শাহজাদপুরে অবৈধ ড্রেজারে সড়ক ভেঙে হাজারো মানুষের চলাচল স্থবির

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে অবৈধ ড্রেজারে বালু ব্যাবসায়ীদের দৌড়াত্ব দিন দিন বেড়েই চলেছে। এর ফলে সাধারণ মানুষ দিনের পর দিন ক্ষতিগ্রস্ত হলেও তারা কোথাও কোন প্রতিকার পাচ্ছে না। সম্প্রতি অবৈধ ড্রেজারের নিষ্কাশিত পানির চাপে হাজারো মানুষের চলাচলের একমাত্র সড়ক সম্পূর্ণ ভেঙে গেছে।

উপজেলার পোরজনায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ইউনিয়ন পরিষদের ২শো গজ দক্ষিণে চর-বাচঁড়া গ্রামের প্রবেশ পথের অবৈধ ড্রেজারের মাধ্যমে জুলফিকার ও সাহাদাতে খালে বালু ফেলা হচ্ছে। এতে ড্রেজারের পানির চাপে পোরজনা থেকে চর-বাচঁড়া গ্রামের প্রবেশের একমাত্র সড়কটি ভেঙে গেছে। এর ফলে এই পথে যানবান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে এবং পায়ে হেঁটেও ভাঙ্গা অংশটি অতিক্রম করা যাচ্ছে না।

ড্রেজারে বালু ক্রয় করে খাল ভরাটকারী জুলফিকার ও বাবলু জানান, রমজানের ড্রেজারে হানিফ, নুর ইসলাম ও খোকনের মাধ্যমে এই বালু আমি ফেলছি। তিনি আরো বলেন সব জায়গায় কথা বলেই কাজ করছি। রাস্তা ভেঙে মানুষের চলাচল বন্ধের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, সরকারি রাস্তা ভাঙলে সরকার‌ই ঠিক করবে।

এই পথে চলাচলকারী পথচারীরা জানান, রাস্তা ভেঙে যাওয়ায় আমরা চলাচল করতে পারছিনা। রিকশা ভ্যান ও অন্যান্য যানবাহন চলাচলও বন্ধ হয়ে গেছে। আমাদের উৎপাদিত বিভিন্ন পন্য ও দুধ পরিবহন করতে অবর্ণনীয় দূর্ভোগ পোহাতে হয়। গর্ভবতী নারী ও অসুস্থ রোগীদের চিকিৎসা কেন্দ্রে নেওয়া কষ্টসাধ্য হয়ে পরেছে। তারা আর‌ও বলেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের প্রত্যক্ষ মদতেই তার আত্মীয় ড্রেজার চালাচ্ছে।

এই বিষয়ে পোরজনা ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোঃ উসমান গনি কে প্রশ্ন করা হলে তিনি প্রথমেই এই প্রতিনিধিকে পাল্টা প্রশ্ন করে বলেন আপনার উদ্দেশ্য কি। তারপর তিনি জানান, এই বিষয়ে আমি কিছুই জানিনা, কেউ আমাকে কিছু বলেনি। অথচ ঘটনাস্থল ইউনিয়ন পরিষদের পাশেই।

বিষয়টি নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মোঃ সামসুজ্জোহা কে মুঠোফোনে জানানো হলে তিনি ব্যাবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ মাসুদ হোসেনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি রাস্তা ভাঙার বিষয়ে কর্ণপাত না করে ড্রেজার চালু এখনও আছে কিনা জিজ্ঞাসা করেন। এবং ড্রেজার পরিচালনা কারীদের নাম ঠিকানা জানতে চান।

প্রতারক জেমি খাতুন আটকে সিরাজগঞ্জে স্বস্তি

প্রতারনা করে নিজেকে কখনো প্রধানমন্ত্রীর কথিত মেয়ে, কখনো আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের বন্ধু, আবার কখনো বা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছের মানুষ পরিচয় দিয়ে মানুষকে নানাভাবে হয়রানি ও প্রতারিত করে আসছিলেন সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার মেয়ে জেমি পারভীন।

দেশের বিশিষ্ট মানুষদের সাথে ছবি উঠে তা ফেসবুকে আপলোড দিয়ে নিজেকে তাদের আপনজন হিসেবে দাবি করত সে। কৌশলে এসব পরিচয় ব্যবহার করে সে অনেক প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের জিম্মি করে রেখেছিল। আর ফেসবুকের নিজস্ব ওয়ালে বিভিন্ন মানুষ সম্পর্কে কটূক্তিসহ নানা ধমক-ধামক লেখা থাকতো।

জেমির ইচ্ছেমতো না চললে এলাকার সাধারণ মানুষকে পড়তে হতো নানা ঝামেলায়। তার অপছন্দের লোকদের বিরুদ্ধে মিথ্যা ধর্ষণ, হত্যাচেষ্টা, ও অপহরণের মামলা করা হতো। তারপর এই মামলা মেটাতে অভিযুক্ত এসব লোকদের গুনতে হতো মোটা অংকের টাকা। মাঝে মাঝে তিনি নানা তদবিরের নামে অনেকের কাছ থেকেই নিয়েছেন মোটা অংকের টাকা। সেইসব টাকাতে জেমি ঢাকাসহ উল্লাপাড়া, শাহজাদপুরের গড়ে তুলেছেন অন্তত চারটি বাড়ি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে নিজের তোলা ছবি দেখিয়ে থানার কর্মকর্তাদের তিনি প্রভাবিত করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছেন স্থানীয়দের।কেন্দ্রীয় রাজনীতিতে নিজে শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছেন এমন ভাবেই নিজেকে জাহির করে তার ফেসবুক ওয়ালে স্থানীয় নেতৃবৃন্দের নামে নানা কটুক্তি প্রচার করেছেন। কখনো কখনো অপছন্দের লোককে মেরে ফেলার হুমকিও দিয়েছেন তার ফেসবুক ওয়ালে।
ঢাকার তেজগাঁও থানায় করা প্রতারণা মামলায় গত ৬ই সেপ্টেম্বর ঢাকার সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল বিভাগ তাকে গ্রেফতার করার পর তার নিজ এলাকার ভুক্তভোগী অনেকেই এখন মুখ খুলতে শুরু করেছেন ।

তবে তার মা সোনাভান বেগমের দাবি, তার মেয়ে নিরাপরাধ। মিথ্য অভিযোগে তাকে আটক করা হয়েছে। স্থানীয় গাাদড়হ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম জানালেন বিগত সময়ে জেমির জন্য বেশ কয়েকটি সালিশ বৈঠক হয়েছে। তবে জেমির অধিকাংশ অভিযোগ মিথ্যা এবং ভিত্তিহীন বলে প্রমাণিত হয়েছে । থানায় দায়ের করা মামলাগুলো মিথ্যে বলে তিনি জানান।

সিরাজগঞ্জের জেলা পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম জানান জেমি পারভীনের বিগত সময়ের রেকর্ড যাচাই-বাছাই চলছে। তবে এখন পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এদিকে জেমি পারভীনের আটকের খবরে স্বস্তির মিলেছে শাহজাদপুর এবং উল্লাপাড়া উপজেলার ভুক্তভোগিদের। ইতিমধ্যেই তার বিচারের দাবিতে এলাকাবাসী মানববন্ধন করেছেন। ভুক্তভোগী এইসব মানুষেরা সঠিক তদন্ত করে তার বিচারের দাবি জানিয়েছেন।

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার তালগাছি এলাকার মানুষেরা এখনো জেমি পারভিনকে জানে সন্দেশ ওয়ালার মেয়ে নাবিয়া খাতুন নামে। তার ছোট বেলার সময় কেটেছে তালগাছি স্কুলের সামনে তার বাবার সাথে সন্দেশ বিক্রির করে। মাঝে মাঝে নাবিয়া গান গাইতো। বয়স বাড়ার সাথে সাথে নাবিয়া হয়ে ওঠে জেমি পারভীন।

ইতিমধ্যেই জেমি বিয়ের পিঁড়িতে বসেছেন চার বার। সবশেষ তিনি আস্তানা গাড়েন ঢাকায়। নিজের গাওয়া গান নিয়ে হাজির হন আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে। চাতুরতার সাথে সখ্য বাড়ান আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতাদের সাথে। তাদের সাথে ছবি তুলে তা ফেসবুকে আপলোড করে নিজেকে প্রচার করেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের একজন নারী নেত্রী হিসেবে।

চেক লেনদেনের নতুন নিয়ম

চেকদাতা ও গ্রহীতার মধ্যে লেনদেন সম্পর্কিত কোনো বৈধ চুক্তি প্রমাণ করতে না পারলেও এখন থেকে চেক ডিজঅনার হলেই সাজা হবে না মর্মে রায় দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) এ সংক্রান্ত একটি পূর্ণাঙ্গ রায় প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ থেকে প্রকাশ হয়েছে।

এ রায়ের ফলে এখন থেকে বাদীকেই প্রমাণ করতে হবে কী চুক্তিমূলে বা বিবেচনায় চেকদাতা চেক ইস্যু করেছিলেন এবং সেই চুক্তিটি ব্যর্থ হয়নি, যার কারণেই বিবাদীর কাছে বাদীর পাওনা বলবৎ রয়েছে।

জানা গেছে, আগে চেক ডিজঅনার হলে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই চেকদাতার সাজা হতো। চেকমূলে চেকগ্রহীতার টাকা পাওয়ার কোনো কারণ আছে কি না, সেটি দেখার বাধ্যবাধকতা বা দিক নির্দেশনা ছিল না। এখন থেকে চেকগ্রহীতাকে প্রমাণ করতে হবে যে, চেকদাতা ও চেকগ্রহীতার মধ্যে লেনদেন সম্পর্কিত কোনো বৈধ চুক্তি ছিল কি না। সে চুক্তির শর্ত তিনি পূরণ করেছেন কিনা। তাহলেই কেবল চেক ডিজঅনার মামলায় সাজা হবে।

গত ১৮ ফেব্রুয়ারি এ সংক্রান্ত এক আপিল নিষ্পত্তি করে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ এ রায় দেন। যার পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশিত হয়।

আপিল বিভাগের এ রায়ের ফলে চেকদাতারা তাদের নির্দোষ প্রমাণের একটা সুযোগ পেল। এছাড়া এ রায়ের ফলে চেক সংক্রান্ত মামলায় বিচার প্রার্থীদের ভোগান্তি ও হয়রানি কমবে বলে আশা করা হচ্ছে।

শাহজাদপুরে ৪৯ বোতল ফেনসিডিলসহ ৩ মাদক ব্যাবসায়ী আটক

শাহজাদপুরে ফেনসিডিলসহ তিন মাদককারবারিকে আটক করেছে শাহজাদপুর থানা পুলিশ। শাহজাদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ শাহিদ মাহমুদ খানের নির্দেশনায় এসআই মোঃ খলিলুর রহমান, এসআই মোঃ এসলাম আলী আলী, এএসআই মোঃ মেহেদুল ইসলাম, এএসআই কাঞ্চন কুমার সহ পুলিশের একটি দল অভিযান চালিয়ে সোমবার (৭ সেপ্টেম্বর) রাতে উপজেলার পৌর সদরের বিসিক বাস স্ট্যান্ড থেকে তাদের আটক করে থানায় নিয়ে আসেন। এ সময় তাদের কাছ থেকে ৪৯ বোতল ফেনসিডিল, তিনটি মোবাইল ও নগদ ৯ হাজার ৮৭০ টাকা জব্দ করা হয়।

আটক তিনজন হলেন- পাবনা জেলার বেড়া উপজেলার মরিচা পড়ার মোঃ শাহিন, মোঃ আল মাবুদ ও মোঃ আলম শেখ। তাদের বিরুদ্ধে শাহজাদপুর থানায় মাদক আইনে মামলা হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেলে শাহজাদপুর থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহিদ মাহমুদ খান প্রেস ব্রিফিং করে জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা জানতে পারি যে তিনজন মাদক কারবারি বিক্রয় নিষিদ্ধ ভারতীয় নেশাজাত দ্রব্য ফেন্সিডিল নিয়ে পাবনা এক্সপ্রেসে নামে একটি গাড়িতে করে পাবনার উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছে। তখন শাহজাদপুর থানা পুলিশের একটি দল অভিযান চালিয়ে তিন মাদককারবারিকে আটক করে। এ সময় তাদের থেকে ৪৯ বোতল ফেনসিডিল, তিনটি মোবাইল ও নগদ সাড়ে ৯ হাজার ৮৭০ টাকা জব্দ করা হয়।

শাহজাদপুরসহ সিরাজগঞ্জের ৩ থানার ওসিকে বদলি

সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুর ও চৌহালী উপজেলা এবং এনায়েতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত তিন পুলিশ কর্মকর্তাকে (ওসি)’র বদলি করা হয়েছে।

বদলির আদেশ প্রাপ্ত কর্মকর্তারা হলেন, শাহজাদপুর ওসি মো. আতাউর রহমান, এনায়েতপুরের ওসি মোল্লাহ মাসুদ রানা এবং চৌহালী থানার ওসি রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস।

এরমধ্যে এনায়েতপুর ও শাহজাদপুর থানায় দায়িত্বরত দুই ওসিকে অদল-বদল করা হয়েছে। আর চৌহালীর রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাসকে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে।

পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম স্বাক্ষরিত এক আদেশে তাদের ৩ জনকে জেলার ভেতরেই বদলি করা হয়। বুধবার বিকেলে এ আদেশ স্বাক্ষরিত হলেও বৃহস্পতিবার তাদের বদলির বিষয়টি কার্যকর হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

বদলির বিষয়টি নিশ্চিত করে বৃহস্পতিবার দুপুরে পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম বলেন, ‘যেহেতু তিনজনই দায়িত্বপালন কালে নিজ নিজ কর্মস্থলে কিছুটা সমস্যা তৈরি করেছেন, তাই আপাতত তাদের জেলার মধ্যেই বদলি করা হলো। এ আদেশ পুলিশের প্রতি স্থানীয় জনসাধারণের অবিচল আস্থা তৈরিতে রুটিন বদলি।’

অভিযোগ আছে, সম্প্রতি বাঘাবাড়ি নৌবন্দরের ইজারাদার আব্দুস সালামের সঙ্গে দ্বন্দ্বের জেরে অনৈতিক প্রভাবে দুষ্ট হয়ে শ্রমিক সাদ্দাম হোসেনকে মারধর করে থানায় ধরে আনেন শাহজাদপুরে ওসি আতাউর রহমান। এর প্রতিবাদে ওসি আতাউর রহমানের অপসারণের দাবিতে উত্তরবঙ্গ ট্যাঙ্ক লরি শ্রমিক নেতারা বাঘাবাড়ি নৌবন্দর ও পাবনা-ঢাকা মহাসড়কে বিক্ষোভ করেন।

অন্যদিকে, গ্রামীণ সংঘাতের বিষয় নিয়ে শাহজাদপুরে গত ৪ মাসে বেশ কিছু সংঘর্ষের ঘটনায় ৫ নিরীহ গ্রামবাসী নিহত হন। ওইসব ঘটনায় একাধিক মামলা হলেও প্রকৃত আসামিরা এখনও অধরা। ওইসব ঘটনায় ওসি আতাউর রহমানের পুলিশিং দক্ষতা নিয়েও বিভিন্ন ফোরামে বার বার আলোচনা হয়।

অপরদিকে, এনায়েতপুর থানার ওসি মোল্লাহ মাসুদ রানার বিরুদ্ধে বিধিভঙ্গ করে করোনাকালীন সময়ে সরকারি গাছ কাটার অভিযোগ উঠে। বিভাগীয় তদন্ত হলেও করোনা আক্রান্ত হওয়ায় তার শাস্তির বিষয়টি মানবিক ও শিথিল করে দেখা হয়।

এছাড়া, চৌহালীর চরাঞ্চলে অবাধে মাদক কেনাবেচার বিষয়ে সম্প্রতি স্থানীয় এমপির কাছে পুলিশের ঢিলেঢালা অভিযানের বিষয়ে আক্ষেপ করেন স্থানীয়রা। মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান নিয়েও স্থানীয় এমপির বিরাগভাজন হন ওসি রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস।

এছাড়া, করোনাকালীন সময়ে নদী ভাঙনের অজুহাতে স্থানীয় দু’ইউপি চেয়ারম্যান সরকারি রাস্তায় সওজের শতাধিক গাছ কাটেন। গাছ চুরির ঘটনায় তদন্তের নামে গড়িমসি ও কালক্ষেপণ করেন ওসি। এসব একাধিক ঘটনায় রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাসের দক্ষতা ও যোগ্যতা নিয়ে স্থানীয়ভাবে নানা প্রশ্ন দেখা দেয়।

তথ্যসুত্রঃ বাংলা ট্রিবিউন

প্রায় দেড়যুগ পর শাহজাদপুর ছাত্র দলের আহবায়ক কমিটি গঠন

প্রায় দেড়যুগ পরে বাংলাদেশ জাতীয়বাদী ছাত্রদল শাহজাদপুর উপজেলা শাখার আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে।

আজ শনিবার (২২আগষ্ট) সিরাজগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মোহাম্মদ জুনায়েদ হোসেন সবুজ ও সাধারণ সম্পাদক সেরাজুল ইসলাম সেরাজ স্বাক্ষর করে এ আহবায়ক কমিটি অনুমোদন দিয়েছেন।

শাহজাদপুর উপজেলা শাখা ছাত্রদলের আহ্বায়ক করা হয়েছে মোঃ আল মামুন হোসেন জুয়েল কে ও ১নং যুগ্ন আহ্বায়ক করা হয়েছে হোসাইন আলীকে।এ কমিটতে মোট ১০জনকে যুগ্ম আহবায়ক করা হয়েছে। সদস্য সচিব করা হয়েছে মোঃ মাজহারুল ইসলাম (মাজাকে) এই আহবায়ক কমিটিতে সাধারণ সদস্য হিসেবে আছে ৯জনের নাম।

নবগঠিত কমিটিকে আগামী ৬০ দিনের মধ্যে তাদের অধীনস্থ ইউনিট কমিটি গঠন করে সিরাজগঞ্জ জেলা ছাত্রদল বরাবর জমা দেওয়ার নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।

আগামীকাল শাহজাদপুর সরকারি কলেজ জামে মসজিদের মামলার রায়

শাহজাদপুর সরকারি কলেজ জামে মসজিদ

১৯৬৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর সরকারি কলেজ। শাহজাদপুর সরকারি কলেজের পশ্চিম পাশে একটি মসজিদ আছে যা শাহজাদপুর সরকারি কলেজ মসজিদ নামেই চেনে। তৎকালীন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আঃ মান্নান শাহজাদপুর সরকারি কলেজ জামে মসজিদের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করে ৫০হাজার টাকা অনুদান দেন।

মসজিদের সামনের বড় করে লেখা আছে ‘শাহজাদপুর সরকারি কলেজ জামে মসজিদে’  উক্ত কলেজের ছাত্র শিক্ষক সহ শাহজাদপুরের দ্বারিয়াপুর, মনিরামপুর বাজারের ব্যাবসায়ীসহ আশপাশের মুসল্লিরা নামাজ আদায় করে আসছেন।

মসজিদটি যে জায়গায় নির্মিত হয়েছে পুর্বে তা সরকারি সম্পত্তি ছিলো। শাহজাদপুর সরকারি কলেজ জামে মসজিদ সম্পূর্ণরূপে দ্বারিয়াপুর মৌজার আর এস ১০৬২৮ ও ১০৬২৪ দাগের উপর অবস্থিত। দ্বারিয়াপুর মৌজার ১০৬২৮ দাগের মধ্য হইতে. ২৫ একর ভূমি শাহজাদপুর সরকারি কলেজকে দীর্ঘমেয়াদি লিজ দেয় সরকার।

অপরদিকে শাহজাদপুর মারকাজ মসজিদকে ১২/০৫/২০০৮ ইংতারিখে শাহজাদপুর সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে রেজিস্ট্রিযুক্ত ৩২৯১/২০০৮ লিজ চুক্তির মাধ্যমে. ৩৩ একর জমি দীর্ঘ মেয়াদী লিজ চুক্তিপত্রের মাধ্যমে জমির লিজ দেয় সরকার। ঐ লিজ চুক্তিপত্র সংশোধন করে ১০৬২৮ দাগে.১৬৫০ একর সহ মোট.০৩৩ একর জমি দাবী করে সিরাজগঞ্জের ২য় যুগ্ন জেলা জজ আদালতে অপর প্রকার ৩৫/২০১০ নং মামলা শাহজাদপুর মার্কাজ মসজিদ এর সভাপতি বাদি হয়ে আদালতে দায়ের করেছিলেন। আদালত শাহজাদপুরে স্থানান্তরের পর মামলার পুনঃনম্বর হয় অপর প্রকার ২২৯/২০১৭ ।

মামলার ১নম্বর বিবাদী করা হয়েছে জেলা প্রশাসক সিরাজগঞ্জকে ২নং বিবাদি করা হয়েছে শাহজাদপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষকে।

মামলাটি প্রায় দশবছর চলার চলার পর বাদী-বিবাদীর উভয়পক্ষের সাক্ষী ও যুক্তিতর্ক শেষ হওয়ায় শাহজাদপুর যুগ্ন দায়রা জজ আদালতের বিচারক ১৯ আগষ্ট বুধবার রায় প্রকাশের জন্য দিন ধার্য করেছে।

শাহজাদপুর কোর্টের এজিপি এ্যাডভোকেট মোঃ আব্দুল আজিজ (জেলহক) এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নালিশী সম্পত্তির উপর শাহজাদপুর সরকারি কলেজ জামে মসজিদ থাকায় এটি একটি আলোচিত মামলা। রায় প্রকাশের মাধ্যমে অবসান হবে সকল আলোচনা সমালোচনা।

 

কানাডায় নতুন হাই কমিশনার শাহজাদপুরের সন্তান ড.খলিলুর রহমান

কানাডায় বাংলাদেশের নতুন হাইকমিশনার হিসেবে ড. খলিলুর রহমানকে নিয়োগ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। গতকাল রোববার (১৬ আগস্ট) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

তিনি বিসিএস ১৯৮৫ ব্যাচের (পররাষ্ট্র) ক্যাডার। বর্তমানে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ও করোনাভাইরাস সেলের প্রধান সমন্বয়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

পেশাদার কূটনীতিক হিসেবে তিনি দিল্লি ও জেনেভায় বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেছেন ড. খলিলুর রহমান। এছাড়াও তিনি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থায় (ডব্লিউএইচও) লিয়েনে দায়িত্ব পালন করেছেন। তাছাড়া দেশের বাইরে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অ্যাসাইনমেন্টে ছিলেন।

ড. খলিলুর রহমান পাবনা জেলা স্কুল থেকে এসএসসিতে রাজশাহী বোর্ডে এ প্লেস অর্জন করেন ও কুমিল্লা ক্যাডেট কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন এবং রাজশাহী মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি অর্জন করেছেন।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাস করার পর খলিলুর রহমান প্যারিসের সরবোন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও কূটনীতির ওপর মাস্টার্স ও এমফিল করেন। তিনি জনস্বাস্থ্যের ওপর দিল্লির জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি করেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বর্তমান অতিরিক্ত সচিব ও কানাডা অনুবিভাগের প্রধান সমন্বয়ক ড. খলিলুর রহমানকে কানাডায় বাংলাদেশের নতুন হাইকমিশনার হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে সরকার। বর্তমান হাইকমিশনার মিজানুর রহমানের স্থলাভিষিক্ত হবেন তিনি।

তিনি ১৯৬২ সালে ৩১ অক্টোবর সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুর উপজেলার রুপবাটী ইউনিয়নের ভুলবাকুটিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ৫ ভাইয়ের মধ্যে সর্বকনিষ্ঠ ড. খলিলুর রহমান। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি দুই সন্তানের জনক।

সাবেক আইন সচিবের মৃত্যুতে প্রধান বিচারপতি সহ বিভিন্ন মহলের শোক ও শ্রদ্ধা

বাংলাদেশ সরকারের সাবেক আইন সচিব শাহাজাদপুরের কৃতি সন্তান শেখ জহিরুল হক দুলাল বুধবার রাতে মৃত্যুবরণ করেন। রাতেই তার মরদেহ নিয়ে আসা হয় তার জন্মস্থান সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে। বৃহস্পতিবার দুপুরে স্থানীয় শাহজাদপুর সরকারি কলেজ মাঠে নামাজে জানাযা অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগের সাবেক সচিব আবু সালেহ শেখ মোঃ জহিরুল হক এর মৃত্যুতে মাননীয় প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের পক্ষে শোক জ্ঞাপন করে মরহুমের কফিনে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন সিরাজগঞ্জের মাননীয় জেলা ও দায়রা জজ জনাব ফজলে খোদা মোঃ নাজির।

বাংলাদেশ সরকারের আইনমন্ত্রী মন্ত্রী জনাব আনিসুল হক, এম.পি পক্ষে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন সিরাজগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল ২ এর বিচারক জনাব মোঃ আব্দুলাহ আল মামুন।

আইন ও বিচার বিভাগ, আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব জনাব মো: গোলাম সারওয়ারের পক্ষে শোক জ্ঞাপন করে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জনাব মোঃ শাহাদৎ হোসেন প্রামানিক।

এছাড়া বিচার বিভাগ সিরাজগন্জের পক্ষ থেকে শোক জ্ঞাপন করে পুস্পস্তবক করেন সিরাজগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ জনাব ফজলে খোদা মোঃ নাজির ও অন্যান্য বিচারকবৃন্দ।

শোক প্রকাশ করেছেন শাহজাদপুর সংবাদ ডটকম এর ব্যবস্থাপনা সম্পাদক শরীফ সরকার ও প্রধান সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল বাশার।

এছাড়াও শোক প্রকাশ করেছেন স্থানীয় এমপি আলহাজ হাসিবুর রহমান স্বপন, সাবেক এমপি চয়ন ইসলাম।

সিরাজগঞ্জ জেলা আইনজীবি সমিতি ও শাহজাদপুর উপজেলা আইনজীবি সমিতির শাহজাদপুর সহকারি কমিশনার ভুমি মাসুদ হোসেন পক্ষ থেকেও পুস্পস্তবক অর্পন করা হয়।

সিরাজগঞ্জ জেলা পুলিশ, স্থানীয় রাজনৈতিক ও বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকেও পুষ্পস্তবক অর্পন করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

২০১৫ সালের ২ ফেব্রুয়ারি জহিরুল হক আইন ও বিচার বিভাগের সচিব হিসেবে নিয়োগ পান। চাকরির মেয়াদ শেষ হলে ২০১৭ সালের ৬ আগস্ট তাকে দুই বছরের জন্য সচিব হিসেবে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেওয়া হয়। রাষ্ট্রপতির অনুমোদনক্রমে অবসরোত্তর ছুটি বাতিল করে ওই পদে নিয়োগ দেওয়া হয় তাকে। তার চাকরির মেয়াদ গত বছর ৭ আগস্ট শেষ হয়।

আবু সালেহ শেখ মো. জহিরুল হক ১৯৫৮ সালের ৮ আগস্ট সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার দুগালি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা মৃত ফজলুল হক ও মা শামসুন নাহার। ১৯৭৫ সালে রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড থেকে এসএসসি ও একই বোর্ড থেকে ১৯৭৭ সালে এইচএসসি পাস করেন। পরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৮২ সালে তিনি এলএলবি (সম্মান) ডিগ্রি অর্জন করেন।

শাহজাদপুর পা‌ইলট এস‌এসসি ২০০২ ফ্রেন্ডস এসোসিয়েশনের দরিদ্রদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ

শাহজাদপুর পা‌ইলট এস‌এসসি ২০০২ ফ্রেন্ডস এসোসিয়েশনের দরিদ্রদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ

শাহজাদপুর সরকারি মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় এর প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের সংগঠন “শাহজাদপুর পাইলট এস‌এসসি ২০০২ ফ্রেন্ডস এসোসিয়েশন” কর্তৃক গরিব দুঃস্থ অসহায় ও বন্যাদূর্গত ২৫০ পরিবারের মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী ও করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে।

আজ শুক্রবার (৩১জুলাই) শাহজাদপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে সকাল সাড়ে আটটায় “শাহজাদপুর পাইলট এস‌এসসি ২০০২ ফ্রেন্ডস এসোসিয়েশন” কর্তৃক আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ করা হয়। ঈদ উপহার সামগ্রীতে রয়েছে চাউল, আলু, তেল, চিনি, লবণ, চিড়া, সেমাই ও আটা।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন শাহজাদপুর সরকারি মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জনাব সাইফুল ইসলাম, প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন সহকারী কমিশনার ভূমি জনাব মাসুদ হোসেন। এছাড়াও অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকদের মধ্যে ছিলেন জনাব সমিরন চন্দ্র সরকার, জনাব আব্দুল মজিদ, জনাব আব্দুল হাই, আনোয়ার হোসেন ও দীপক কুমার।

সাবেক ছাত্র আসাদুজ্জামান সুমনের সঞ্চালনায় “শাহজাদপুর পাইলট এস‌এসসি ২০০২ ফ্রেন্ডস এসোসিয়েশন” এর অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন তানভির হাসান অপু, রানা, শোহেল রানা নিউটন, কামাল, আহমেদ কাজল, রাজীব আহমেদ রাসেল, ফারুক হাসান কাহার, হাসান মাহমুদ, রাজিব, মেহেদী হাসান সজীব, জামিল সরকার, আরিফুল ইসলাম আরিফ, হোসেন নুরুজ্জামান, হোসনে আরা জাহান, নয়ন বিশ্বাস, সবুজ, বাপ্পী, রনি, লোকমান, আনোয়ার, আক্তার, ফয়সাল প্রমূখ।

উল্লেখ্য “এস‌এসসি ২০০২ ও এইচএসসি ২০০৪” নামে ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে সারাদেশের এই শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন সামাজিক ও মানবিক সহায়তা কার্যক্রম পরিচালিত হয়।