হালিমুল হক মিরু দীর্ঘ ৪ বছর পর দায়িত্বে ফিরলেন শাহজাদপুর পৌরসভায়

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর পৌরসভার নির্বাচিত মেয়র ও সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হালিমুল হক মিরু বরখাস্ত হওয়ার দীর্ঘ ৪ বছর পর বৃহস্পতিবার(২৬নভেম্বর) সকাল ১১টায় নিজ পদে সমাসীন হলেন। এর আগে হাইকোর্ট থেকে একটি আদেশ স্থানীয় সরকার মন্ত্রালয়ে পৌছলে তাকে স্বপদে বসার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে। বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় হালিমুল হক মিরু শাহজাদপুর বিসিক বাসষ্ট্যান্ডে পৌছলে হাজারও কর্মি, সমর্থকদের ফুলের ভালবাসায় সিক্ত হয়। এবং বিশাল আনন্দ মিছিল নিয়ে পৌরসভায় প্রবেশ করে। তিনি শাহজাদপুর পৌরসভায় পৌছালে পৌরসভার কর্মকর্তা কর্মচারী ও কাউন্সিলরবৃন্দ তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

দীর্ঘদিন পর মেয়র পদে বসতে যাওয়ার অনুভুতি প্রকাশ করতে গিয়ে হালিমুল হক মিরু সাংবাদিকদের বলেন, আমি রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের শিকার। শাহজাদপুরের একটি কুচক্রিমহল শাহজাদপুরের উন্নয়ন চায় না। তারা একটি মিথ্যা মামলায় আমাকে ফাঁসিয়ে দিয়ে শাহজাদপুর পৌরসভাবাসীকে উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত করেছে। আমি সাংবাদিক শিমুলকে গুলি করিনাই। আমার গুলিতে সে মরে নাই। এটা ব্যালিষ্টিক রিপোর্টে প্রমানিত হয়েছে।

সুতরাং ষড়যন্ত্র এবং চক্রান্ত করেই আমাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে জনগনের সেবা থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, ‘এই মামলায় সরকারি তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) যে ব্যালাস্টিক রিপোর্ট দিয়েছে তাতে গুলির ওজন পেয়েছে ০.৫০ গ্রাম আর আমার লাইসেন্সকৃত শটগানের গুলির ওজন পেয়েছে ০.৫৩ গ্রাম। এতে প্রমাণিত যে সাংবাদিক শিমুল আমার গুলিতে মারা যায়নি।’ তিনি নিজেও সাংবাদিক শিমুল হত্যার বিচার চান বলে জানিয়েছেন।

আজ স্বপদে সমাসীন হতে পেরে আমি আনন্দিত, উচ্ছসিত। সত্যের জয় হয়েছে। শেষ মুহুর্তে অল্প সময়ে পৌরবাসীর জন্য কিছু করে যেতে চাই। এবং আগামী ২৮ ডিসেম্বর পৌর নির্বাচনে দল তাকে মনোনয়ন দিলে অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করার অঙ্গীকার করেন।

উল্লেখ্য ২০১৭ সালের ২ ফেব্রুয়ারী আওয়ামীলীগের দুগ্রুপের সংঘর্ষ চলাকালে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান দৈনিক সমকালের সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুল। এরপর মেয়র হালিমুল হক মিরুকে প্রধান আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করে শিমুলের স্ত্রী । এই মামলায় গ্রেফতার হওয়ার পর মেয়র পদ থেকে বরখাস্ত হয় মিরু। এরপর দীর্ঘ ২ বছর একটানা কারাগারে থাকার পর গত বছর জামিনে মুক্তিপান মেয়র মিরু।