বন্যার কবলে পড়ে দিশেহারা বেলকুচির মানুষঃ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ঘরবাড়িসহ কয়েক’শ একর আবাদি জমি তলিয়ে গিয়েছে

 

Belkuchi Flood Picture 15-06-15বেলকুচি প্রতিনিধিঃ যমুনা নদীর উত্তাল তরঙ্গ ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে বন্যার কবলে পড়েছে বেলকুচি উপজেলার বেলকুচি ইউনিয়ন ও বড়ধুল ইউনিয়নের মানুষ। গত ৩-৪ দিনের ব্যবধানে প্রায় সহস্রাধিক ঘরবাড়ি ও চরাঞ্চলের আবাদী ভুমি তলিয়ে গেছে বন্যায়। বেলকুচির বড়ধুল ইউনিয়নের ক্ষিদ্রমাটিয়া, বড়ধুল, বাঙ্গুয়া লক্ষ্মীপুর গ্রামের মানুষ ভাসছে বন্যায়। বিশেষ করে গবাদী পশু নিয়ে বিপাকে পড়েছে উক্ত এলাকা বন্যা কবলিত মানুষ।

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে বেলকুচি উপজেলার বেলকুচি ইউনিয়নে প্রবাহিত যমুনা নদীতে আকস্মিক পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় তীব্র ঘূর্ণাবর্তের সৃষ্টি হয়ে তীরবর্তী এলাকায় শুরু হয়েছে ভয়াবহ ভাঙ্গন। ড্রেজিংয়ের অভাবে পলি জমে মাঝ নদীতে চর জেগে ওঠায় পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নদীর গতি পথ পাল্টে তীরবর্তী এলাকায় ভাঙ্গন শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন বন্যা কবলিত মানুষ গুলো। বগুড়ার সারিয়াকান্দি ও সিরাজগঞ্জের শহর রক্ষা বাধ রক্ষা না হওয়ার কারনেই আমাদের এ দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, বেলকুচি ইউনিয়নের সোহাপুর চর, রতনকান্দী, মুলকান্দী গ্রাম তলিয়ে গিয়েছে। যেখানে সামান্য উচু আছে সেখানেই উক্ত গ্রামের মানুষ গবাদী পশু রেখে রাত জেগে পাহাড়া দিচ্ছে। তলিয়ে গিয়েছে কয়েকশত একর আবাদী জমি। স্থানীয়বাসীরা জানায়, তাদের পূর্ব কোন ব্যবস্থা না থাকায় বিপাকে পড়েছে হাজারো মানুষ।

এ বিষয়ে বড়ধুল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফরিদ আহম্মেদ বলেন, বন্যা কবলিত মানুষের কোন খাদ্য সংকট, পানিয় জলের অভাব যাতে না হয় এবং বন্যাপরবর্তী কোন রোগ বালাই যাতে ছড়িয়ে না পড়ে তার জন্য সরকারী ভাবে পূর্ব ব্যবস্থা গ্রহনের জোড় দাবি জানাচ্ছি।

এখানে মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.