অনুমতির পরও কাঁচা চামড়া রপ্তানির সম্ভাবনা কম

অনুমতির পরও কাঁচা চামড়া রপ্তানির সম্ভাবনা কম

অনুমতি দেয়া হলেও প্রস্তুতি না থাকায় এবারের ঈদে কাঁচা চামড়া রপ্তানির সম্ভাবনা কম বলছেন ব্যবসায়ীরা। তাদের মতে, কাঁচা চামড়ার আন্তর্জাতিক বাজার তৈরিতে চালাতে হবে প্রচার-প্রচারণা। যা সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। ক্রেতা আকর্ষণে সংশ্লিষ্ট দেশের হাইকমিশন ও দূতাবাসকে কাজে লাগানোর পরামর্শ অর্থনীতিবিদদের।

কোরবানির পশুর চামড়ার দামে বিপর্যয় ঠেকাতে ৩০ বছর পর কাঁচা ও ওয়েট-ব্লু চামড়া রপ্তানির সুযোগ দিয়েছে সরকার। কেস টু কেস ভিত্তিতে রপ্তানির অনুমতি দিয়ে ঈদের আগেই প্রজ্ঞাপন জারি করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত কার্যকর থাকবে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, রপ্তানির জন্য কাঁচা চামড়া প্রস্তত করতে দক্ষ শ্রমিকের অভাব রয়েছে। আর এত কম সময়ে ক্রেতা পাওয়ায় সম্ভব নয়। তাই ট্যানারিতে চামড়া দেয়া ছাড়া বিকল্প নেই।

ট্যানারি মালিকরা জানান, কাঁচা চামড়া রপ্তানিতে তাদের তেমন প্রস্তুতি নেই। তবে ওয়েট-ব্লু চামড়া রপ্তানি হতে পারে।

বিশ্লেষকরা জানান, কাঁচা চামড়ার প্রধান বাজার ভারত এবং চীন। কিন্তু করোনায় সেখানেও চাহিদা কম। কাঁচা চামড়া রপ্তানি শুরু হলে এ খাতে দীর্ঘদিনের মন্দা কাটবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।