স্কুল খোলা না গেলে পরীক্ষা হবে না

কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে স্কুল খোলা না গেলে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক পরীক্ষা হবে না বলে জানিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

রোববার (৬ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন এবং মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন।

করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে সারাদেশে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। আগামী ৩ অক্টোবর পর্যন্ত আপাতত বন্ধ ঘোষণা রয়েছে। এ অবস্থায় সংসদ টিভি, বেতার ও অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম চালু করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে প্রতিমন্ত্রী বলেন, কোভিড-১৯ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে প্রাথমিক শিক্ষা দেওয়ার কার্যক্রম যথা শিগগিরই শুরু হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, আমাদের সরকার, স্বাস্থ্য বিভাগের মতামত নিয়ে করোনা পরিস্থিতি শেষ না হলে বাচ্চাদের স্কুলে নিয়ে যেতে চাই না।

‘পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত, বাচ্চাদের নিরাপত্তা যতক্ষণ না পর্যন্ত সুরক্ষিত না হয়, ততক্ষণ পর্যন্ত স্কুলগুলো খুলবো না। ’

সিনিয়র সচিব আকরাম বলেন, আমরা দু’টি পরিকল্পনা মাথায় রেখেছি। অক্টোবরে একটা, আর যদি নভেম্বরে খোলা যায় তার জন্য একটা পরিকল্পনা করা আছে।

‘যদি খোলা যায় তবে মূল্যায়নের বিষয়ে একটা ব্যবস্থা নিতে পারবো। আর না হলে তো আপনারা বোঝেন…। ’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য নিয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে সচিব বলেন, স্কুল খোলা না গেলে তো (বার্ষিক) পরীক্ষা হবে না। প্রধানমন্ত্রী তো বলেছেন স্কুল যদি খোলা না যায় তাহলে তো পরীক্ষা হবে না। আমরাও তাই বলছি। স্কুল খোলা না গেলে অবশ্যই পরীক্ষা হবে না।

মূল্যায়ন কীভাবে হবে- প্রশ্নে সচিব বলেন, সেটা আপনারা বোঝেন। স্কুল না খোলা গেলে আমরা কী মূল্যায়ন করবো।

আকরাম বলেন, ১৯৭১ সালে আমি ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ি। তখন বই পেতে মার্চ মাস হয়ে যেত। মার্চে বঙ্গবন্ধু তার ভাষণে স্কুল, কলেজ, আদালত সব বন্ধ করে দিলেন। মার্চ থেকে তো বই নেই। আমরা ১৯৭২ সালের জানুয়ারি মাসে স্কুলে গেছি, সেভেনে আমাকে উঠিয়ে দিয়েছে, সমস্যা নেই। স্কুল খোলা না গেলে কোনো মূল্যায়ন হবে না।

সূত্রঃ বিডিনিউজ২৪ডটকম

বার্সাতেই থাকছেন মেসি

অবশেষে নাটকের অবসান হলো। চুক্তির মারপ্যাঁচে বিশ্বের অন্যতম সেরা ফুটবলার লিওনেল মেসিকে আটকে রাখলো বার্সেলোনা।

যদিও ক্লাব ছাড়ার ইচ্ছের কথা আগেই জানিয়েছিলেন। কিন্তু ছাড়তে পারলেন কোথায়?
২০২০-২১ মৌসুমে বার্সেলোনায় থেকে যাওয়ার বহুল প্রতীক্ষিত খবরটি গোল ডটকমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে নিজের মুখেই জানালেন লিওনেল মেসি। তবে এ থেকে যাওয়াটা যে শুধুমাত্র চুক্তির কোটা পূরণের জন্য তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

ক্লাব ছাড়ার বিষয়ে মেসি যা ভেবেছিলেন হয়েছে উল্টো। তার মতে, আমি ভেবেছিলাম এবং নিশ্চিত ছিলাম যে, ইচ্ছে করলেই ক্লাব ছাড়তে পারি। সভাপতি সবসময় বলত, মৌসুম শেষে আমি সিদ্ধান্ত নিতে পারব যে আমি থাকব না চলে যাব।

ইচ্ছে থাকার পরও প্রিয় ক্লাব ছেড়ে যাওয়া হলো না। আর ক্লাবের সঙ্গে আইনি লড়াইও করতে অনিচ্ছুক ছিলেন মেসি। থাকার সিদ্ধান্তটি মূলত নেওয়া হয়েছে এ দৃষ্টিকোণ থেকেই।

মেসি বলেন, প্রিয় ক্লাবের বিপক্ষে কখনোই আমি আইনি লড়াইয়ে যাব না। এ কারণেই মূলত আমি বার্সেলোনায় থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

এর আগে গত সপ্তাহে ৩৩ বছর বয়সী মেসি বার্সার সঙ্গে ২০ বছরের সম্পর্ক ছিন্ন করার ঘোষণা দেন। এরপর থেকে নতুন ঠিকানা নিয়ে চলছিল নানা কল্পনা-জল্পনা। তবে কাতালানরা তাকে ছাড়তে নারাজ ছিল। অন্য ক্লাব তার সঙ্গে চুক্তি করলে রিলিজ ক্লজ হিসেবে বার্সাকে দিতে হতো ৭০০ মিলিয়ন ইউরো।

সূত্রঃ বিডিনিউজ২৪ডটকম

ব্যক্তিগত অনুশীলনের জন্য বিকেএসপিতে সাকিব

করোনা পরীক্ষায় নেগেটিভ সাকিব আল হাসান। তাই বিএসপিতে যেতে কোনো বাধা নেই দেশ সের অলরাউন্ডারের।

শুক্রবার (০৪ সেপ্টেম্বর) করোনা নেগেটিভের ফলাফল হাতে পান তিনি। এদিন দুপুরেই বিকেএসপিতে চলে যান সাকিব। সেখানে বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ৩৩ বছর বয়সী তারকা।

শুক্রবার রাতে বিকেএসপি’র একটি সূত্র বাংলানিউজকে সাকিবের বিকেএসপিতে পৌঁছানোর খবরটি নিশ্চিত করেছে। বিকেল ৫টার দিকে যাওয়ার কথা থাকলেও দুপুর ২টা ৩০ মিনিটের দিকেই তিনি বিকেএসপি চলে যান। শনিবার (০৫ সেপ্টেম্বর) থেকে ব্যক্তিগত উদ্যোগে অনুশীলন শুরু করবেন সাকিব।

সূত্রটি বলছে, ‘সাকিব আজ দুপুর আড়াইটার দিকে বিকেএসপি চলে এসেছে। বিকাল ৫টার দিকে আসার কথা থাকলেও আগেভাগেই চলে এসেছে। এখানে সালাউদ্দিন স্যারের (সাকিবের গুরু) অধীনে আইসোলেশনে রয়েছেন। কাল থেকে ধীরে ধীরে অনুশীলন শুরু করবে। ’

সাকিবের ফিটনেস নিয়ে তাকে সহায়তা করবেন বিকেএসপির অ্যাথলেটিকস ও সাতাঁরের কোচরা।

সূত্রঃ বিডিনিউজ২৪ডটকম

নেদারল্যান্ডসের প্রত্যাশিত জয়, ইতালিকে রুখে দিল বসনিয়া

উয়েফা ন্যাশন্স লিগের দ্বিতীয় আসরে জয়ে শুরু করেছে নেদারল্যান্ডস। পোল্যান্ডকে ১-০ গোলে হারিয়েছে প্রথম আসরের রানার্সআপরা।

তবে অন্য ম্যাচে জায়ান্ট ইতালিকে ১-১ গোলে রুখে দিয়েছে বসনিয়া এন্ড হার্জেগোভিনা।
শুক্রবার আমস্টারডামের ইয়োহান ক্রুইফ অ্যারেনায় ‘এ’ লিগের ১ নম্বর গ্রুপের ম্যাচে মুখোমুখি হয় নেদারল্যান্ডস ও পোল্যান্ড।

ম্যাচের ৬১তম মিনিটে এগিয়ে যায় ডাচরা। সতীর্থের ডান দিক থেকে গোলমুখে বাড়ানো বল ফাঁকায় পেয়ে অনায়াসে জালে ঠেলে দেন উইঙ্গার স্তেভেন।

এদিকে ফ্লোরেন্সের স্তাদিও আর্তেমিও ফ্রাঞ্চিতে একই গ্রুপের আরেক ম্যাচে বসনিয়া এন্ড হার্জেগোভিনার বিপক্ষে পিছিয়ে পড়ার পর ড্রয়ে মাঠ ছাড়ে ইতালি।

৫৭তম মিনিটে লিড নেয় বসনিয়া। কর্নারে তনি সুনিচের হেডে ডি-বক্সে ফাঁকায় বল পেয়ে ঠিকানা খুঁজে নেন রোমার ফরোয়ার্ড এডেন জেকো।সমতায় ফিরতে অবশ্য ইতালির ১০ মিনিট লাগে। ইনসিনিয়ের কাটব্যাক থেকে স্তেফানো সেন্সি গোল করেন।

সূত্রঃ বিডিনিউজ২৪ডটকম

দীর্ঘদিন পর চলনবিলে দেশি মাছের বাহার

শস্য ও মৎস্যভাণ্ডার খ্যাত চলনবিল। এ বিলের উদারতায় কখনো সোনালী ধানে ভরে যায় কৃষকের গোলা, উঠোন জুড়ে শোভা পায় সরিষা, গম, ভুট্টাসহ হরেক শস্যদানা।আবার কখনো জাল ভরা মাছে প্রাণ জড়িয়ে যায় জেলেদের।

দেশের মিঠাপানির সবচেয়ে বড় এ জলাভূমিতে এবার ধরা পড়ছে প্রচুর দেশি মাছ। নানা প্রতিকূলতায় আগের মতো দেশি মাছের দেখা না মিললেও এবার ব্যতিক্রম দেখা যাচ্ছে। জেলেদের জালে ধরা পড়ছে টেংরা, পাঁতাসি, চেলা, মোয়া, চাটা খইলসা ও চাপিলার মতো সুস্বাদু দেশি মাছ।

সম্প্রতি সরেজমিন চলনবিলাঞ্চলের হাটবাজারে গিয়ে চোখে পড়ে বিভিন্ন প্রজাতির দেশি মাছ। তাড়াশ উপজেলার নওগাঁ, কুন্দইল, সগুণা, নাদৌ সৈয়দপুর, উল্লাপাড়া উপজেলার বাঙলাসহ বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দেখা যায় ঝাঁকিজাল, খড়াজাল, বাদাই জাল, কারেন্ট জাল ও মইয়াজাল ছাড়াও চাঁই, খাদল, ধিয়াল ইত্যাদি ফাঁদ পেতে জেলেরা মাছ ধরতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। পেশাদার জেলে ছাড়াও সৌখিন মাছ শিকারিরাও বিভিন্ন ফাঁদ নিয়ে ছুটছেন চলনবিলে।

তাদের ফাঁদে ধরা পড়ছে চেলা, মোয়া, টেংরা, পুঁটি, রায়েক, খলিসা, কই, শিং, মাগুর, টাকি, বেলে, চিংড়ি, বোয়াল, ষোল, গুচি, বাইম, রুই, কাতলা ও মৃগেলসহ দেশি প্রজাতির বিভিন্ন মাছ। অল্পসল্প পাওয়া যাচ্ছে মিঠাপানির সবচেয়ে সুস্বাদু রানি মাছ। তবে খুব একটা মিলছে না ভেদা, বাইটকা, নন্দই, গরপই, গজার ও শিলনসহ বিলুপ্তপ্রায় অন্তত ৩০ প্রজাতির মাছ।

তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ, তাড়াশ ও উল্লাপাড়া, পাবনা জেলার চাটমোহর, ভাঙ্গুরা ও ফরিদপুর, নাটোরের গুরুদাসপুর, সিংড়া ও বড়াইগ্রাম এবং নওগাঁর আত্রাই এ ১০টি উপজেলার সীমান্তবর্তী নিম্নাঞ্চলই হচ্ছে চলনবিল। প্রায় দুই হাজার গ্রামের এ বিলটিতে ৩৯টি বিভিন্ন আকৃতির ছোট-বড় বিল, ১৬টি নদী ও ২২টি খাল রয়েছে। নদীগুলোর মধ্যে করতোয়া, আত্রাই, বড়াল, গুড়, হিজলী, তুলশী, ইছামতি, নন্দকুজা, গুমানী, চৈচুয়া, ভাদাই, চিকনাই, বানগঙ্গা, কুমারডাঙ্গা, মরা আত্রাই ও করতোয়া উল্লেখযোগ্য। এ বিলটিকে ঘিরে বেঁচে আছে উত্তরাঞ্চলের চারটি জেলার ১০টি উপজেলার প্রায় ২৫ লাখ মানুষ।

এক সময় এ বিলটিতে শতাধিক প্রজাতির দেশি মাছ উৎপাদিত হতো। জমিতে অধিক পরিমাণ সার ও কীটনাশক প্রয়োগ, যত্রতত্র পুকুর খনন ও স্থাপনা নির্মাণসহ নানা কারণে হারিয়ে যেতে বসেছে দেশি মাছ। এরই মধ্যে অনেক প্রজাতির মাছ বিলুপ্ত হয়ে গেছে।

উল্লাপাড়া উপজেলার ধরইল গ্রামের আবু বক্কার সিদ্দিক, মনজিল হোসেন, তাড়াশের নওগাঁ এলাকার দেলোয়ার, আব্দুল গফুরসহ একাধিক মৎস্যজীবীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এ বছর বেশি সময় বন্যা থাকায় তারা বিভিন্ন ধরনের দেশি মাছ পাচ্ছেন। অনেকেই বলেন, ধর্মজাল কিংবা খড়াজালে প্রতি ঘণ্টায় দুই/তিন কেজি মাছ উঠছে। আবার কারেন্টজালে ঝাঁকে ঝাঁকে দেশি মাছ ধরা পড়ছে। এছাড়া বাঁশের তৈরি ফাঁদে সৌখিন মৎস্য শিকারিরা প্রচুর মাছ ধরছেন।

তাড়াশ ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক এএইচ খোকন বাংলানিউজকে বলেন, বিস্তীর্ণ চলনবিল অঞ্চলে শতাধিক দেশি প্রজাতির মাছ পাওয়া যেত। বর্তমানে নদীর তীর ও খাল দখল, বিলের মধ্য দিয়ে অপরিকল্পিত রাস্তাঘাট নির্মাণ, যেখানে সেখানে পুকুর খনন, বাড়িঘর নির্মাণ, জমিতে মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশক প্রয়োগসহ নানা কারণে হারিয়ে যাচ্ছে দেশি প্রজাতির স্বাদু পানির মাছ। এরই মধ্যে প্রায় ৩০ প্রজাতির মাছ বিলুপ্ত হয়ে গেছে।

সেগুলো পুনরুদ্ধারের পাশাপাশি সব অব্যবস্থানা দূর করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

তাড়াশ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মশগুল আজাদ বলেন, প্রশাসনের কঠোর ভূমিকা রাখার কারণে মা ও পোনা মাছ রক্ষা পেয়েছে। এ কারণে চলনবিলে প্রচুর দেশি মাছ উৎপাদিত হয়েছে। বন্যার পানি কমে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দেখা মিলছে প্রচুর দেশি মাছের।

সিরাজগঞ্জ জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. সাহেদ আলী বাংলানিউজকে জানান, এবার দীর্ঘসময় বন্যা থাকার কারণে মাছগুলো বেশি সময় ধরে বিস্তীর্ণ অঞ্চলজুড়ে চলাচল করতে পেরেছে। এতে করে মাছের প্রজনন বেড়েছে। পাশাপাশি মা ও পোনা মাছ নিধনের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেওয়ায় দেশি মাছের উৎপাদন অনেক বেশি হয়েছে।

দু-এক সপ্তাহ পর প্রচুর দেশি মাছ ধরা পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, গত অর্থবছরে জেলায় ৬৭ হাজার মেট্রিক টন মাছ উৎপাদিত হয়েছে। আশা করি, এ বছর এর পরিমাণ অনেক বাড়বে।

সূত্রঃ বিডিনিউজ২৪ডটকম

করোনায় আক্রান্ত অ্যাটর্নি জেনারেল, হাসপাতালে ভর্তি

বাংলাদেশের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

শুক্রবার তাকে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি করা হয়েছে। তবে তার শারীরিক অবস্থা স্বাভাবিক রয়েছে। চিকিৎসকরা সার্বক্ষণিক তার খোঁজ রাখছেন বলে জানা গেছে।

