সড়ক দুর্ঘটনায় পর্বতারোহী রেশমা রত্নার মৃত্যু

ছবি: ইন্টারনেট

রাজধানীর শের-ই-বাংলা নগর থানাধীন এলাকায় প্রাইভেটকার চাপায় পর্বতারোহী রেশমা রত্না (৩৩) নিহত হয়েছেন।

শুক্রবার (৭ আগস্ট) সকাল ৯টার দিকে সংসদ ভবন এলাকার চন্দ্রিমা উদ্যান সংলগ্ন লেক রোড দিয়ে সাইকেলিং করার সময় একটি প্রাইভেটকার চাপা দিয়ে চলে যায়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ডিএমপির ট্রাফিক মোহাম্মদপুর জোনের সহকারী কমিশনার কে এ শহীদুল ইসলাম।

তিনি বলেন, প্রত্যক্ষদর্শীদের দেয়া খবরে ট্রাফিক পুলিশ সদস্যরা গুরুতর আহত অবস্থায় এক নারীকে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি বলেন, আমরা সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে জানতে পেরেছি তার নাম রেশমা রত্না। তিনি পেশায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা ও পর্বতারোহী। আমরা রেশমার দুমড়েমুচড়ে যাওয়া সাইকেলটি উদ্ধার করেছি। তবে ঘাতক প্রাইভেটকারের সন্ধান এখনও মেলেনি। আশপাশের সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করে পুলিশ কাজ করছে।

পুরো নাম রেশমা নাহার রত্না। যুক্ত ছিলেন শিক্ষকতার সঙ্গেও। ধানমন্ডির আইয়ুব আলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারি শিক্ষক ছিলেন। থাকতেন মিরপুরে সরকারি কোয়ার্টারে। শিক্ষা ও সংস্কৃতির নানা কার্যক্রমের পাশাপাশি পর্বত অভিযাত্রী হিসেবেও বিভিন্ন ধরণের ট্র্যেকিং সম্পন্ন করেছেন। যুক্ত ছিলেন বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের বিভিন্ন শিক্ষামূলক কার্যক্রমেও। পর্বতারোহণে তাঁর বিপুল উৎসাহ ছিল। প্রথমে দার্জিলিংয়ে তেনজিং নরগে মাউন্টেনিয়ারিং ইন্সটিটিউট থেকে বেসিক কোর্স সম্পন্ন করেন এবং তারপর হিমাচলের মাউন্টেনিয়ারিং ইন্সটিটিউট থেকে উচ্চতর কোর্সও সম্মন্ন করেছেন। ইতিমধ্যেই রত্না ছয় হাজার মিটার পর্যন্ত ট্রেকিং সম্পন্ন করেছেন। ধাপে ধাপে পৃথিবীর সর্বোচ্চ শিখরে পা রাখার স্বপ্ন ছিল রত্নার। সেজন্য নিয়ম করে সাইকেল নিয়ে বের হতেন। প্রতিদিনের মতো আজও রমনায় জগিং, হাতিরঝিল এলাকায় সাইকেল চালিয়ে মিরপুরের বাসায় ফিরছিলেন। কিন্তু বিজয় স্মরণী পাড় হয়ে চন্দ্রিমা উদ্যান সংলগ্ন এলাকায় গেলে পেছন থেকে দ্রুতগামী গাড়ি তার সকল স্বপ্নকে চিরতরে মিলিয়ে দেয়। এই রকম একটি সম্ভাবনাময় জীবনের অকাল পরিণতিতে আত্মীয় স্বজন, বন্ধুমহল সকলের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।