেক্রেটারি শেখ লিটন, যুবজোট নেতা ইকবাল, আলীম, উপজেলা ছাত্রলীগ (জাসদ) সভাপতি সৈয়দ আদিত্য জামান, সেক্রেটারি ইব্রাহিম খলিল রাশেদ, উপজেলা জাতীয় শ্রমিকজোট সভাপতি সাইদুল ইসলাম, সেক্রেটারি আব্দুস সাত্তার ফকির, যুবজোট নেতা লিটন হোসেন, জাসদ নেতা আকবর আলীসহ উপজেলা ও বিভিন্ন ইউনিয়ন জাসদের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী ও সমর্থকেরা উপস্থিত ছিলেন।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে লিয়াকত আলী ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে এলিজা খান একক প্রার্থী হিসেবে বিনা প্রতিন্দ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন


আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে শাহজাদপুরে চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা

শামছুর রহমান শিশির, শাহদজাপুর (সিরাজগঞ্জ) থেকে : আসন্ন পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র যাচাই বাছাই করে শাহজাদপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে দাখিলকারী ৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেছেন সিরাজগঞ্জ জেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং অফিসার আবুল হোসেন। এরা হলেন, চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান চেয়ারম্যান প্রফেসর আজাদ রহমান, উপজেলা জাসদ সভাপতি ও শাহজাদপুর প্রেস কøাবের সাধারণ সম্পাদক শফিকুজ্জামান শফি ও উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি মোক্তার হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে লিয়াকত আলী (আ.লীগ) ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে এলিজা খান (আ.লীগ)। এদের মধ্যে ভাইস চেয়ারম্যান পদে লিয়াকত আলী ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে এলিজা খান একক প্রার্থী হিসেবে বিনা প্রতিন্দ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। আজ মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৩ টায় জেলা নির্বাচন অফিসের সম্মেলন কক্ষে প্রার্থীদের উপস্থিতিতে এসব মনোনয়নপত্র বাছাই করা হয়।
জানা গেছে, গত ১১ ফেব্রুয়ারি আসন্ন শাহজাদপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং অফিসারের নিকট চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রফেসর আজাদ রহমান, শফিকুজ্জামান শফি, ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী লিয়াকত আলী ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী এলিজা খান নিজ নিজ মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। এছাড়া, সিরাজগঞ্জ জেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং অফিসারের নিকট মনোনয়নপত্র দাখিল করেন মোক্তার হোসেন।

শাহজাদপুরের আওয়ামী লীগের প্রার্থী আজাদ রহমান চেয়ারম্যান পদে মনোনীত

নিজস্ব প্রতিবেদক : উৎসবমূখর পরিবেশের মধ্য দিয়ে তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের কণ্ঠ ভোটে শাহজাদপুরে বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রফেসর আজাদ রহমানই আবারও তৃণমূল আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার শাহজাদপুর রবীন্দ্র কাছারিবাড়ি অডিটোরিয়ামে শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় তৃণমূলের ভোট প্রদান অনুষ্ঠানে ৩ শ’ ৬৫ টি ভোটের মধ্যে একক সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোট পেয়ে আজাদ রহমান আবারও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হিসেবে মনোনয়ন পেলেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন, বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মুস্তাক আহমেদ। স্থানীয় সাংসদ এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ বর্ধিত সভায় সরাসরি হাত তুলে কণ্ঠ ভোট প্রদানের মাধ্যমে দলীয় এ মনোনয়ন কার্য সম্পন্ন করা হয়েছে। সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগ, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, পৌর আওয়ামী লীগ, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগসহ তৃণমূল পর্যায়ের সকল নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

শাহজাদপুরের উন্নয়নে, শাহজাদপুরবাসীর কল্যাণে, দলের উন্নয়নে আমৃত্যূ কাজ করে যাবো -- জননেতা সাইফুল


শাহজাদপুরে সাম্ভাব্য উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী সাইফুল ইসলামের ব্যাপক গণসংযোগ

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) থেকে শামছুর রহমান শিশির : আসন্ন শাহজাদপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ থেকে দলীয় মনোনয়ন পেতে কোমড় বেধে মাঠে নেমেছেন শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন- সাধারণ সম্পাদক ও কৈজুরী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জননেতা সাইফুল ইসলাম। দলীয় হাইকমান্ডে জোরালো তদবির করার পাশাপাশি ইতিমধ্যেই তিনি দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকদের সাথে নিয়ে নির্বাচনী এলাকা শাহজাদপুরের বিভিন্ন স্থানে ব্যাপক গণসংযোগ শুরু করেছেন। শাহজাদপুর পৌর এলাকাসহ ১৩ টি ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে গিয়ে সাধারণ ভোটারদের সাথে তিনি কুশল বিনিময় করছেন এবং সমর্থন আরও জোরালো করতে সর্বসাধারণের মধ্যে এলাকার উন্নয়নের চিত্র, স্থানীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কর্মকান্ডে তার ভূমিকা, চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে প্রচার পত্র বিলি, সবার সমর্থন, দোয়া, ভালোবাসা ও সার্বিক সহযোগীতা কামনা করছেন। এছাড়াও এলাকার বহুমূখী উন্নয়নে জননেতা সাইফুল ইসলাম বরাবরই যোগ্য ও বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করে বেশ প্রশংসিত হয়েছেন।
জানা গেছে, শাহজাদপুর উপজেলার কৈজুরী ইউনিয়নের ২ বারের সাবেক সফল চেয়ারম্যান হাজী মোঃ মোশাররফ হোসেনের ছেলে শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক ও কৈজুরী ইউনিয়ন পরিষদের পরপর ২ বার নির্বাচিত চেয়ারম্যান জননেতা সাইফুল ইসলাম দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও সমাজ সেবক হিসেবে দলের সাংগাঠনিক কাঠামো আরও সুদৃঢ় করণে ও এলাকার উন্নয়নে বিশেষ ভূমিকা পালন করে দলীয় নেতাকর্মীসহ এলাকাবাসীর মনের মধ্যে স্থান করে নিতে সক্ষম হয়েছেন। ইতিপূর্বে শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক হিসেবে তিনি ৮ বছর সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া গত ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সাংস্কৃতিক ফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যতম সদস্য হিসেবে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। জননেতা সাইফুল যমুনা নদী তীর সংরক্ষণ প্রকল্প বাস্তবায়নে বিশেষ ভূমিকা পালন করেছেন। এছাড়া তিনি কৈজুরী বাজারে মৎস শেড নির্মাণ করে শত শত এলাকাবাসীর কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে দিয়েছেন। কৈজ্রুী ইউনিয়ন পরিষদের ২ বারের চেয়ারম্যান হিসেবে যমুনা অধ্যূষিত কৈজুরী ইউনিয়নের বিভিন্ন দুর্গম এলাকার প্রায় ২ হাজার অন্ধকার ঘরে বিমামূল্যে সৌর বিদুৎ প্রদান করে ২ হাজার অন্ধকার পরিবারে আলো প্রদান করেছেন। এছাড়া তিনি শাহজাদপুরসহ বৃহত্তর চলনবিল অঞ্চলের উল্লাপাড়া, রায়গঞ্জ, তাড়াশ, ফরিদপুর, চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া, সিংড়া, বড়াইগ্রাম, গুরুদাসপুর, আত্রাই, রাণীনগর, শেরপুর ও নন্দীগ্রাম এ ১৪ উপজেলাকে বন্যাও আওতামূক্ত করতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের আওতাভূক্ত ৩ ধাপে প্রস্তাবিত ও ১ম ধাপ চলমান প্রায় ১৫ ’শ কোটি টাকা প্রকল্প ব্যায়ের হাটপ্রাচীল- ভেড়াখোলা- থানারঘাট করতোয়া সেতু পর্যন্ত বাধ, স্লুইচ গেট নির্মাণ কাজ বাস্তবায়নে বিশেষ ভূমিকা পালন করে চলেছেন। জননেতা সাইফুল ইসলাম অনুদান প্রদান করে এ পর্যন্ত এলাকার প্রায় শতাধিক মসজিদের ভৌত ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন করেছেন। তিনি কৈজুরী হাইস্কুলকে কলেজে রূপান্তর, কৈজুরী মহিউল ইসলাম ফাজিল মাদরাসার পাকা একাডেমিক ভবন নির্মাণ, চর কৈজুরী মাধ্যমিক উচ্চ বিদ্যালয়ে দ্বো-তল ভবন নির্মাণ, পূর্ব চরকৈজুরী ও পাথালিয়া পড়ায় পাঁকা রাস্তা নির্মাণ, অসংখ্য ব্রিজ, কালভার্ট নির্মাণসহ উপজেলার গ্রামীণ যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নতকরণ, স্কুল, কলেজ, মাদরাসা, মসজিদ, মন্দির, কবরস্থান, শ্মশানঘাটের উন্নয়নে আত্মনিবেদিত প্রাণ হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন। সর্বশেষ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৬৭ সিরাজগঞ্জ-৬ (শাহজাদপুর) সংসদীয় আসনে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপনের পক্ষে পরিচালিত নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান সমন্বয়ক হিসেবে সফলতার সাথে নির্বাচনী কর্মকান্ড সফলতার সাথে পালন করে ভূয়সী প্রশংসা কুড়িয়েছেন।
এসব বিষয়ে আলাপকালে নৌকা প্রতীকের সাম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী জননেতা সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘ সফল রাষ্ট্রনায়ক, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন এমপির হাত শক্তিশালী করতে, শাহজাদপুরবাসীর উন্নয়নে ও কল্যাণে দলের একজন সেবক হিসেবে কাজ করে যাচ্ছি। আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেলে ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে আধুনিক শাহজাদপুর গড়তে আমৃত্যু কাজ করে যাবো।’

শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন, যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক সাংসদ চয়ন ইসলাম, কেন্দ্রীয় যুবলীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটনসহ জেলা, বিভাগ ও কেন্দ্রীয় যুবলীগের নেতৃবৃন্দের নিকট অচিরেই অনুষ্ঠানিকভাবে উপস্থাপন করা হবে


আসন্ন শাহজাদপুর উপজেলা পর্ষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে লিয়াকতকে যুবলীগের প্রার্থী ঘোষণা

শামছুর রহমান শিশির: ’বিপদে- আপদে যুবলীগ, রাজপথের দুঃসময়ের রাজনীতিতে যুবলীগ, আন্দোলন সংগ্রামে যুবলীগ, যে কোন ক্রান্তিলগ্নে যুবলীগ নেতৃবৃন্দ বরাবরের মতোই বিশেষ ভূমিকা পালন করে আসছে। অথচ এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, পৌর মেয়র পদে মূল আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দকে প্রার্থী করা হয়েছে ও হচ্ছে। যুবলীগ নেতৃবৃন্দ সর্বক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা রাখলেও যুবলীগের কোন নেতৃবৃন্দকে এসব পদে দলীয় প্রার্থীতার সুযোগ না দেয়ায় শাহজাদপুর উপজেলা যুবলীগ নেতৃবৃন্দ তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এবার অধিকার আদায় করে নেয়া হবে। কারণ, শাহজাদপুর উপজেলা যুবলীগ, পৌর যুবলীগ, ওয়ার্ড যুবলীগ, ১৩ টি ইউনিয়ন যুবলীগ ঐক্যবদ্ধ হয়ে আসন্ন শাহজাদপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে যুবলীগের সংগ্রামী সাধারণ সম্পাদক, শাহজাদপুর সরকারি কলেজের সাবেক জিএস মামুনর রশীদ লিয়াকতকে প্রথমবারের মতো যুবলীগের পক্ষ থেকে প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেছে। যুবলীগের আকুষ্ঠ এ একটি দাবী শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন, যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক সাংসদ চয়ন ইসলাম, কেন্দ্রীয় যুবলীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটনসহ জেলা, বিভাগ ও কেন্দ্রীয় যুবলীগের নেতৃবৃন্দের নিকট অচিরেই অনুষ্ঠানিকভাবে উপস্থাপন করা হবে। আর এ দাবী পূরণ না হলে শান্তিপূর্ণ নানা কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে যে কোন মুল্যে দাবীটি আদায় করা হবে।’ আজ রোববার বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ শাহজাদপুর উপজেলা শাখা, পৌর শাখা ও ইউনিয়ন শাখাসহ সর্বস্তরের উপজেলা যুবলীগ নেতৃবৃন্দ ঐক্যবদ্ধ হয়ে আসন্ন শাহজাদপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে শাহজাদপুর উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মামুনর রশীদ লিয়াকতের নাম ঘোষণা উপলক্ষে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তারা একবাক্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেছেন। আজ রোববার সকালে স্থানীয় আওয়ামী লীগ দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা যুবলীগের উদ্যোগে এ উপলক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। শাহজাদপুর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি, সাবেক পৌর কাউন্সিলর ইউনুস আলীর সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি মামুনর রশীদ লিয়াকতের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত ওই আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, শাহজাদপুর উপজেলা যুবলীগের প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক মোঃ রাজীব শেখ, পৌর যুবলীগের আহবায়ক, সাবেক পৌর কাউন্সিলর আবু শামীম সূর্য্য, যুগ্ম- আহবায়ক সাজ্জাদ হোসনে, সাবেক পৌর কাউন্সিলর ও অন্যতম সদস্য আব্দুর রহিম, সহ-সভাপতি মোফাজ্জল হোসেন মোফা, আমিরুল ইসলাম ঠান্ডু, সাবেক সফল ছাত্রনেতা ও সবুজ বিপ্লবের উদ্যোক্তা কামরুল হাসান হিরোক প্রমূখ। উক্ত সভায় উপজেলা যুবলীগের অন্যতম সদস্য ও সাংবাদিক আসলাম আলী, রোকন উদ্দিন, আফছার আলী, ১৩ টি ইউনিয়ন যুবলীগ নেতৃবৃন্দ্রের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কায়েমপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি রাশেদুল হাসান রুবেল, সাধারণ সম্পাদক জিব্রাইল হোসেন সবুজ, গাড়াদহ ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি বাহাদুর হোসেন সবুজ , সাধারণ সম্পাদক রিপন হোসেন, পোতাজিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আইয়ুব আলী, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হামিদ, রূপবাটি ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি দৌলত শিকদার, সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান, পোরজনা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি জুয়েল আলম, সাধারণ সম্পাদক হবিবর রহমান, সোনাতুনী ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি লুৎফর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম ব্যাপারী, কৈজুরী ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি বছির উদ্দিন ফকির , সাধারণ সম্পাদক মানিক আহমেদ, বেলতৈল ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আজিজুর রহমান বিদ্যুৎ, সেক্রেটারি মানিক মিয়া, খুকনী ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আলমাছ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আবু হেনা ভূইয়া, নরিনা ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক আব্দুল হালিম, যুগ্ম-আহবায়ক বাবু মিয়া, জালালপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান লেবু, হাবিবুল্লাহনগর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মোক্তার হোসেন,সদস্য খবির উদ্দিন প্রমূখ। উক্ত সভায় শাহজাদপুর উপজেলা যুবলীগ, পৌর যুবলীগ, ১৩টি ইউনিয়ন যুবলীগ ও বিভিন্ন ওয়ার্ড যুবলীগ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা সভা শেষে নেতৃবৃন্দ একে অপরকে মিষ্টিমুখ করান।

আওয়ামী লীগ সভাপতি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সিরাজগঞ্জ জেলা আ.লীগ নেতৃবৃন্দ, স্থানীয় সাংসদ ও শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন, সংশ্লিষ্ট নেতৃবৃন্দসহ উপজেলা আ.লীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের সুদৃষ্টি, আকুন্ঠ সমর্থন ও সার্বিক সহযোগীতা কামনা


আসন্ন শাহজাদপুর উপজেলা পর্ষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিন্দন্দ্বিতা করতে চান বাবলা

শামছুর রহমান শিশির, বুধবার, ৮ জানুয়ারি -২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ : আসন্ন শাহজাদপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিন্দন্দ্বিতা করতে চান শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি, আদর্শ আওয়ামী পরিবারের সন্তান, তরুণ জননেতা উপাধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম বাবলা। ইতিমধ্যেই তিনি ব্যানার পোস্টার ছাপিয়ে প্রচারণার মাধ্যমে নিজেকে একজন যোগ্য, বলিষ্ঠ, সাম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়ে আগাম প্রচারণায় নেমেছেন। সেইসাথে আসন্ন শাহজাদপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে নৌকা প্রতীকে দলীয় মনোনয়ন পেতে উপাধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম বাবলা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা, সিরাজগঞ্জ জেলা ও শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দসহ সংশ্লিষ্টদের সুদৃষ্টি, সমর্থন ও সহযোগীতা কামনা করেছেন।
এলাকাবাসী জানায়, শাহজাদপুরের আদর্শ আওয়ামী পরিবারে উপাধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম বাবলার জন্ম। উপাধ্যক্ষ বাবলার বাবা বীরমুক্তিযোদ্ধা মরহুম রহমতুল্লাহ্ সরকার জীবদ্দশায় ১৯৭৫ সাল থেকে শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের হাল ধরেন এবং টানা ১৫ বছর উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ৫ বছর সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আ.লীগের চরম দুর্দিনে শাহজাদপুর উপজেলা আ.লীগকে সংগঠিত করেছেন। পারিবারিকভাবেই রফিকুল ইসলাম বাবলা মুজিবীয় আদর্শে উজ্জীবীত হয়ে আওয়ামী রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হন। গত ১৯৮৬ সালে ম্যাট্রিক পাশ করে তিনি শাহজাদপুর সরকারি কলেজে ভর্তি হন এবং তখন থেকে সরাসরি ছাত্র রাজনীতির সাথে জড়িয়ে পড়েন। ১৯৮৬ সাল থেকে একটানা ১৫ বছর তিনি শাহজাদপুর থানা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ছাত্রলীগে নেতৃত্ব দেন এবং পরবর্তীতে গত ২০০৪ সাল থেকে ১৪ সাল পর্যন্ত ১০ বছর শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে উপজেলা আ.লীগে নেতৃত্ব দেন। এরও পর থেকে আজ অবধি পর্যন্ত উপাধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম বাবলা শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হিসেবে উপজেলা আওয়ামী লীগে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন। রাজনীতির পাশাপাশি জনকল্যাণমূলক ও সমাজসেবামূলক কাজের অংশ হিসেবে উপাধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম বাবলা বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ডের চেয়ারম্যান, শাহজাদপুর মেডিকেল ইন্সটিটিউটের প্রতিষ্ঠাতা ও উপাধ্যক্ষ, বাঘাবাড়ী ফাজিল মাদরাসার পরিচালনা পর্ষদের সাবেক সভাপতি, ২নং গাড়াদহ ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান, সিরাজগঞ্জ সেন্ট্রাল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিমিটেড এর সাবেক চেয়ারম্যান, সরিষাকোল প্রাথমিক দুগ্ধ উৎপাদনকারী সমবায় সমিতি লিঃ (মিল্কভিটা) এর সভাপতি, সরিষাকোল জামে মসজিদের সভাপতি, গাড়াদহ ইউনিয়ন সেন্ট্রাল কো-অপারেটিভ মাল্টিপারপাস সোসাইটির সুযোগ্য সভাপতি হিসেবে তার ওপর অর্পিত দায়িত্ব দক্ষতার সাথে পালন করে এসেছেন ও পালন করছেন। গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও তিনি চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগ থেকে নৌকা প্রতীকে দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন এবং নিজেকে যোগ্য বলিষ্ঠ চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ব্যাপক প্রচার প্রচারণা চালিয়েছিলেন। তার সহধর্মীনি মৌসুমি সরকার বাবলা আওয়ামী লীগ দলীয় সিরাজগঞ্জ জেলা পরিষদের মহিলা বিষয়ক সদস্য ও শাহজাদপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও সহোদর সাবেক ছাত্রনেতা আরিফুল ইসলাম পলাশ শাহজাদপুর থানা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও শাহজাদপুর সরকারি কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক জিএস।
আজ বুধবার বিকেলে একান্ত এক সাক্ষাতকারে উপাধ্যক্ষ জননেতা রফিকুল ইসলাম বাবলা নিজেকে একজন সৎ, যোগ্য, বলিষ্ঠ সাম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হিসেবে দাবি করে এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘বর্তমান শাহজাদপুর উপজেলা পরিষদকে তার কাছে অকার্যকর মনে হয়। এজন্য উপজেলা পরিষদকে গতিশীল করতে ও শাহজাদপুরের প্রায় ৬ লাখ মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে শাহজাদপুরে চলমান সকল উন্নয়নমূলক প্রকল্পকাজ দ্রুত সম্পন্নপূর্বক শাহজাদপুরবাসীকে সন্ত্রাসমুক্ত, চাঁদাবাজ মুক্ত, মাদক মুক্ত, দুর্ণীতি মুক্ত একটি আধুনিক শাহজাদপুর উপহার দেয়ার লক্ষ্যেই তিনি আসন্ন শাহজাদপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিন্দন্দ্বিতা করতে চান। এজন্য তিনি আওয়ামী লীগ সভাপতি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সিরাজগঞ্জ জেলা আ.লীগ নেতৃবৃন্দ, স্থানীয় সাংসদ ও শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন, সংশ্লিষ্ট নেতৃবৃন্দসহ উপজেলা আ.লীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের সুদৃষ্টি, আকুন্ঠ সমর্থন ও সার্বিক সহযোগীতা কামনা করেছেন।’

শাহজাদপুরে ইউপি নির্বাচনের স্থগিত তিনটি কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ আজ

শাহজাদপুর প্রতিনিধিঃ শাহজাদপুর উপজেলায় অনুষ্ঠিত গত ৪ জুনের ইউপি নির্বাচনে রূপবাটি , গালা ও কৈজুরী এ ৩টি ইউনিয়নের স্থগিত হওয়া তিন কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ আজ শনিবার অনুষ্ঠিত হচ্ছে । শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাচন অফিসার আলী হোসেন জানান, গালা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের গালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোট কেন্দ্র ও কৈজুরী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের পাথালিয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোট কেন্দ্রর ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের ঘটনায় এ দুইটি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল । এই স্থগিত হয়ে যাওয়া কেন্দ্র ২টির ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে । এ ছাড়া রূপবাটি ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডে সাধারণ সদস্য পদে মোঃ আবু তাহের (মোরগ মার্কা ) ও মোঃ মজনু মিয়া ( তালা মার্কা ) সমান সংখ্যক ভোট পাওয়ায় ফলাফল স্থগিত করা হয়। ফলে আজ রূপবাটি ইউনিয়নের বাকধুনাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এ কেন্দ্রেও পুনরায় ওই দুই প্রার্থীর মধ্যে ভোট অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

শাহজাদপুরে পোতাজিয়া ইউপি চেয়ারম্যান, সদস্যদের পরিচিতি ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত

শাহজাদপুর সংবাদদাতাঃ আজ বুধবার সকালে শাহজাদপুর উপজেলার ৩নং পোতাজিয়া ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে ওই ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্য ও ইউপি সদস্যদের সংবর্ধনা প্রদান, পরিচিতি ও মিলাদ মাহফিল, দোয়া খায়ের অনুষ্ঠিত হয়েছে। হাজী মোজাম্মেল মাষ্টারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে পোতাজিয়া ইউনিয়নের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী ব্যাপারী ছাড়াও অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, খানকায়ে খাস মোজাদ্দেদীয়ার পরিচালক আলহাজ আফসার আলী পীর ছাহেব-শাহজাদপুরী, মিল্কভিটার সাবেক পরিচালক নজরুল ইসলাম নকির,পোতাজিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি আল মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক আনছার মেম্বার, বিপুল ভোটে পর পর দুইবার জয়ী ইউপি মেম্বর ও পোতাজিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোঃ নজরুল ইসলাম, পোতাজিয়া প্রাথমিক দুগ্ধ উৎপাদনকারী সমবায় সমিতির সভাপতি সাবেক ইউপি সদস্য শহীদ আলী,পোতাজিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক স¤্রাট শাহজাহান আকন্দ,আমিন মাষ্টার, ১নং ওয়ার্ডের নব নির্বাচিত ইউপি সদস্য সরোয়ার চৌধুরী প্রমূখ। ওই ইউনিয়নের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী ব্যাপারীসহ সকল সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্যসাধারণ সদস্যদের পোতাজিয়া ইউনিয়নবাসীর পক্ষ থেকে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। সংবর্ধনা শেষে মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। পরিশেষে ওই ইউনিয়নের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও মেম্বরদের সফলতা কামনা করে বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন আলহাজ আফসার আলী পীর ছাহেব শাহজাদপুরী। উক্ত সংবর্ধনা ও পরিচিতি সভায় ইউনিয়নবাসীর উপস্থিতি ছিল বিশেষভাবে লক্ষনীয়।

বড়হর ইউপি নির্বাচন নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে ‘ধুম্রজাল’

উল্লাপাড়া উপজেলার ১০নং বড়হর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে ধুম্রজালের অন্ত নেই। গত ৪ জুন শেষ ধাপে ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। উল্লাপাড়া উপজেলার সব কয়েকটি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও ভূমি সংক্রান্ত জটিলতার কারণে বড়হর ইউপি নির্বাচন স্থগিত করে উল্লাপাড়া উপজেলা নির্বাচন কমিশন। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে সরকার দলীয় নৌকা প্রতীকে মোঃ জহুরুল ইসলাম নান্নু, বিএনপি থেকে ধানের শীষ প্রতীকে মোঃ আলমগীর হোসেন, জামায়াত ইসলাম থেকে আনারস প্রতীকে মোঃ বুলবুল আহমেদ, স্বতন্র থেকে ঘোড়া মার্কায় মোঃ শফিকুল ইসলাম শফি ও পাখা মার্কায় একজন অংশগ্রহণ করে। এছাড়া মেম্বার পদে ও সংরক্ষিত মহিলা আসনে অনেকে অংশগ্রহন করে। প্রচার-প্রচারণা আর উৎসাহ উদ্দীপনার কমতি ছিলা না জনগনের মধ্যে। সব স্থবির হয়ে যায় মুহূর্তের মধ্যে। নির্বাচনের আগের দিন অর্থাৎ গত ৩ জুন দুপুর ১২ টায় উল্লাপাড়া উপজেলা নির্বাচন কমিশন বড়হর ইউপি নির্বাচন স্থগিতের ঘোষণা দেয়। শুরু হয় নানা গুঞ্জন। এক সূত্রের বিবৃতি তে জানা গেছে বর্তমান দায়িত্বপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোঃ জহুরুল ইসলাম চোধুরী ও অন্যন্য ইউপি সদস্যদের সহযোগিতায় ৫নং ওয়ার্ডে অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত ইউপি সদস্য মোঃ মকবুল হোসেন বাদলকে দিয়ে গত ২৮-০৪-২০১৬ ইং তারিখে নদী ভাঙ্গনের কারণ দেখিয়ে সীমানা সংক্রান্ত জটিলাতার একটি মামলা করে। গত ৩ জুন মামলার রায় প্রকাশ পেল নির্বাচন স্থগিত করতে বাধ্য হয় নির্বাচন কমিশন। মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে ৬নং ওয়ার্ডের তিয়রহাটী মৌজার তালপট্টি তে নদী ভাঙ্গনের ফলে কিছু পরিবার নদীর ওপারে বসতি স্থাপন করে। তারা এ ওয়ার্ডের ভোটার থাকা অবস্থায় তারা কামারখন্দ আসনের ভোটার হয়েছে এমন অভিযোগ করা হয়। এরপর জনমনে নানা বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়। কেউ বলছে নির্বাচন হবে না, আবার কেউ বলছে হবে, কবে হবে? সৃষ্টি হয়েছে এরকম হাজারো প্রশ্নের। নির্বাচন স্থগিতের কারণে সমস্ত প্রার্থীদের মোট ব্যয়ের পরিমাণ দাড়িয়েছে আনুমানিক ৫ কোটি টাকা যা এখন সবই মূল্যহীন। জনগনের মনে হতাশা কাজ করছে। দিন রাত এক করে সমর্থিত প্রার্থীদের জন্য প্রচার-প্রচারণা আজ যেন সবই বৃথা। এহেন অবস্থায় বড়হর ইউনিয়ন পরিষদ কে পরিচালনা করবে সেটা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। কে দায়িত্বে থাকবেন- বর্তমান দায়িত্বপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান,ইউনিয়ন পরিষদের দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব নাকি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি সেটা নিয়ে সংশয়ের সৃষ্টি হয়েছে জনমনে, আলোচনা এখন তুঙ্গে। এ রায়ের বিরুদ্ধে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ও অন্যন্য প্রার্থীগন হাই কোর্টে আপিল করে। একবার শুনানি হওয়ার পর ২য় শুনানীর তারিখও একবার পরিবর্তন করে গতকাল মঙ্গলবার করা হয়েছিল এবং রায়ও হওয়ার কথা ছিল । শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত কোন শুনানি বা রায় হয়নি এবং এই ঈদের আগে হওয়ার কোন সম্ভবনাই নেই। সবাই তাকিয়ে আছে রায়ে অপেক্ষায়। বড়হর বাসীর একটায় দাবী অচিরেই সব সমস্যার অবসান ঘটিয়ে একটি সুন্দর, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হোক। এখন শুধুই সময়ের অপেক্ষা।