বিডি প্রতিদিন

নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বিস্ফোরণ: মুয়াজ্জিনসহ ১১ জনের মৃত্যু

নারায়ণগঞ্জে গ্যাসের লিকেজ থেকে মসজিদে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধদের মধ্যে মুয়াজ্জিনসহ ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার সকালে গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিটিউটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন।

বর্তমানে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিটিউটে দগ্ধ ২৬ জন চিকিৎসাধীন রয়েছে বলে জানিয়েছেন আবাসিক চিকিৎসক ডা. পার্থ শঙ্কর পাল।

বিডি প্রতিদিন

জয়ের কর্মকাণ্ড অশ্লীল ও বিব্রতকর: শেলী মান্না

একটি টিভি অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে শুরু হয় উপস্থাপক জয় ও শেলী মান্নার অভিযোগ ও পাল্টা অভিযোগ। অনুষ্ঠানের একটি পর্বে কেবিন ক্রুদের প্রেম ও বিদেশ থেকে কেনা জিনিসপত্র দেশে এনে বিক্রি করা প্রসঙ্গে অতিথিকে প্রশ্ন করেন জয়, যা মেনে নিতে পারেননি প্রযোজনা সংস্থা কৃতাঞ্জলী চলচ্চিত্রের কর্ণধার ও কেবিন ক্রু হিসেবে কর্মরত শেলী মান্না। ক্ষুব্ধ হয়ে ফেসবুকে এ নিয়ে প্রতিবাদও করেন তিনি। সেখানে সাত দিনের মধ্যে জয়কে জনসমক্ষে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। জয় ক্ষমা না চাওয়ায় তাঁকে আনুষ্ঠানিকভাবে চিঠিও পাঠান তিনি। সেই চিঠির ভাষাকে অশ্লীল বলার প্রতিবাদ করেছেন শেলী মান্না।

শেলী মান্না জানান, জয় তারকাসহ বিভিন্ন অঙ্গনের ব্যক্তিদের তাঁর অনুষ্ঠানে ডেকে অযাচিত প্রশ্ন করেন। শিল্পী হয়ে তিনি অন্য শিল্পীদের অসম্মান করেন। তিনি বলেন, ‘তাঁর (জয়ের) কাজ শুধু নেগেটিভ প্রশ্ন করা। এ জন্য তিনি বেছে নেন সেলিব্রিটিদের। তিনি কোনো গেস্টকে এভাবে অসম্মান করতে পারেন না।’ চিঠির প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমার চিঠিতে অশালীন কিছু নেই। তাঁর অনুষ্ঠানে অনেক তারকাকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করা হয়, ছোট করা হয়। পজিটিভ ব্যাপারগুলো তিনি জানতে চান না, শুধু নেগেটিভ বিষয় দিয়ে মানুষকে এন্টারটেইন করাতে চান।’ তিনি বলেন, ‘সব জায়গার কিছু নিয়মনীতি আছে। কেউ চাইলেই নিজের ইচ্ছামতো যা খুশি তা–ই করতে পারেন না। তাঁর অনুষ্ঠানের সেন্সর হওয়া দরকার। তিনি কোনো সম্প্রদায়কে আক্রমণ করতে পারেন না। এতে তাঁরই সুনাম নষ্ট হচ্ছে।’

শেলী মান্নার চিঠি পাওয়ার পর জয় প্রথম আলোকে বলেছিলেন, ‘শেলী ভাবি জ্ঞানী মানুষ। আমরা তাঁকে বাড়তি জ্ঞান দিতে চাই না। আমার ধারণা, তাঁকে জ্ঞান দেওয়ার অনেক লোক আছেন। আমি শুধু বলতে চাই, আপনি অযথাই বিষয়টিকে টেনে নিয়ে যাচ্ছেন। আপনার থামা উচিত।’ এ প্রসঙ্গে শেলী মান্না বলেন, ‘আমাকে জ্ঞান দিতে হবে কেন! তিনি কি মনে করেন আমার নিজস্ব কোনো চিন্তাচেতনা নেই? আমার প্রশ্ন, জয় সাহেব, আমি কোন জায়গায় থামব? তাঁকে বলতে চাই, আপনি থামুন। নেগেটিভ বিষয়গুলো উন্মোচন করা বন্ধ করুন। আপনি মানুষের সম্মান ধূলিসাৎ করে এ রকম অনুষ্ঠান করতে পারেন না। ছোট বিষয়কে অতিরঞ্জিত করে টিআরপি বাড়াতে পারেন না। এটা মানহানিকর।’

 

ওয়ালটনের ইউরোপ জয়

দেশের রপ্তানি খাতে একের পর এক চমক সৃষ্টি করে চলেছে ইলেকট্রনিক্স জায়ান্ট ওয়ালটন। বিশ্বের অন্যান্য দেশের পাশাপাশি ইউরোপের দেশগুলোতে বাড়ছে ওয়ালটন পণ্যের রপ্তানি।

এরই ধারাবাহিকতায় ইউরোপের পঞ্চম জনবহুল দেশ পোলান্ডে টেলিভিশন রপ্তানি শুরু করলো ওয়ালটন। দেশটির জনপ্রিয় ব্র্যান্ড ‘অপটিকাম’-এর মাধ্যমে ইতোমধ্যেই পোলান্ডে টিভির প্রথম শিপমেন্ট পাঠিয়েছে ওয়ালটন। এর ফলে ইউরোপে ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ ট্যাগযুক্ত পণ্যের বাজার সম্প্রসারণে আরও এক ধাপ এগিয়ে গেলো বাংলাদেশ।

জানা গেছে, ওয়ালটনের ইউরোপ জয়ের লক্ষ্যে শুরু থেকেই ছিলো ব্যাপক পরিকল্পনা। দেশের বাজারে শীর্ষস্থান অর্জনের পর ওয়ালটনের পরিকল্পনা ছিলো বিশ্ববাজারে শক্ত অবস্থান তৈরি করা। পোল্যান্ডে টেলিভিশন রপ্তানির মধ্য দিয়ে ইউরোপের বাজারে বাংলাদেশে তৈরি ইলেকট্রনিক্স পণ্য রপ্তানি কার্যক্রম আরো গতি পেল।

সম্প্রতি পোলান্ডের ব্র্যান্ড ‘অপটিকাম’-এর সঙ্গে এ বিষয়ে ওয়ালটনের একটি চুক্তি হয়। রাজধানীর ওয়ালটন করপোরেট অফিসে আয়োজিত চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটনের ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ইউনিটের প্রেসিডেন্ট এডওয়ার্ড কিম, ওয়ালটন টেলিভিশন বিভাগের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা প্রকৌশলী মোস্তফা নাহিদ হোসেন এবং ওয়ালটনের ইউরোপিয়ান অঞ্চলের বিজনেস হেড তাওসীফ আল মাহমুদ। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে পোলান্ড থেকে যোগ দেন ‘অপটিকাম’-এর সিইও রিচার্ড গ্র্যাবসহ প্রতিষ্ঠানটির উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

ওয়ালটনের ইউরোপিয়ান বিজনেস হেড তাওসীফ আল মাহমুদ বলেন, মধ্য ইউরোপের কেন্দ্রে অবস্থিত পোল্যান্ড অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বাজার। ৩৮ মিলিয়ন জনসংখ্যার দেশ পোল্যান্ড ‘নতুন’ ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) দেশগুলোর মধ্যে একক বৃহত্তম বাজার। এই রপ্তানির সুবাদে শুধু পোল্যান্ডই নয়, ইউরোপের অন্যান্য দেশেও ওয়ালটনের পণ্য ব্যাপকভাবে ডিস্ট্রিবিউশন করা সহজ হবে।

সেপ্টেম্বর মাসের শেষ নাগাদ পোল্যান্ডের বাজারে ওয়ালটনের তৈরি টেলিভিশন পাওয়া যাবে। এছাড়াও ‘অপটিকাম’ পোল্যান্ডে ওয়ালটন পণ্য অনলাইনে বিক্রয় কার্যক্রমেও পার্টনার হিসাবে ভবিষ্যতে কাজ করার আশা প্রকাশ করেছে।

ওয়ালটন টেলিভিশন বিভাগের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা প্রকৌশলী মোস্তফা নাহিদ হোসেন বলেন, পারস্পারিক ব্যবসা সম্প্রসারণের অংশ হিসাবে ‘অপটিকাম’ এর সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করেছে ওয়ালটন। এছাড়াও পরিকল্পনা অনুযায়ী আগামী বছরের মধ্যে ইউরোপের বাজারে ১ লাখ ইউনিট টেলিভিশন রপ্তানির পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

ওয়ালটন টেলিভিশনের গবেষণা ও উন্নয়ণ (জ্উ), বিভাগ গ্রাহকের আস্থা অর্জনে পণ্যের সর্বোচ্চ মান নিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর। সিই (ঈঊ) কম্পøায়েন্স নিশ্চিত করার জন্য সর্বাধুনিক ইউরোপীয়ান স্ট্যান্ডার্ড অনুসরণ করে তারা প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে। এছাড়াও ইউরোপীয় নীতিমালা অনুযায়ী ওয়ালটন পণ্যে আরওএইচএস (জঙঐঝ), আরইএসিএস (জঊঅঈঐ) এবং ইকো ফ্রেন্ডলি ডিজাইন কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। আন্তর্জাতিক মানের পরীক্ষাগারের মাধ্যমে মান যাচাইয়ের পাশাপাশি ওয়ালটনের নিজস্ব ল্যাবে পণ্যের কোয়ালিটি এবং রিলায়েবিলিটি নিশ্চিত করা হচ্ছে।

ওয়ালটনের ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ইউনিটের প্রেসিডেন্ট এডওয়ার্ড কিম বলেন, বর্তমানে আমরা ইউরোপের বাজারে ওয়ালটনের উপস্থিতি এবং গ্রহণযোগ্যতা তৈরিতে কাজ করছি।

এক সময় ওয়ালটনের স্মার্ট টিভি, রেফ্রিজারেটর এবং এয়ার কন্ডিশনারের মতো পণ্য ছাড়াও আইটি, কিচেন অ্যাপ্লায়েন্স ও এলইডি লাইটিং পণ্যও পশ্চিম এবং পূর্ব ইউরোপ জুড়ে পাওয়া যাবে। এই দেশগুলোতে ওয়ালটন পণ্য পৌঁছাতে পোল্যান্ডকে সেতু হিসেবে ব্যবহার করা হবে। এভাবেই ২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্বের শীর্ষ পাঁচটি ব্র্যান্ডের কাতারে উঠে আসার লক্ষ্য পূরণ করতে পারবে ওয়ালটন।

এর আগে পাশ্চাত্যের দেশগুলোর জন্য স্মার্ট টিভি তৈরিতে গুগলের সঙ্গে ব্যবসায়িক চুক্তি করেছে ওয়ালটন। সম্প্রতি বাংলাদেশের একমাত্র উৎপাদনকারী হিসেবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠান ডলবি’র লাইসেন্স পেয়েছে ওয়ালটন। এর ফলে ওয়ালটন টেলিভিশন বিশ্ববাজারে বিশেষ গ্রহণযোগ্যতা পাচ্ছে।

তৈরি পোশাক রপ্তানি আয় ছাড়িয়েছে ৩ বিলিয়ন ডলার

আগস্টে দেশের তৈরি পোশাক রপ্তানি ছাড়িয়েছে ৩ বিলিয়ন ডলার। হয়েছে ৩২৩ কোটি ৮৭ লাখ ৫০ ডলার যা আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ৪৪ শতাংশ বেশি।

গেল অর্থবছরের আগস্ট মাসে তৈরি পোশাক রপ্তানি হয়েছিল ২২৩ কোটি ৯লাখ ৯০ হাজার ডলার। বিজিএমইএ সুত্রে এ তথ্য জানা গেছে। দেশে করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে মার্চ থেকে সাধারণ ছুটি ঘোষণার পর থেকেই আশংকাজনক ভাবে কমতে থাকে তৈরি পোশাকের রপ্তানি।

মার্চে তা ২৭ শতাংশ কমার পর এপ্রিলেও কমে ৮৫ শতাংশ। আর মে মাসে প্রায় ৬৩ শতাংশ। তবে জুন থেকেই রপ্তানিতে কিছুটা ঘুরে দাড়ানোর ইঙ্গিত মেলে।