‘সাংবাদিক শিমুলকে মেয়রই গুলি করে হত্যা করেছে’ – এমপি স্বপন

নিজস্ব প্রতিবেদক : সিরাজগঞ্জ-৬ (শাহজাদপুর) আসনের সংসদ সদস্য হাসিবুর রহমান স্বপন ফের অভিযোগ করে বলেছেন, ‘শাহজাদপুর পৌর মেয়র হালিমুল হক মিরু ও তার ভাই মিন্টুই সেদিন সংঘর্ষের সময় পুলিশের বাঁধা উপেক্ষা করে শটগান দিয়ে সমকাল সাংবাদিক শিমুলকে প্রকাশ্যে গুলি করে। তাদের গুলিতেই মারা যান সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুল।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা এ হত্যাকান্ডের প্রধান আসামি মেয়র মিরু ও তার ভাই মিন্টুসহ সকল অপরাধীদের ফাঁসি চাই।’ এ সময় তিনি মিরু ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীদের ব্যবহৃত সকল অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করার জন্য আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি জোর দাবি জানান।
শাহজাদপুরে নিহত সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুলের স্ত্রী নূরুন্নাহার খাতুনের হাতে রাষ্ট্রয়াত্ত প্রতিষ্ঠান এসেনসিয়াল ড্রাগস কোম্পানি লিমিটেডে চাকরির নিয়োগপত্র তুলে দেয়া হয়েছে। এর ফলে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম কর্তৃক পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী নিহত সাংবাদিক শিমুলের স্ত্রীকে চাকরি দেয়ার প্রতিশ্রুতি পূরণ হলো। নিয়োগপত্রে শিমুলের স্ত্রীকে এসেনসিয়াল ড্রাগস কোম্পানি, বগুড়া শাখায় উৎপাদন কর্মী হিসাবে আগামী ১ মার্চ কাজে যোগদান করতে বলা হয়েছে। আজ শুক্রবার শাহজাদপুর প্রেসক্লাব আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে নিহত সাংবাদিকের স্ত্রীর হাতে নিয়োগপত্র হস্তান্তর করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন। স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়ের মিলনায়তনে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান প্রফেসর আজাদ রহমান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার আলীমুন রাজীব। এতে সভাপতিত্ব করেন শাহহজাদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি বিমল কুন্ডু। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, থানার অফিসার ইনচার্জ খাঁজা গোলাম কিবরিয়া, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শফিকুজ্জামান শফি, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার খালেকুজ্জামান খান, ৭১ টিভি চ্যানেলের সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি মাসুদ পারভেজ, রিপোটার্স ক্লাবের সভাপতি আতাউর রহমান পিন্টু, সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ফারুক প্রমুখ। এ সময় স্থানীয় এমপি বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কাছে আমি দেখা করে আবেদন জানাবো, গৃহহীন সাংবাদিক শিমুলের পরিবারের জন্য সরকারি জায়গায় একটি স্থায়ী বাসস্থান প্রদানের জন্য। ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ থেকে নিয়ম অনুযায়ী মেয়র মিরুকে অস্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে এবং স্থায়ী বহিষ্কারের জন্য ১৫ দিনের সময় দিয়ে কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে।’
অন্যান্য বক্তরা সাংবাদিক শিমুল হত্যা মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর ও ঘটনার ভিডিও ফুটেজ দেখে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারসহ সকল সন্ত্রাসীদের অবিলম্বে গ্রেফতারে দাবি জানান। সভায় সাংবাদিকরা আইনের ফাঁক ফোকর দিয়ে এ হত্যা মামলার প্রধান আসামী পৌর মেয়র হালিমুল হক মিরু সহ তার সন্ত্রাসী বাহিনীর সদস্যরা যাতে পার পেয়ে না যায় সে দিকে সর্তক দৃষ্টি রাখার জন্য পুলিশ প্রশাসনের প্রতি আহবান জানানো হয়।
উল্লেখ্য, গত ২ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার বিকেলে পৌরমেয়র হালিমুল হক মিরু তার শর্টগান থেকে গুলি ছুঁড়লে ঘটনাস্থলে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে দৈনিক সমকালের শাহজাদপুর প্রতিনিধি আব্দুল হাকিম শিমুল গুলিবিদ্ধ হন। প্রথমে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেও তার শারীরীক অবস্থার অবনতি ঘটলে বিকেলে বগুড়া শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ এন্ড হসপিটালে স্থানান্তর করা হয়। শুক্রবার উন্নত চিকিৎসার জন্য বগুড়া থেকে ঢাকা নেয়ার পথে সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুলের মৃত্যু হয়। এ খবর শুনে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় নিহতের নানীও শোকে মৃত্যুবরণ করেন। গত শনিবার রাতে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম নিহত সাংবাদিক শিমুলের পরিবারের সদস্যদের সমবেদনা জানাতে গেলে স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীদের অনুরোধে তিনি শিমুলের স্ত্রীকে চাকরি দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন।