আগামী কয়েকদিনে করোনা পরিস্থিতি কঠিন হবে: কাদের

দেশে আগামী কয়েকদিনে করোনা পরিস্থিতি আরো কঠিন হবে জানিয়ে সাবধানতা অবলম্বন করতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।বুধবার (২৭ মে) দুপুরে সংসদ ভবন এলাকায় নিজের সরকারি বাসভবনে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা উদ্বোগের সঙ্গে লক্ষ‌্য করছি, অধিকাংশ মানুষের মাঝে ধৈর্য‌্য শৃঙ্খলার ঘাটতি দেখা যাচ্ছে।  অনেকে স্বাস্থ‌্যবিধি মেনে ঘরে অবস্থান করলেও অনেকেই এসব কানে তুলছে না। স্বাভাবিক সময়ের মতো ঘোরাফিরা করছেন। হাটে বাজারে ভিড়ে সমাগমে অংশ নিচ্ছেন। স্বাস্থ‌্যবিধি সামাজিক দূরত্ব মেনে চলছেন না।’

‘এই উদাসীনতা নিজ ও আশপাশের জন‌্য ভয়াবহ বিপদ ডেকে আনছেন।  অবনিত ঘটাচ্ছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ উদ‌্যোগের।  শহরে গ্রামে সর্বত্র সংক্রমণ ও মৃত্যু বাড়ছে।  কাজেই দয়া করে আসুন সবাই সচেতন হই।  স্বাস্থ‌্যবিধি সামাজিক দূরত্ব মেনে চলি।  কারণ প্রতিকার সমাধান নয়।  এই ভাইরাস থেকে বাঁচতে সুরক্ষা পেতে প্রতিরোধের কোনো বিকল্প নেই।’

তিনি বলেন, একজনের সামন‌্যতম শৈথিল‌্য তার নিজ পরিবার এবং পাশ্ববর্তী সবার জন‌্য ভয়াবহ বিপদ ডেকে আনতে পারে। ঈদের প্রাক্কালে গ্রামে ও শহরে মানুষের অবাধ বিচরণ করোনা সংক্রমের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিয়েছে।

করোনা সংক্রমণের দিক দিয়ে বাংলাদেশের অবস্থানের আরো অবনতি হয়েছে জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘ইতিমধ‌্যে বিশ্বে আক্রান্ত ২১৫টি দেশ এবং অঞ্চলের মধ‌্যে বাংলাদেশের অবস্থানের আরো অবনিত হয়েছে।  বাংলাদেশের অবস্থা বর্তমানে ২৩তম।  এই সংক্রমণ থেকে ছোট-বড়, ধনী-দরিদ্র কেউই রেহাই পাচ্ছে না।  প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে রেহাই পেতে প্রতিরোধ ব‌্যবস্থা জোরদার তথা সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই।  সামনের কঠিন সময়ে আসুন আমরা ঐক‌্যবদ্ধ হয়ে সম্মিলিতভাবে প্রতিরোধ গড়ে তুলি।’

‘আগামী কিছুদিন বাংলাদেশে পরিস্থিতি আরো কঠিন হবে বলে বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।  ধৈর্যহারা না হয়ে সাবধানতা অবলম্বনের জন‌্য আমি আবারো আহ্বান জানাচ্ছি।’

করোনা সংকটে সরকারের উদ‌্যোগ বিশ্বব‌্যাপী প্রশংসা পেলেও বিএনপির সমালোচনাকে ‘নেতিবাচতক রাজনীতি’ হিসেবে অভিহিত করেন ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, ‘নিজেরা জনগণের পাশে দাঁড়াবে না, ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের খোঁজ-খবর নেবে না, অথচ মিডিয়া সরকারের সমালোচনা করবেন এটাই কি বিএনপির রাজনীতি। পবিত্র ঈদের দিনেও জনগণ তাদের মুখের বিষ থেকে রেহাই পাননি।’

‘সরকার একদিকে করোনা সংক্রমণ রোধ ও আক্রান্তদের চিকিৎসা অব‌্যাহত অপরদিকে ঘূর্ণিঝড় ক্ষতিগ্রস্তদের সুরক্ষায় মনোনিবেশ করেছে।  করোনা সংকট ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে এটাই প্রমাণিত হয়েছে যে, শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগই জনগণের পাশে থাকে। দুর্যোগের মানুষের পাশে দাঁড়ানো আওয়ামী লীগের ঐতিহ‌্য’, বলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

তথ্যসূত্রঃ এবিএন

এখানে মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.