শাহজাদপুরে ইউনিয়নভিত্তিক বঙ্গবন্ধু টি-টুয়েন্টি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে সরকারি মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বঙ্গবন্ধু টি-২০ ইউনিয়ন ক্রিকেট টুর্নামেন্ট- এর শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে।

রবিবার (১৭ ডিসেম্বর)সকালে উপজেলা ক্রিকেটার্স এ্যাসোসিয়েশন কর্তৃক আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, নবনির্বাচিত পৌর মেয়র মনির আক্তার খান তরু লোদী। এতে সভাপতিত্ব করেন, উপজেলা ক্রিকেট এ্যাসোসিয়েশন এর সভাপতি মারুফ হাসান সুনাম।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, শাহজাদপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শাহিদ মাহমুদ খান, শাহজাদপুর পৌর আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম শাহু, উপজেলা পৌর যুবলীগের আহ্বায়ক মাসুদুল হাসান মাসুদ।
এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে আগত রাজনৈতিক, সামাজিক নেতৃবৃন্দ।
উদ্বোধনী ম্যাচে বাঘাবাড়ী টাইগার্স একাদশ বনাম পোরজনা সূর্য তরুন একদশের বিপক্ষে মাঠে নামে। উদ্বোধনী খেলায় ১০৯ রানে জয়লাভ করে বাঘাবাড়ী টাইগার্স একাদশ।
উল্লেখ্য মাসব্যাপী এই টুর্নামেন্টে মোট ২৮টি দল অংশগ্রহণ করবে সবগুলো ম্যাচ শাহজাদপুর সরকারি মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হবে।

শাহজাদপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২, আহত ৩ জন

শুক্রবার (৮ জানুয়ারি) ভোর সাড়ে ৬ টায় বগুড়া-নগরবাড়ী মহাসড়কের শাহজাদপুর উপজেলার পাড়কোলা কাঠালতলার নামক স্থানে পিকআপের ধাক্কায় ২ মহিলা হোটেল শ্রমিক নিহত ও অপর ৩ যাত্রী আহত হয়েছে। নিহতরা হলেন, উপজেলার পাড়কোলা গ্রামের চাদু শেখের স্ত্রী কাজলী (৬০) ও মৃত আনিছ শেখের স্ত্রী সালেহা (৪০)। আহতরা হলেন, ভ্যানচালক আনছার আলী, ভ্যানচালকের স্ত্রী আয়শা ও যাত্রী মুক্তা। খবর পেয়ে স্থানীয় দমকল বাহিনীর সদস্যরা নিহত ২ মহিলার লাশ ও আহতদের উদ্ধার করে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, এদিন ভোরে বগুড়া-নগরবাড়ী মহাসড়কের পাড়কোলা থেকে অটোভ্যানে ওঠে শাহজাদপুরের একটি হোটেলে কাজের জন্য যাওয়ার পথে একটি দ্রুতগামী পিকআপ ( ঢাকা মেট্রো-ঠ-১১-৯০৬২) পেছন থেকে সজোরে অটোভ্যানে ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই ২ মহিলা হোটেল শ্রমিক নিহত ও অপর ৩ জন আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এ বিষয়ে শাহজাদপুর থানার ওসি (তদন্ত) কমল কুমার দেবনাথ জানান, ‘নিহত ২ মহিলা হোটেল শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করে পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে ও ঘাটক পিকআপ ভ্যান আটক করা হয়েছে।’

ইউএনও বরাবর রেলিং স্থাপনের আবদেন করেও মেলেনি প্রতিকার,শাহজাদপুরের সেই সড়কে আবারো প্রাণহানি

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলা হাবিবুল্লাহ নগড় ইউপির রতনকান্দি দক্ষিনপাড়া পুরাতন বাজার সংলগ্ন ব্রিজ উঠার সংযোগ সড়কে আরো একবার প্রাণহানীর ঘটনা ঘটেছে।

আজ (৩১ ডিসেম্বর)বৃহস্পতিবার দুপুরে অটোভ্যান উল্টে গিয়ে উপজেলার সদামারা গ্রামের আয়নাল প্রামানিকে পুত্র আঃ মজিদ ওরফে ধনী (৪৫) নিহত হয়েছে।
নিহতের ছোট ভাই আজিম প্রামানিক জানান অটোভ্যান চালিয়ে বাড়ী ফেরার সময় এ ঘটনা ঘটে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় খাদ থেকে সংযোগ সড়কের উচ্চতা প্রায় ত্রিশফুট।রেলিং না থাকায় অটোভ্যান উল্টে গিয়ে খাদে পরলে মৃত্যু হয় ভ্যানচালক আঃ মজিদ ওরফে ধনীর ।

এর আগে চলতি বছরের ২৪ জানুয়ারীতে ঐ ব্রিজের সংযোগ সড়ক থেকে অটোভ্যান উল্টে গিয়ে উপজেলার মোয়াকোলা গ্রামের আবুল কালামের মেয়ে ৩য় শ্রেনীর ছাত্রী মদিনা খাতুন নিহত হয়েছিলো।
সমতল রাস্তা থেকে ব্রিজে উঠার সংযোগ সড়কেন উচ্চতা বেশি এবং খাদ থেকে সংযোগ সড়কের উচ্চতা প্রায় ত্রিশ ফিট কিন্তু কোন রেলিং ব্যবস্থা না থাকায় মাঝে মধ্যে এখানে দুর্ঘটনা ঘটে।
ঐ দুর্ঘটনার ৪ দিন পর দুর্ঘটনা রোধে রেলিং স্থাপনের এর জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার জন্য দৈনিক একুশে সংবাদ এর স্টাফ রিপোর্টার সাংবাদিক এইচ এম আলাউদ্দিন ইউএনও বরাবর আবেদন করলে ইউএনও শাহ মোঃ শামসুজ্জোহা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা নিতে বললেও ১১ মাসেও পার হলেও এখনো রেলিং স্থাপনেন কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

আজকের দুর্ঘটনার পরে রেলিং স্থাপনের  বিষয়ে মতামতের জন্য ইউএনও শাহজাদপুরের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

দুর্ঘটনা রোধে দ্রুত ঝুঁকিপুর্ন এই সেতুর সংযোগ সড়কের দু পাশে রেলিং স্থাপনের দাবী জানিয়েছে এলাকাবাসী।

শাহজাদপুর পৌর নির্বাচনে আ;লীগের তরু লোদী বিজয়ী

ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা ও উৎসবমুখর পরিবেশে আজ সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) শাহজাদপুর পৌরসভা নির্বাচন সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

নির্বাচন চলাকালীন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও তার সমর্থকদের মধ্যে উত্তাপ উত্তেজনা থাকলেও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতার কারণে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী মনির আক্তার খান তরু লোদী (নৌকা) ২৯ হাজার ৮৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বিএনপি মনোনীত মাহমুদুল হাসান সজল (ধানের শীষ) পেয়েছেন ১ হাজার ৮৬৭ ভোট।

মেয়র পদে অপর দুই প্রার্থী জাতীয় পার্টির মোক্তার হোসেন (লাঙ্গল) ২৩৮ ভোট এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত প্রার্থী খন্দকার ইমরান (হাত পাখা) পেয়েছেন ১ হাজার ৮৭ ভোট।

সোমবার রাত সারে ৮টায় উপজেলা পরিষদের শহীদ স্মৃতি মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল ঘোষণা করেন সিরাজগঞ্জ জেলা রিটার্নিং অফিসার আবুল হোসেন।

এছাড়া পৌরসভার ৯ টি ওয়ার্ডের সাধারণ আসনে বিজয়ী কাউন্সিলররা হলেন ১ নং ওয়ার্ডে আছাব আলী (পাঞ্জাবী), ২ নং ওয়ার্ডে তৌহিদুর রহমান এ্যাপোলো (পাঞ্জাবী), ৩ নং ওয়ার্ডে জহরলাল হোসেন (উট পাখি), ৪ নং ওয়ার্ডে নাজমুল হোসেন (পাঞ্জাবী), ৫ নং ওয়ার্ডে মোস্তাফিজুর রহমান পিযূষ (উট পাখি), ৬ নং ওয়ার্ডে আবু শামীম সূর্য (উট পাখি), ৭ নং ওয়ার্ডে আল মাহমুদ প্রামানিক (উট পাখি), ৮ নং ওয়ার্ডে আব্দুর রউফ (পাঞ্জাবী), ৯ নং ওয়ার্ডে আফসার আলী শিকদার (উট পাখি)।

অন্যদিকে, ৩ টি সংরক্ষিত আসনে বিজয়ী মহিলা কাউন্সিলররা হলেন ১ নং ওয়ার্ডে শাহানাজ পারভীন (সিএনজি), ২ নং ওয়ার্ডে সিলভী পারভীন মিঠু (জবা ফুল), ৩ নং ওয়ার্ডে সাবিনা ইয়াসমিন ছবি (চশমা)। রিটার্নিং অফিসার আবুল হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে সকাল ৮ টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। পৌরসভার ৯ টি ওয়ার্ডের ২৫ টি কেন্দ্রেই ইভিএম-এ ভোট গ্রহণ করা হয়। প্রতিটি ভোট কেন্দ্রেই পুরুষ ও মহিলা ভোটারদের উপস্থিতি ছিল।

শাহজাদপুর পৌর নির্বাচন ভোট গ্রহন  বিএনপি প্রার্থীর নির্বাচন বয়কট

আজ সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।  সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে বিকাল ৪টার সময় শেষ হয়।

প্রথম ধাপে দেশে ২৫টি পৌরসভা নির্বাচনের মধ্যে  শাহজাদপুর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদের জন্য ৪ জন, ৯টি ওয়ার্ডের সাধারণ কাউন্সিলর পদে মোট ৩৮ জন, সংরক্ষিত ৩টি নারী কাউন্সিলর পদে ১৬ জন। মোট ৫৮ জন পুরুষ ও নারী প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন।
সরেজমিনে শাহজাদপুর পৌর শহরের দরগাহপাড়া মাদ্রাসা কেন্দ্র, পুকুরপার লক্ষীমতি স্কুল কেন্দ্র , পুকুরপাড় মুক্তিযোদ্ধা হাইস্কুল কেন্দ্র, পাইলট হাইস্কুল কেন্দ্র, গার্লস হাইস্কুল কেন্দ্র, নলুয়া স্কুল কেন্দ্র ও পারকোলা স্কুল কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে ভোট কেন্দ্র গুলোতে ভোটারদের সরব উপস্থিতি চোখে পরে।

এদিকে বেলা ৩টায় সাংবাদিকদের সামনে উপস্থিত হয়ে বিএনপি’র ধানের শীষ প্রতিকের প্রার্থী মাহমুদুল হাসান স্বজল নির্বচন প্রত্যাখ্যান করে বয়কটের ঘোষণা দেন। এসময় তিনি অভিযোগ করেন আওমীলীগের প্রার্থী ও তার সমর্থক আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীরা প্রতিটি কেন্দ্র দখলে নিয়ে ধানের শীষের প্রতিকের এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া হয় ভোটারদের ফিঙ্গার দেওয়ার পর নিজেরাই নৌকায় ভোট দিচ্ছে। তিনি আরো্ অভিযোগ করেন, কেন্দ্র দখলের সময় বিএনপির বেশ কয়েকজন নেতাকে মারধর করা হয়।
শীতকে উপেক্ষা করে সকাল থেকেই ভোটারদের উপস্থিতিও চোখে পরার মতো ছিল।
পুরুষ ভোটারদের তুলনায় নারী ভোটারদের উপস্থিতি বেশ দেখা গেছে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যে কোন বিশৃঙ্খলা এড়াতে পুলিশ, র্যা ব, ডিবি, বিজিবি , আনসার মোতায়েন রয়েছে।
সার্বক্ষণিক বেশ কয়েকজন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রের আইনশৃংখলা তদারকি করেছেন। জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহমেদ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মোঃ শামসুজ্জোহা পৌর এলাকার বিভি্ন্ন ভোট কেন্দ্র পরিদর্শন করেছেন।
সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ইভিএম এর মাধ্যমে বিরতিহীন ভাবে ভোট গ্রহণ চলবে। প্রথম শ্রেণির শাহজাদপুর পৌরসভার মোট ভোটার সংখ্যা ৫১ হাজার ৮৬। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ২৫ হাজার ৩৭১ এবং মহিলা ভোটার ২৫ হাজার ৭১৫ জন। ২৫টি কেন্দ্রের ১৪৭টি ভোট কক্ষে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শাহজাদপুর পৌর নির্বাচনে চলছে ভোট গ্রহণ

আজ সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) সকাল ৮টা থেকে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর পৌর নির্বাচনের ভোটগ্রহন শুরু হয়েছে। প্রথম ধাপে দেশে ২৫টি পৌরসভা নির্বাচনের মধ্যে শাহজাদপুর পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

এই নির্বাচনে মেয়র পদের জন্য ৪ জন, ৯টি ওয়ার্ডের সাধারণ কাউন্সিলর পদে মোট ৩৮ জন, সংরক্ষিত ৩টি নারী কাউন্সিলর পদে ১৬ জন। মোট ৫৮ জন পুরুষ ও নারী প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সমর্থিত নৌকা প্রতিকের মনির আক্তার খান তরু লোদী, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির ধানের শীষ প্রতিকে মাহমুদুল হাসান স্বজল, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হাতপাখা প্রতিকে খন্দকার ইমরান, জাতীয় পার্টির লাঙল প্রতিকে মোক্তার হোসেন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
সরেজমিনে শাহজাদপুর পৌর শহরের দরগাহপাড়া মাদ্রাসা কেন্দ্র, পুকুরপার লক্ষীমতি স্কুল কেন্দ্র , পুকুরপাড় মুক্তিযোদ্ধা হাইস্কুল কেন্দ্র, পাইলট হাইস্কুল কেন্দ্র, গার্লস হাইস্কুল কেন্দ্র, নলুয়া স্কুল কেন্দ্র ও পারকোলা স্কুল কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে ভোট কেন্দ্র গুলোতে ভোটারদের সরব উপস্থিতি চোখে পরে।
এসময় নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, দুপুর ১টা পর্যন্ত এসব কেন্দ্রে প্রায় ৩০ শতাংশ ভোট পড়েছে।
শীতকে উপেক্ষা করে সকাল থেকেই ভোটারদের উপস্থিতিও চোখে পরার মতো ছিল। পুরুষ ভোটারদের তুলনায় নারী ভোটারদের উপস্থিতি বেশ দেখা গেছে।
নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যে কোন বিশৃঙ্খলা এড়াতে পুলিশ, র্যা ব, ডিবি, বিজিবি , আনসার মোতায়েন রয়েছে। সার্বক্ষণিক বেশ কয়েকজন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রের আইনশৃংখলা তদারকি করেছেন।
জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহমেদ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মোঃ শামসুজ্জোহা পৌর এলাকার বিভি্ন্ন ভোট কেন্দ্র পরিদর্শন করেছেন।
সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ইভিএম এর মাধ্যমে বিরতিহীন ভাবে ভোট গ্রহণ চলবে। প্রথম শ্রেণির শাহজাদপুর পৌরসভার মোট ভোটার সংখ্যা ৫১ হাজার ৮৬। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ২৫ হাজার ৩৭১ এবং মহিলা ভোটার ২৫ হাজার ৭১৫ জন। ২৫টি কেন্দ্রের ১৪৭টি ভোট কক্ষে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

আজ বঙ্গবন্ধুর অত্যান্ত স্নেহষ্পদ এ্যাডঃ আঃ রহমান (এম.সি.এ) এর ৭ম মৃত্যু বার্ষিকী

এ্যাডভোকেট আব্দুর রহমান এম.সি.এ ১৯৩৮ সালের ১৩ অক্টোবর সিরাজগঞ্জ জেলার হজরত মখদুম শাহদৌল্লা (রহঃ) এবং কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের স্মৃতি বিজড়িত শাহজাদপুরের দক্ষিন সীমা ছুয়ে যাওয়া “ছোট নদী’র লাগোয়া দক্ষিনে দিয়ার দশরথ প্রকাশ্য নাম কান্দাপাড়ায় জন্ম গ্রহন করেন। তিনি ‘বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস কেন্দ্রীয় গবেষণা পরিষদ’ এর প্রধান উপদেষ্টা, ১৯৭০ সালে নির্বাচিত গণপরিষদ সদস্য (সিরাজগঞ্জ-৭ আসন) এবং মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন।

