শাহজাদপুরে মুক্তিযোদ্ধা তালিকা ও গেজেট থেকে বজলুর রশিদকে বাদ দেয়ার দাবীতে সংবাদ সম্মেলন

শাহজাদপুর উপজেলা জালালপুর ইউনিয়নের সৈয়দপুর গ্রামের পিস কমিটির সদস্য দলিল লেখক জয়নাল আবেদীনের ছেলে বজলুর রশিদের বিরুদ্ধে ভূয়া কাগজপত্র দেখিয়ে মুক্তিযোদ্ধা হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উক্ত বজলুর রশিদকে মুক্তিযোদ্ধার তালিকা ও গেজেট থেকে বাদ দেয়ার দাবীতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এলাকাবাসী। বুধবার (৬ ডিসেম্বর) সকাল ১১ টায় উপজেলার জালালপুর ইউনিয়নের মুলকান্দি বাজারের ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এলাকবাসীর পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জালালপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী সুলতান মাহমুদ।

লিখিত বক্তব্যে তিনি জানান, ১৯৭১ সনে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় বজলুর রশিদের পিতা জয়নাল আবেদীন জালালপুর ইউনিয়নের শান্তি কমিটির ৪ নং সদস্য ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন জয়নাল আবেদীন পাকবাহিনীর ও রাজাকারদের সহযোগিতায় এলাকায় মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের ব্যক্তিদের উপরে নানা অত্যাচার ও নির্যাতন চালিয়েছিলো। এ কাজে বজলুর রশিদও তার বাবাকে সহযোগিতা করেছে। অথচ মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ না করেও ভূয়া তথ্য ও কাগজপত্র দেখিয়ে বজলুর রশিদ ২০০৪ সালে মুক্তিযোদ্ধা গেজেট ভুক্ত হন। যার গেজেট নং- ১৭৯৪, ক্রমিক নং- ১৫৫, সনদ নং- ম-৭৬২৩, ভাতা বই নং- ৩২৮। সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করা হয়, বজলুর রশিদের ভারতে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত এফএফ সনদ নেই। এমনকি বাংলাদেশে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রধান তালিকা মুক্তিবার্তা (লাল বই) তেও তার নাম নেই। শুধু তাই নয়, মহান মুক্তিযুদ্ধাকালীন বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল লতিফ মির্জার নেতৃত্বে গঠিত বে-সরকারি বাহিনী পলাশ ডাঙ্গা যুব শিবির (পাবনা-সিরাজগঞ্জ অঞ্চল) এর তালিকায় তার নাম নেই।

লিখিত বক্তব্যে ইউপি চেয়ারম্যান আরও জানান, বজলুর রশিদ একজন অপ্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা। তিনি অবৈধভাবে মুক্তিযোদ্ধার গেজেটভুক্ত হয়ে মাসিক ভাতাসহ মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সকল সুযোগ সুবিধা ভোগ করে আসছেন। অথচ, বাস্তবে সে তার রাজাকার পিতার অন্যতম সহযোগী হিসেবে কাজ করতেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত বজলুর রশিদের ক্লাসমেট মজিবর রহমান, ভাগ্নে গোলজার হোসেন, প্রবীণ প্রতিবেশী বন্দেজ আলী, আনছার আলী মোল্লা, গোপাল দাসসহ অনেকেই সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে বলেন, বজলুর রশিদ কোনদিনই মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করেন নি। বরং যুদ্ধের সময় নিজ এলাকায় থেকে সে তার রাজাকার বাবাকে সহযোগিতা করেছেন। সংবাদ সম্মেলনের মধ্যেমে এলাকাবাসী বজলুর রশিদের বিরুদ্ধে প্রকাশ্য ও অপ্রকাশ্য তদন্তপূর্বক মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাইকালে মুক্তিযোদ্ধার তালিকা ও গেজেট থেকে তার নাম বাদ দেয়ার দাবীসহ সরকারি সকল সুযোগ-সুবিধা বাতিলের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

এ ব্যাপারে বজলুর রশিদের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘আমি একজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা।’