অর্থ-বাণিজ্যদিনের বিশেষ নিউজশাহজাদপুর

ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন কোরবানির পশুর হাটে সরবরাহ


শাহজাদপুরে কোরবানির গরু বিক্রি নিয়ে খামারিরা দ্বিধা-দ্বন্দ্ব সংশয়ে

করোনা ও বন্যার কারণে এখনও গবাদী পশুর হাটগুলো জমজমাট না হলেও দেশের গবাদী পশুর কেন্দ্রবিন্দু শাহজাদপুর থেকে ঢাকাসহ সারাদেশের বিভিন্ন স্থানের কোরবানির হাটে হাজার হাজার গরু পাঠানো হচ্ছে। উপজেলার যমুনা নদী অধ্যুষিত জামিরতা, কৈজুরী, গালা, জালালপুর ও সোনাতনী এলাকা থেকে নৌ-পথে এবং বগুড়া-নগরবাড়ী মহাসড়কের তালগাছী, বিসিক, দিলরুবা, বাঘাবাড়ীসহ বিভিন্ন স্থান থেকে ট্রাক ও নসিমনে সড়কপথে দেশের বিভিন্ন কোরবানীর হাটে বিক্রয়ের জন্য এসব গরু নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। আসন্ন কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে শাহজাদপুরে আধুনিক ও বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে প্রায় ৩০ হাজার ষাঁড় হৃষ্টপুষ্ট করেছে খামারিরা। সেইসাথে প্রাকৃতিকভাবে লালন-পালনকৃত ২০ হাজার গরুও সরবরাহ করা হচ্ছে দেশের বিভিন্ন কোরবানির পশুর হাটে। তবে উপজেলায় লালন-পালনকৃত প্রায় ৫০ গরু করোনা ও বন্যার সংকটময় মুহুর্তে শেষ পর্যন্ত কোরবানির পশুর হাটে লাভজনক দামে বিক্রি করতে পারবেন কি না তা নিয়ে খামারিরা নানা দ্বিধা-দ্বন্দ্ব আর সংশয়ে রয়েছেন।
জানা গেছে, কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে দেশের বিভিন্ন কোরবানির পশুর হাটে বিক্রির জন্য চলতি বছর তারা প্রায় ৫০ হাজার গরু প্রতিপালন করেছেন। এসব গরু ৩০ হাজার টাকা থেকে ৩ লাখ টাকায় বিক্রির আশা করা হচ্ছে। তবে মাঝারি দামের অর্থাৎ ৪০ হাজার থেকে ৭০ হাজার টাকায় বিক্রির জন্যই বেশী গরু তৈরি করা হয়েছে। কোরবানির ঈদকে উপলক্ষ করে উপজেলার তালগাছী, নরিনা, বাতিয়া, জামিরতা, পার্শ্ববর্তী উল্লাপাড়ার কয়রা, বোয়ালিয়া, গ্যাসের হাট, বড়হর, বেড়ার চতুরআলী হাট, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন কোরবানির পশুর হাটে এসব গরু বিক্রির জন্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।
স্থানীয় গো-খামারিরা জানায়, প্রতিপালনকৃত এসব গরুর মধ্যে রয়েছে হাইব্রিড জাতীয় পাবনা ব্রিড, অষ্ট্রেলিয়ার-ফ্রিজিয়ান ব্রিড, ইন্ডিয়ান হরিয়ান ব্রিড, পাকিস্তানি শাহীওয়াল ব্রিডসহ স্থানীয় নানা শংকর জাতের গরু। বিশেষ পদ্ধতিতে ইউরিয়া, লালিগুঁড় ও খড়ের মিশ্রণ ১ সপ্তাহ পাত্রে আবদ্ধ রেখে তা রোদে শুকিয়ে গরুকে খাওয়ানো হয়। এভাবে তিন মাস প্রক্রিয়াজাত এ গো-খাদ্য খেয়ে গরুগুলো দ্রুত হৃষ্টপুষ্ট হয়ে ওঠে। এ প্রক্রিয়ায় হৃষ্টপুষ্ট গরুর মাংস মানব স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর নয় বলে তারা জানিয়েছেন।
প্রতি বছরই দেশে কোরবানির পশুর মোট চাহিদার একটি বড় অংশের যোগান দেয়া হয় শাহজাদপুর থেকে। সেই লক্ষ্যে ইতিমধ্যেই শাহজাদপুর থেকে কোরবানির পশু সড়ক পথে ও নৌ-পথে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের কোরবানির পশুর হাটে সরবরাহ করা হচ্ছে। এদিকে, করোনার ক্রান্তিকালে সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করতে শাহজাদপুরের বিভিন্ন স্থানে ভাগে ভাগে পশুর হাট বসানো হবে। সেইসাথে এসব পশুর হাটে জালনোটের বিস্তার রোধ, ছিনতাই, চাঁদাবাজিসহ বিশৃঙ্খলা নানামুখী উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মোঃ শামসুজ্জোহা ও থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আতাউর রহমান জানিয়েছেন।

একই বিভাগের সংবাদ

Back to top button
x
Close
Close
%d bloggers like this: