লকডাউনে ‘১৫ হাজার মানুষকে’ টেলিমেডিসিন সেবা দিয়েছে যুবলীগ

করোনাভাইরাস মহামারীর দ্বিতীয় ডেউয়ে লকডাউনের মধ্যে ১৫ হাজার মানুষকে বিনামূল্যে সেবা দেওয়ার কথা জানিয়েছে যুবলীগের ‘টেলিমেডিসিন সেবা টিম’।

যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ মঙ্গলবার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, যুবলীগের এই টেলিমেডিসিন টিম দিনরাত নিরলসভাবে কাজ করে গেছে।

“এই দুর্যোগ ও মহামারীর সময় যদি আমরা মানুষের পাশে না দাঁড়াতে পারি, আর কখন দাঁড়াব? এই অনুভূতি আর চেতনা থেকেই যুবলীগের চিকিৎসকরা দিনরাত মানুষকে বিনামূল্যে টেলিমেডিসিন সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।”

যুবলীগের কমিটিতেই প্রায় ১৫ জন ‘প্রতিষ্ঠিত’ ডাক্তার আছেন এবং তাদের নেতৃত্বেই এ সেবা চলছে জানিয়ে সংগঠনের চেয়ারম্যান বলেন, “আমরা গত বছরও স্বাস্থ্যসেবা দিয়েছি, এবছরও সেটার পুনরাবৃত্তি করছি। এবছর আমরা অলরেডি ১৫ হাজার মানুষকে টেলিমেডিসিন সেবা দিতে পেরেছি।”
চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ এবং সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিলের উদ্যোগে গত ৫ এপ্রিল শতাধিক চিকিৎসককে নিয়ে যুবলীগের এই টেলিমেডিসিন টিম কাজ শুরু করে।

নিখিল বলেন, “ঘরে বসেই যেন মানুষ চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পারে, সেজন্য টেলিমেডিসিন সেবার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। জনগণ কিছুটা উপকার পেলেই আমরা সার্থক।”

এই সেবা কার্যক্রমের সমন্বয় কমিটির প্রধান সমন্বয়ক হিসেবে আছেন যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য খালেদ শওকত আলী। সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করছেন সাংগঠনিক সম্পাদক হেলাল উদ্দিন, স্বাস্থ্য সম্পাদক ফরিদ রায়হান, উপ-স্বাস্থ্য সম্পাদক মাহফুজার রহমান উজ্জ্বলসহ কয়েকজন।

হেলাল উদ্দিন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রান্ত চিকিৎসা পরামর্শের পাশাপাশি মা ও শিশু, ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, কিডনি জটিলতাসহ বিভিন্ন সমস্যার বিষয়ে মানুষকে পরামর্শ ও সেবা দিচ্ছেন তাদের চিকিৎসক দল।

“বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল, আর যেসব জায়গায় লকডাউনের কারণে মানুষ ঘরের কাছের চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত ছিল, যুবলীগের এই টেলিমেডিসিন টিমের সেবার কারণে তারাও হাতের নাগালে চিকিৎসা পরামর্শ পেয়েছেন।”

সূত্রঃ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম