নাসিমকে হাসপাতালে দেখতে গিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু

১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর কেন্দ্রীয় কারাগারে হত্যা করা হয় জাতীয় চার নেতাকে। তারা হলেন, মুক্তিযুদ্ধকালীন অস্থায়ী সরকারের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদ, মন্ত্রিপরিষদের সদস্য এম মনসুর আলী ও এইচএম কামরুজ্জামান। তারা বঙ্গবন্ধুর খুব ঘনিষ্ট ছিলেন। বর্তমানে ওই চার নেতার পরিবারের ৯ জন সদস্য আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তাদের মধ্যে রয়েছেন এম মনসুর আলীর দুই ছেলে মোহাম্মাদ নাসিম ও ড. মোহাম্মদ সেলিম এবং নাসিমের ছেলে তানভীর শাকিল জয়।

জাতীয় নেতা ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী এম মনসুর আলীর ছেলে মোহাম্মদ নাসিম মুক্তিযুদ্ধের সময় একজন সংগঠক ছিলেন। এসএসসি পরীক্ষার সময় তিনি পাকিস্তান সরকারের নীতির বিরোধিতা করে আন্দোলনে অংশ নেন। এরপর তাকে কারাগারে নেওয়া হয়। জেল থেকেই তিনি সাফল্যের সঙ্গে পরীক্ষায় পাস করেন এবং পাবনা এডওয়ার্ড কলেজে ভর্তির আবেদন করেন। কিন্তু কয়েদি হওয়ায় তাকে কলেজে ভর্তি করা হয়নি। পরে তিনি জগন্নাথ কলেজে (বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়) ভর্তি হন।

মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি ছাত্রলীগের নেতা ছিলাম। ১৯৬৬ সালে পাকিস্তান সরকার তাকে ও তার বাবাকে গ্রেফতার করে। পরে পাবনা কারাগারে তাদের একই সেলে এক বছর রাখা হয়।

কারাগারে অসুস্থ হয়ে পরলে নাসিমকে ডাক্তার উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় নিয়ে যেতে বলেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ কথা শুনে তাদের জন্য বিমানের দুটি টিকিট পাঠিয়েছিলেন। সে সময় এম মনসুর আলীকে ছেলের জন্য কিছু পরামর্শও দেন বঙ্গবন্ধু। ডাক্তারের পরামর্শ মেনে চলার নির্দেশ দিয়েছিলেন। এমনকি হাসপাতালে নাসিমকে দেখতেও গিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু তখন মাথার কাছে বসে নাসিমকে সাহস দিয়েছেন। যেই সাহস তাকে আজীবন কাজে দিয়েছে।

রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর বঙ্গবন্ধু তাঁদের বাড়িতেও গিয়েছিলেন। নাসিমকে ছেলের মতো ভালোবাসতেন বঙ্গবন্ধু।

১৯৭৫ সালে যখন বঙ্গবন্ধু এবং তার পরিবারের সদস্যদের হত্যা করা হয় তখন মোহাম্মদ নাসিম বাংলাদেশ কৃষক-শ্রমিক লীগের পাবনা শাখার সাধারণ সম্পাদক ও যুব লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ছিলেন। ওই সময় তিনি আত্মগোপনে চলে যান এবং সেখান থেকে রাজনৈতিক আন্দোলনের সমন্বয় করতেন। একই বছরের আগস্টের শেষ দিকে খন্দকার মোশতাক আহমেদের মন্ত্রিপরিষদে যোগ দিতে অস্বীকৃতি জানালে মোহাম্মদ নাসিমের বাবা ও বাকি তিন নেতাকে গ্রেফতার করে সামরিক সরকার।

১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর জেলের মধ্যে চার নেতাকে হত্যা করা হলে মোহাম্মদ নাসিম ভারতে পালিয়ে যান এবং সেখানেই চার বছর ছিলেন। ১৯৮০ সালে দেশে ফিরে আসলে পাবনা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পরে জাতীয় চার নেতাকে যে সেলে হত্যা করা হয় ঘটনাক্রমে তাকেও সেই সেলে রাখা হয়।

এখানে মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.