সুযোগ পাবেন বাংলাদেশিরাও

যুক্তরাষ্ট্র এক লাখ ৮০ হাজার অভিবাসী নেবে

10

শাহজাদপুর সংবাদ ডটকম : যুক্তরাষ্ট্র সরকার সম্প্রতি এইচ১বি ভিসায় এক লাখ ৮০ হাজার জনবল নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে প্রধানত প্রযুক্তি সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোতে এই নিয়োগ দেয়া হবে। প্রযুক্তি বিষয়ে যারা পড়ালেখা করেছেন এবং এ বিষয়ে ক্যারিয়ার গড়তে চান, তাদের জন্য এটি হতে পারে একটি বড় সুযোগ। বিশেষজ্ঞরাও বিষয়টাকে ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখছেন। তারা বলছেন, ‘বিপুল পরিমাণ জনসংখ্যা আমাদের জন্য যেমন বড় ধরনের একটি সমস্যা, তেমনি এই জনসংখ্যাই আমাদের সম্ভাবনার জায়গা। আমাদের দেশে জনগোষ্ঠীর মধ্যে তরুণদের সংখ্যাধিক্য রয়েছে। সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে জনসংখ্যা বাড়লেও কাজের ক্ষেত্র বাড়ছে না। ফলে বেকারত্বের পরিমাণ দিন দিন বেড়েই চলেছে। অনেক তরুণকেই বেকারত্ব বরণ করে নিতে হচ্ছে উচ্চশিক্ষা লাভের পরও। স্নাতক বা স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভের পরও ভালো চাকরি পান না অনেকেই। ফলে হতাশ হয়ে যেতে হয়। আবার গত কয়েক বছরে উন্নত বিশ্বের দেশগুলোতে অর্থনৈতিক মন্দার কারণে কাজের সুযোগ সঙ্কুচিত হয়েছে।’তারা আরও বলেন, অনেক দেশই আবার মন্দার প্রভাবকে কাটিয়ে উঠতে পেরেছে সফলভাবে। ফলে সেসব দেশে আবার কাজের সুযোগ তৈরি হয়েছে। মালয়েশিয়া বা মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে সরকারিভাবে কাজের জন্য যাওয়ার সুযোগ থাকলেও উন্নত বিশ্বের দেশগুলোতে এ ধরনের সুযোগ নেই। তবে উন্নত বিশ্বের দেশগুলোতেও রয়েছে কাজের সুযোগ। যেমন যুক্তরাষ্ট্রের আইটি খাতে তৈরি হয়েছে অভিবাসীদের জন্য কাজের ক্ষেত্র। বাংলাদেশে যারা আইটি সংশ্লিষ্ট বিষয়ে পড়ালেখা করছেন, তাদের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের মতো স্বপ্নের দেশে মিলতে পারে কাজের সুযোগ। এইচ১বি ভিসায় সুযোগ: এটা বলার অপেক্ষা রাখে না, এখন গোটা বিশ্বই শাসন করছে প্রযুক্তি খাত। প্রযুক্তির জয়জয়কার চলছে বিশ্বে। একটা সময় পর্যন্ত উন্নত দেশগুলোর মধ্যেই প্রযুক্তি সীমাবদ্ধ থাকলেও এখন প্রযুক্তি আর নির্দিষ্ট কোনো দেশের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। তারপরও উন্নত বিশ্বের দেশগুলো এখনও প্রযুক্তিতে অনেক এগিয়ে রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র ওই সব দেশের মধ্যে একটি। বিশেষ করে প্রযুক্তি বিশ্বে এখনও নেতৃত্ব দিয়েই যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে যুক্তরাষ্ট্রের জনসংখ্যা স্বল্পতা তাদের অগ্রগতিকে অনেকটাই থামিয়ে দিয়েছে। সেই কারণে অনেকদিন থেকেই যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো দাবি জানিয়ে আসছে সরকারের কাছে, যাতে প্রযুক্তি খাতে বাইরের দেশগুলো থেকে চাকরির জন্য মানুষের অভিবাসন প্রক্রিয়াটি সহজ হয়।বিশেষ করে এইচ১বি ভিসার আওতায় আরও বেশি মানুষ যাতে যুক্তরাষ্ট্রে যেতে পারে, সে বিষয়ে তারা সরকারের কাছে দাবি জানিয়ে আসছিলেন। উল্লেখ্য, এইচ১বি ভিসা যুক্তরাষ্ট্র সরকারপ্রদত্ত এমন এক ধরনের ভিসা যা যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠানগুলোতে বাইরের দেশের কর্মীকে নিয়োগের সুযোগ করে দেয়। গত মে মাসের শেষের দিকেই যুক্তরাষ্ট্র সরকার পাস করে এইচ১বি ভিসার বিলটি। এর ফলে আইটি প্রতিষ্ঠানগুলো এখন যুক্তরাষ্ট্রের বাইরের দেশগুলো থেকে নিজেদের জন্য জনবল নিয়োগ করার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। বাংলাদেশিরাও এই সুযোগোর বাইরে নন।উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রে এখন আইটি খাতে রয়েছে পর্যাপ্ত নতুন নতুন প্রতিষ্ঠান। আর টেক জায়ান্টগুলোর তুলনায় নতুন প্রতিষ্ঠানগুলোতেই মূলত বেশি লোকবল প্রয়োজন।বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কয়েক বছর ধরে আউটসোর্সিং খাতে বাংলাদেশের প্রতিদ্বন্দ্বী যেমন ভারত, তেমনি এইচ১বি ভিসার ক্ষেত্রেও ভারতই বাংলাদেশের মূল প্রতিদ্বন্দ্বী। ভারত থেকে আইটিতে প্রতিবছরই অসংখ্য শিক্ষার্থী বের হচ্ছে। এর বাইরে চীনেও আইটি বিষয়ে প্রচুর শিক্ষার্থী বের হলেও ইংরেজিতে দক্ষতার অভাবের কারণেই পিছিয়ে রয়েছে চীনারা, আর সেই জায়গাতে এগিয়ে রয়েছে ভারত। আবার আমাদের দেশের শিক্ষার্থীদের তুলনায় ভারতের শিক্ষার্থীদের ইংরেজিতে দক্ষতা বেশি।তবে বাংলাদেদেশের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ইদানীং ইংরেজিতে ভালো করার একটা প্রবণতা সৃষ্টি হয়েছে। সে ক্ষেত্রে ভারতের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেই এগিয়ে যেতে হবে এদেশীয় শিক্ষার্থীদের। সম্প্রতি সিএনবিসি টিভি১৮-এর এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, গত বছরে এইচ১বি ভিসার জন্য ভারত থেকে আবেদনকারীদের প্রায় ৬০ শতাংশের আবেদন বাতিল করা হয়। আর সেই সুযোগটিই এবার গ্রহণ করতে পারবে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা।জানা গেছে, আইটি বিষয়ে ভালো একটি ডিগ্রি থাকলেই এইচ১বি ভিসার জন্য আবেদন করা যাবে। সে ক্ষেত্রে সরকারি বা বেসরকারি কোনো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং কিংবা আইটি বিষয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি থাকতে হবে। আর ডিগ্রির পাশাপাশি কাজ জানতে হবে। বিশেষজ্ঞরা এটাও বলছেন, আবার অনেক সময় একাডেমিক রেজাল্ট কিছুটা খারাপ হলেও কোনো বিষয়ের ওপর গভীর জ্ঞান একজন শিক্ষার্থীকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে। তবে ইংরেজি বিষয়ে ভালো জ্ঞান থাকতেই হবে। যেভাবে আবেদন করবেন: এইচ১বি ভিসার জন্য আবেদন করা যাবে অনলাইনেই। http://www.h1bvisa.org সাইটে গিয়ে আবেদন করা যাবে। এই সাইটেই আবেদন করার বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে। www.immihelp.com/visas/h1b/h1-visa-faq.html এবং www.path2usa.com/h1b-visa-guide সাইট থেকেও এইচ১বি ভিসা সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য জেনে নিতে পারবেন।

এখানে মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.