পরিচালক কাজী হায়াৎ আইসিইউতে

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস নিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন পরিচালক কাজী হায়াতের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে(আইসিইউ) নেওয়া হয়েছে।

রাজধানীর ধানমণ্ডির পপুলার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে প্রায় এক সপ্তাহ ধরে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন ৭৪ বছর বয়সী এ পরিচালক।

শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে রবিবার রাতে তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়েছে বলে জানান হাসপাতালের দায়িত্বরত কর্মকর্তা জনি।

বাবার অসুস্থতার খবরে যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফিরেছেন কাজী হায়াতের ছেলে চিত্রনায়ক কাজী মারুফ।

মারুফ বলেন, “বাংলাদেশের অনেক মানুষ আপনারা আমার বাবাকে ভালোবাসেন। আমার আব্বার জন্য দোয়া করবেন যেন উনাকে সুস্থ করে বাসায় নিয়ে যেতে পারি।”

১০ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী বাসায় থেকে তিনি চিকিৎসা নিচ্ছিলেন কাজী হায়াৎ; পরে শ্বাসকষ্ট বাড়তে থাকায় রোববার তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এর আগে ২ মার্চ করোনাভাইরাসের টিকা নিয়েছিলেন কাজী হায়াৎ; টিকা নেওয়ার সপ্তাহখানেকের মাথায় সস্ত্রীক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন তিনি।

করোনাভাইরাসের পাশাপাশি কয়েক বছর ধরে ডায়াবেটিস ও হৃদযন্ত্রের জটিলতায় ভুগছেন কাজী হায়াৎ; তার হার্টে রিং পরানো হয়েছে।

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত এ পরিচালক তার দীর্ঘ ক্যারিয়ারে দাঙ্গা, ত্রাস, চাঁদাবাজ, আম্মাজান, ইতিহাস, কাবুলিওয়ালাসহ বেশ কয়েকটি দর্শকপ্রিয় চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন।

চলতি বছরের এপ্রিলে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির দ্বিবার্ষিক নির্বাচনে একটি প্যানেল থেকে সভাপতির পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন কাজী হায়াৎ, তার প্যানেলে মহাসচিব হিসেবে নির্বাচন করবেন এস এ হক অলিক।