কেন্দ্রটি চালু হলে পূর্বাঞ্চলের সমবায়ীরা বহুভাবে উপকৃত হবেন


শাহজাদপুর পূর্বাঞ্চলে মিল্কভিটা’র দুগ্ধ শীতলীকরণ কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন


শামছুর রহমান শিশির : আজ (সোমবার) সকালে দেশের দুগ্ধশিল্পের কেন্দ্রবিন্দু শাহজাদপুরের পুঠিয়াস্থ মিল্কভিটা’র দুগ্ধ সংগ্রহ কেন্দ্রে দৈনিক ১০ হাজার লিটার দুধ শীতলীকরণ ক্ষমতাসম্পন্ন কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ও কেন্দ্রটির ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করা হয়েছে। মিল্কভিটা’র ভাইস চেয়ারম্যান, স্পেশাল পিপি (নারী ও শিশু), আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শাহজাদপুর থেকে নৌকা প্রতীকে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী, স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা এ্যাড. শেখ মোঃ আব্দুল হামিদ লাবলু প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে কেন্দ্রটিতে নতুন একটি শীতলীকরণ কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ও ভবন নির্মাণ কাজের শুভ উদ্বোধন করেন। এ উপলক্ষে
পুঠিয়াস্থ মিল্কভিটার শাহজাদপুর পূর্বাঞ্চল দুগ্ধ সংগ্রহ কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক ডাঃ শরীফুল ইসলামের সভাপতিত্বে ওই কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মিল্ক ইউনিয়ন ব্যবস্থাপনা কমিটির পরিচালক বীরমুক্তিযোদ্ধা খালেকুজ্জামান খান, পরিচালক আব্দুস সামাদ ফকির, বাঘাবাড়ী কারখানা ব্যবস্থাপক ডাঃ এএফএম ইদ্রিস, সমিতি বিভাগের ব্যবস্থাপক অমিয় কুমার মন্ডল প্রমূখ।
সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মিল্কভিটা’র ভাইস চেয়ারমান, স্থানীয় আ’লীগ নেতা এ্যাড. শেখ আব্দুল হামিদ লাবলু বলেন, ‘ধারণক্ষমতা না থাকায় মিল্কভিটা’র আওতাভূক্ত শাহজাদপুর পূর্বাঞ্চলের প্রায় আড়াই’শ সমবায় গো-খামারে দৈনিক উৎপন্ন দুধের অর্ধেক এখানে ও বাকি অর্ধেক দুধ মিল্কভিটা’র বাঘাবাড়ী কারখানায় সংগ্রহ করা হতো। এ অঞ্চলের সমবায়ী ওইসব গো-খামারিদের দীর্ঘদিনের দাবীর প্রেক্ষিতে শাহজাদপুর পূর্বাঞ্চল দুগ্ধ সংগ্রহ কেন্দ্রে দৈনিক ১০ হাজার লিটার ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন নতুন শীতলীকরণ কেন্দ্র স্থাপনকাজ শুরু করা হলো। এটি চালু হলে স্থানীয় সমবায়ীরা স্বল্প সময়ে খুব সহজেই তাদের খামারে উৎপন্ন দুধের পুরোটাই এখানে সরবরাহ করতে পারবেন।” ওই কেন্দ্রটির সোসাইটি অর্গানাইজার (এসও) এসএম সামিউল হক লাইজু জানান,”যমুনা অধ্যুষিত দুর্গম পূর্বাঞ্চলের আড়াই’শ সমবায়ী গো-খামারিদের খামারে দৈনিক উৎপন্ন প্রায় ১৫ হাজার লিটার দুধের অর্ধাংশ অপেক্ষাকৃত দূরবর্তী মিল্কভিটার প্রধান কারখানা বাঘাবাড়ী সরবরাহ করতে হতো। পূর্বাঞ্চলের নতুন শীতলীকরণ কেন্দ্রটি চালু হলে এ অঞ্চলে দৈনিক উৎপন্ন প্রায় ১৫ হাজার লিটার দুধের পুরোটাই সমবায়ী গো-খামারিরা এখানে সরবরাহ করতে পারবেন। এতে সমবায়ীদের পরিবহন ব্যয়, ভোগান্তি কমবে ও অার্থিকভাবে তারা আরও বেশী লাভবান হবেন।’ উক্ত সভায় মিল্কভিটার কর্মকর্তা- কর্মচারীবৃন্দসহ পূর্বাঞ্চলের সমবায়ী গো-খামারিগণ উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, উক্ত অনুষ্ঠানেনমিল্কভিটা’র চেয়ারম্যান শেখ নাদির হোসেন লিপু’র প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও বিশেষ কারণে তিনি উপস্থিত হতে না পারায় তার পক্ষ থেকে মিল্কভিটা’র ভাইস চেয়ারম্যান জননেতা শেখ মোঃ আব্দুল হামিদ লাবলু প্রধান অতিথি হিসেবে কেন্দ্রটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ও ভবন নির্মান কাজের উদ্বোধন করেন।