‘ঘরোত ভাত নাই, জারের কাপড় কিনব্যার পাই না’

ঘন কূয়াশার সঙ্গে হিমেল হাওয়ার কারণে কুড়িগ্রামে জেঁকে বসেছে শীত। নদ-নদী তীরবর্তী চরাঞ্চলের মানুষ পড়েছে চরম দুর্ভোগে। নদী ভাঙনের শিকার ৮ হাজার পরিবারসহ চার শতাধিক চরের হত দরিদ্র দিনমজুর পরিবার কর্মহীনতা ও অর্থাভাবে শীতবস্ত্র সংগ্রহ করতে পারছে না। পাশাপাশি সরকারিভাবে এখনো শীতবস্ত্র বিতরণ না হওয়ায় দুর্ভোগ বাড়ছে কয়েক লাখ মানুষের।

এ বছর কুড়িগ্রাম দেড় মাস স্থায়ী ৫ দফা বন্যায় ব্যাপক ফসলহানি হয়েছে। আবাদী জমি ঢেকে গেছে বালুতে। নদী ভাঙনের শিকার ৮ হাজার পরিবার রাস্তা, বাঁধ ও উঁচু স্থানে আশ্রয় নিয়ে অপেক্ষায় আছেন পুণর্বাসনের। এ অবস্থায় টানা কর্মহীনতা আর চালের দাম বৃদ্ধির কারণে অভাব জেঁকে বসেছে চরে। গত কয়েকদিন ধরে ‘মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা’ হিসেবে জেঁকে বসেছে তীব্র শীত। অর্থাভাবে শীতবস্ত্র সংগ্রহ করতে না পেরে শিশু, নারী ও বয়স্ক মানুষরা চরম কষ্টে পড়েছেন।
কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার সারডোব গ্রামের শতাধিক পরিবার এ বছর ধরলার ভাঙনের শিকার হয়ে রাস্তা ও বেড়ি বাঁধে আশ্রয় নিয়ে আছেন। অনেকেই নদীর পাড়ে ঝুপড়ি তুলে ঝুঁকি নিয়ে বাস করছেন। এলাকায় কাজ না থাকায় অনেক পুরুষ ও শিশু-কিশোররা কাজের সন্ধানে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে চলে গেছেন। কিন্তু নারী, শিশু ও বয়স্করা এক কাপড়েই পার করছেন কনকনে শীত।

সারডোবের বাসিন্দা ফাতেমা বেগম বলেন, ‘কামাই নাই। চাউলের দাম বেশী। ঘরোত ভাত নাই। জারের কাপড় কিনব্যার পাইনা।’ প্রতিবেশী মকবুল মিয়া বলেন, ‘নদী ভাঙা মানুষ ছাপড়া তুলি আছি। কাজ কামাই নাই। ছওয়া পোওয়ার জামাজোরা দিবার পাই না।’ একই গ্রামের মেহেরন বেগম বলেন, রাস্তার উপর‌্যা ছায়লা তুলি আছি। খেতা কাপড় নাই। খাবার নাই। স্বামী অসুস্থ। এলা খুঁজি মিলি খাবার নাগছি।’

নদ-নদী তীরবর্তী ও চরাঞ্চলের শীত কবলিত মানুষের অভিযোগ, এখনো সরকারিভাবে কোনো কম্বল বা শীতবস্ত্র পাননি তারা। সরকারি কম্বল সুষ্ঠুভাবে বিলিবন্টহ হবে কি-না এ নিয়ে শঙ্কাও রয়েছে তাদের। কেচু মামুদ হলোখানা গ্রামের এক বাসিন্দা বলেন, ‘বুড়ামাটা জামা গাত দিয়া আছি। সরকার এলাও কম্বল দেয় নাই। দিলেও হামরা পামো না পামো সেটা আল্লায় জানে।’
সারডোবের ইউপি সদস্য বাহিনুর ইসলাম ও মোক্তার আলী জানান, বন্যায় এলাকার সব কিছু ভেসে গেছে। জমিতে বালু পড়েছে, আবাদ নেই। এ কারণে মানুষ কাজ ও খাদ্য সংকটে পড়েছে। শীতের কাপড় কেনার সংগতি নেই কারো। তাই সরকারি কম্বলের আশায় সবাই আছে। কিন্তু এখনো কোন বরাদ্দ পাননি তারা।

জেলা ত্রাণ ও পূণর্বাসন কর্মকতা মো: আব্দুল হাই জানান, প্রাথমিকভাবে জেলার শীতার্ত মানুষের জন্য ১ লাখ কম্বল চাওয়া হয়েছে। তবে বরাদ্দ পাওয়া গেছে ৩৫ হাজার কম্বল। এগুলো উপজেলা পর্যায়ে বিলিবন্টন করে দেয়া হয়েছে। এছাড়া প্রতি উপজেলার জন্য ৬ লাখ টাকা শীতবস্ত্র কেনার জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। যা বিতরণের প্রক্রিয়া চলছে।