সিরাজগঞ্জে স্বপ্নের ধান কাটা শুরু

করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ের প্রকোপের মাঝেই বোরো ধানের ভালো ফলনে হাসি ফুটছে সিরাজগঞ্জের কৃষকদের মুখে। চোখে স্বপ্ন ও বুকে আশা নিয়ে তারা কাটতে শুরু করেছেন নতুন ধান। এদিকে কৃষাণীরা ব্যস্ত ধান মাড়াই ও গোলায় ধান ভরার কাজে।

চলনবিল ও যমুনা নদী অধ্যুষিত জেলা সিরাজগঞ্জের বিভিন্ন জায়গায় শুরু হয়েছে বোরো ধান কাটা। চলনবিল অধ্যুষিত তাড়াশের জমিগুলোতে অধিকসময়ই বিলে পানি থাকায় কৃষকের প্রধান স্বপ্ন থাকে এ ধানকে ঘিরে।

এছাড়াও কাজিপুর, এনায়েতপুর, সিরাজগঞ্জ সদর, বেলকুচি, শাহজাদপুর যমুনা নদী অধ্যুষিত হওয়ায় এখানেও কৃষকের স্বপ্ন থাকে এই বোরো ধান নিয়ে।

jagonews24

তেমন কোনো প্রাকৃতিক দূর্যোগ না থাকার পাশাপাশি কৃষি অফিসের সার্বিক সহযোগিতায় ও সরকারের প্রণোদনায় ধানের বাম্পার ফলনের পাশাপাশি হাসি ফুটেছে কৃষকদের মুখে। এখন ভালোভাবে ধান কেটে মাড়াই শেষে ঘরে তুলতে পারলেই যেন তাদের মনে স্বস্তি আসবে।

সিরাজগঞ্জ জেলা কৃষি অফিসের তথ্যানুযায়ী, এ বছর ২০২০-২০২১ অর্থবছরে ধানচাষের লক্ষ্যমাত্রা প্রায়ই শতভাগই পূরণ হয়েছে। এ বছর এক লাখ ৪১ হাজার ২০ হেক্টর জমিতে ধানচাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল। এদিকে জেলায় এক লাখ ৪০ হাজার ৬৯০ হেক্টর জমিতে ধানচাষ হয়েছে।

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর ও তাড়াশের কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, কৃষকেরা উৎসবের আমেজে নতুন ধান কাটতে শুরু করেছেন। ইতোমধ্যেই তাড়াশের মাগুড়া, সগুনা, ঘরগ্রাম, ধামাইচ, শ্যামপুর, চর হামকুড়িয়া ও শাহজাদপুরের নদী তীরবর্তী নরিনা ইউনিয়নের চর-নরিনাসহ উপজেলার নিচুস্থানে ও বিভিন্ন নালায় রোপিত স্থানীয় ধান পেঁকে যাওয়ায় কৃষকেরা ধান কাটতে শুরু করেছেন। এবার ফলনও ভালো হয়েছে বলেও জানান কৃষকরা।

jagonews24

তাড়াশের মাগুড়া বিনোদ এলাকার কৃষক মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, বৈরী আবহাওয়া না থাকায় এবং কৃষি অফিস থেকে সঠিক পরামর্শ ও যথাসময়ে বীজ, সার ও কীটনাশক পাওয়ায় ধানের ভালো ফলন হয়েছে। এখন ভালোভাবে ফসল ঘরে তুলতে পারলেই বাঁচি।

তাড়াশের ঘরগ্রামের কৃষক কৃষ্ণপদ ঘোষ বলেন, এবার ভালো ফলন হয়েছে। প্রতি বিঘা জমিতে ২৬-৩০ মণ হারে ধান পাওয়া যাচ্ছে। বিঘা প্রতি সার, বীজ ও কাটা বাবদ সব কিছু মিলিয়ে খরচ হয় ৮-১০হাজার টাকা। এখন প্রতি মণ ধানের দাম এক হাজার টাকা। সে হিসাব অনুযায়ী, প্রতি বিঘা জমি থেকে ধানে কৃষকের আয় হচ্ছে প্রায় ২০-২২ হাজার টাকা।

শাহজাদপুরের নরিনা ইউনিয়নের চর-নরিনা গ্রামের শাহীনূর রহমানসহ বেশ কয়েকজন প্রান্তিক কৃষক জানান, চলতি বছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ফলন খুব ভালো হয়েছে। ইতোমধ্যে এসব ধান পেঁকেও গেছে। লকডাউনে কৃষকদের হাতে তেমন কোনো কাজ নেই। তাই শ্রমিকদের সঙ্গে তারা নিজেরাও ধান কাটছেন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সিরাজগঞ্জ জেলা অফিসের উপ-পরিচালক মো. আবু হানিফ বলেন, দুর্যোগমুক্ত আবহাওয়ার কারণে এবার ধানের স্বাভাবিক বৃদ্ধি ও ফলন অতীতের চেয়ে বেশ ভালো হয়েছে। শেষপর্যন্ত এভাবেই আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে ধানের বাম্পার ফলন হবে আশা করছি।

jagonews24

তিনি আরও বলেন, জেলার ধানের জন্য বিখ্যাত তাড়াশ উপজেলা। কিন্তু সেখানে ফসলি জমিতে যত্রতত্র পুকুর খননে যেমন জমি কমেছে তেমনি এর কারণে তৈরি হওয়ায় জলাবদ্ধতায় কমে গেছে ধানচাষ।

তিনি আরও বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে ভর্তুকিতে কৃষকদের মাঝে সার, বীজ দেয়াসহ প্রনোদনা দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে সর্বদা জমি পরিদর্শন করে সঠিক পরামর্শ ও ফসলে পোকার আক্রমণ রোধে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করা হয়েছে।

এবছর কৃষকরা অর্থনৈতিকভাবেও বেশ লাভবান হবেন বলে জানান এই কর্মকর্তা।

 

সূত্রঃ জাগো নিউজ