বৃটিশ আমলে বিত্তবান সৎ ব্যবসায়ী পিতাঃ মৃত ওয়াহেদ আলী শেখ পুত্র । আব্দুর রহমান ১৯৫৪ খ্রিষ্টাব্দে শাহজাদপুর হাইস্কুল থেকে মেট্রিক পাশ করেন। উত্তর বঙ্গের অন্যতম শ্রেষ্ঠ শিক্ষাকেন্দ্র্র পাবনা এডওয়ার্ড কলেজে দ্বিতীয় বর্ষে পাঠরত অবস্থায় অসুস্থ হলে তাঁর শিক্ষায় ছেদ পরে। নানা মানুষিক অহমিকা অতিক্রম করে সিরাজগঞ্জ কলেজে ভর্তি হয়ে আয়ুবী সামরিক শাসনের সময় বৈষম্যের বিরুদ্ধে পোষ্টার লাগানোর অভিযোগে অভিযুক্ত হওয়ায় লেখাপড়া আবার বন্ধ হয়ে যায়। ঐ সময়ে তিনি থানা আওয়ামীলীগের নেতা ছিলেন। আওয়ামীলীগ, ছাত্রলীগ, তাঁত শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক কাজে ব্যস্ততার মধ্যে পূনঃ সিরাজগঞ্জ কলেজে ভর্তি হন। সে সময়ে তিনি সিরাজগঞ্জ কলেজ ছাত্র সংসদের নেতৃস্থানীয় পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। কলেজ শিক্ষা শেষ করে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স পড়তে চলে যান।

অর্থনীতির মত উচ্চমানের বিষয়ে লেখাপড়া করার মধ্যেই তিনি বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ছাত্রলীগের নির্বাচিত সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ছিলেন বঙ্গবন্ধুর অত্যান্ত  ঘনিষ্ঠ ও স্নেহাস্পদ। ১৯৬৬-৬৭ শিক্ষাবর্ষে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (রাকসু) এর সাধারণ সম্পাদক হিসেবে কারাবন্দী শেখ মুজিব ও ৬ দফার পক্ষে প্রচারের জন্য পশ্চিম পাকিস্থানের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে সফর করেন। ১৯৬৯’র ছাত্র গণঅভ্যুত্থানের সময় তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের সহ-সভাপতি ছিলেন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের দায়িত্ব তিনি সফলতার সাথে পালন করেন। তাঁর নেতৃত্বে পরিচালিত মুক্তিসংগ্রাম তথা ছাত্র-গণঅভ্যুত্থানের উনসত্তরের ১৮ ফেব্রুয়ারী (১৯৬৯) রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর রসায়ন বিভাগের রিডার ড. সামসুজ্জোহা পাকি সামরীক বাহিনী বেয়নেট চার্জে নির্মমভাবে নিহত হন।

বঙ্গবন্ধু তাঁকে ১৯৭০’র নির্বাচনে মনোনয়ন দিলে তিনি সিরাজগঞ্জ -৭ আসন থেকে নির্বাচিত হন। বঙ্গবন্ধু তাঁকে মন্ত্রী সভার জন্য নির্ধারণ করে রেখেছিলেন। আব্দুর রহমান অর্থনীতিতে অনার্স সহ এম এ পাশ করেন। জাতির জন্য তা সমৃদ্ধ করার জন্য বঙ্গবন্ধু তাঁকে উচ্চতর ডিগ্রি লাভের জন্য বুলগেরীয়ার রাজধানী সোফিয়ায় প্রেরণ করেছিলেন। তিনি শতকরা ৯৮ ভাগ নম্বর পেয়ে সমাজতান্ত্রিক কৃষি অর্থনীতি তিনি ডিগ্রি প্রাপ্ত হন। পরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু তাঁকে বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ডের মহা-পরিচালক নিযুক্ত করেছিলেন।
মুক্তি সংগ্রামের মত মুক্তিযুদ্ধের তাঁর অবদান স্মরণ যাগ্য। যুদ্ধকালীন বাংলাদেশ সরকার তাঁকে আয়েশী ধরনের কাজের প্রস্তাব দিলে তিনি যুদ্ধের কাজ চেয়ে নেন। সরকারী নির্দেশে জনাব এ,কে খোন্দকার তাঁকে সঙ্গে নিয়ে জলঙ্গী অপারেশন ক্যাম্পের চেয়ারম্যানের দায়িত্বে রেখে আসেন। একই সঙ্গে তাঁকে সেক্টর-৭, সাব সেক্টর-৪, বি-কয় এর রাজনৈতিক উপদেষ্টা নিয়োগ করেন। তিনি বে-সামরীক প্রশাসন পাবনা-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক পরিষদের প্রচার সাব কমিটির চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। জাতির জনক নিহত হওয়ার পর আওয়ামীলীগ ছাত্রলীগ ও তাঁতশ্রমিক লীগের ৪০ জন নেতাকর্মী সহ তিনি দীর্ঘকাল কারাভোগ পর ১৯৭৯’র ফেব্রুয়ারী মাসে তিনি মুক্তিলাভ করেন। সে সময়ে সরকারী প্রস্তাব গ্রহন করে দল বদল করলে তিনি অনেক আগেই উচ্চপদসহ মুক্তি পেতেন। সেই সময়ের এন এস আই এর নথিপত্রে এর সত্যতা মিলবে। তিনি স্ত্রী, ২ পুত্র, ৩ কন্যাসহ প্রধানতঃ পূর্বপুরুষের সম্পদের উপরই তিনি সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে জীবন যাপন করে গেছেন।। জীবিত থাকা অবস্থায় মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে কিম্বা অন্যকোন ধরনের সম্মানী ভাতা, বা সাহায্য সহায়তা গ্রহন করেননি। তিনি বলতেন,আমার দেশ প্রেম বিক্রয়যোগ্য নয়। তিনি মনে করেন, প্রকৃত মুক্তিসংগ্রামী ও মুক্তিযোদ্ধা যেহেতু দেশের জন্য জীবনদান স্বীকার করেই জীবন শুরু করেছেন সেই জন্য তাঁদের পক্ষে অঢেল অর্থ সম্পদ অর্জন, এমনকি তা সৎ পথে হলেও শহীদ,মৃত লাঞ্ছিত মা-বোন, নির্যাতিত রাজনৈতিক কর্মী ও মানবতার প্রতি অ-মানবিক ও চরম নিষ্ঠুরতা।

অতঃপর ২০১৩ ইং সালের ২৬ ডিসেম্বর রোজ বৃহস্পতিবার সকাল ৬ টা ৩৭ মিনিটে মৃত্যু বরণ করেন।আজ শনিবার (২৬ ডিসেম্বর)  বঙ্গবন্ধুর অত্যান্ত স্নেহষ্পদ শাহজাদপুরের এই কৃতি সন্তানের ৭ম মৃত্যু বার্ষিকী। আঃ রহমান এমসিএ এর কনিষ্ট পুত্র শেখ কাজল জানান মৃত্যুবার্ষিকীতে পরিবারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন মসজিদে মিলাদ দোয়ার আয়োজন করা হয়েছে।এছারা বিকেলে উপজেলা আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা ও দেয়া মাহফিলের হবে।তিনি আরো জানান গুনী ত্যাগী এই নেতার মৃত্যুবার্ষীকিতে তার জন্য দলের পক্ষ থেকে কোন কর্মসুচী গ্রহন করা হয়না

শাহজাদপুরে লুট হওয়া স্বর্নালংকার ও নগদ টাকাসহ ২ ডাকাত গ্রেফতার

এম এ হান্নান শেখঃ সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর থানা পুলিশের আলাদা আলাদা অভিযানে ২ ডাকাতকে গ্রেফতার করেছে শাহজাদপুর থানা পুলিশ। এসময় তাদের কাছ থেকে ডাকাতি করা স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ ১৪ হাজার ৫শত টাকা উদ্ধার করা হয়।

শুক্রবার (২৫ ডিসেম্বর) দুপুরে শাহজাদপুর থানায় আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এই তথ্য জানানো হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন শাহজাদপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাসিবুল ইসলাম, শাহজাদপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শাহিদ মাহমুদ খান ও উপপরিদর্শক মেহেদী হাসান।
প্রেস ব্রিফিংয়ে আটককৃত ডাকাত সদস্য কুদ্দুস ও উদ্ধারকৃত মালামাল সাংবাদিকদের সামনে উপস্থিত করা হয়।

এসময় শাহজাদপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাসিবুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, গত ১১ ডিসেম্বর শাহজাদপুর উপজেলার কৈজুরী ইউনিয়নের গুদিবাড়ি গ্রামের আলাউদ্দিনের বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এসময় ডাকাত দলের সদস্যারা স্বর্ণালঙ্কার নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন্ নিয়ে যায়।

পরে শাহজাদপুর থানায় অভিযোগ দিলে তথ্য প্রযু্ক্তির সহযোগীতায়, শাহজাদপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার  হাসিবুল ইসলামের দিকনির্দেশনায় ও ওসি শাহিদ মাহমুদ খানের তত্বাবধানে গত ২৩ ডিসেম্বর শাহজাদপুর থানার উপ পরিদর্শক এসআই খলিলুর রহমান, এসআই কাঞ্চন কুমার, এএসআই মেহেদী হাসান ও সঙ্গীয় ফোর্স কৃষকের ছদ্দবেশে উপজেলার সোনাতনী ইউনিয়নের বড় চানতার গ্রামে অভিযান চালিয়ে ছোট চানতারা গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে মো; পাশান মোল্লা গ্রেফতার করা হয়।

২৪ ডিসেম্বর তাকে শাহজাদপুর আদালতে উপস্থিত করা হলে ধৃত পাশান মোল্লা এই ডাকাতির ঘটনায় জড়িত আরো ৩ জনের নাম উল্লেখ করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দী দেয়।
তার দেওয়া তথ্যমতে ২৪ ডিসেম্বর রাতে অভিযান চালিয়ে সোনাতনী ইউনিয়নের বানতিয়ার চরের ট্যাংড়াপাড়া গ্রাম থেকে আলাউদ্দিনের ছেলে কুদ্দুসকে ডাকাতির মালামাল সহ গ্রেফতার করা হয়।
শাহজাদপুর সার্কেলের এএসপি হাসিবুল ইসলাম আরো জানান, আমরা আশা করছি এই ডাকাত চক্রের বাকী সদস্যদেরও খুব দ্রুত গ্রেফতার করতে সক্ষম হবো।

শাহজাদপুরের ছেলের প্রেমের টানে মরিশাসের মেয়ে বাংলাদেশে

প্রেম মানে না কোন বাঁধা দুরত্ব প্রেম ভালোবাসাকে আটকাতে পারে না।সেটা কি তাহলে আবারো প্রমান করলো মরিশাস ও বাংলাদেশের যুবক যুবতী।বাংলাদেশের যুবকের প্রেমে পড়েছে পুর্ব আফ্রিকার দ্বীপ রাষ্ট্র মরিশাসের মেয়ে বিবি ফারহিন উত্তেমান।সেলিম হোসেন সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার বাসিন্দা।জন্মসুত্রে বিবি ফারহিন উত্তেমান মরিশাস রাষ্ট্রের নাগরিক।

জানা গেছে সেলিম হোসেনের সাথে দীর্ঘিদিন প্রেমের সম্পর্ক ছিলো মরিশাসের নাগরিক বিবি ফারহান উত্তেমার ।চলতি বছর নভেম্বরের শেষ সপ্তাহে ভালোবাসার টানে প্রেমিকা বিবি ফারহান উত্তেমান চলে আসেন বাংলাদেশে।চলতি বছর ২৪ নভেম্বর সিরাজগঞ্জে নোটারী পাবলিকের কার্যালয়ে হাজির হয়ে বিবাহের হলফনামা ঘোষণা করেন। মুসলিম শরাশরিয়ত মোতাবেক ইজাব কবুলের মাধ্যমে ২ লক্ষ টাকা দেনমোহরে রেজিষ্ট্রি কাবিনমুলে দুজন বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে সুখের ঘর বেঁধেছেন।ভিন্ন দেশের নাগরিক হলেও দুজনেরই ধর্ম ইসলাম।

দুই ভাইয়ের জমির বিরোধ প্রান গেলো দুলা ভাইয়ের

  1. সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার কৈজুরী গোপালপুর গ্রামের বক্কর প্রামানিকের সাথে তার ভাই আমোদ আলী প্রামানিকের দীর্ঘ দিন ধরে জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে এলাকায় বেশ কয়েকবার সালিশ বৈঠকও হয়েছে।  বুধবার ১৬ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় এনায়েতপুর থানার সৈয়দপুরে বক্কর গ্রুপের লোকজন আমোদ আলীর ছেলে ফজলুল হককে বেদম মারপিট করছিল। এ সময় দৌঁড়ে গিয়ে তার ফুফা হাজী আহসান আলী থামাতে গেলে তাকেও লাঠি দিয়ে আঘাত করা হয়। এতে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান এবং আহত হয় আরও অন্তত ৫ জন।

এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও অন্তত ৫ জন। বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় থানার সৈয়দপুরে এ ঘটনা ঘটে।
নিহত ব্যবসায়ী হাজী আহসান আলী (৫৯) সৈয়দপুর গ্রামের মৃত শীতল প্রামানিকের ছেলে।

খবর পেয়ে রাতেই পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে আজ বৃহস্পতিবার সকালে লাশ সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে হাবিবুর রহমান বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন।
এনায়েতপুর থানার ওসি আতাউর রহমান জানান, ‘বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখার পাশাপাশি আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।’