দেশ ও জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানের নামে সড়কের নামকরণের দাবী


‘৭১ এর রণাঙ্গনের বীর যোদ্ধা সূর্য্যকান্ত এফএফ-৫০৮৪; মোদের গোরব মোদের অহংকার!

শামছুর রহমান শিশির : ‘৭১ এ মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাকহানাদার বাহিনীকে পরাস্ত করতে নানা রণকৌশল গ্রহণ করতেন মুক্তিবাহিনী । তন্মদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রকৃত নামের অন্তরালে ছদ্মনামের বিশেষ ব্যবহার লক্ষনীয় । পাকবাহিনী ও রাজাকারের দল যাতে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের নাম ঠিকানা খুঁজে বের করতে না পারে বা মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মীয় স্বজনদের চিহ্নিত করে তাদের ওপর অত্যাচার নির্যাতন করে মুক্তিযোদ্ধাদের সঠিক অবস্থান জানতে না পারে, সেজন্য অনেক মুক্তিযোদ্ধাদের প্রকৃত নামের অন্তরালে ছদ্মনামে ডাকা হতো। যেমন, পলাশডাঙ্গা যুব শিবিরের প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত আব্দুল লতিফ মির্জাকে ‘স্বপন কুমার’ ছদ্মনামে ডাকা হতো। ছদ্মনামধারী মুক্তিযোদ্ধাদের আসল নামে অন্যান্য মুক্তিযোদ্ধারাও চিনতেন না। চিনতেন, ডাকতেন তাঁদের ছদ্মনাম ধরেই। ’৭১ এর রণাঙ্গণে ভারত থেকে স্পেশাল গেরিলা  ট্রেনিং নিয়ে যারা দেশে ফিরে জীবন বাজি রেখে অসংখ্য সন্মুখ যুদ্ধে বীরত্বের সাথে যুদ্ধ করে বীরত্বপূর্ণ অবদান রাখতে সক্ষম হয়েছেন তাদেরই অকুতোভয় এক বীর সৈনিকের নাম ‘সূর্য্যকান্ত চক্রবর্তী’ ( ফ্রিডম ফাইটার নং-৫০৮৪)!

সূর্য্যকান্ত চক্রবর্তী (ছদ্মনাম) নিঃখাদ দেশপ্রেমে উজ্জীবিত হয়ে তীক্ষ্ণ মেধা, যোগ্যতা ও দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে বীরত্বের সাথে যুদ্ধ করে স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে তাঁর নাম লেখাতে সক্ষম হয়েছেন। তাঁর গৌরবোজ্জ্বল অমর অবদানে দেশ ও জাতি ধন্য হয়েছে। কিন্তু, দেশ স্বাধীনের পরপরই মহান স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যার পর তিনি মনে চরম ক্ষোভ আর বুকভরা ব্যথা নিয়ে দেশ ত্যাগ করে সুইডেনে পারি জমিয়েছিলেন।
সুইডেনে অবস্থানকালে যারাই জানতে পারতেন ‘সূর্য্যকান্ত চক্রবর্তী’র বাড়ি বাংলাদেশে,  তারাই তাঁর কাছে জানতে চাইতেন, ‘তোমরা বিশ্ব প্রতিভা শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করলে কেন ? তিনি তো শুধু বাংলাদেশের সম্পদ ছিলেন না, তিনি ছিলেন বিশ্বের সম্পদ ! নিশ্চই তোমরা বাঙালিরা ভালো লোক নও!’ সুইডিশদের এ ধরনের প্রশ্নের কোন সদুত্তর দিতে পারতেন না ’৭১ এর রণাঙ্গণের সাহসী বীর যোদ্ধা সূর্য্যকান্ত চক্রবর্তী।