শাহজাদপুরে দুই পরাজিত মেম্বর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে হামলা সংঘর্ষঃ আহত ১৫

শাহজাদপুর প্রতিনিধিঃ আজ বুধবার সকালে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার কৈজুরী ইউনিয়নের নির্বাচন পরবর্তী দুই পরাজিত মেম্বর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে হামলা সংঘর্ষ ও বাড়ি ঘর ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পক্ষের ১৫ জন আহত হয়েছে। এছাড়া দুই বাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে। আহতরা হলেন, ছলিম (৪০), হযরত (৫০), মোহাম্মাদ আলী (৬০), হামিদ (৪০), জেন্দার আলী (৪৮), শফিকুল (১৯), আলমগীর (২০), খোদাবক্স (৭০), রূপসী খাতুন (৬০), নবীয়া খাতুন (৪৫), আসমা খাতুন (৩২), জয়নাল (১৮), ময়নাল (২২), রুবেল (২৫)। এদেরকে বেড়া,শাহজাদপুর ও সিরাজগঞ্জের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, মেম্বর প্রার্থী আব্দুল লতিফ নকিব ( প্রতীক মোরগ) ও আক্কাছ আলী ( প্রতীক ফ্যান) নির্বাচন সংক্রান্ত কাজে টাকা পয়সা লেনদেনের বিরোধের জের ধরে এ হামলা সংঘর্ষ ও বাড়িঘর ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষ চলাকালে উভয় পক্ষই দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে একপক্ষ অপর পক্ষের উপরে ঝাপিয়ে পড়ে। ঘন্টা ব্যাপী এ সংঘর্ষের খবর পেয়ে শাহজাদপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এ ব্যাপারে উভয় পক্ষ্ই মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানা গেছে। এ ব্যাপারে শাহজাদপুর থানার ওসি রেজাউল হক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, নির্বাচনকালীন টাকা পয়সা লেনদেনের বিরোধ নিয়ে এ হামলা সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে বলে তারা প্রাথমিক ভাবে জানতে পেরেছেন।