শাহজাদপুরের রতনকান্দিতে মহান বিজয় দিবস পালিত হয়নি

শাহজাদপুর প্রতিনিধি : স্বাধীনতার ও রতনকান্দি উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪৬ বছর অতিবাহিত হলেও আজও সেখানে কোন শহিদ মিনার নির্মাণ না করায় প্রায় ৮’শ ছাত্র-ছাত্রী, অভিভাবক ও এলাকাবাসীর মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। ১৯৭০ সালে ওই বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠালাভ করলেও অজ্ঞাত কারণে সেখানে আজও নির্মাণ করা হয়নি কোন শহীদ মিনার। বৃহৎ ওই গ্রামের আশেপাশে কোন শহিদ মিনার না থাকায় মহান বিজয় দিবস, স্বাধীনতা দিবস, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ছাত্র-ছাত্রী, কিশোর, কিশোরী, অভিভাবকসহ এলাকাবাসী ৫২’র ভাষা আন্দোলন ও ৭১’র মহান মুক্তিযুদ্ধে নিহত শহিদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে পারছেন না। এলাকার বিজ্ঞ মহল এ জন্য ওই স্কুল কর্তৃপক্ষকেই এ জন্য দোষারোপ করছে। তবে ওই উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোলাম কিবরিয়া এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘ইতিপূর্বে ইউএনও রাসেল সাবরিন স্কুলে শহিদ মিনার নির্মাণ করে দিতে চেয়েছিলেন। ওই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান বাচ্চু সরকারও ওই বিদ্যালয়ে একটি শহিদ মিনার নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান ও বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দুল মজিদ সরকারও ফের একই আশ্বাস দিয়েছেন। এলাকাবাসী শুধু আশ্বাসই পেয়ে গেলো।’ কাজের কাজ কিছু হচ্ছে না। বিগত বছরগুলোতে বাঁশ ও কলাগাছ দিয়ে শহিদ মিনার তৈরি করে ছাত্র-ছাত্রী ও এলাকাবাসী বীর শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করলেও এবার তাও করতে পারেনি ছাত্র-ছাত্রীরা। প্রধান শিক্ষক গোলাম কিবরিয়া আরও বলেন,‘ ১৬ ডিসেম্বরে স্কুল প্রাঙ্গণে মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। এভাবেই বিজয় দিবস পালন করা হয়েছে।’
তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, শাহজাদপুরের সর্ব বৃহৎ গ্রাম হিসেবে পরিচিত রতনকান্দি গ্রাম। এক সময় রতনকান্দি গ্রামকে বলা হত আদর্শ গ্রাম। তৎকালীন সমাজসেবক ও চেয়ারম্যান জতু ডাক্তার কর্তৃক স্কুলের জন্য জমিদান এবং এলাকাবাসীর সহযোগিতায় প্রতিষ্ঠিত হয় রতনকান্দি আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়। প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকেই রতনকান্দি সহ আশে পাশের চার পাঁচ গ্রামের ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিচ্ছে রতনকান্দি আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়। কথায় আছে ‘পুথিগত বিদ্যা আর পরহস্তের ধন, নহে বিদ্যা নহে ধন হলে প্রয়োজন’। তেমনি পুথিগত বিদ্যাই কি সব ? বাহান্নোর ভাষা আন্দোলন হতে শুরু করে ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে যাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা পেয়েছি স্বাধীন বাংলাদেশ, তাদের প্রতি যথাযথ সম্মান প্রদর্শন ও শ্রদ্ধাঞ্জলী জানানোর জন্য সারাবাংলার মানুষ শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে থাকে। কিন্তু বাস্তবতা হল রতনকান্দি আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীসহ এলাকার মানুষ বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলী জানানোর অন্তনীড় ইচ্ছা পোষণ করলেও দীর্ঘ সময়েও সেখানে কোন শহীদ মিনার নির্মাণ না করায় সবাই হতবাক ! ওই বিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বিভিন্ন সময় অতিথি হিসেবে আগতরা অনেকবারই বিদ্যালয় চত্বরে একটি শহিদ মিনার নির্মাষেণর আশ্বাস দিলেও , তা কেবল আশ্বাসের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থেকেছে। কাজের কাজ কিছু হয়নি। প্রতি বছর বিদ্যালয়ের ছাত্রদের উদ্যোগে বাঁশ ও কলাগাছ দিয়ে অস্থায়ী শহীদ মিনার স্থাপন করে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস, মহান স্বাধীনতা দিবস, ও মহান বিজয় দিবসে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পণ করে আসছে। কিন্তু গত ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস-২০১৬ যথাযথ ভাবে ওইস্থানে পালিত হয়নি। মহান বিজয় দিবস-২০১৬ যথাযথ মর্যাদায় পালন না করায় আন্তর্জাতিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে অনেকে এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন ও চরম ক্ষোভ ও অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। সকলের মনে একটাই প্রশ্ন, কেন যথাযথ মর্যাদায় মহান বিজয় দিবস সেখানে পালন করা হয়নি ? এর দায় দায়িত্ব কে নেবেন ? এ ব্যাপারে রতনকান্দি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এর সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ‘বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে মিলাদ মাহফিল করা হয়েছে। হাবিবুল্লাহনগর ইউপি চেয়ারম্যান ও অত্র বিদ্যালয়ের সভাপতি আব্দুল মজিদ সরকার বিদ্যালয়ে একটি স্থায়ী শহিদ মিনার স্থাপনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

এখানে মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.