শাহজাদপুরে গুলিবিদ্ধ সমকাল সাংবাদিক শিমুলের মৃত্যু, শোকে নানী রোকেয়ার মৃত্যু !

শামছুর রহমান শিশির : গত বৃহস্পতিবার বিকেলে শাহজাদপুর পৌরমেয়র ও তার স্বশস্ত্র সন্ত্রাসী বাহিনীর হাতে গুলিবিদ্ধ দৈনিক সমকালের শাহজাদপুর প্রতিনিধি আব্দুল হাকিম শিমুল (৪৭) কে উন্নত চিকিৎসার জন্য বগুড়া জিয়া মেডিকেল থেকে ঢাকায় নেয়ার পথে আজ শুক্রবার দুপুরে তার মৃত্যু হয়েছে (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। এদিকে নিহতের নানী রোকেয়া (৯০) শোক সইতে না পেরে এদিন সন্ধ্যায় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। সাংবাদিক শিমুলের মৃত্যুর সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে তাৎক্ষণিক কালো ব্যাচ ধারণ করে স্থানীয় সাংবাদিকেরা বিক্ষোভে ফেঁটে পড়ে। প্রেসক্লাব চত্বর থেকে সাংবাদিকেরা একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। খুনি পৌর মেয়র হালিমুল হক মিরু ও তার স্বশস্ত্র সন্ত্রাসী বাহিনীকে গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মুহুর্মুহু শ্লোগানে এলাকা প্রকম্পিত হয়ে ওঠে। বিক্ষোভ মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে থানা ফটকে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে এ ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে সংক্ষিপ্ত প্রতিবাদ সভায় সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে পৌর মেয়র হালিমুল হক মিরুসহ তার স্বশস্ত্র সন্ত্রাসী বাহিনীকে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। সেইসাথে আগামীকাল ভোর ৬ টা থেকে দুপুর ১ টা পর্যন্ত অর্ধদিবস হরতাল কর্মসূচী ঘোষণা করা হয়। অপরদিকে, একই সময় বাংলাদেশ ছাত্রলীগ শাহজাদপুর উপজেলা ও সরকারি কলেজ শাখার পক্ষ থেকেও যৌথভাবে হরতালের আহবান জানানো হয়েছে। হরতালের সমর্থনে বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকেও শাহজাদপুরে মাইকিং চলছে।
এদিন দুপুর আড়াইটার দিকে নিহত সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুলের লাশ এ্যাম্বুলেন্সে শাহজাদপুর প্রেসক্লাব চত্বরে এসে পৌঁছায়। এ সময় তাকে এক নজর দেখার জন্য সাংবাদিক, রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ সর্বস্তরের জনসাধারণের ঢল নামে। তাকে একনজর দেখার পর সকলেই কান্নায় ভেঙ্গে পড়লে হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারনা ঘটে। পরে সুরতহাল তৈরির জন্য নিহতের লাশ শাহজাদপুর থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেও নিহতের আত্মীয় স্বজনসহ সর্বস্তরের মানুষের ঢল নামে। পরে ময়নাতদন্তের জন্য নিহতের লাশ সিরাজগঞ্জ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।
এ খবর জানতে পেরে সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসনের পক্ষে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) কামরুল হাসান, শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আলীমুন রাজীব শাহজাদপুরে এসে পৌঁছান এবং নিহতের পরিবারকে আপদকালীন সময়ের জন্য ২৫ হাজার টাকা অনুদান দেন। এদিকে, নিহত সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুলের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসী আজ শুক্রবার বিকেলে বগুড়া-নগরবাড়ি মহাসড়কের দিলরুবা বাসস্ট্যান্ডে বিক্ষোভ প্রদর্শন ও মহাসড়ক অবরোধ করে। প্রায় আধাঘন্টাব্যাপী ওই অবরোধ চলাকালে ওই মহাসড়কের দুই পাশে শত শত যানবাহন আটক পড়ে। পরে প্রশাসন ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব হাসিবুর রহমান স্বপন সন্ধ্যায় নিহতের বাড়িতে গিয়ে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান ও তাদের খোঁজ খবর নেন। স্থানীয় এমপি বলেন, ‘ এ ধরনের ন্যাক্কারজনক ঘটনায় জড়িতরা যত শক্তিশালীই হোক না কেনো তাদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।’ সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার মিরাজ উদ্দিন আহমেদ জানান, ‘দোষীরা যত ক্ষমতাধর ব্যক্তিই হোক না কেনো, তাদের দ্রুত গ্রেফতারপূর্বক বিচারের সন্মুখীন করা হবে। ’ এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নিহতের স্ত্রী নুরুন্নাহার বাদী হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। আইন শৃংখ্যলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে শাহজাদপুর পৌরমেয়রের ছোট ভাই পিন্টু ও তার স্বশস্ত্র সন্ত্রাসী বাহিনী কর্তৃক শাহজাদপুর সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি বিজয় মাহমুদকে স্থানীয় সাবরেজিষ্ট্রি অফিসের সামনে থেকে উঠিয়ে নিয়ে মেয়রের বাড়িতে আটক করে বেধড়ক মারপিট করে হাত পা ভেঙ্গে গুরুতর অবস্থায় ভ্যানে তুলে দেয়া হয়। এ খবর ছড়িয়ে পড়ায় বিকেলে এর প্রতিবাদে স্থানীয় ছাত্রলীগ কর্মী-সমর্থকরা বিক্ষোভ করে। এক পর্যায়ে বিক্ষুব্ধ কর্মী-সমর্থকরা পৌর সভার মেয়র হালিমুল হক মিরুর মণিরামপুর মহল্লার বাসভবন ঘেরাও করে। এ সময় বিক্ষোভকারীদের লক্ষ করে পৌরমেয়র হালিমুল হক মিরু তার শর্টগান থেকে গুলি ছুঁড়লে ঘটনাস্থলে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে দৈনিক সমকালের শাহজাদপুর প্রতিনিধি আব্দুল হাকিম শিমুল গুলিবিদ্ধ হন। প্রথমে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেও তার শারীরীক অবস্থার অবনতি ঘটলে বিকেলে বগুড়া শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ এন্ড হসপিটালে স্থানান্তর করা হয়। আজ উন্নত চিকিৎসার জন্য বগুড়া থেকে ঢাকা নেয়ার পথে সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুলের মৃত্যু হয়।