অপরাধদিনের বিশেষ নিউজ

ভাম্যমান আদালতে ৬ ভেজালকারীর কারাদন্ড


শাহজাদপুরে র‌্যাবের অভিযানে ১৫ হাজার লিটার ভেজাল জ্বালানী তেল জব্দ

নিজস্ব প্রতিবেদক : গতকাল রোববার দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শাহজাদপুর উপজেলার পোতাজিয়া ইউনিয়নের গঙ্গাপ্রসাদ ও নুকালী এলাকার ৫ টি অবৈধ ভেজাল জ্বালানী তেল (পেট্রোল-অকটেন) তৈরীর কারখানায় র‌্যাব-১২ সিরাজগঞ্জ এর একটি দল অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ ভেজাল জ্বালানী তেল তৈরীর কেমিক্যাল ও সরঞ্জাম উদ্ধার করেছে। এ ছাড়া একটি ট্যাংকলরিসহ ২ কারখানায় তৈরী ১৫ হাজার লিটার ভেজাল পেটোল ও অকটেন জব্দ ও ভেজাল কারবারের সাথে জড়িত থাকার অপরাধে কারখানার ৬ মালিক-কর্মচারিকে আটক করা হয় । আটক ব্যক্তিরা হল, শাহজাদপুর উপজেলার গঙ্গাপ্রসাদ গ্রামের হাকিম উদ্দিনের ছেলে ভেজাল পেট্রোল তৈরীর কারখানার মালিক হাসান মাহমুদ (৩১), দ্বাবাড়িয়া গ্রামের হাজী আবু তাহেরের ছেলে মহির উদ্দিন মোল্লা (৩০), তার সহযোগী গঙ্গাপ্রসাদ গ্রামের চাঁদ মুন্সির ছেলে শফিকুল মুন্সি (৩২), নবীর উদ্দিনের ছেলে ছোলায়মান মুন্সি (৩৫), ট্যাংকলরি চালক চাপাইনবাবগঞ্জ জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুর গ্রামের মহসিন আলীর ছেলে আব্দুস ছামাদ (৩৫), একই উপজেলার তেঁতুলতলা গ্রামের গোলাম মোস্তফার ছেলে রবিউল ইসলাম (৩৫)। পরে ঘটনাস্থলেই ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে আটকদের বিভিন্ন মেয়াতে সাজা দেওয়া হয়। এর মধ্যে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও শাহজাদপুর উপজেলার সহকারী কমিশনার(ভূমি) জাকিয়া সুলতানা কারখানা মালিক মহির মোল্লাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এ ছাড়া অপর কারখানার মালিক হাসান মাহমুদ, ট্যাংকলরি চালক আব্দুস ছামাদ, রবিউল ইসলামকে ৬ মাস ও শফিকুল মুন্সি ও ছোলায়মান মুন্সিকে ১ মাস করে বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করে শাহজাদপুর থানা পুলিশে সোপর্দ করেন। শাহজাদপুর থানা পুলিশ এদিনই তাদের সিরাজগঞ্জ জেলহাজতে পাঠিয়ে দেন। এ ছাড়া আটক ট্যাংকলরিটি শাহজাদপুর থানা হেফাজতে ও ভেজাল জ্বালানী তেল তৈরীর কারখানাগুলো সীলগালা করে দেন।
এ বিষয়ে সিরাজগঞ্জ র‌্যাব-১২ এর ইন্সপেক্টর মোঃ সবুজ মিয়া জানান, ‘শাহজাদপুর উপজেলার বাঘাবাড়ি নৌবন্দরে অবস্থিত বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) অয়েল ডিপোর পাশে বগুড়া-নগরবাড়ী মহাসড়কের নুকালি ও গঙ্গাপ্রসাদ নামক স্থানের ৫ টি কারখানায় দীর্ঘদিন ধরে ভেজাল পেট্রোল ও অকটেন তৈরী করে ভেজালকারীরা উত্তরাঞ্চলের রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের ১৬ জেলার বিভিন্ন এলাকায় ভেজাল জ্বালানী তেল সরবরাহ করে আসছিলো। এ ভেজাল জ্বালানী তেল ব্যবহার করায় এ অঞ্চলের যানবাহনের ইঞ্জিনে প্রায়শই ত্রুটি দেখা দিতো ও ইঞ্জিন বিকল হয়ে এসব যানবাহন দূর্ঘটনায় কবলে পড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি সাধিত হতো ও প্রাণহানী ঘটতো। এ ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ক্ষয়ক্ষতি রোধে শাহজাদপুরে অভিযান চালিয়ে হাসান মাহমুদের কারখানা থেকে একটি ট্যাংকলরিসহ সাড়ে ১৩ হাজার লিটার ভেজাল পেট্রোল ও অকটেন ও অন্য ৪ টি কারখানা থেকে ৮০ ব্যারেল ভেজাল পেট্রোল-অকটেন জব্দ করা হয়।’

একই বিভাগের সংবাদ

Back to top button
x
Close
Close
%d bloggers like this: