বালুর স্তুপের পানি গড়িয়ে তলিয়ে গেছে কৃষকের স্বপ্ন

শাহজাদপুর উপজেলা রুপবাটী ইউনিয়ের বড়ধুনাইল গ্রামে বালু স্তুপের পানির গড়িয়ে শত শত বিঘা নতুন রোপনকৃত ধান ও অনেক মুল্যবান ইরিধানের বীজতলা প্রায় হাটু পানির নিচে তলিয়ে গেছে।

সরেজমিনে এলাকা ঘুরে দেখা যায়, অপরিকল্পিতভাবে বালুর স্তুপ করায় ড্রেজিং এর পানি গড়িয়ে বড়ধুনাইল গ্রামে বোরো মৌসুমে বীজতলাসহ রোপনকৃত প্রায় ২শত বীঘা জমি পানিতে তলিয়ে গেছে। দিশেহারা হয়ে পরেছে স্থানীয় কৃষকেরা। এর প্রতিকার চেয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরছে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকেরা।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকগণ জানায়, সেনাবাহিনী তত্বাবধানে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান উপজেলার রুপবাটি ইউনিয়নের আন্ধারমানিক গ্রামের পাশে বড়াল নদীতে নদী খনন প্রকল্পের কাজ করছে। আন্ধারমানিক বাধের পাশে অনেক জায়গা লিজ নিয়েছে ইউনিয়নের ৮নং ইউপি সদস্য আবুল কাশেম। সেনাবাহিনীর কাছ থেকে জমি ভরাটের কথা বলে বিনামুল্যে বালু নিয়ে বাধের পাশে স্তুপাকারে রাখছেন ইউনিয়নের ৮নং ইউপি সদস্য আবুল কাশেম। পরবর্তীতে ঐ বালু বাইরে বিক্রী করবেন বলে জানায় স্থানীয়রা। ইউপি সদস্য আবুল কাশেম ব্যাবসার লক্ষ্যে অপরিকল্পিতভাবে বালুর স্তুপ করায় ড্রেজিং এর পানি গড়িয়ে বড়ধুনাইল গ্রামে বোরো মৌসুমে বীজতলাসহ রোপনকৃত প্রায় ২শত বীঘা জমি পানিতে তলিয়ে গেছে। এর প্রতিকার চেয়েছে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকেরা ইউপি সদস্য কাশেমের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল করে।

এ ব্যাপারে, ইউপি সদস্য আবুল কাশেম বালু ব্যাবসা করবেন স্বীকার করলেও তিনি বলেন, আমি আমার নিজস্ব জমিতে বালু ভরাট করছি। আর যে জমিগুলো তলিয়ে গেছে সেগুলো সব সরকারি খাস জমি এগুলো কাহারো নিজস্ব জমি নয়।

এ ব্যাপারে সেনাবাহিনীর তত্বাবধানে কাজ করা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বি.টি.সি.এম.এল.ভি এর প্রকল্প পরিচালক মোঃ রিদোয়ানুল ইসলাম বলেন, কাজ করতে ক্ষুদ্র কিছু সমস্যা হতে পারে। তবে বিষয়টি সচিব মহোদয় এবং পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাথে আমাদের কথা হয়েছে। দু একদিনের মধ্যে ভেরিবাঁধ এর সুইজগেইট খুলে দেয়া হবে তখন পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা তৈরি হলে জমিতে পানি আর আটকে থাকবেনা।