সিরাজগঞ্জে ১ হাজার পিস ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

সিরাজগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি পুলিশ) এর অভিযানে ১ হাজার পিস ইয়াবাসহ মো. শাহ্ জাহান (২২) নামের এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে।

আটককৃত মো. শাহ্ জাহান কক্সবাজার জেলার টেকনাফ থানার ঝিমং খালী গ্রামের মো. আবুর কাশেমের পুত্র।

বুধবার বিকাল ৩টার সময় এই তথ্য নিশ্চিত করে সিরাজগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি পুলিশ ওসি) মোঃ মিজানুর রহমান বলেন, পুলিশ সুপার হাসিবুর আলম বিপিএম এর দিকনিদের্শনায় এসআই মো. নাজমুল হকসহ সঙ্গীয় অফিসার-ফোর্স এর সহায়তায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) গভীর রাতে সদর উপজেলার বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানাধীন কড্ডার মোড় এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট সহ মো. শাহ্ জাহান (২২) নামের এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়।

এই বিষয়ে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শাহজাদপুরে ৪০ কেজি গাঁজা সহ ০২ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

সিরাজগঞ্জ র‌্যাব-১২এর এ্যাডজুটেন্ট (অপ্স অফিসার) সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার প্রণব কুমার সরকার ও সদর কোম্পানীর ভারপ্রাপ্ত কোম্পানী কমান্ডার, (মিডিয়া অফিসার) সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ এরশাদুর রহমান এর নেতৃত্বে র‌্যাব-১২ একটি আভিযানিক দল সিরাজগঞ্জ শাহজাদপুর উপজেলা থানাধীন বগুড়া টু নগরবাড়ী রোডের উপর বাঘাবাড়ী ওয়েল ডিপো এর সামনে অস্থায়ী চেকপোষ্ট বসিয়ে মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করে, বড় কাভার্ড ভ্যান তল্লাশী করে ৪০ কেজি গাঁজা, ০২ টি মোবাইল, ০২টি সিমসহ কাভার্ড ভ্যান জব্দ ও ২ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করে এবং উক্ত কাভার্ড ভ্যান জব্দ করেন।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, পাবনা ফরিদপুর উপজেলার সোহরাব আলী প্রমানিক ছেলে ফরিদুল ইসলাম, সিরাজগঞ্জ শাহজাদপুর উপজেলার, জামাল উদ্দিনের ছেলে আলম হোসেন।

গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে শাহজাদপুর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করত উদ্ধারকৃত আলামতসহ তাদেরকে উক্ত থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

শাহজাদপুর তালগাছী হাটে নিষিদ্ধ কারেন্ট জালের জমজমাট ব্যবসা

প্রশাসনের নাকের ডগায় শাহজাদপুর উপজেলার গাড়াদহ ইউনিয়নের তালগাছী হাটে নিষিদ্ধ কারেন্ট জালের জমজমাট ব্যবসা চলছে। ফলে এলাকা থেকে দেশীয় প্রজাতির মাছ কারেন্ট জালে ধরা পড়ছে। এতে একদিকে যেমন দেশীয় প্রজাতির মাছ বিলুপ্ত হচ্ছে, অন্যদিকে মাছের প্রজনন ক্ষমতা হ্রাস পাচ্ছে।

সয়লাব হয়ে পড়েছে নিষিদ্ধ কারেন্ট জালে তালগাছী হাট। প্রশাসনের নাকের ডগায় আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে প্রকাশে এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ীরা নিষিদ্ধ কারেন্ট জালের জমজমাট ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। রবিবার(৪সেপ্টেম্বর) সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় উপজেলার তালগাছী হাটের গরু হাটার পাশে কারেন্ট জালের বিশাল পসরা সাজিয়ে বসেছেন ব্যবসায়ীরা।

তথ্য অনুসন্ধানে জানা যায়, নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল এর ফলে উপজেলার খালবিলে নদীনালার ছোট প্রজাতির মাছ বিলুপ্ত হতে চলেছে। কারেন্ট জালে সব ধরনে মাছ বেশী ধরা পড়ায় উপজেলার মৎস্য শিকারীরা এ জাল ক্রয় করছে বলে জানাগেছে। বর্ষার শুরু থেকে এ জাল দিয়ে মাছ ধরা শুরু করে মৎস্য শিকারীরা। এ জাল ব্যবহার করে জেলেরা বিভিন্ন নদী ও খাল-বিলে দেশি প্রজাতির ডিমওয়ালা ও পোনা মাছ নিধন করছে।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের গাফিলতার কারনে পুরপুরি বাস্তবায়ন হচ্ছে না মৎস সম্পদ রক্ষা ও সংরক্ষণ আইন। নিষেধাজ্ঞা থাকলেও কতিপয় কর্মকর্তা, কর্মচারীর নজদারীর অভাবে অবাধে এই নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল বিক্রি হচ্ছে হাট বাজারে। ফলে বিভিন্ন জলাশয় থেকে বিলুপ্ত হচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ। ২০০২ সালের সংশোধিত মৎস্য সংরক্ষণ আইনে কারেন্ট জাল উৎপাদন, পরিবহন, রাজারজাতকরণ, সংরক্ষণ ও ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হয়। এ আইনটি মানছে না এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ীরা। প্রশাসনের নজরদারীর অভাবে নিষিদ্ধ এ কারেন্ট জালের ব্যবসা চলছে বলে অভিযোগ বিজ্ঞমহলের।

এ বিষয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ শাহিদ মাহমুদ খান জানান, এ ব্যাপারে সবকিছু জেনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

এ বিষয়ে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সাথী রানী নিয়োগী বলেন, আপনাদের কাছে থেকে কারেন্ট জালের বিষয়ে জানলাম। উপজেলা মৎস্য অফিস খুব দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহন করবে বলেও জানান উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা।

এ ব্যাপারে শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মোঃ শামসুজ্জোহা বলেন করেন্ট জাল বিক্রয় এবং পরিবহন সম্পূর্ণ নিসিদ্ধ। তালগাছী হাটে যে কারেন্ট জাল বিক্রি হচ্ছে তা আমাদের জানা ছিল না, আপনাদের মাধ্যমে জানতে পেলাম। আমরা উপজেলা মৎস অফিসকে সাথে নিয়ে অভিযান পরিচালনা করবো এবং প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

নোয়াখালীতে গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন, ভিডিও ফেসবুকে ; আটক ১

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার একলাশপুর ইউনিয়নে অনৈতিক কাজের অপবাদ দিয়ে এক নারীকে (৩৬) সমস্ত শরীর বিবস্ত্র করে নির্যাতন করেছে একদল যুবক। নির্যাতনকারীদের বারবার বাবা ডেকেও শেষ রক্ষা হয়নি ওই নারীর।

আজ রোববার দুপুর থেকে নির্যাতনের এমন একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ভাইরাল হলে জেলায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়। টনক নড়ে প্রশাসনের। ঘটনায় জড়িত থাকা সন্দেহে পুলিশ অভিযান চালিয়ে আবদুর রহিম (২৪) নামের এক যুবককে আটক করেছে। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে একলাশপুর থেকে আবদুর রহিমকে আটক করা হয়। তিনি জয়কৃষ্ণপুর গ্রামের শেখ আহম্মদ দুলালের ছেলে। তিনি স্থানীয় দেলোয়ার বাহিনীর প্রধান দেলোয়ারের সেকেন্ড ইন কমান্ড বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এদিকে নির্যাতনকারী সন্ত্রাসীদের ভয়ে ঘরে তালা দিয়ে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেছেন নির্যাতিত নারী ও তার পরিবারের লোকজন। তার স্বজনদের কাছ থেকেও কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

জানা গেছে, গত তিন বছর আগে ওই নারীর বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিনের মধ্যে তার স্বামী আরেকটি বিয়ে করলে তাদের মধ্যে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। গত ২ সেপ্টেম্বর রাতে আগের স্বামী ওই নারীর সঙ্গে দেখা করতে তার ঘরে প্রবেশ করেন। বিষয়টি দেখতে পায় স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ী ও দেলোয়ার বাহিনীর প্রধান দেলোয়ার। দেলোয়ার তার লোকজন নিয়ে ওই নারীর ঘরে প্রবেশ করেন এবং পর পুরুষের সাথে অনৈতিক কাজ করেছে বলে অভিযোগ এনে তাকে মারধর শুরু করেন। একপর্যায়ে পিটিয়ে নারীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারন করা হয়।

ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া ১ মিনিট ৩৮ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে দেখা যায়, নির্যাতনকারীদের মধ্যে এক যুবক নারীর পরনে থাকা জামা কাপড় টেনে-হিঁচড়ে সম্পূর্ণ খুলে ফেলে। এ সময় ওই নারী বিছানার ছাদর, তোষক, খাটের ওপর থাকা বিভিন্ন কাপড় দিয়ে নিজের দেহ ঢেকে দেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু নির্যাতনকারীদের মধ্যে কয়েকজন চারদিক থেকে কাপড়গুলো টেনে সরিয়ে দেয়। এক যুবক নারীর মুখে বারবার লাথি মারে। একজন তার মুখ ও বুকের বিভিন্ন স্থানে কামড় দেয়। এক যুবক নারীর গোপনাঙ্গে বারবার হাত দেয় ও আঘাত করে। আরেক যুবক তার গলা চেপে ধরে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করে। নির্যাতনকারীদের বারবার বাবা ডেকেও রক্ষা পাননি ওই নারী।

ভিডিওটি দেখে একাধিক ব্যক্তি জানান, স্থানীয় দেলোয়ার বাহিনীর প্রধান দেলোয়ার ও তার সেকেন্ড ইন কমান্ড বাদল, কালাম, সাইফুদ্দিন, রহিম ও সুমনসহ ৬-৭ ওই নারীর ওপর এ নির্যাতন চালিয়েছে। নির্যাতনকারী দেলোয়ার ও তার বাহিনীর লোকজনের গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় এলাকাবাসী।

বেগমগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারুনুর রশিদ চৌধুরী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভিডিও দেখে পুলিশ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে সন্ধ্যায় অভিযান চালিয়ে আব্দুর রহিম নামের নির্যাতনকারী দলের এক সদস্যকে আটক করা হয়েছে। পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আবদুর রহিম ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে।’

নোয়াখালী পুলিশ সুপার মো. আলমগীর হোসেন বলেন, ‘ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের মধ্যে একজনকে আটক করা হয়েছে। বাকিদেরকে আটকের চেষ্টা চলছে। এ নেক্কারজনক ঘটনার সঙ্গে জড়িতরা যতই ক্ষমতাধর হোক না কেন, তাদেরকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি প্রদান করা হবে।

সলঙ্গায় ২ নারীসহ ৪ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

সিরাজগঞ্জ জেলার সলঙ্গা থানা এলাকায় এক মাদক বিরোধী বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে ৮১ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ মোছাঃ সানজিদা খাতুন(২২), মোঃ শাহাদত ইসলাম খায়রুল(১৯), মোঃ রাজু অহম্মেদ(২২) এবং মোছাঃ জেসমিন খাতুন(৩০) নামের চারজন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার করেছে স্পেশাল কোম্পানী, র‌্যাব-১২ এর সদস্যগন।

এ সময় তাদের নিকট হইতে ৮১ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট, ০৩ টি মোবাইলসেট, ০৬ টি সিমকার্ড উদ্ধার করা হয়।

শনিবার সকালে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে স্পেশাল কোম্পানী কমান্ডার এএসপি মহিউদ্দিন মিরাজ।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত শুক্রবার (০২ অক্টোবর) ৭ টা ১০ মিনিটে লঙ্গা-নিমগাছী আঞ্চলিক সড়কের নতুন পাড়া সলঙ্গা গ্রামস্থ কবরস্থানের পূর্ব পাশে অভিযান পরিচালনা করে ইয়াবা ট্যাবলেটসহ তাদেরকে হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়।

পরবর্তীতে উদ্ধারকৃত আলামত ও গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জ জেলার সলঙ্গা থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে।

শাহজাদপুরে গ্রামবাসীর হাতে ৪ গরুচোর আটক

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে গরু চুরি করে পালানোর সময় ৪ গরুচোরকে গ্রামবাসী আটক করে পুলিশে দিয়েছে। গরু চোরের উৎপাতের গ্রামবাসী দীর্ঘদিন রাত জেগে পাহারা দেয়ার পর গতকাল সোমবার মধ্যরাতে তাদের আটক করতে সক্ষম হয়েছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত ২ মাসে এ গ্রামের ৯টিসহ আশপাশের গ্রামের প্রায় ২৫টি গরু চুরি হয়। এতে গ্রামবাসী দীর্ঘদিন ধরে গরু চুরি ঠেকাতে রাত জেগে গ্রাম পাহারা দিচ্ছিল। এ পাহারায় সোমবার মধ্যরাতে ইঞ্জিনচালিত শ্যালো নৌকাযোগে ওই ৪ চোর আব্বাস আলী খাজার গোয়াল ঘর থেকে ৪টি গরু চুরি করে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় পাহারাদাররা তাদের ধাওয়া করে আটক করে।

আটককৃতরা হলো শাহজাদপুর উপজেলার রূপপুর পুরানপাড়া গ্রামের মোস্তফা কামাল ওরফে শামীম ওরফে তুষার ওরফে তুহিন (৪৪), রতনকান্দি উত্তরপাড়া গ্রামের সবুজ(২৭), আশিক (১৯) ও বাগধুনাইল গ্রামের সাদেকুল (২৯)।

পুলিশ রাতেই ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই ৪ চোরকে গ্রেফতার করে থানায় আনার চেষ্টা করলে গ্রামবাসীর রোষানলে পড়ে। এমন সংবাদ পেয়ে ওসি শাহিদ মাহমুদ রাতেই ঘটনাস্থলে যান এবং রোষানলে পড়া ৩ পুলিশকে উদ্ধারসহ চোরদের গ্রেফতার করা হয়। সেইসাথে রাত জেগে চোর আটক করে সাহসী ভুমিকা রাখায় কৃষক আব্বাস আলী খাজাকে নগদ ৫’শ টাকা পুরস্কার দেন ওসি।

শাহজাদপুর থানার ওসি শাহিদ মাহমুদ বলেন, ইতিপূর্বে এ গ্রামে গরু চুরির ঘটনায় থানায় কেউ অভিযোগ করেনি। এ কারণে কোন ব্যবস্থাও নেয়া সম্ভব হয়নি। তিনি আরো জানান, আটকৃতদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের হয়েছে।

বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রি ! উল্লাপাড়ায় ১০ ব্যবসায়ীকে জরিমানা

বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রির দায়ে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় ১০ ব্যবসায়ীকে মোট ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)-১২ সিরাজগঞ্জ ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত কোম্পানি কমান্ডার ও মিডিয়া অফিসার মো. এরশাদুর রহমান।

অর্থদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন কমল আহম্মেদ, মজনু মিয়া, মো. আলম, মো. শাখাওয়াত, রওশন, মো. মজিবুর, মানিক মিয়া, রিপন সাহা, রাধা রামন ও কামরুল উদ্দিন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত উল্লাপাড়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকার বাজারে অভিযান চালায় র‌্যাব। অভিযানে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের সহকারী পরিচালক মাসুদ আহম্মেদ অংশ নেন। বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রি এবং মজুদ করার দায়ে এ সময় ১০ দোকান মালিককে জরিমানা করা হয়।

শাহজাদপুরে ভুয়া এনজিও কর্মী আটক

বেড়া থানা পুলিশের সহায়তার শাহজাদপুর থানা পুলিশ পিডিএফ নামক ভুয়া এনজিও’র কর্মী নাজমুল রহমান নাইম (২৫) নামের এক প্রতারককে গ্রেফতার করেছে।  মঙ্গলবার সকালে তার বিরুদ্ধে শাহজাদপুর থানায় একটি মামলা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত নাজমুল রহমান নাইম পাবনা জেলার আমিনপুর থানার টাংবাড়ি এলাকার মতিউর রহমানের ছেলে। এদিন দুপুরে তাকে সিরাজগঞ্জ জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, প্রতারক নাজমুল দীর্ঘদিন ধরে উপজেলার বাঘাবাড়ী মোল্লাপাড়া মহল্লায় নিজেকে পিডিএফ নামক এনজিওর কর্মী পরিচয় দিয়ে অধিক মুনাফার লোভ দেখিয়ে সদস্য ও আমানত সংগ্রহ করে আসছিলো। একপর্যায়ে গত সোমবার সকালে একই মহল্লার ১০ জন মহিলাকে সদস্য বানিয়ে তাদের কাছ থেকে ১৯ হাজার ৫’শ টাকা আমানত সংগ্রহ করে পাশর্^বর্তী উপজেলা বেড়ায় চলে যায়। তার কর্মকান্ডে এলাকাবাসীর সন্দেহ হলে পিছু নিয়ে বেড়া কানাইবাড়ী মোড় এলাকা থেকে তাকে আটক করে গনধোলাই দিয়ে বেড়া থানা পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে বেড়া থানার এসআই রতন কুমার সরকার ওই প্রতারকে আটক করে শাহজাদপুর থানা পুলিশে হস্তান্তর করে। ধৃত ভুয়া এনজিও কর্মী নাজমুলের কাছ থেকে এসময় পুলিশ ভুয়া এনজিও পিডিএফের ১৩টি সঞ্চয় ও পাস বহি ও নগদ ১৯ হাজার ৫’শ টাকা উদ্ধার করে। এ ঘটনায় বাঘাবাড়ী মোল্লাপাড়া মহল্লার মোন্নাফ বাদী হয়ে মঙ্গলবার সকালে শাহজাদপুর থানায় প্রতারণার অভিযোগ এনে একটি মামলা করে।

শাহজাদপুরে ইয়াবাসহ ০৫ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

সিরাজগঞ্জ জেলার শাহাজাদপুর থানাধীন এলাকা থেকে ৫ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১২ সদস্য।

জানা যায়, রবিবার (১৩ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৫.৩০মিনিটে সময় গোপন সাংবাদের ভিত্তিতে সদর কোম্পানীর ভারপ্রাপ্ত কোম্পানী কমান্ডার, (মিডিয়া অফিসার) সহকারী পুলিশ সুপার এরশাদুর রহমান এর নেতৃত্বে র‌্যাব-১২ এর সদর কোম্পানীর একটি আভিযানিক দল সিরাজগঞ্জ জেলার শাহাজাদপুর থানাধীন দরগাপাড়া দারুল খুলদ সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার সামনে এক মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে ০৫ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সিরাজগঞ্জ জেলার শাহাজাদপুর থানার সাহাপাড়া গ্রামের মৃত সুনিল চন্দ্র সাহা ছেলে শ্রী বিকাশ চন্দ্র() দরগাপাড়া গ্রামের সিরাজুল ইসলাম ছেলে সৈকত(২৫), আন্ধারকোটাপাড়া গ্রামের আবুসামার ছেলে লিমন মিয়া(২৬), চুনিয়াখালিপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল আউয়াল ছেলে জাহাঙ্গীর সরকার(২৪), চুনিয়াখালিপাড়া গ্রামের ফুলচাঁন এর ছেলে শামছুল ইসলাম(২২), কে ১১৮ পিস ইয়াবা, ৩ টি মোবাইল, ৪ টি সিমসহ গ্রেফতার করে র‌্যাব ১২ সদস্য।

গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জ জেলার শাহাজাদপুর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন মামলা ও উদ্ধারকৃত আলামতসহ তাদেরকে উক্ত থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

সিরাজগঞ্জে ইয়াবাসহ আ’লীগ নেতা আটক

মাদক বিরোধী অভিযান চালিয়ে সিরাজগঞ্জে ২০০ পিস ইয়াবাসহ পৌর আ’লীগের সদস্য মাহবুবুর রহমান (৪৮) নামের এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব-১২ সদস্যরা।
বৃহস্পতিবার (২৭আগষ্ট) এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে কোম্পানী কমান্ডার সহকারী পুলিশ সুপার মো: এরশাদুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
আটককৃত মাহবুবুর রহমান সিরাজগঞ্জ পৌর আওয়ামীলীগের কার্যনিবাহী কমিটির সদস্য ও ১০নং ওয়ার্ড আ’লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবং জেসি রোড ধানবান্ধী গ্রামের মৃত আকবর মিয়ার ছেলে।
প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি দীর্ঘদিন ধরে মাদক ব্যবসা করে আসছিলো। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পৌর এলাকার মাসুমপুর উত্তরপাড়ায় অভিযান চালিয়ে মাহবুবকে আটক করা হয় এসময় তার কাছ থেকে ২০০ পিস ইয়াবা, ২টি মোবাইল, ২টি সিম এবং নগদ ১ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়।
পরবর্তীতে উদ্ধারকৃত আলামতসহ সদর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।