দেশ ও জাতির গর্বিত সন্তান সূর্য্যকান্ত চক্রবর্তীর সাথে আলাপকালে উদ্বেগ প্রকাশ করে আক্ষেপের সাথে বলেন, ‘মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী সক্রিয় মুক্তিযোদ্ধাদের শতকরা প্রায় ৮০ ভাগই বর্তমানে আর বেঁচে নেই। অবশিষ্ট ২০ ভাগ হারে যেসব মুক্তিযোদ্ধা এখনও জীবিত রয়েছেন, তারাও বয়সের ভারে নুব্জ  হয়ে পড়েছেন। আগামী ১৫/২০ বছরের মধ্যে হয়তো তারাও  বার্ধক্যজণিত কারণে মারা যাবেন। দেশ স্বাধীনের পর দেশে অপ্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের সংখ্যা বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের সময় ওইসব অপ্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের সিংহভাগেরই বয়স ছিল ‘আন্ডার এজ’ বা শিশু-কিশোর! মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য সরকারিভাবে বিভিন্ন ভাতা ও সুযোগ সুবিধা চালুর পর থেকেই অপ্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের সংখ্যা শংকাজনক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে যা মহান মুক্তিযুদ্ধের বীরত্বগাথা ইতিহাসকে কলুষিত করে চলেছে।’
বীর যোদ্ধা সূর্য্যকান্ত চক্রবর্তী ছোট বেলা থেকেই ছিলেন অত্যন্ত মেধাবী। ছোট বেলা থেকেই দেশের প্রতি, দেশের মানুষের প্রতি তাঁর ছিলো গভীর মমত্ববোধ। দেশ মাতৃকার প্রতি ভালোবাসা মমত্ববোধ আর বঙ্গবন্ধু’র ৭ই মার্চের ভাষণে উজ্জীবিত হয়ে তিনি আত্মীয় স্বজন, ঘর-বাড়ি, সহায়-সম্বল সবকিছু ফেলে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন।
মুক্তিযুদ্ধের শুরুতেই স্পেশাল ট্রেনিং নিতে সূর্য্যকান্ত ভারতে চলে যান।  ভারতের বিহার প্রদেশের চাকুলিয়া এলাকায় প্রথম ব্যাচেই তিনি স্পেশাল ট্র্রেনিং নিতে শুরু করেন। সেখানে তিনি নির্দিষ্ট টার্গেটে নিখুতভাবে দুরপাল্লার মর্টারশেল নিক্ষেপের ট্রেনিং সফলতার সাথে করায়াত্ব করেন। তাঁর তীক্ষ্ণ মেধা আর দক্ষতায় অতি অল্প সময়েই তিনি দূরপাল্লার মর্টারশেল নিক্ষেপের ওপর স্পেশাল ট্রেনিং সফলতার সাথে সম্পন্ন করেন। ট্রেনিং শেষ করে দূরপাল্লার মর্টারশেল নিক্ষেপকারী স্পেশালিষ্ট হিসেবে তিনি রণাঙ্গণে যোগ দিয়ে নিজ দক্ষতায় ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেন।
‘সূর্য্যকান্ত চক্রবর্তী’ রণাঙ্গণের ৭ নং সেক্টরের কমান্ডার কর্ণেল গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী বীর বীক্রমের অধীনে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। সেক্টর কমান্ডারের নির্দেশ মোতাবেক ৭ নং সেক্টরের যেখানেই দূরপাল্লার মর্টারশেল নিক্ষেপের প্রয়োজন হতো, সেখানেই চলে যেতেন সূর্য্যকান্ত । সেখানে গিয়ে নিখুতভাবে টার্গেটকে লক্ষ্য করে দূরপাল্লার মর্টারশেল নিক্ষেপ করতেন। এভাবে পাকহানাদার ও তাদের দোসরদের বিধ্বস্তে বিশেষ অবদান রাখতেন তিনি। ৭ নং সেক্টরে মুুক্তিযোদ্ধাদের সার্বিক অবস্থা তখন বেশ ভালো, এমন সময় ৬ নং সেক্টর থেকে খবর আসলো, পাকহানাদারদের হামলায় ৬ নং সেক্টরের বীর যোদ্ধারা ক্রমেই কোনঠাঁসা হয়ে পড়ছে। ওই সময় ৬নং সেক্টরে প্রয়োজনীয় যুদ্ধাস্ত্র, রসদ ও গোলাবারুদসহ সামরিক সরঞ্জাম থাকলেও দূরপাল্লার মর্টারশেল নিক্ষেপকারী স্পেশালিষ্টের স্বল্পতাসহ কিছু কারণে পাকহানাদার বাহিনীর আক্রমন হামলা ক্রমাগত সফল হচ্ছিল। এতে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছিল মুক্তিবাহিনী। এমতবস্থায় ৭নং সেক্টর কমান্ডারের নির্দেশে সূর্য্যকান্ত চক্রবর্তীকে ৬ নং সেক্টরে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। সেখানে গিয়েও সূর্য্যকান্ত অদম্য মনোবল নিয়ে সাহসীকতার সাথে পাকহানাদারদের লক্ষ্য করে মর্টারশেল নিক্ষেপে অভাবনীয় সাফল্যের পরিচয় দেন। সেক্টর পরিবর্তন করলেও ৬নং সেক্টর কমান্ডারের নির্দেশ মোতাবেক একই রণকৌশলে তিনি শত্রুদের হামলা ও পাল্টা হামলার সমুচিত জবাব দিতে থাকেন। একই সাথে তিনি ৬নং সেক্টরের বেশ কয়েকজন সহযোদ্ধাকে নিখুতভাবে দূরপাল্লার মর্টারশেল নিপেক্ষের কলাকৌশলে প্রশিক্ষিত ও দক্ষ করে তোলেন। ফলে, অল্প সময়ের ব্যবধানে মুক্তিবাহিনী ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হয় ও কোনঠাঁসা পরিস্থিতির উন্নতি ঘটায় পাকবাহিনী পিছু হটতে বাধ্য হয়।
এমতবস্থায়, ‘৭১ এর রণাঙ্গনের বীর যোদ্ধা সূর্য্যকান্ত চক্রবর্তী প্রচুর গোলাবারুদ, রসদ, যুদ্ধাস্ত্র, সামরিক সরঞ্জামসহ শতাধিক সহযোদ্ধাদের নিয়ে রংপুর এলাকা থেকে যমুনার নৌপথ ধরে সিরাজগঞ্জের দিকে রওয়ানা দেন। পথিমধ্যে, পলাশডাঙ্গা যুব শিবিরের প্রতিষ্ঠাতা স্বপন কুমার ওরফে আব্দুল লতিফ মির্জার সাথে তাদের সাক্ষাত হয়। পরে একত্রিত হয়ে তারা এ অঞ্চলের বিভিন্ন পাকবাহিনীর ঘাঁটিতে হামলা চালাতে শুরু করেন। তাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় পাকবাহিনীর ঘাঁটিগুলো একে একে বিধ্বস্ত হতে থাকে ও পাকহানাদারেরা পরাস্ত ও পিছু হটতে বাধ্য হয়। মুক্তিযুদ্ধের প্রায় শেষের দিকে চলনবিলের হান্ডিয়াল নামক স্থানে তাদের সাথে পাকবাহিনীর ভয়াবহ ও লোমহর্ষক এক সন্মুখ যুদ্ধ বেঁধে যায়। বর্ষাকালে সংগঠিত ওই সন্মুখ যুদ্ধের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা সূর্য্যকান্ত চক্রবর্তী আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন।
হান্ডিয়ালে সংগঠিত সন্মুখ যুদ্ধ’র স্মৃতিচারণে সূর্য্যকান্ত বলেন,’পলাশডাঙ্গা যুব শিবিরের প্রতিষ্ঠাতা স্বপন কুমার ওরফে আব্দুল লতিফ মির্জার বহরে জনৈক এক কোরআনের হাফেজ ছিলেন। স্বপন কুমার ওরফে আব্দুল লতিফ মির্জা সূর্য্যকান্তকে বলেছিলেন যে জনৈক ওই কোরআনের হাফেজ আধ্মাতিক ক্ষমতার অধিকারী ছিলেন। কোরআনের ওই হাফেজ শত্রুদের নিয়ে আগের দিন যে ভবিষ্যতবাণী করতেন, পরদিন তা বাস্তবে ফলে যেতো। একদিন, স্বপন কুমার ও সূর্য্যকান্ত চক্রবর্তীর সম্মিলিত দু’বহরের প্রায় আড়াই’শ মুক্তিযোদ্ধার দল চলনবিলের ভেতর দিয়ে নৌপথে যাচ্ছিলেন। তখন তাদের অবস্থান ছিলো হান্ডিয়াল এলাকায়।
এমন সময় ওই কোরআনের হাফেজ চিৎকার দিয়ে বহরের সকল নৌকা থামাতে বলেছিলেন। এর কারণ জানতে চাইলে হাফেজ সাহেব বলেছিলেন, ‘মুক্তিবাহিনীর পুরো বহরটি তীব্র ঝূঁকির মধ্যে পড়েছে।’ হাফেজের কথামতো থামানো হয়েছিলো পুরো নৌকার বহর। এ সময় মুক্তিযোদ্ধারা নৌকা থেকে বুক পরিমান পানির মধ্যে নেমে কচুরিপানা দিয়ে মাথা ঢেকে অতি গোপনে আশপাশে খোঁজখবর নিয়ে জানতে পারলেন, তাদের পুরো বহরটাই পাকবাহিনী ঘিরে ফেলেছে। মুক্তিবাহিনীর বহরে প্রচুর রসদ, গোলাবারুদ, যুদ্ধস্ত্র থাকলেও পাকবাহিনীর অবস্থান জানতে পেরে মুক্তিযোদ্ধারা দুঃশ্চিন্তাগ্রস্থ হয়ে পড়েন। এ সময় মুক্তিবাহিনী তাদের রণকৌশল পরিবর্তন করে পাকহানকদারদের চোখে ধুলো দিয়ে নৌপথ থেকে স্থলভাগে অবস্থান নিলেন। স্থলভাগে খোঁড়া হলো অসংখ্য বাংকার। তার মধ্যে সশস্ত্র অবস্থান নিলেন মুক্তিবাহিনী। বাংকারে অবস্থানরত মুক্তিবাহিনীর বীর যোদ্ধারা সুযোগ বুঝেই পাকবাহিনীকে লক্ষ্য করে অতর্কিত  হামলা চালালেন। মুক্তিযোদ্ধারা পাকবাহিনীকে লক্ষ্য করে বিভিন্ন রাইফেল থেকে মুহুঃমুহু গুলিবর্ষণ, দূরপাল্লার মর্টার শেল নিক্ষেপ ও গ্রেনেড বিস্ফোরণ ঘটাতে থাকলেন। বেঁধে গেলো ভয়াবহ সন্মুখ যুদ্ধ। পাকবাহিনীও পাল্টা জবাব দিতে ব্যাপক গুলিবর্ষণ করতে থাকলো। ব্যাপক গোলাগুলি, দূরপাল্লার মর্টার শেল নিক্ষেপ, গ্রেনেড ও বোমা বিস্ফোরণের শব্দে চারিদিক প্রকম্পিত হতে থাকলো । নৌপথ ছেড়ে স্থলভাগে অবস্থানের রণকৌশল গ্রহণ করে কিছু বুঝে ওঠার আগেই পাকবাহিনীকে লক্ষ্য করে মুক্তিবাহিনী হামলা চালানোয় অপ্রস্তুত পাকবাহিনী আতংকগ্রস্থ হয়ে এলোমেলোভাবে এদিক ওদিক লক্ষ্যভ্রষ্ট গুলি ছুঁড়তে লাগলো।
অবশেষে, পলাশডাঙ্গা যুব শিবিরের প্রতিষ্ঠাতা স্বপন কুমার (আব্দুল লতিফ মির্জা) ও সূর্য্যকান্ত চক্রবর্তীর ২ বহরের আড়াই’শ বীর বাঙালি যোদ্ধার দল জীবন বাজী রেখে বীরত্বের সাথে যুদ্ধ করে পাক-হানাদারের পরাস্ত করে বিজয় ছিনিয়ে আনলেন। শেষ হলো হান্ডিয়াল যুদ্ধ।
স্বাধীন বাংলাদেশ ও বাঙালি জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান, ‘৭১ এর রণাঙ্গনে গৌরবোজ্জ্বল অধ্যায়ের সূর্যসন্তান, আমাদের গর্ব, আমাদের অহংকার বীরমুক্তিযোদ্ধা সূর্য্যকান্ত চক্রবর্তী নামটি মুক্তিযুদ্ধকালীন ছদ্মনাম হলেও তাঁর প্রকৃত নাম গোলজার মিয়া (সুইডেন প্রবাসী)। তিনি সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুর পৌর এলাকার রূপপুর পুরাতনপাড়া মহল্লার প্রয়াত নূরুল হকের জ্বৈষ্ঠ্য সন্তান।
‘৭১ এর রণাঙ্গনের এই বীর যোদ্ধার স্মৃতি চির অম্লান রাখতে সম্প্রতি তাঁর নিজ মহল্লার পাঁকা সড়কটি ‘বীরমুক্তিযোদ্ধা গোলজার মিয়া সড়ক’ নামকরণের জোরালো দাবী উঠেছে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে। এ যৌক্তিক দাবী পূরণ করে বীরমুক্তিযোদ্ধা গোলজার মিয়ার মহান মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বগাথা অবদানের প্রতি যথাযথ সম্মান প্রদর্শন ও যথাযথ মূল্যায়ণ করবেন সংশ্লিষ্টরা-এমনটাই বিশ্বাস এলাকাবাসীর।

লেখক : সাংবাদিক।